যেভাবে ক্ষতি করছে ইন্টারনেট আসক্তি



ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইফস্টাইল
ইন্টারনেট আসক্তি

ইন্টারনেট আসক্তি

  • Font increase
  • Font Decrease

আমাদের প্রতিদিনের জীবনের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে গেছে অন্তর্জাল তথা ইন্টারনেট।

প্রতিটি কাজেই এখন প্রয়োজন ইন্টারনেট। একটাদিনও ইন্টারনেটবিহীনভাবে কাটানো অবিশ্বাস্য বলে মনে হয়। কিন্তু প্রতিটি জিনিসের দুইটি বিপরীত দিক থাকে- উপকারিতা ও অপকারিতা। একদিকে যেমন ইন্টারনেট কাজের গতিকে বেগবান ও সহজ করেছে, ঠিক তেমনিভাবে তৈরি করেছে আসক্তি।

কী এই ইন্টারনেট আসক্তি?

প্রয়োজনের চাইতে অতিরিক্ত সময় ইন্টারনেটে কাটানোকে বলা হচ্ছে ইন্টারনেট আসক্তি। গেমস, পর্ন, অনলাইন শপিং, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পড়ে থাকা, ভিডিও দেখা ইত্যাদি কাজে ইন্টারনেটের জগতে সময় কাটানোর মাধ্যমে এই আসক্তি তৈরি হয়।

এই আসক্তির ফলে নিজের ব্যক্তিগত জীবন, কর্মক্ষেত্রসহ, শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের উপরেও নেতিবাচক প্রভাব বিস্তার করে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পরিসংখ্যান মতে, বর্তমানে পুরো বিশ্বজুড়েই এই আসক্তি অ্যালার্মিং অবস্থায় রয়েছে এবং কিশোর থেকে তরুণদের মাঝে এর প্রভাব সবচেয়ে বেশি দেখা যাচ্ছে।

ইন্টারনেট আসক্তি

এই আসক্তি কীভাবে শনাক্ত করা যাবে?

ইন্টারনেট অ্যাডিকশন বা আসক্তি শনাক্তকরণের জন্য মূলত পাঁচটি লক্ষণকে দেখা হয়ে থাকে একজনের মাঝে।

১. ইন্টারনেটে খুব বেশি সময় দিবে। ইন্টারনেটে আগে কী ঘটেছে এবং সামনে কী ঘটতে চলেছে তার প্রতি প্রয়োজনের চাইতে বেশি গুরুত্ব আরোপ করবে।

২. নিজের শান্তির জন্য প্রতিনিয়ত ইন্টারনেট ব্যবহারের মাত্রা ও সময় বৃদ্ধি করবে।

৩. ইন্টারনেট ব্যবহারের মাত্রা কমানোর ক্ষেত্রে পদক্ষেপ নিয়েও অকৃতকার্য হবে।

৪. যখনই ইন্টারনেট ব্যবহারের মাত্রা কমানোর চেষ্টা করবে, বিষণ্ণতা, মেজাজ খিটখিটে হওয়া, অস্থিরতায় ভোগার মতো সমস্যাগুলো দেখা দিবে।

৫. ইন্টারনেটে সে নিজে যতটুকু সময় থাকতে চায়, নিজের অজান্তেই তাঁর চাইতে বেশি সময় কাটিয়ে ফেলবে।

ইন্টারনেট আসক্তি

ইন্টারনেট আসক্তির ফলে কী সমস্যা দেখা দিতে পারে?

