বাঙালির জেগে ওঠার গল্প নিয়ে ‘জাগো বাহে’



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা ২৪.কম
সিরিজের একটি দৃশ্য

সিরিজের একটি দৃশ্য

  • Font increase
  • Font Decrease

বিজয়ের মাসে মুক্তি পেতে যাচ্ছে ওয়েব প্লাটফর্ম চরকির নতুন ওয়েব সিরিজ ‘জাগো বাহে’। বাঙালির জেগে ওঠার গল্প, দ্রোহের গল্প, প্রতিরোধ আর বিপ্লবের গল্প নিয়ে নির্মিত হয়েছে এটি। সংশ্লিষ্টরা জানায় বাংলাদেশের ইতিহাসের তাৎপর্যপূর্ণ তিনটি বছর— ১৯৫২, ৭০ ও ৭১’এর সময় উঠে এসেছে এতে।

আগামী ৯ ডিসেম্বর থেকে প্রতি সপ্তাহে এই সিরিজের একটি করে পর্ব মুক্তি পাবে।

সিরিজের ‘শব্দের খোয়াব’ পর্বটি পরিচালনা করেছেন সিদ্দিক আহমেদ, ‘লাইটস, ক্যামেরা... অবজেকশন’ করেছেন সালেহ সোবহান অনীম এবং সুকর্ণ শাহেদ ধীমান করেছেন ‘বাংকার বয়’।

সম্প্রতি, ‘জাগো বাহে’ সিরিজটির ট্রেইলার মুক্তি দিয়েছে চরকি। এ আয়োজনে প্রতিটি পর্বের আলাদা পোস্টার ও টিজারও উন্মোচিত হয়।

এ প্রসঙ্গে চরকির প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা রেদওয়ান রনি বলেন, ‘চরকি সবসময় বৈচিত্র্যময় কনটেন্ট নিয়ে আসার প্রতিশ্রুতি নিয়েই কাজ করে যাচ্ছে। এবার বিজয়ের মাসে আমাদের বিশেষ আয়োজন হচ্ছে জাগো বাহে। ডিসেম্বর মাসজুড়ে চলবে আমাদের এই আয়োজন।’

প্রতি সপ্তাহের বৃহস্পতিবার (৯-২৩ ডিসেম্বর) এই সিরিজটি বিশ্বব্যাপী প্রকাশিত হবে চরকির পর্দায়।


সিদ্দিক আহমেদ পরিচালিত ‘শব্দের খোয়াব’–এ দেখা যাবে ভাষা আন্দোলনের সময়কার একটি গল্প। এতে চঞ্চল চৌধুরীর বিপরীতে অভিনয় করেছেন ফারহানা হামিদ। সেই সঙ্গে এতে আরো আছেন লুৎফর রহমান জর্জ, একে আজাদ সেতুসহ আরও অনেকে।

১৯৭০ সালে পাকিস্তান চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডে আটকে দেওয়া হয় চলচ্চিত্রকার জহির রায়হানের কালজয়ী সিনেমা ‘জীবন থেকে নেয়া’। সেই ঘটনার ছায়া অবলম্বনেই সালেহ সোবহান অনীম সাজিয়েছেন তাঁর গল্প ‘লাইটস, ক্যামেরা... অবজেকশন’। এই পর্বে অভিনয় করেছেন মোস্তফা মন্‌ওয়ার, গাজী রাকায়েত, ইন্তেখাব দিনার, মীর নউফেল জিসান, অপর্ণা ঘোষ ও অশোক ব্যাপারী।

সুকর্ণ শাহেদ ধীমান পরিচালিত পর্বটির নাম ‘বাংকার বয়’। এতে অভিনয় করেছেন মোস্তাফিজুর নূর ইমরান ও আব্দুল্লাহ আল শান্ত। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের শেষ ভাগে যখন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে থাকা পাক সেনারা আত্মসমর্পণ করে ফেলে, এই গল্প সেই সময়ের এক পাকসেনা ও এক কিশোরের।

‘নগদ’ নিবেদিত চরকি অরিজিনাল অ্যান্থোলজি সিরিজ ‘জাগো বাহে’ প্রিমিয়াম কনটেন্ট হিসেবে চরকির অ্যাপ ও ওয়েবসাইট থেকে দেখা যাবে। ছবিটি দর্শক মাসিক, ছয় মাস ও ১২ মাসের সাবস্ক্রিপশন প্যাকেজ কেনার মাধ্যমে দেখতে পারবেন।

