হাদিসে বর্ণিত তিন সংখ্যা, বিশ্লেষণ ও মর্মকথা



মোহাম্মদ নিজামুল ইসলাম, অতিথি লেখক, ইসলাম
হাদিসে বর্ণিত তিন সংখ্যা, বিশ্লেষণ ও মর্মকথা, ছবি: সংগৃহীত

হাদিসে বর্ণিত তিন সংখ্যা, বিশ্লেষণ ও মর্মকথা, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের অনেক হাদিসে তিন সংখ্যার বিশেষত্ব দেখা যায়। কোনো হাদিসে তিনি বিশেষ তিনটি গুণ অর্জনের ব্যাপারে উৎসাহিত করেছেন। আবার কোনো হাদিসে বিশেষ তিনটি দোষের পরিণতি সম্পর্কে সতর্ক করেছেন। কখনও বিশেষ তিনটি কাজের ফলাফল বর্ণনা করেছেন। আবার কখনও তিন ব্যক্তি সম্পর্কে কোনো বিশেষত্ব বর্ণনা করেছেন। এ ধরনের কয়েকটি হাদিস বর্ণনা করা হলো।

তিনটি গুণ অর্জনে ঈমানের স্বাদ
হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যার মধ্যে তিনটি গুণ আছে, সে ঈমানের স্বাদ পাবে। ১. আল্লাহ তার রাসূল অন্য সব কিছু থেকে তার কাছে অধিক প্রিয় হওয়া, ২. কাউকে একমাত্র আল্লাহর জন্য ভালোবাসা ও ৩. কুফুরিতে প্রত্যাবর্তনকে আগুনে নিক্ষিপ্ত হওয়ার মতো অপছন্দ করা।’ –সহিহ মুসলিম: ১৬

তিন কাজের আদেশ
হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) আমাকে তিনটি কাজের অসিয়ত করেছেন। ১. প্রতি মাসে তিন দিন রোজা পালন করা, ২. চাশতের নামাজ আদায় করা, ৩. বিতরের নামাজ আদায় করে শয়ন করা। -সহিহ বোখারি: ১১৭৮

তিনটি সন্তান মৃত্যুবরণ করলে জান্নাত
হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, কোনো নারীর তিনটি নাবালেগ সন্তান মৃত্যুবরণ করলে, তার জন্য জাহান্নামের আগুন হারাম। -সহিহ বোখারি: ১০১

তিন ধরনের লোকের জন্য পুরস্কার
হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, তিন ধরনের লোকের জন্য দু’টি করে পুরস্কার রয়েছে। ১. ওই আহলে কিতাব, যে তার নবীর ওপর ঈমান এনেছে এবং রাসূল (সা.) ওপর ঈমান এনেছে। ২. যে কৃতদাস আল্লাহর হুকুম পালন করে এবং তার মালিকের হুকুম পালন করে ও ৩. ওই মালিক, যে তার কৃতদাসীকে মুক্ত করে দিয়ে তাকে বিয়ে করে। -সহিহ বোখারি: ৯৭

সত্যবাদী ব্যবসায়ীরা তিন ব্যক্তির সঙ্গে থাকবে
হজরত আবু সাঈদ (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, সত্যবাদী ও বিশ্বস্ত ব্যবসায়ীরা (আখেরাতে) নবী, সিদ্দিক (সত্যবাদী) ও শহীদদের সঙ্গে থাকবে। -সুনানে তিরমিজি: ১২০৯

মৃত্যুর পরেও তিন আমলের সওয়াব পাওয়া যায়
হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যখন মানুষ মৃত্যুবরণ করে তখন তার সব আমল বন্ধ হয়ে যায় তিন প্রকার আমল ছাড়া। ১. সদকায়ে জারিয়া, ২. এমন ইলম যার দ্বারা উপকার হয় ও ৩. পুণ্যবান সন্তান যে তার জন্য দোয়া করতে থাকে। -সহিহ মুসলিম: ৪১১৫

তিন ব্যক্তির দোয়া কবুল হয়
হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, তিন ব্যক্তির দোয়া নিঃসন্দেহে কবুল হয়। মজলুমের দোয়া, মুসাফিরের দোয়া ও সন্তানের জন্য পিতার দোয়া। -সুনানে ইবনে মাজাহ: ৩৮৬২

ঘুমন্ত অবস্থায় শয়তান মানুষকে তিনটি গিট দেয়
আল্লাহর রাসূল (সা.) বলেছেন, তোমাদের কেউ যখন ঘুমিয়ে পড়ে তখন শয়তান তার ঘাড়ের পশ্চাদংশে তিনটি গিট দেয়। প্রতি গিটে সে এ বলে চাপড়ায়, তোমার সামনে রয়েছে দীর্ঘ রাত, অতএব তুমি শুয়ে থাকো। অতঃপর সে যদি জাগ্রত হয়ে আল্লাহকে স্মরণ করে তাহলে একটি গিট খুলে যায়, পরে অজু করলে আরেকটি গিট খুলে যায়, অতঃপর নামাজ আদায় করলে আরেকটি গিট খুলে যায়। তখন তার প্রভাত হয় উৎফুল্ল। অন্যথায় সে সকালে উঠে কলুষ কালিমা ও আলস্য সহকারে। -সহিহ বোখারি: ১১৪২

