চীনের ১৯টি যুদ্ধবিমান ও ৭টি নৌযান সনাক্ত করেছে তাইওয়ান



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

তাইওয়ানের জাতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় (এমএনডি) জানিয়েছে, দেশটি বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৬টা পর্যন্ত নিজেদের জলসীমায় চীনের ১৯টি সামরিক বিমান এবং ৭টি নৌযান সনাক্ত করেছে।

তাইওয়ানের জাতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মতে, ওই ১৯টি বিমানের মধ্যে ১২টি তাইওয়ান প্রণালীর মধ্যরেখা অতিক্রম করেছে।

তাইওয়ান নিউজ জানিয়েছে, এই পদক্ষেপের পর চীনের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করতে ওই জলসীমায় বিমান, নৌজাহাজ এবং বিমান প্রতিরক্ষা ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা মোতায়েন করেছে তাইওয়ান।

এক্স-এ শেয়ার করা এক বিবৃতিতে তাইওয়ানের জাতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ‘গত ২৪ ঘণ্টায় তাইওয়ানের আশেপাশে চীনের ১৯টি যুদ্ধবিমান এবং ৭টি নৌজাহাজ চলাচল করেছে। এর মধ্যে ১২টি বিমান তাইওয়ান প্রণালীর মধ্যরেখা অতিক্রম করেছে। তাইওয়ানের সশস্ত্র বাহিনী পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে প্রতিক্রিয়া হিসাবে যুদ্ধবিমান, নৌবাহিনীর জাহাজ এবং উপকূলীয় ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা মোতায়েন করেছে।’

তাইওয়ান নিউজের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, ফেব্রুয়ারিজুড়ে নিজেদের এলাকায় চীনা যুদ্ধবিমান ২৫৩ বার এবং নৌজাহাজ ১৫০ বার সনাক্ত করেছে তাইওয়ান।

প্রসঙ্গত, ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর থেকে তাইওয়ানের আশেপাশে সামরিক বিমান এবং নৌজাহাজের টহল তীব্র করেছে চীন।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ইউএস ইন্দো-প্যাসিফিক কমান্ডের নেতৃত্বদানকারী মার্কিন অ্যাডমিরাল স্যামুয়েল পাপারো সতর্ক করে বলেছিলেন, চীন শীঘ্রই তাইওয়ানের আক্রমণ ঠেকানোর জন্য সামরিক মহড়া ব্যবহার করার ক্ষমতা পেতে পারে।

পাপারো আরও বলেছিলেন, ‘চীনে অর্থনৈতিক ও জনসংখ্যাগত সমস্যা এবং পিএলএ-এর মধ্যে দুর্নীতি সঙক্রান্ত কেলেঙ্কারি থাকা সত্ত্বেও বেইজিংয়ের নেতৃত্ব তাদের উচ্চাকাঙ্ক্ষায় অটল।’

   

ঈসমাইল হানিয়ার সঙ্গে এরদোয়ানের বৈঠক



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

তুরস্ক সফররত ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাসের নেতা ইসমাইল হানিয়ার সঙ্গে বৈঠক করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান। বৈঠকে ফিলিস্তিনিদের ঐক্যের বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান।

শনিবার (২০ এপ্রিল) ইস্তাম্বুলে এই দুই নেতা প্রায় আড়াই ঘণ্টা বৈঠক করেন বলে জানিয়েছে তুরস্কের সংবাদমাধ্যমগুলো।

হামাস প্রধান ঈসমাইল হানিয়াকে ইস্তাম্বুলের দোলমাবাখ প্রাসাদে স্বাগত জানানো হয়। এ সময় তার সঙ্গে তার প্রতিনিধি দলের সদস্যরাও ছিলেন। যার মধ্যে ছিলেন হামাসের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নেতা খালেদ মাশালও।

তুরস্কের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম টিআরটি জানিয়েছে, এরদোয়ান ও হানিয়া গাজায় যুদ্ধবিরতি এবং ত্রাণ নিয়ে কথা বলেছেন।

বৈঠকের পর একটি বিবৃতি দখলদার ইসরায়েলের বিরুদ্ধে জয় পাওয়ার জন্য ফিলিস্তিনিদের ঐকবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে এরদোয়ান বলেছেন, “এই প্রক্রিয়ায় ফিলিস্তিনিদের ঐকবদ্ধ হয়ে কাজ করার বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ইসরায়েলের বিরুদ্ধে সবচেয়ে শক্তিশালী পদক্ষেপ এবং জয়ের পথটি ঐক্য এবং অখণ্ডতার ওপর নির্ভরশীল।”

হানিয়ার সঙ্গে এরদোয়ানের এ বৈঠকটি ভালোভাবে নেয়নি দখলদার ইসরায়েল। ইসরায়েলি পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইসরায়েল কাৎজ মাইক্রো ব্লগিং সাইট এক্সে দেওয়া পোস্টে এ বৈঠকের নিন্দা জানিয়েছেন।