পৃথিবীর যেকোনো প্রান্ত থেকে ভিসা ও মাস্টার কার্ডের মাধ্যমে সাবস্ক্রিপশন কেনার মধ্য দিয়ে শুধু এই ছবিটিই নয়, আরও দেখা যাবে চরকি অরিজিনাল ওয়েব সিরিজ, অ্যান্থলজি সিরিজ, বাংলায় ডাব করা ভিনদেশি চলচ্চিত্র, স্বল্পদৈর্ঘ্যসহ আরও অনেক ধরনের বৈচিত্র্যময় কনটেন্ট।

শিল্পীদের কাজকে পেশা হিসেবে স্বীকৃতি দিতে আহ্বান সুবর্ণার



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা ২৪.কম
সুবর্ণা মুস্তাফা

সুবর্ণা মুস্তাফা

  • Font increase
  • Font Decrease

শিল্পীদের কাজকে পেশা হিসেবে স্বীকৃতি দিতে সংসদে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করলেন নন্দিত অভিনেত্রী ও সংসদ সদস্য সুবর্ণা মুস্তাফা। গত রোববার (২৩ জানুয়ারি) চলমান সংসদ অধিবেশনে দাঁড়িয়ে শিল্পীদের যাতনার কথা তুলে ধরেন তিনি। তার এ ভাষণ ইতিমধ্যেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে বিভিন্ন পেশার শিল্পী ও কলাকুশলীদের মাঝে।

সংসদে তিনি বলেন, “১৯৫২’র ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে, ৬৯’র গণঅভ্যুত্থান, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র, চরমপত্র, ট্রাকে চড়ে ক্যাম্প থেকে ক্যাম্পে একদল শিল্পী ছুটে যাচ্ছেন দেশের গানে, গণশক্তিতে মুক্তিযোদ্ধাদের উদ্বুদ্ধ করতে। শরণার্থী শিবিরে নিচ্ছেন সেবকের ভূমিকায়। নব্বইয়ের স্বৈরাচারী বিরোধী আন্দোলনে দিনের পর দিন রাজপথে কেটেছে এইসব শিল্পীদের। আর গত নির্বাচনে আমাদের শিল্পী সমাজের ভূমিকা প্রশংসারও ঊর্ধ্বে। এত গৌরবগাঁথার মধ্যে একটি বিষাদের ছায়া থেকেই যাচ্ছে। অবিশ্বাস্য হলেও সত্য, শিল্পী আমাদের দেশে এখনো কোনো স্বীকৃত পেশা নয়।”

মাসিক বেতনের প্রক্রিয়া নেই বিধায় শিল্পীরা ব্যাংক লোন নিতে পারেন না। অথচ তারা কোন কোন ক্ষেত্রে কোন চাকুরীজীবির চেয়েও বেশি আয় করে থাকেন। এ কথা জানিয়ে সুবর্ণা মুস্তাফা বলেন, “একজন সাধারণ কর্মচারী মাসিক বেতনের খতিয়ান দেখিয়ে ব্যাংক লোন নিতে পারেন। কিন্তু একজন প্রতিষ্ঠিত শিল্পী, যিনি ওই চাকরিজীবীর চেয়ে অবশ্যই বেশি আয় করেন, নিয়মিত আয়কর দেন, কিন্তু সমস্ত কাগজপত্র দেওয়ার পরও সামান্য একটি হোমলোন পান না। আমি ব্যাংককে দোষারোপ করছি না। তারা তাদের নিয়মের মধ্যেই থাকবেন। শুধু ভরসা করতে পারছেন না, একজন শিল্পী মাসে মাসে লোনের কিস্তি শোধ করতে পারবে। কারণ শিল্পী কোনো স্বীকৃত পেশা নয়।”

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনুরোধ জানিয়ে সুবর্ণা মুস্তাফা বলেন, “আপনি আমাদের শিল্পীদের সহায়। বারবার আমরা আপনার কাছেই ফিরে আসি। আপনার বাবা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মঞ্চনাটককে করমুক্ত করে দিয়েছিলেন। আপনার ভাই শহীদ শেখ কামাল মঞ্চে অভিনয় করতেন, সেতার বাজাতেন, ছবি আঁকতেন। আমি সেই সৌভাগ্যবানদের একজন, যে মঞ্চে অভিনয়রত অবস্থায় আপনাকে (প্রধানমন্ত্রী) মহিলা সমিতিতে দর্শকসারিতে পেয়েছিলাম। তাই আপনার কাছেই বলতে চাই, আপনি এই শিল্পী সমাজকে তাদের এই দীর্ঘদিনের বঞ্চনার হাত থেকে রক্ষা করুন। শিল্পীর পেশাকে স্বীকৃতি দিন।”