আল্লাহ বান্দার তিনটি কাজ অপছন্দ করেন
সাহাবি হজরত মুগিরা ইবনে শুবাহ (রা.) বলেন, আমি আল্লাহর রাসূলকে (সা.) বলতে শুনেছি, আল্লাহ তোমাদের তিনটি কাজ অপছন্দ করেন- ১. অনর্থক কথাবার্তা, ২. সম্পদ নষ্ট করা এবং ৩. অত্যধিক সওয়াল করা। -সহিহ বোখারি: ১৪৭৭

তিনটি জিনিস বান্দার কবর পর্যন্ত যায়
হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, তিনটি বস্তু মৃত ব্যক্তির অনুসরণ করে। দু’টি ফিরে আসে, আরেকটি তার সঙ্গে থেকে যায়। তার পরিবারবর্গ, তার ধন-সম্পদ এবং তার আমল তার অনুসরণ করে। পরিবারবর্গ ও তার ধন-সম্পদ ফিরে আসে এবং তার আমল তার সঙ্গে থেকে যায়। -সহিহ বোখারি: ৬৫১৪

মুনাফিকের তিনটি আলামত
হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, মুনাফিকের আলামত তিনটি- ১. সে কথা বললে মিথ্যা বলে, ২. ওয়াদা করলে ভঙ্গ করে ও ৩. তার কাছে আমানত রাখা হলে খেয়ানত করে। -সহিহ মুসলিম: ১১৫

উম্মতে মুহাম্মদিকে তিনটি জিনিস দিয়ে সম্মানিত করা হয়েছে
হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, অন্যসব উম্মতের চেয়ে তিনটি বিষয়ে আমাদের (উম্মতে মুহাম্মদিকে) মর্যাদা দান করা হয়েছে। ১. আমাদের (নামাজের) কাতার ফেরেশতাদের কাতারের মতো করা হয়েছে, ২. সমগ্র পৃথিবী আমাদের জন্য মসজিদ করে দেওয়া হয়েছে ও ৩. পানি না পেলে পৃথিবীর মাটিকে আমাদের জন্য পবিত্রতা অর্জনের উপকরণ করে দেওয়া হয়েছে। - সহিহ মুসলিম: ১০৫২

তিন সময়ে নামাজ পড়া নিষেধ
উকবা ইবনে আমির আল জুহানি (রা.) বলেন, আমি হজরত রাসূলুল্লাহকে (সা.) বলতে শুনেছি। হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) তিন সময়ে নামাজ আদায় করতে এবং মৃতদের দাফন করতে নিষেধ করেছেন- ১. সূর্য যখন আলোকোদ্ভাসিত হয়ে উদয় হতে থাকে তখন থেকে তা পরিষ্কারভাবে উপরে ওঠা পর্যন্ত, ২. সূর্য যখন ঠিক দ্বিপ্রহরের সময় থেকে হেলে যাওয়া পর্যন্ত ও ৩. সূর্য ক্ষীণ আলোক হওয়া থেকে তা সম্পূর্ণ অস্ত যায়া পর্যন্ত। -সহিহ মুসলিম: ১৮১৪

আল্লাহর নিকট তিন কাজ হারাম, অপর তিন কাজ অপছন্দনীয়
হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, নিশ্চয়ই আল্লাহতায়ালা তোমাদের ওপর হারাম করেছেন মায়েদের অবাধ্য হওয়া, জীবন্ত কন্যা সন্তানকে মাটিতে পুঁতে ফেলা এবং অন্যের হক আদায় না করা। আর তিনটি বিষয় তিনি তোমাদের জন্য অপছন্দ করেন। তা হলো- ১. নিরর্থক কথা বলা, ২. অধিক প্রশ্ন করা ও ৩. সম্পদ বিনষ্ট করা। -সহিহ মুসলিম: ৪৩৭৫

তিন জায়গায় মিথ্যা বলা জায়েজ
ইবনে শিহাব (রহ.) বলেন, তিনটি স্থান ছাড়া আর কোনো বিষয়ে হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) মিথ্যা বলার অনুমতি দিয়েছেন বলে আমি শুনিনি। ১. যুদ্ধ কৌশলের ক্ষেত্রে, ২. মানুষের মধ্যে আপস-মীমাংসা করার জন্য ও ৩. সহধর্মিণীর সঙ্গে স্বামীর কথা ও স্বামীর সঙ্গে সহধর্মিণীর কথা বলার ক্ষেত্রে। -সহিহ মুসলিম: ৬৫২৭

তিন ব্যক্তি জান্নাতে যাবে না
হজরত আম্মার ইবনে ইয়াসার (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসূল (সা.) বলেছেন, তিন শ্রেণির মানুষ কখনও জান্নাতে যাবে না। ১. যে ব্যক্তি তার পরিবারে বেহায়াপনার সুযোগ দেয়, ২. পুরুষের বেশধারী নারী ও ৩. নিয়মিত নেশাদার দ্রব্য পানকারী। -তাবরানি, তারগিব: ৩৩৮১

অন্য হাদিসে হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, প্রতারক, ধোঁকাবাজ, কৃপণ এবং উপকার করে খোটা দানকারী জান্নাতে যেতে পারবে না। -তিরমিজি: ১৯৬৩