গত ৭ অক্টোবর ফিলিস্তিনি সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাস ও ইসরায়েলের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়। এ যুদ্ধে এখন পর্যন্ত ৩৪ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি প্রাণ হারিয়েছেন। যুদ্ধের শুরু থেকেই ইসরায়েলের বর্বরতার নিন্দা জানিয়ে আসছেন তার্কিস প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান। তিনি বলেছেন, ইসরায়েলের বিরুদ্ধে যুদ্ধে হামাসের পক্ষে থাকবেন তিনি এবং তার দেশ।

;

রাশিয়ার জ্বালানী ডিপো ও বৈদ্যুতিক সাবস্টেশনে ইউক্রেনের ড্রোন হামলা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কিয়েভের গোয়েন্দা সূত্রে রয়টার্স জানিয়েছে, কয়েক ডজন দূরপাল্লার ড্রোন দিয়ে রাশিয়ার আটটি অঞ্চলে আক্রমণ চালিয়েছে ইউক্রেন।

শনিবার (২০ এপ্রিল) ভোরের এই হামলায় একটি জ্বালানি ডিপো এবং তিনটি বৈদ্যুতিক সাবস্টেশন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এই হামলার খবর নিশ্চিত করেছে মস্কোর প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

রাশিয়ার পূর্ণ মাত্রায় আগ্রাসনের পর থেকে দুই বছরেরও বেশি সময় ধরে যুদ্ধক্ষেত্রে ক্রমবর্ধমান চাপের মুখোমুখি ইউক্রেন ড্রোন ব্যবহার করে রাশিয়ার অভ্যন্তরে তেল শোধনাগার এবং জ্বালানি সুবিধাগুলোকে লক্ষ্য করে হামলা চালিয়ে ক্রেমলিনকে চাপের মুখে ফেলার চেষ্টা করেছে।

ইউক্রেনের সূত্র বলেছে, তাদের ড্রোন কমপক্ষে তিনটি বৈদ্যুতিক সাবস্টেশন এবং একটি জ্বালানী স্টোরেজ বেসে আঘাত হেনেছে এবং সেখানে আগুন জ্বলছে।

সূত্রটি বলেছে, এই অবকাঠামোগুলো রাশিয়ার সামরিক শিল্প উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত।

এদিকে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় দাবি করেছে যে, তারা বেলগোরোড অঞ্চলে ২৬টি, ব্রায়ানস্ক অঞ্চলে ১০টি, কুরস্ক অঞ্চলে আটটি, তুলা অঞ্চলে দুটি এবং স্মোলেনস্ক, রিয়াজান, কালুগা এবং মস্কো অঞ্চলে একটি করে মোট ৫০টি ইউক্রেনের ড্রোন ভূপাতিত করেছে।

ইউক্রেন সীমান্তবর্তী রাশিয়ার বেলগোরোড অঞ্চলের গভর্নর ব্যাচেস্লাভ গ্ল্যাডকভ বলেছেন, ড্রোন হামলায় দুই বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে।

গভর্নর ব্যাচেস্লাভ নিশ্চিত করেছেন যে, হামলাটি পশ্চিম স্মোলেনস্ক অঞ্চলের কার্দিম অঞ্চলে একটি জ্বালানী শক্তি সুবিধাকে লক্ষ্য করে চালানো হয়েছে।

তিনি বলেন, ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা আগুন নেভানোর জন্য লড়াই করছে।

তিনি আরও বলেন, হামলায় কেউ আহত হয়েছেন কিনা তা স্পষ্ট নয়।

;

‘মধ্যপ্রাচ্যে প্রতিশোধের চক্র বন্ধ করতে হবে’



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইরানের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের হামলার খবরের পর মধ্যপ্রাচ্যে ‘প্রতিশোধের বিপজ্জনক চক্র’ বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস।

তার মুখপাত্র শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) এক বিবৃতিতে বলেছেন, জাতিসংঘ প্রধান প্রতিশোধমূলক যেকোনো কর্মকান্ডের নিন্দা জানিয়েছেন এবং যে সকল কর্মকান্ড সমগ্র অঞ্চল ও অঞ্চলের বাইরে ধ্বংসাত্মক পরিণতি বয়ে আনতে পারে, সে ধরণের কর্মকান্ড রোধ করার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

এদিকে, ইসরায়েলের চার ব্যক্তি ও দুটি সংস্থার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। গ্লোবাল হিউম্যান রাইটসের আওতায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

এসব ব্যক্তি ও সংস্থা ফিলিস্তিনিদের ওপর নির্যাতন ও অমানবিক আচরণের মতো গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য দায়ী বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের তালিকাভুক্ত সংস্থাগুলো হলো-উগ্র ডানপন্থি ইহুদি আধিপত্যবাদী গোষ্ঠী লেহাভা এবং পশ্চিমতীরে ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে সহিংস কর্মকাণ্ডের জন্য গঠিত উগ্র যুব দল হিলটপ ইয়ুথ।

