এমপি আনার হত্যা: দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন বাবু



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
এমপি আনার হত্যা: দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন বাবু

এমপি আনার হত্যা: দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন বাবু

  • Font increase
  • Font Decrease

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) আনোয়ারুল আজিম আনারকে হত্যার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা কাজী কামাল আহমেদ বাবু। আনারকে খুনের উদ্দেশ্যে অপহরণের মামলায় ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন তিনি।

শুক্রবার (১৪ জুন) আসামি বাবু স্বেচ্ছায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে সম্মত হওয়ায় তা রেকর্ড করার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সহকারী কমিশনার মাহফুজুর রহমান। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জসিমের আদালত তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

আদালতে শেরেবাংলা নগর থানার সাধারণ নিবন্ধন শাখার কর্মকর্তা পুলিশের উপপরিদর্শক জালাল উদ্দিন সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এর আগে আনারকে হত্যার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন শিমুল ভূঁইয়া ওরফে শিহাব ওরফে আমানুল্যাহ সাঈদ, তানভীর ভূঁইয়া ও শিলাস্তি রহমান। তারা এখন কারাগারে রয়েছেন।

গত ৬ জুন রাতে ঝিনাইদহ শহরের আদর্শপাড়া এলাকা থেকে ডিবির একটি দল জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক কাজী কামাল আহমেদ বাবু ওরফে গ্যাস বাবুকে গ্রেফতার করে।

পরে ৯ জুন আদালতে হাজির করে মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য বাবুকে ১০ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার মাহফুজুর রহমান। শুনানি শেষে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মেহেদী হাসানের আদালত তার সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

উল্লেখ্য, গত ১২ মে আনোয়ারুল আজিম চিকিৎসার জন্য কলকাতায় যান। ১৮ মে কলকাতায় তার পরিচিত গোপাল বিশ্বাস পুলিশে একটি ডায়েরি করেন। সেখানে বলা হয়, আনোয়ারুল ১৩ মে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান। তারপর আর ফেরেননি। তিনি ফোন করে জানিয়েছিলেন, বিশেষ কাজে দিল্লি যাচ্ছেন। ১৫ মে তিনি মেসেজ করে জানান, দিল্লিতে আছেন। ১৭ তারিখ থেকে তার কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।

বুধবার গোপাল বিশ্বাসকে উদ্ধৃত করে কিছু গণমাধ্যম জানায় যে, পুলিশের পক্ষ থেকে তাকে জানানো হয়েছে, কলকাতার একটি ফ্ল্যাট থেকে পুলিশ আনোয়ারুল আজিমের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে।

পার্থকে ১০ দিনের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
আন্দালিব রহমান পার্থ

আন্দালিব রহমান পার্থ

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি) চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমান পার্থকে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) দুপুরে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) আদালতে এই আবেদন করেন।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের প্রধান হারুন-উর-রশিদ জানিয়েছেন, বুধবার (২৪ জুলাই) রাত ১টার দিকে রাজধানীর গুলশানের বাসা থেকে ব্যারিস্টার পার্থকে গ্রেফতার করা হয়।

সাবেক সংসদ সদস্য আন্দালিব রহমান পার্থকে মহাখালীতে সেতু ভবন ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের মামলায় গ্রেফতার করা হয় বলে জানা গেছে।

গত মঙ্গলবার রাত থেকে গতকাল বুধবার দুপুর পর্যন্ত সময়ে সারা দেশে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযানে আরও প্রায় ১ হাজার ৪০০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর মধ্যে রাজধানী ঢাকায় গ্রেফতার করা হয়েছে ৬৪১ জনকে।

এ নিয়ে গত ৮ দিনে (১৭-২৪ জুলাই) সারা দেশে গ্রেফতারের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় সাড়ে চার হাজার। বিভিন্ন মহানগর, জেলা ও থানা-পুলিশ সূত্রে গ্রেফতারের এ তথ্য জানা গেছে।

কোটা সংস্কার আন্দোলনকে কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন জায়গায় হামলা, ভাঙচুর, সংঘর্ষ ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় এই গ্রেফতার অভিযান চলছে।

;

রায় থেকে তদন্তে অরিত্রির আত্মহত্যা মামলা



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারী/সংগৃহীত

ছবি: ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারী/সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যায় প্ররোচনার মামলা রায়ের পর্যায় থেকে উত্তোলন করে অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ-১২ এর বিচারক আব্দুল্লাহ আল মামুনের আদালতে পাঁচ দফা পিছিয়ে মামলাটি রায়ের জন্য দিন ধার্য ছিল। কিন্তু বিচারক রায় ঘোষণা না করে মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কে নির্দেশ দিয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট আদালতের বেঞ্চ সহকারী মো. হিমেল এ তথ্য জানান।

চলতি বছরের ২১ জানুয়ারি রায় ঘোষণার জন্য দিন ধার্য, ছিল। এরপর ৮ ফেব্রুয়ারি, ৩ মার্চ, ৯ এপ্রিল ও সর্বশেষ ৩ মে রায় ঘোষণার তারিখে পেছানো হয়।

মামলার দুই আসামি হলেন- ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের দুই শিক্ষিকা নাজনীন ফেরদৌস ও জিনাত আক্তার। তারা জামিনে আছেন।