কোন আসক্তিই জীবনে ভালো কোন ফল বয়ে আনে না। একইভাবে ইন্টারনেট আসক্তি থেকেও দেখা দেওয়া শুরু করবে নিম্নোক্ত সমস্যাগুলো-

১. পড়ালেখা, ক্যারিয়ার, সম্পর্কসহ ব্যক্তিগত সব ক্ষেত্রেই আগ্রহ হারিয়ে ফেলা।

২. ইন্টারনেটে আরও কিছুটা বেশি সময় কাটানোর জন্য মিথ্যার আশ্রয় নেওয়া শুরু করা।

৩. কোন সমস্যার সমাধান না করে, সমস্যাটি থেকে পালানোর জন্য ইন্টারনেটকে বেছে নেওয়া। এতে করে সমস্যার মাত্রা আরও বৃদ্ধি পাওয়া।

৪. ইন্টারনেটে প্রয়োজনের অধিক সময় পার করার ফলে সামাজিকতা রক্ষার দক্ষতা কমে যাওয়া। মানুষের সাথে মেলামেশা, পরিচিত হওয়া, সৌজন্য সাক্ষাতমূলক কথাবার্তা বলাতেও অনাগ্রহ চলে আসা।

৫. একইস্থানে দীর্ঘ সময় বসে থাকা, একই ভঙ্গীতে গ্যাজেট (কম্পিউটার, ল্যাপটপ, মোবাইল, ট্যাব) ব্যবহার করায় হাড়ের গঠনে সমস্যা দেখা দেওয়া।

কীভাবে ইন্টারনেট আসক্তি দূর করা যাবে?

ইন্টারনেট আসক্তি দূর করার ক্ষেত্রে একেকজনের জন্য একেক পদ্ধতি প্রযোজ্য হবে। অনেকের ক্ষেত্রেই ইন্টারনেট আসক্তির পেছনে অ্যাংজাইটি, ডিপ্রেশন, মেন্টাল স্ট্রেসের সমস্যা লুকায়িত থাকে। এমনটা হলে সাইকোলজিস্টের পরামর্শ নিয়ে এরপর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

এছাড়া কগ্নিটিভ থেরাপি, বিহাভিয়ারাল থেরাপি, আর্ট থেরাপি, ফ্যামিলি থেরাপি, স্কিল-বিল্ডিং ট্রেইনিংসহ বিভিন্ন কার্যকর পদ্ধতির মাধ্যমে এই আসক্তি থেকে একজনকে বের আনা সম্ভব।

আরও পড়ুন: ছুটি শেষে কাজের শুরু

আরও পড়ুন: মস্তিষ্কের বয়স কমবে শব্দ ধাঁধা সমাধানে

   

আন্না সেবার সাজে মুগ্ধতা ছড়ালেন রাধিকা মার্চেন্ট এবং অনন্ত আম্বানি



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
আন্না সেবার অনুষ্ঠানে সব্যসাচীর ডিজাইন করা পোশাকে রাধিকা, সাথে হবু বর অনন্ত আম্বানি

আন্না সেবার অনুষ্ঠানে সব্যসাচীর ডিজাইন করা পোশাকে রাধিকা, সাথে হবু বর অনন্ত আম্বানি

  • Font increase
  • Font Decrease

অনন্ত আম্বানি এবং রাধিকা মার্চেন্ট, ভারতের এই যুগল এখন বেশ চর্চায় আছেন। শিঘ্রই বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে যাচ্ছেন তারা। তারকা না হলেও জনপ্রিয়তায় কোনো অংশে তারকার চেয়ে কম নন এই হবু-দম্পতি। ছোটবেলার বন্ধুত্ব থেকে আজীনের জন্য গাঁটছড়া বাঁধতে যাচ্ছেন অনন্ত-রাধিকা। বাগদান হওয়ার পর থেকেই তারা বেশ আলোচনায় রয়েছেন।

সম্প্রতি তদের বিবাহ পূর্ববর্তী প্রথম অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে। আম্বানি পরিবারের অনুষ্ঠানে উদযাপন তো ধুমধাম করে হবেই! তা নজরে পড়ছে ইতোমধ্যেই। গতকালকের অনুষ্ঠান বেশ জাঁকজমকভাবেই শুরু হয়। সেই অনুষ্ঠানে  নববধূ রাধিকা ভারতীয় বিখ্যাত ডিজাইনার সব্যসাচীর পোশাক পরেছিলেন।