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত মহিলা আসন-৪ থেকে জয়লাভ করেন সুবর্ণা মুস্তাফা।

;

মেয়ের জন্য ‘জি লে জারা’ থেকে সরে যাচ্ছেন প্রিয়াঙ্কা



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
আলিয়া ভাট, প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও ক্যাটরিনা কাইফ

আলিয়া ভাট, প্রিয়াঙ্কা চোপড়া ও ক্যাটরিনা কাইফ

  • Font increase
  • Font Decrease

সদ্য মা হয়েছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। সারোগেসি পদ্ধতির মাধ্যমে গত ২২ জানুয়ারি কন্যা সন্তানকে স্বাগত জানিয়েছেন নিক জোনাস ও প্রিয়াঙ্কা চোপড়া দম্পতি।

কিন্তু প্রিয়াঙ্কার মা হওয়ার খবরে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে ‘জি লে জে’ ছবির নির্মাতাদের কপালে। কেননা গত বছরের শেষ দিকে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া, আলিয়া ভাট ও ক্যাটরিনা কাইফকে নিয়ে ছবিটি নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছিলেন ফারহান আখতার।

শোনা যাচ্ছে, ‘জি লে জারা’ থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। আর ছবিটি থেকে সরে যাওয়ার অন্যতম কারণ হলো- বলিউডের এই অভিনেত্রীর সন্তান।

বলিউড হাঙ্গামার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানা গেছে, এখন মেয়েকে নিয়েই সময় কাটাতে চান প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। তাই এখন আপাতত সব কাজ থেকে বিরত থাকতে চান এই অভিনেত্রী।

এদিকে, প্রিয়াঙ্কা চোপড়া যদি ছবিটি থেকে সরে দাঁড়ান তাহলে তার পরিবর্তে অন্য কাউকে নেওয়ার বিষয়ে ভাবছেন নির্মাতারা। যদিও বা এসব বিষয়ে এখনও পর্যন্ত কোন আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসেনি প্রিয়াঙ্কা বা নির্মাতাদের পক্ষ থেকে।

;

আমরা জানতাম না ভামিকা ক্যামেরাবন্দি হচ্ছে



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
মেয়ে কোলে আনুশকা শর্মা ও বিরাট কোহলি

মেয়ে কোলে আনুশকা শর্মা ও বিরাট কোহলি

  • Font increase
  • Font Decrease

“এত বছর ধরে আপনারা আমাদের যে ভালোবাসা দিয়েছেন তার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। আমরা খুশি হয়ে আপনাদের সঙ্গে এই মুহূর্ত ভাগ করে নিচ্ছি। বাবা-মা হিসেবে আমাদের একটা অতি সাধারণ অনুরোধ রয়েছে আপনাদের কাছে। আমরা নিজেদের সন্তানের গোপনীয়তা বজায় রাখতে চাই, এই কাজে আপনাদের সাহায্য ও সমর্থন প্রয়োজন। আমরা আগামীতেও নিশ্চিত করবো আমাদের সবরকমের কনটেন্ট আপনাদের কাছে পৌঁছে দিতে যা কিছু সহযোগিতা করা সম্ভব সেগুলো মেনে চলা। আমরা আবেদন জানাচ্ছি, দয়া করে আমাদের সন্তানের কোনওরকম ছবি আপনারা তুলবেন না বা কোথাও ছড়িয়ে দেবেন না। আশা করছি আপনারা বুঝবেন আমারা কোন পরিস্থিতি থেকে এই কথাগুলো বলছি এবং এর জন্য আগাম ধন্যবাদ।”


গত বছরের ১১ জানুয়ারি মুম্বাইয়ের ব্রিচ ক্যান্ডি হাসপাতালে মেয়ে ভামিকার জন্মের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক যৌথ বিবৃতি প্রকাশ করে পাপারাজ্জিদের কাছে এমনটাই অনুরোধ জানিয়েছিলেন বিরাট কোহলি ও আনুশকা শর্মা দম্পতি।