হিলটপ ইয়ুথের দুই নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিত্ব মেইর এটিংগার এবং এলিশা ইয়ারেডও ইইউর নিষেধাজ্ঞায় আওতায় রয়েছেন।

এ ছাড়া পশ্চিমতীরের ওয়াদি সিক এবং দেইর জারিরে ২০২১ সাল থেকে ফিলিস্তিনিদের ওপর হামলা করার অভিযোগে অভিযুক্ত নেরিয়া বেন পাজি এবং ফিলিস্তিনি গ্রামের বিরুদ্ধে একাধিক সহিংস কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণকারী ইয়িনন লেভির ওপরও নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ইইউ।

নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকা এসব ব্যক্তি ইউরোপীয় ইউনিয়নের কোনো সদস্য রাষ্ট্র ভ্রমণ বা এসব অঞ্চলে কোনো প্রকার আর্থিক লেনদেন করতে পারবে না।

এমনকি ইউরোপে থাকা তাদের সম্পদও জব্দ করা হতে পারে। নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি ইউরোপীয় কাউন্সিল ফিলিস্তিনের পশ্চিমতীরে ইসরায়েলিদের দ্বারা জবরদখলের তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।

;

সংবাদ পাঠের মাঝেই গরমে অজ্ঞান সংবাদ পাঠিকা!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি : সংগৃহীত

ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ অঞ্চলজুড়ে তাপপ্রবাহের সতর্কবার্তা জারি করা রয়েছে। সেখানে অসহনীয় গরমে কাহিল সবাই। একাধিক জেলার তাপমাত্রা চল্লিশেরও উপরে। দাবদাহের এই পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণ মিলছে না!

এই তীব্র গরমের কারণে লাইভ সংবাদ পাঠের মাঝেই জ্ঞান হারিয়েছেন কলকাতা দূরদর্শনের সংবাদ পাঠিকা লোপামুদ্রা সিনহা। বাংলা টেলিভিশনের অতি পরিচিত মুখ তিনি। মিঠাইসহ লোপামুদ্রা কাজ করেছেন একাধিক হিট মেগাসিরিয়ালে।

সিরিয়ালের এই পরিচিত অভিনেত্রী দীর্ঘদিন দূরদর্শনে সংবাদ পাঠও করেন। শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) নিজের ফেসবুকে একটি ভিডিও আপলোড করে অসুস্থতার কথা জানান লোপামুদ্রা নিজেই।

তিনি তার ফলোয়ার্সদের বলেন, ‘গত শুক্রবার সকালে নিউজ বুলেটিন পড়ার সময় মারাত্মক গরমে অসুস্থবোধ করছিলাম। লাইভ নিউজ চলার সময় আমার বিপি (রক্তচাপ) মারাত্মক কমে যায় এবং আমি অজ্ঞান হয়ে যাই। বেশকিছুক্ষণ ধরেই আমার শরীর খারাপ লাগছিল। মনে হচ্ছিল একটু পানি খেলে ঠিক হয়ে যাবে। আমি কোনওদিন পানি নিয়ে সংবাদ পড়তে বসি না। সেটা ১০ মিনিটের নিউজ হোক বা আধ ঘন্টার, কখনও প্রয়োজন পড়েনি। ফ্লোর ম্যানেজারকে ইশারা করে জলের বোতল চাই। কিন্তু, সেই সময় কোনও বাইট চলছিল না। ফলে আমি পানি খেতে পারচ্ছিলাম না। অবশেষে একটা বাইট আসায়, পানি খাই।’

হিন্দুস্তান টাইমস জানিয়েছে লোপামুদ্রা আরও বলেন, ‘আমার মনে হয়েছিল বাকি চারটা নিউজ স্টোরি আমি শেষ করতে পারব। দুটি কোনওরকমে কমপ্লিট করি, তিন নম্বরটা হিট ওয়েভের ওপর স্টোরি ছিল। সেটা পড়বার সময়ই আমার আস্তে আস্তে কথাটা জড়িয়ে যাচ্ছিল। আমি ভেবেছিলাম আমি শেষ করতে পারব, নিজেকে ঠিক রাখার চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু না, ওই স্টোরিটার সময় আমি আর কিছুই দেখতেই পাচ্ছিলাম না। টেলিপ্রমটারটা আবছা হতে হতে শেষে আমি জ্ঞান হারাই।’

নিজের ২১ বছরের ক্যারিয়ারে এই প্রথম এমন ঘটনার সম্মুখীন হলেন লোপামুদ্রা। ওই সময় তার নিউজ প্রোডিউসার তৎক্ষণাৎ বুলেটিন শেষ করার সিদ্ধান্ত নেন।

;