ছোটবেলার বন্ধুত্ব থেকে প্রণয়, অবশেষে পরিণয়ে অনন্ত আম্বানি এবং রাধিকা মার্চেন্ট
 

ভারতীয় বিবাহ রীতি আন্না সেবা’র অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিলেন আম্বানি এবং মার্চেন্ট পরিবার। ভারতীয় ধনাঢ্য পরিবারের কন্যা রাধিকা মার্চেন্টের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধতে চলেছেন মুকেশ আম্বানি এবং নীতা আম্বানির ছোট ছেলে অনন্ত আম্বানি। 

গতকাল জামনগরে বিবাহের উৎসব শুরু হয়। অনুষ্ঠানে রাধিকা এবং অনন্ত ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরেন। রঙিন সালোয়ার কামিজের সেট পরার সিদ্ধান্ত নেন রাধিকা। রানি গোলাপি এবয় কমলা রঙের মিশ্রণের সালোয়ার স্যুটে কনে রাধিকাকে বেশ মানিয়েছে। কনের পাশে বরকেও গর্জিয়াস দেখাচ্ছিল্ রঙের সমন্বয় রেখে অনন্ত পড়েছিলেন লাল রঙে সিল্কের কুর্তা এবং প্যান্ট।  তার সাথে ছিল ম্যাচিং এমব্রয়ডারি করা নেহরু জ্যাকেট।

বাগদান অনুষ্ঠানে অনন্ত-রাধিকা

বর্তমানে প্রায় সকল সেলিব্রিটি বিয়েতে সব্যসাচী মুখার্জির ডিজাইন করা পোশাক পরতে পছন্দ করে। রাধিকাও কোনো তারকার থেকে পিছিয়ে নন। আন্না সেবার অনুষ্ঠানে পরা পোশাকটি সব্যসাচীর কালেকশনেরই। পোশাকের সাথে সাজ ফুটিয়ে তুলতে হালকা গয়না পরেছিলেন রাধিকা। গলায় সোনার হালকা হার, চাঁদবালি, কানে ঝুমকো এবং হাত ভর্তি চুরি পরেছিলেন তিনি। তার সাথে সিম্পল ও এলিগেন্ট সাজে তাকে খুব সুন্দর লাগছিল।

রাধিকা এবং অনন্ত তাদের পরিবারের সদস্যদের সাথে আনন্দ উদযাপনে মেতে ওঠেন। উভয় পরিবারের সকলের সাজ নেটিজেনদের মুগ্ধ করেছে।

তথ্যসূত্র: হিন্দুস্তার টাইমস 

;

বন্ধুত্বে একাকিত্ব বোধ করলে যা করবেন



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
বন্ধুত্বে একাকিত্ব বোধ করা

বন্ধুত্বে একাকিত্ব বোধ করা

  • Font increase
  • Font Decrease

বন্ধু হলো এমন এক মানুষ, যাকে বিপদে আপদে সব সময় পাশে পাওয়ার আশা মানুষ করে। জীবনে আমাদের কাছের যে মানুষ থাকে তাদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকে। অন্যান্য সম্পর্ক আমরা নিজেরা বাছাই করতে না পারলেও, বন্ধু এমন এক সম্পর্ক যা আমরা আমাদের পছন্দ অনুযায়ী বাছাই করতে পারি।

অনেক সময় বন্ধুদের সাথে থেকেও আমরা একাকিত্ব অনুভব করি। বন্ধুদের প্রতি আমাদের প্রত্যাশা ভিন্নরকম হতে পারে। সবসময় হয়তো পরিবেশে ও পরিস্থিতি একরকম থাকে না। বন্ধুদের মধ্যে থেকে একাকিত্ব অনুভব করলে তা হৃদয়কে ভারী করে তুলতে পারে।

