এক বছরে সাড়ে ৩ হাজার নারী-কন্যাশিশু নির্যাতিত

এক বছরে সাড়ে ৩ হাজার নারী-কন্যাশিশু নির্যাতিত



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease
গত একবছরে তিন হাজার ৪৯৫ জন নারী ও কন্যাশিশু ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডসহ বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। 

এর মধ্যে নারী এক হাজার ৮৭৬ জন এবং কন্যাশিশু আছেন এক হাজার ৬১৯ জন। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ প্রকাশিত এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় লিগ্যাল এইড উপ-পরিষদে সংরক্ষিত ১৩টি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত সংবাদ বিশ্লেষণ করে একটি প্রতিবেদন তৈরি করা হয়।

রোববার (১ জানুয়ারি) সংস্থাটির সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে প্রকাশ করা প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০২২ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত মোট তিন হাজার ৪৯৫ জন নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতিত হয়েছে। এর মধ্যে ধর্ষণের শিকার হয়েছে ৬৭২ জন কন্যা এবং ৩১৫ জন নারী। এই সংখ্যার মধ্যে ১২১ জন দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছে। 

এসব ধর্ষণের ঘটনায় ২৩ জন কন্যাসহ ৩৮ জনকে হত্যা করা হয়েছে। ধর্ষণের কারণে সাতজন কন্যাসহ আটজন আত্মহত্যা করেছে। এছাড়া ৯৪ জন কন্যাসহ ১৪০ জনকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে।

নির্যাতনের এ প্রতিবেদন অনুযায়ী, এই একবছরে ১৬৩ জন যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছে। এর মধ্যে ১২২ জন কন্যাশিশু। উত্ত্যক্তকরণের শিকার হয়েছে ১২৫ জনের মধ্যে ১০৪ জন। এই উত্তক্তকরণের কারণে আত্মহত্যা করেছেন মোট সাতজন। 

পাচারের শিকার হয়েছে ১০৮ জন নারী ও কন্যা। যাদের মধ্যে কন্যাশিশু ২৮ জন। এসিডদগ্ধের ঘটনা ঘটেছে ২২ জনের সঙ্গে। এর মধ্যে ১২ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। তাদের মধ্যে তিনজন কন্যাশিশু।

এছাড়া যৌতুকের কারণে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ১৬৫ জন। এর মধ্যে ৬৫ জনকে এই কারণে হত্যা করা হয়েছে। পারিবারিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ২১৯ জন। 

পারিবারিক সহিংসতায় শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন ২১ জন। মানসিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন একজন। যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছেন একজন। ১৩ জন গৃহকর্মী নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে পাঁচজন গৃহকর্মীর হত্যা ও দু’জন আত্মহত্যা করেছে।

মহিলা পরিষদের প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, ৯২ জন কন্যাসহ ৫০৭ জনকে বিভিন্ন কারণে হত্যা করা হয়েছে। হত্যাচেষ্টা হয়েছে ৫২ জনের ওপর, এর মধ্যে ১২ জন কন্যাশিশু। ৬৯ জন কন্যাসহ ৩১০ জনের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। ৮২ জন কন্যাসহ ২৩৯ জনের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে ১৬ জন কন্যাসহ ৩৭ জন আত্মহত্যার প্ররোচনার শিকার হয়েছেন।

এছাড়াও পাঁচজন নারী ও কন্যাশিশু আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন। পিতৃত্বের দাবির ঘটনা ঘটেছে একটি। অপহরণের শিকার হয়েছে ১০৯ জন কন্যাসহ ১২৭ জন। অপহরণের চেষ্টা করা হয়েছে সাতজন নারী ও কন্যাকে। ফতোয়ার শিকার হয়েছেন নয়জন। দুই জনকে পতিতালয়ে বিক্রি করা হয়েছে। জোরপূর্বক বিয়ের ঘটনা ঘটেছে দুটি। পুলিশি নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে পাঁচটি। সাইবার অপরাধের শিকার হয়েছেন ৫৭ জন। বাল্যবিবাহের ঘটনা ঘটেছে ২৭টি।

গত একবছরে বাল্যবিবাহ ঠেকানো গেছে ৬১টি। এছাড়া ৩১জন কন্যাসহ ৯৪ জন বিচ্ছিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন।

 
   

এমপি আনার হত্যা: তিন আসামির ৮ দিনের রিমান্ড



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
আমানুল্লাহ ওরফে শিমুল ভূঁইয়া ও সিলিস্তা রহমান

আমানুল্লাহ ওরফে শিমুল ভূঁইয়া ও সিলিস্তা রহমান

  • Font increase
  • Font Decrease

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতার তিনজনকে ৮ দিন করে রিমান্ডে দিয়েছেন আদালত।