এরপর নিজেদের ভক্তদের সঙ্গে ভামিকার সঙ্গে কাটানো নানা মুহূর্ত শেয়ার করলেন তার সম্পূর্ণ মুখের ছবি কখনও দেখাননি বিরুষ্কা দম্পতি। এমনকি গত ১১ জানুয়ারি ছিলো ভামিকার প্রথম জন্মদিন। বিশেষ সে দিনটিতেও তার সম্পূর্ণ মুখের কোন ছবি প্রকাশ্যে আনেনি তারা।

কিন্তু এতো কিছু করেও শেষ রক্ষা হলো না, প্রকাশ্যে এসেই গেলো ভামিকার সম্পূর্ণ মুখটি।


গত ২৩ জানুয়ারি সাউথ আফ্রিকার বিরুদ্ধে তৃতীয় ওয়ানডে-তে হাফসেঞ্চুরি হাঁকান বিরাট কোহলি। ৬৩ বলে ৫০ রান করেই একটু অন্যভাবে সেলিব্রেট করতে দেখা যায় তাকে। আর ঠিক তখনই পর্দায় ভেসে ওঠে এক বছরের ভামিকার মুখ। গ্যালারিতে তখন মা অনুশকার কোলে। এক গাল হেসে চারদিকে তাকাচ্ছে সে।

সেই মুহূর্তের ভিডিও এক নিমেষে দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ে সোশ্যাল মিডিয়ায়। জন্মের এক বছর পর প্রথমবার ভামিকাকে দেখে মন ভাল হয়ে যায় সকলের।


কিন্তু বিষয়টি মোটেও পছন্দ হয়নি ভামিকার বাবা-মা বিরাট কোহলি ও আনুশকার শর্মার। মেয়ের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পর ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে এই তারকা দম্পতি লিখেছেন, “স্টেডিয়ামে আমাদের মেয়ের ছবি ক্যামেরাবন্দি হয়েছে এটি আমরা বুঝতে পেরেছি এবং সেই ছবি এখন সোশ্যাল মিডিয়ার হাত ধরে ছড়িয়ে পড়েছে সেটাও জানি। আমরা সবাইকে জানাতে চাই, আমি ও আনুশকা জানতাম না, যে ভামিকা ক্যামেরাবন্দি হচ্ছে। আমরা আগেও অনুরোধ করেছি, এবারও অনুরোধ করছি। ব্যক্তিগত কারণেই আমরা ভামিকার ছবি কোথাও প্রকাশিত হোক তা চাই না। আমাদের এই সিদ্ধান্তকে দয়া করে সম্মান জানানো হোক।”


তবে নেটিজেনদের একাংশ কিন্তু বিরাট ও অনুশকার সিদ্ধান্তকে সম্মান দিয়ে চ্যানেল কর্তৃপক্ষের প্রতিই ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন।

;

করোনা আক্রান্ত হয়েও শুটিং করলেন অমিতাভ



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা ২৪.কম
অমিতাভ রেজা চৌধুরী

অমিতাভ রেজা চৌধুরী

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনা আক্রান্ত হলেন নির্মাতা অমিতাভ রেজা চৌধুরী। তথ্যটি নিজেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানান ‘আয়নাবাজি’খ্যাত এ নির্মাতা। তিনি জানান, করোনা আক্রান্ত হলেও তিনি থেমে থাকেন নি। বিজ্ঞাপনের শুটিং চালিয়ে গেছেন ঘরে বসেই।

অমিতাভ রেজা বলেন, “আমি কোভিড পজেটিভ। হেয়ার স্পেশালিস্ট এসেছে বিদেশ থেকে। দুর্দান্ত একটা শুটের জন্য আমাদের পুরো টীম তৈরি। এর মাঝে এই বিপদ। অসুখ বিসুখ কখনো কিছু করতে পারে নাই আমাকে, ৩০ বছরের অ্যাঙ্কিলোসিস স্পডিলিটিস নিয়ে যখন পার করছি তখন কোভিড কি করবে? শুটিং অবশ্য সময় মতো হতে হবে। নিজে ঘরে থেকে পুরো শুটিং শেষ হলো। ”

তার মতে, বিজ্ঞাপনচিত্র নির্মাণ খুব বিশেষ কিছু না , কিন্তু যেকোনো পরিস্হিতিতে শুট চালিয়ে যাওয়া যায় যদি সঠিক পূর্ব প্রস্তুতি এবং পেশাদার দল থাকে। বিজ্ঞাপনচিত্রটিতে অভিনয় করেছেন বিদ্যা সিনহা মিম।

খুব শিগগিরই এটি টিভি পর্দায় দেখা যাবে।

;