অনেক সময় এরকম অনুভূতি যোগাযোগের অভাবে হতে পারে। অথবা আগ্রহ, মূল্যবোধ বা অনুভূতির ভারসাম্য ঠিক না থাকার কারণেও হতে পারে। সেই ব্যাপারেই মন্তব্য করেছেন থেরাপিস্ট ইসরা নাসির।

১. বন্ধুমহলে একাকিত্ব অনুভব করলে তা নিজেকেই কাটিয়ে উঠতে হবে। বন্ধুত্বে চাহিদা এবং প্রত্যাশার প্রতিফলন না ঘটালে সামনের মানুষ কখনোই আমাদের অনুভূতি বুঝবে না। কারণ যত ভালো বন্ধুই হোক, নির্দিষ্ট সময়ে ব্যক্তিগত অনুভূতি বোঝা কারো পক্ষেই সম্ভব নয়।   তাই নিজের অনুভূতি প্রকাশে নিজেকে আগে সোচ্চার হতে হবে।

২.অন্যদের উদ্যোগের অপেক্ষা করা যাবে না। অনেক সময় বন্ধুদের সাথে আমাদের দেখা করার ইচ্ছা থাকলেও আমরা প্রকাশ করি না বা কাউকে জানাই না। আমরা অপেক্ষা করি , অন্য বন্ধুদের প্ল্যান করার। সেই কাজটা চাইলেই আমরা করতে পারি। দেখা করার এবং সুন্দর একটা সময় কাটানোর পরিকল্পনা করা খুব কঠিন কিছু নয়।     

৩.আমাদের নিজেদের পরিবেশের ব্যাপারে আরও মনোযোগী হতে হবে। আমাদের চারপাশে আমাদের সাথে কারা বন্ধুত্ব করতে আগ্রহী, তা লক্ষ্য করতে হবে। এভাবে বন্ধুবৃত্ত বড় করার পরিকল্পনা করতে হবে।

৪. কারো সাথে সম্পর্ক খারাপ হয়ে যাচ্ছে এমন মনে হলে তার সাথে একান্তে যোগাযোগ করা প্রয়োজন। তাদের থেকে আমরা যেরকম ব্যবহার আশা করছি তা সরাসরি জানাতে হবে। একাকিত্ব অনুভব করার সম্পর্কেও তাদের জানাতে পারেন।

৫.শুধু সংখ্যায় বন্ধু বাড়ানোর চেয়ে, বন্ধুত্বে গভীরতা বাড়ানোতে মনোযোগী হতে হবে। কারণ, বিপদে পাশে থাকবে এমন বন্ধুই প্রয়োজন। তাই সংখ্যায় কম হলেও, প্রকৃত বন্ধুর গুরুত্ব বেশি।    

তথ্যসূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস 

;

যমুনায় ৩ দিনব্যাপী হুরাইন ফেব্রিক উইক শুরু



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
যমুনায় ৩ দিনব্যাপী হুরাইন ফেব্রিক উইক শুরু

যমুনায় ৩ দিনব্যাপী হুরাইন ফেব্রিক উইক শুরু

  • Font increase
  • Font Decrease

দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ শপিমংল যমুনা ফিউচার পার্কে শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী হুরাইন ফেব্রিক উইক ২০২৪। যমুনা গ্রুপের গ্রুপ পরিচালক সুমাইয়া রোজালিন ইসলামফেব্রিক উইকের উদ্বোধন করেন।

মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পর্দা উঠেছে এ এক্সপোর। 

যমুনা ফিউচার পার্কের লেভেল ৭ এ শুরু হওয়া এই প্রদর্শনী চলবে আগামী বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) পর্যন্ত। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দর্শনার্থীরা আসতে পারবেন প্রদর্শনীতে।