গ্রেফতারকৃত আসামিরা হলেন- আমানুল্লাহ ওরফের শিমুল ভূঁইয়া, শিলাস্তি রহমান ও ফয়সাল আলী ওরফে সাজি। 

শুক্রবার (২৪ মে) তাদেরকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের ওয়ারী জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার মাহফুজুল ইসলাম তাদের ১০ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন।

শুনানি শেষে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দিলরুবা আফরোজ তিথির আদালত প্রত্যেককে ৮ দিন করে রিমান্ডের আদেশ দেন।

উল্লেখ্য, গত ১১ মে সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার চিকিৎসার জন্য ভারতে যান। এরপর তিন দিন পার হলেও পরিবারের সদস্যরা তার সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করতে পারেননি। ভারতে গিয়ে তিনি পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বরানগর থানার ১৭/৩ মণ্ডল পাড়া লেনের বাসিন্দা ও তার দীর্ঘদিনের পরিচিত গোপাল বিশ্বাসের বাড়িতে ওঠেন।

মূলত ডাক্তার দেখানোর উদ্দেশ্যেই বাংলাদেশ থেকে ভারতে যান তিনি। পরে ১৩ মে দুপুরে ডাক্তার দেখানোর উদ্দেশ্যে বের হন। ওইদিন সন্ধ্যায় ফেরার কথা থাকলেও তিনি আর ফিরে আসেননি। পরবর্তীতে গত ১৮ মে বারানগর থানায় একটি নিখোঁজের অভিযোগ করেন গোপাল বিশ্বাস।

;

১৫২ কোটি টাকা ঋণখেলাপি, দম্পতিসহ তিনজনের দেশত্যাগে মানা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বেসরকারি সোশ্যাল ইসলামি ব্যাংকের চট্টগ্রামের একটি শাখার ১৫২ কোটি টাকা ঋণখেলাপি মামলায় ব্যবসায়ী দম্পতিসহ তিনজনের দেশ ত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন একটি আদালত।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) চট্টগ্রামের অর্থঋণ আদালতের বিচারক মুজাহিদুর রহমান এ আদেশ দিয়েছেন।

দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা পাওয়া তিনজন হলেন- লিজেন্ড টেক্সটাইলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এস এম আবদুল হাই, তার স্ত্রী প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক নিলুফার আকতার ও পরিচালক মোরশেদ শাহনুর হাসিন হিমাদ্রি।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদালতের বেঞ্চ সহাকারী রেজাউল করিম শাহেদ।

আদালত সূত্রে জানা যায়, এস এম আবদুল হাইসহ তিনজনের কাছে সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ শাখার ১৫২ কোটি টাকা পাওনা রয়েছে। এটি নিয়ে ব্যাংকের ওই শাখা তাদের বিরুদ্ধে ২০২১ সালে একটি ঋণখেলাপি মামলা করে। এ ছাড়া তাদের বিভিন্ন ব্যাংকে তাঁদের দেনার পরিমাণ ৬০০ কোটি টাকার বেশি। এর বিপরীতে ব্যাংকে যে পরিমাণ সম্পদ তাঁরা বন্ধক রেখেছেন, তা খুবই কম। বন্ধক থাকা সম্পদ দিয়ে ওই ঋণ শোধ হবে না।

আদালতের বেঞ্চ সহকারী রেজাউল করিম বলেন, ব্যাংকের পক্ষ থেকে আদালতকে জানানো হয়- তাঁরা তিনজন ঋণ পরিশোধ না করে দেশত্যাগের চেষ্টা করছেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে আদালত তাঁদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন। একই সঙ্গে বিশেষ পুলিশ সুপারকে (অভিবাসন) প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

;

বেনজীর আহমেদের সম্পত্তি জব্দের নির্দেশ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ

পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ

  • Font increase
  • Font Decrease

পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদের সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মেট্রোপলিটন সিনিয়র স্পেশাল জজ মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেনের আদালত তার ৮৩টি দলিলের সম্পদ জব্দের এ আদেশ দেন।

এর আগে গত মাসের ২২ এপ্রিল বেনজীর আহমেদের দুর্নীতির অভিযোগের অনুসন্ধান চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সালা উদ্দিন রিগ্যান হাইকোর্টে রিট দায়ের করা করেন।

প্রসঙ্গত, বেনজীর আহমেদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অনুসন্ধানে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) চিঠি দেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। চিঠিতে বলা হয়, বাংলাদেশ পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ ৩৪ বছর ৭ মাস চাকরি করে গত ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২ সালে অবসরে যান। অবসর গ্রহণের পর দেখা যায়, বেনজীর আহমেদের স্ত্রী ও কন্যাদের নামে বিপুল পরিমাণ সম্পত্তি রয়েছে, যা তার আয়ের তুলনায় অসম।