অরিত্রীর আত্মহত্যার ঘটনায় ২০১৮ সালের ৪ ডিসেম্বর তার বাবা দিলীপ অধিকারী বাদী হয়ে রাজধানীর পল্টন থানায় মামলা দায়ের করেন। পরের বছর ২০ মার্চ অরিত্রিকে আত্মহত্যা প্ররোাচনার অভিযোগে দুই শিক্ষককে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক কামরুল হাসান তালুকদার। চার্জশিটের ১৮ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৫ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন আদালত।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ২০১৮ সালের ৩ ডিসেম্বর পরীক্ষা চলাকালে অরিত্রীর কাছে মোবাইল ফোন পান শিক্ষক। মোবাইল ফোনে নকল করেছে এমন অভিযোগে অরিত্রীর মা-বাবাকে নিয়ে স্কুলে যেতে বলা হয়। দিলীপ অধিকারী তার স্ত্রী ও মেয়েকে নিয়ে স্কুলে গেলে ভাইস প্রিন্সিপাল তাদের অপমান করে কক্ষ থেকে বের হয়ে যেতে বলেন। অধ্যক্ষের কক্ষে গেলে তিনিও একই রকম আচরণ করেন। এ সময় অরিত্রী দ্রুত অধ্যক্ষের কক্ষ থেকে বের হয়ে যায়। পরে শান্তিনগরে বাসায় গিয়ে তিনি দেখেন, অরিত্রী তার কক্ষে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ওড়নায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় ঝুলছে। অরিত্রী অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও স্কুল কর্তৃপক্ষ তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্ত কমিটি প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়ায় স্কুলের অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষকেকে বরখাস্ত করা হয়।

ওই ঘটনায় ৪ ডিসেম্বর পল্টন থানায় তার বাবা দিলীপ অধিকারী বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

২০১৯ সালের ২০ মার্চ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক কাজী কামরুল ইসলাম ওই দুই আসামির বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় শ্রেণিশিক্ষিক হাসনা হেনাকে অব্যাহতি দেওয়ার আবেদন করেন তিনি।

;

দুর্নীতি মামলা বাতিল চেয়ে ড. ইউনূসের আবেদন খারিজ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস

নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস

  • Font increase
  • Font Decrease

অর্থ আত্মসাতের অভিযোগের মামলার কার্যক্রম বাতিল চেয়ে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূসের করা আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্টে। মামলাটি এক বছরের মধ্যে শেষ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (২৪ জুলাই) হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ শুনানি শেষে এই রায় দেন।

এর আগে, গত ১১ জুলাই বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী ইবাদত হোসেনের হাইকোর্ট বেঞ্চ, এ মামলায় অভিযোগ গঠনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের আবেদনের ওপর শুনানি শেষে ২১ জুলাই আদেশ দেওয়ার কথা ছিল হাইকোর্টের। তবে কোটা সংস্কার আন্দোলনকে কেন্দ্র করে সহিংসতা চলায় সব কিছু বন্ধ হয়ে যায়। যার পরিপ্রেক্ষিতে এ আদেশ আসল আজ।

১১ জুলাই আদালতে ইউনূসের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার আবদুল্লাহ আল মামুন। আর দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। তার আগে, গত ৮ জুলাই এ মামলার অভিযোগ গঠন বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন ড. ইউনূসসহ সাত জন।

আবেদনকারীরা হলেন- ড. মুহাম্মদ ইউনূস, নুরজাহান বেগম, মো. শাহজাহান, নাজনীন সুলতানা, হিজ্জাতুল ইসলাম, নাজমুল ইসলাম, আশরাফুল হাসান।

গ্রামীণ টেলিকমের শ্রমিক কর্মচারীদের কল্যাণ তহবিলের ২৫ কোটি ২২ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে করা মামলায় নোবেলজয়ী অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার আদালত। ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৪ এর বিচারক সৈয়দ আরাফাত হোসেন অভিযোগ গঠনের এই আদেশ দেন।

;

কারফিউ শিথিলে কর্মচঞ্চল ঢাকার নিম্ন আদালত



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

কারফিউ শিথিলে কর্মচঞ্চল হয়ে উঠেছে দেশের অন্যতম ব্যস্ত আদালত ঢাকার নিম্ন আদালত।

বুধবার (২৪ জুলাই) সকাল থেকেই ঢাকার নিম্ন আদালতে উপচে পড়া ভীড় লক্ষ্য করা গেছে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে এই ভীড় আরও বেড়েছে। আইনজীবী, বিচার প্রার্থী ও আসামিদের আগমনে সরগরম হয়ে উঠেছে আদালত।

কোটা আন্দোলন, সহিংসতা ও কারফিউ এর কারনে প্রায় ৮ দিন পর আদালতে এ ব্যস্ততা দেখা যায়। এ ৮ দিন সিএমএম আদালত খোলা থাকলেও বিচারক, আইনজীবী, বিচার প্রার্থী ও আসামির উপস্থিতি তেমন দেখা যায়নি।

আইনজীবী জাহিদুর রহমান জানান, কোটা আন্দোলন, সহিংসতা ও কারফিউ এর মধ্যে প্রতিদিনই আদালতে এসেছি। এ কয়দিন আদালত একরকম ফাঁকাই ছিল। আইনজীবী কিংবা আসামির উপস্থিতি ছিল না। তবে আজ আদালতসমূহে অনেক ভীড়।

আইনজীবী আরিফুল ইসলাম জানান, আতঙ্কে তিনি এ কয়দিন আদালতে আসেননি। আজ কারফিউ শিথিল হওয়ায় তিনি আদালতে এসেছেন।

আদালত খুললেও নিরাপত্তার কারনে আদালতের প্রধান প্রধান ফটক বন্ধ রাখা হয়েছে। পকেট গেইট দিয়ে সবাইকে যাতায়াত করতে হচ্ছে। উল্লেখযোগ্য হারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতি দেখা গেছে। তবে কাউকে নিরাপত্তা তল্লাশী করতে দেখা যায়নি।

;