ইউরোপসহ বিভিন্ন দেশের বায়ারদের জন্য হুরাইনের পক্ষ থেকে বসন্ত ও গ্রীষ্মের জন্য বিশ্বমানের ফেব্রিক দিয়ে তৈরি পোশাক প্রদর্শন করা হচ্ছে। বিভিন্ন গার্মেন্টসের প্রধান, বিপণন কর্মকর্তা ও বায়িং হাউজ থেকে আসছেন সংশ্লিষ্টরা। এবারের প্রদর্শনীতে ১৬৫ ধরনের নতুন ফেব্রিকের পাশাপাশি সাড়ে ৪ হাজার ফেব্রিক প্রদর্শন করা হচ্ছে। আর সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে এর সবই হুরাইন উদ্ভাবিত।

হুরাইন ফেব্রিক উইক সম্পর্কে যমুনা গ্রুপের গ্রুপ পরিচালক সুমাইয়া রোজালিন ইসলাম বলেন, প্রতিবছরই হুরাইন এইচটিএফ দুবার ফেব্রিক উইকের আয়োজন করে।

এ বছর ২০২৫ সালের স্প্রিং (বসন্ত) এবং সামার (গ্রীষ্ম) সিজনের ওপর ভিত্তি করে এ আয়োজন সাজানো হয়েছে। এরপর আমরা বর্ষা এবং শীতের আয়োজন নিয়ে আসব। মূলত, মৌসুম শুরুর ৮ মাস আগেই সেই মৌসুমে ব্যবহার উপযোগী নতুন রং ও ডিজাইনের হুরাইন উদ্ভাবিত ফেব্রিক সম্পর্কে ধারণা দিতে এই প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়। যাতে বিদেশি ক্রেতা এবং ডিজাইনারদের অর্ডার দিতে সুবিধা হয়। এই জন্যই আমাদের ফেব্রিক উইক করা হচ্ছে।

রোজালিন ইসলাম বলেন, হুরাইন বিশেষায়িত ফেব্রিক উৎপাদন করে। সচরাচর বাংলাদেশের অন্য টেক্সটাইল মিলগুলো এ ধরনের ফেব্রিক উৎপাদন করে না। আমাদের উৎপাদিত ফেব্রিক সম্পর্কে বিদেশি ক্রেতা ও ডিজাইনারদের জানাতে ব্যক্তি উদ্যোগের পাশাপাশি আমরা বিদেশি প্রদর্শনীতেও ফেব্রিক প্রদর্শন করে থাকি। এতে বায়ারদের ভালো সাড়া পাচ্ছি। এ বছরের শেষ নাগাদ সিনথেটিক ফেব্রিক যেমন পলিয়েস্টার, নাইলন, শিফন ও জর্জেট ফেব্রিক উৎপাদন শুরু করব।

তিনি বলেন, জন্মলগ্ন থেকেই আমাদের লক্ষ্য ছিল হুরাইন শুধু বাংলাদেশের নয় বরং বিশ্ববাজারেও নম্বর ওয়ান ব্র্যান্ড হবে। সেভাবেই আমরা কাজ করছি। শিগগিরই আমরা সেই লক্ষ্যে পৌঁছতে পারব বলে আশা করছি।


হুরাইনের প্রধান বিপণন কর্মকর্তা আব্দুল হাকিম বলেন, বাংলাদেশে এখন বিশ্ব মানের ফেব্রিক উৎপাদন হয়। সেটি বায়ারদের জানান দিতেই এই প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। যদিও সরকার প্রতি বছর রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) মাধ্যমে টেক্স ওয়ার্ল্ড প্যারিস প্রদর্শনীতে বাংলাদেশের টেক্সটাইল মিলগুলোকে অংশগ্রহণের সুযোগ করে দেয়।