সম্প্রতি প্রকাশিত এক জাতীয় দৈনিকের দাবি, পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ও র‌্যাবের সাবেক মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদের বিপুল পরিমাণ অবৈধ সম্পদের খোঁজ মিলেছে। এরপর থেকেই বেশ আলোচনায় পুলিশের সাবেক এই আইজিপি।

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদে গত শনিবার (২০ এপ্রিল) ‘আমার কিছু কথা’ শিরোনামে এক ভিডিও বার্তায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বেনজীর আহমেদ বলেন, মিথ্যা ও কল্পনাপ্রসূত তথ্য দিয়ে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে।

বেনজীর আহমেদের দাবি, কিছু তথ্য ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে তিলকে তাল বানিয়ে উপস্থাপন করা হয়েছে।

;

আনোয়ারুল আজীম হত্যাকাণ্ড

৪ জুলাইয়ের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ আদালতের



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঝিনাইদহ-৪ (কালীগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনারকে খুনের উদ্দেশ্যে অপহরণের মামলায় ৪ জুলাইয়ের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) মামলার এজাহার আদালতে আসে। ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মহবুবুল হকের আদালত তা গ্রহণ করে আগামী ৪ জুলাইয়ের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন।

এর আগে বুধবার (২২ মে) রাজধানীর শেরেবাংলা নগর থানায় খুন করার উদ্দেশ্যে অপহরণের অভিযোগে মামলাটি দায়ের করেন এমপি আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন।

মামলায় তিনি উল্লেখ করেন, মানিক মিয়া এভিনিউয়ের বাসায় আমরা সপরিবারে বসবাস করি। ৯ মে রাত ৮টার দিকে আমার বাবা আনোয়ারুল আজীম আনার গ্রামের বাড়ি ঝিনাইদহ যাওয়ার উদ্দেশে যাত্রা করেন।

১১ মে বিকেল পৌনে ৫টার দিকে বাবার সঙ্গে ভিডিওকলে কথা বললে বাবার কথাবার্তায় কিছুটা অসংলগ্ন মনে হয়। এরপর বাবার মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করলেও সেটি বন্ধ পাই।

১৩ মে বাবার ভারতীয় নম্বর থেকে উজির মামার হোয়াটসঅ্যাপে একটি ক্ষুদেবার্তা আসে। এতে লেখা ছিল- আমি হঠাৎ করে দিল্লি যাচ্ছি। আমার সঙ্গে ভিআইপি রয়েছে। আমি অমিত শাহ’র কাজে নিউটাউন যাচ্ছি। আমাকে ফোন দেওয়ার দরকার নাই। আমি পরে ফোন দেবো।এছাড়া আরো কয়েকটি বার্তা আসে। ক্ষুদেবার্তাগুলো আমার বাবার মোবাইল ফোন অপহরণকারীরা ব্যবহার করে থাকতে পারেন।

তিনি আরো উল্লেখ করেন, বিভিন্ন জায়গায় বাবার খোঁজ করতে থাকি। কোনো সন্ধান না পেয়ে বাবার ভারতীয় বন্ধু গোপাল বিশ্বাস বাদী হয়ে বরাহনগর পুলিশ স্টেশনে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। এরপরও আমরা খোঁজাখুজি অব্যাহত রাখি। পরবর্তীতে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানতে পারি, অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে পরস্পর যোগসাজসে বাবাকে অপহরণ করেছে।

গত ১২ মে চুয়াডাঙ্গার দর্শনা সীমান্ত দিয়ে কলকাতায় যান সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার। প্রথম দিন তিনি তার বন্ধু গোপালের বাসায় থাকেন। পরদিন ১৩ মে কৌশলে এমপি আনারকে নিউটাউনের এক ফ্ল্যাটে কৌশলে ডেকে নিয়ে যান হত্যাকারীরা। বিকেলের দিকে এমপি আনার সঞ্জীবা গার্ডেনের সেই ফ্ল্যাটে প্রবেশ করেন। এরপর আমান তার সহযোগী ফয়সাল, মোস্তাফিজ, সিয়াম ও জিহাদ মিলে এমপিকে চাপাতির মুখে জিম্মি করেন। এসময় তারা এমপির কাছে শাহীনের পাওনা টাকা পরিশোধের কথাও বলেন। বিষয়টি নিয়ে তর্কাতর্কির একপর্যায়ে সবাই মিলে আনারকে জাপটে ধরে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করে। হত্যার পর আমান বিষয়টি শাহীনকে জানায়।

;