তিনি আরও বলেন, বৈশ্বিক ফ্যাশনের হালচাল প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল। এখন ম্যান মেইড ফাইবারের যুগ চলছে। এখানে বাংলাদেশের অফুরন্ত সম্ভাবনা আছে। বাংলাদেশে টেক্সটাইল মিলগুলোকে সঠিক নীতি সহায়তা দিতে পারলে এ খাতে বিপুল পরিমাণ রফতানি আয় সম্ভব। হুরাইন এইচটিএফ সিনথেটিক ফাইবারের সম্ভাবনা কাজে লাগাতে বছরের শেষে নতুন সেট আপ চালু করছে, যাতে বছরে সাড়ে ৪ মিলিয়ন গজ কাপড় উৎপাদন সম্ভব।

হাকিম বলেন, হুরাইনের ফেব্রিক গুণগত মান সম্পন্ন হওয়ার কারণে আমেরিকা, শ্রীলঙ্কা, নিকারাগুয়া, ভিয়েতনাম ও কম্বোডিয়াতে সরাসরি রফতানি হচ্ছে। এছাড়া দেশের গার্মেন্টসগুলোর মাধ্যমে প্রচ্ছন্ন রফতানিও হচ্ছে।

প্রদর্শনীতে আসা ফ্যাশন ডিজাইনার জান্নাতুন নাইম বলেন, বাংলাদেশ এখন বিশ্বমানের ফেব্রিক উৎপাদনে সক্ষম। অনেক টেক্সটাইল মিল ভালো ফেব্রিক বানাচ্ছে। এর মধ্যে হুরাইনের ফেব্রিকের আলাদা বিশেষত্ব আছে। হুরাইন সব সময় উদ্ভাবনীয় শক্তি দিয়ে নতুন কিছু করতে চায়। এবারও নতুন ফেব্রিক দেখতে পেয়েছি যার রং ও ডিজাইন সত্যিই দেখতে সুন্দর, হ্যান্ডফিলও ভালো।

অপরদিকে, ফেব্রিক প্রদর্শনীতে আগত বায়ার ও দর্শনার্থীদের জন্য করা হয়েছে বিভিন্ন জোন। শুরুতেই রাখা হয়েছে পুরো এক্সপোর সামারি। তারপর পর্যায়ক্রমে সাসটেনেবল জোন, ফ্লাক্স ফাইবার, আর কটন, পাইনাপেল ফাইবার হেম্প ফাইবার, ডেনিম কাটিং ফাইবার ডবি জোন, ব্লেন্ডেড বটম, স্ট্রেস বটম, শেপিং টেকনোলজিস, লিলেন ব্লেন্ডস, নিউ ব্লেন্ডস, ইয়ার্ন ডাইড বটমস, রিজিড টুইল, স্ট্রাকচারাল জোন, ওভার ডাই জোন (আরএফডি), ক্লিনিক্যাল ফ্যাশন, টেনসিল ব্লেন্ডস, স্ট্রেট টুইলস জোন রাখা হয়েছে।

এছাড়াও হুরাইন ইতোমধ্যেই বিশ্বখ্যাত বিভিন্ন ব্র্যান্ড যেমন, সিঅ্যান্ডএ, যারা, আমেরিকান ঈগল, টম টেইলার, এস অলিভার, লেভিস, বারশকাসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সঙ্গে কাজ করছে বলেও জানান সংশ্লিষ্টরা।

;

মেনোপজ এবং পেরিমেনোপজের সময় সুস্থতা নিশ্চিত করবেন যেভাবে



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
মেনোপজ এবং পেরিমেনোপজের সময়কাল

মেনোপজ এবং পেরিমেনোপজের সময়কাল

  • Font increase
  • Font Decrease

নারীদের জীবনব্যাপী পরিবর্তনের সম্মুখীন হতে হয়। কয়েক ধাপে নারীদের শরীর পরিবর্তিত হয়। এর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কিছু ধাপও রয়েছে। তার মধ্যে অন্যতম হলো মেনোপোজ। বয়ঃসন্ধিকাল থেকে নারীদের ঋতুস্রাব হয়। প্রতি মাসেই এই চক্র শুরু হয়। তবে, এই প্রক্রিয়া আমৃত্যুকাল পর্যন্ত ঘটে না। সাধারণত ৪৫ থেকে ৫৫ বছর বয়সে নারীদের ঋতুস্রাব চক্র বন্ধ হয়। টানা এক বছরের বেশি ঋতুস্রাব বন্ধ থাকলে সেই সময় টাকে মেনোপজ বলে। মনোপোজে যাওয়ার পূর্ববর্তী প্রক্রিয়াকে বলে পেরিমেনোপজ।   

স্বাভাবিক ভাবেই শরীরের একটি বিশেষ পরিবর্তনের সময় এই পেরিমেনোপজ এবং মেনোপজ। এই সময় শারীরিক বা মানসিক বা উভয় ধরনেরই নানারকম চ্যালেঞ্জ আসতে পারে। যার সম্মুকীনন হওয়া কারো কারো জন্য কঠিন হতে পারে। সেই পরিবর্তনশীল সময়ের মধ্যে কাজ এবং জীবনের ভারসাম্য বজায় রাখা জরুরি। সেই জন্য ইচ্ছাশক্তির সাহায্যে প্রচেষ্টা করতে হয় এবং নিজেকেই সমর্থন করা প্রয়োজন।

ডাক্তার তেজল কানওয়ার একজন ভারতীয় ঋতুস্রাব স্বাস্থ্য ও স্বাস্থ্যবিধি ব্যবস্থাপক গাইনোকোলজিস্ট। তিনি ব্যাখ্যা করেছেন যে, মেনোপজ এবং পেরিমেনোপজের সময় শরীরে নানারকম অস্বস্তিজনিত উপসর্গ নজরে পড়তে পারে।  যেমন- বেশি গরম অনুভব করা, মেজাজ পরিবর্তন, ঘুমে ব্যাঘাত, হাড়ের সমস্যা, ওজন বৃদ্ধি, যোনিপথে শুষ্কতা অনুভব করা, ক্লান্তি, স্মৃতিলোপ পাওয়ার সমস্যা এবং অনিয়মিত পিরিয়ড। এই লক্ষণগুলো যেকোনো কারো স্বাভাবিক জীবন এবং সুস্থতার উপর প্রভাব ফেলতে পারে।

ডাক্তার মিনি সালুনখে জানান, বিভিন্ন পদ্ধতির মধ্যে এরকম পরিবর্তন সত্ত্বেও সামগ্রিক সুস্থতা বজায় রাখা সম্ভব। সুষম খাদ্য, ব্যায়াম, এবং মানসিক সুস্থতার অনুশীলন- এই অভ্যাসগুলো সামগ্রিক স্বাস্থ্যসুরক্ষায় অবদান রাখতে পারে।

উভয় চিকিৎসকই মেনোপজের সময় কাজ এবং জীবনের মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখাকে গুরুত্ব দিয়েছেন-

শারীরিক ক্রিয়াকলাপ: নিয়মিত ব্যায়াম সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে সহায়তা করে।

সুষম খাদ্য: হাড়ের সুরক্ষার জন্য ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করুন।

চিকিৎসা: চিকিৎসা গ্রহণ করার সময়ে হরমোন থেরাপি নেওয়ার কথা বিবেচনা করতে পারেন।

ঘুম: একটি ঘুমানোর রুটিন তৈরি করুন। প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুম পূরণ করাকে অগ্রাধিকার দিন।

আর্দ্রতা: গরমে অস্থির হওয়ার লক্ষণ উপশম করতে প্রচুর পানি পান করুন এবং হাইড্রেটেড থাকুন।

যোনি স্বাস্থ্য: যোনি শুষ্কতার সমস্যা এড়াতে পানিসমৃদ্ধ লুব্রিকেন্ট ব্যবহার করুন।

তথ্যসূত্র: দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

;