ফল ও সবজি না খাওয়া হলে কী হতে পারে?

ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইফস্টাইল
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

মুখরোচক ও সহজলভ্য ফাস্ট ফুড কিংবা প্রসেসড খাবারের প্রতি ঝোঁক বেশি থাকে আমাদের।

এতে করে ফল ও সবজি খাওয়ার হার কমে যায় অনেকখানি। এছাড়া অনেকেই খেতে অপছন্দ করে বিধায় ফল ও সবজি খাওয়া একেবারেই বাদ দিয়ে দেন। শারীরিক সুস্থতার সিংহভাগ পাওয়া যায় যে দুইটি উৎস থেকে সেগুলো খাদ্যাভ্যাস থেকে বাদ দেওয়া হলে কী হতে পারে বা কি ধরনের শারীরিক সমস্যা প্রকাশ পেতে পারে? সচেতনতার জন্য সে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা হলো।

হজমজনিত সমস্যা দেখা দেওয়া

ফল ও সবজি কম খাওয়া হলে সবার প্রথমেই দেখা দিবে হজমজনিত সমস্যা। কারণ ফল ও সবজিতে থাকা সেলুলস মল নির্গমনে সাহায্য করে। এতে থাকা দ্রবণীয় ও অদ্রবণীয় আঁশ কোষ্ঠ্যকাঠিন্যের সমস্যাকে প্রতিরোধে সবচেয়ে বেশি সাহায্য করে।

বৃদ্ধি পেতে পারে ক্যানসারের সম্ভাবনা

আমাদের প্রতিদিনের খাদ্যাভ্যাসের উপরে শারীরিক সুস্থতা অনেকখানি নির্ভর করে এবং ক্যানসারের মতো রোগের সম্ভাবনাও এক্ষেত্রে অনেকটা নির্ভরশীল। আমেরিকান ইন্সটিটিউট ফোর ক্যানসার রিসার্চ এর তথ্যানুসারে প্রাকৃতিক কোন খাবারই ক্যানসারের হাট থেকে পুরোপুরি রক্ষার করতে পারে না, তবে ক্যানসার দেখা দেওয়ার সম্ভাবনাকে বহু অংশে কমিয়ে ফেলতে পারে। ভিটামিন-ই ও সি সমৃদ্ধ খাদ্য উপাদান এক্ষেত্রে থাকবে প্রথম সারিতে। রঙিন ও বেটা-ক্যারোটিন সমৃদ্ধ কচুশাক, গাড় সবুজ পাতা বিশিষ্ট শাক, কমলালেবু, মিষ্টি আলু, গাজর প্রভৃতি সেলুলার ড্যামেজ থেকে কোষকে রক্ষা করে ক্যানসার দেখা দেওয়ার সম্ভাবনাকে কমিয়ে আনে। ফলে সবজি ও ফল গ্রহণ বাদ দিয়ে দিলে বৃদ্ধি পেতে পারে মরণব্যাধি ক্যানসারের সম্ভাবনা।

বাড়তে পারে ওজন

ফল ও সবজি না খাওয়া

ফল ও সবজি খাওয়া না হলে উচ্চ ক্যালোরি ও ফ্যাটযুক্ত খাবার খাওয়া হয়। এতে করে খুব সহজেই ওজন বেড়ে যায় স্বাভাবিকের চাইতে বেশি। স্টার্চযুক্ত সবজি (আলু, ভুট্টা প্রভৃতি) বাদে অন্যান্য সকল সবজিতেই থাকে অল্প ক্যালোরি যা থেকে পর্যাপ্ত শক্তি পাওয়া সম্ভব হয়। এ খাবারগুলো খাদ্যাভ্যাস থেকে বাদ পরলে স্বাভাবিকভাবেই অন্যান্য ক্যালোরিযুক্ত খাবার বেশি গ্রহণ করা হয়।

দেখা দিতে পারে ডায়াবেটিস

যেহেতু বাড়তি ওজনের সাথে ডায়াবেটিস সরাসরি সম্পর্কযুক্ত, তাই একটি সমস্যার সাথেই দেখা দেয় অন্য আরেকটি শারীরিক সমস্যা। ফ্যাটযুক্ত প্রসেসড ও চিনিযুক্ত খাবার একচেটিয়াভাবে খাওয়া হলে ডায়াবেটিসের মত স্থায়ী রোগ দেখা দিতে পারে খুব অল্প বয়সেই। অথচ নিয়মিত সবজি ও ফল গ্রহণে এই রোগকে খুব সহজেই দূরে রাখা সম্ভব।

হৃদরোগের ঝুঁকি দেখা দিতে পারে

ফল ও সবজি না খাওয়া

রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে সবজি ও ফল অনেক বড় ভূমিকা পালন করে। এতে করে হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকির মাত্রা কমিয়ে রাখা সম্ভব হয়। কিন্তু লম্বা সময় সবজি ও ফল গ্রহণ থেকে বিরত থাকার ফলে হৃদরোগের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পেতে পারে আগের চেয়ে অন্তত ২৮ শতাংশ বেশি, এমনটাই জানাচ্ছে ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নাল। প্রতিদিনের খাবারের নূন্যতম ৪ শতাংশ ফল ও সবজি হওয়া প্রয়োজন হৃদরোগের সম্ভাবনাকে স্তিমিত রাখতে।

বৃদ্ধি পাবে বিষণ্ণতার সমস্যা

সাম্প্রতিক সময়ে গবেষকেরা তাদের পরীক্ষা থেকে দারুণ একটি বিষয় সম্পর্কে জানিয়েছেন। আমরা যা খাই তার সাথে শুধু শরীরের সুস্থতা নয়, মানসিক সুস্থতাও জড়িত। বেশ বড় একটি গবেষণা থেকে দেখা গেছে, যারা উপকারী খাদ্য উপাদান পর্যাপ্ত পরিমাণ গ্রহণ করেন, তাদের মানসিক বিষণ্ণতা ও হতাশার মাত্রা কম হয় অন্যান্যদের চাইতে। যদিও এখানে ফল ও সবজি গ্রহণের বিষয়টি বিশেষভাবে উঠে আসেনি, কিন্তু গবেষকদের মতে এ ধরনের প্রাকৃতিক খাদ্য উপাদানে উপস্থিত পুষ্টি উপাদান ও খনিজ পদার্থগুলো বিষণ্ণতার বিরুদ্ধে কাজ করে থাকে।

আরও পড়ুন: ৬ কারণে ক্র্যাশ ডায়েট ক্ষতিকর স্বাস্থ্যের জন্য

আরও পড়ুন: রক্তচাপ বেড়ে গেলে কী করবেন?

আপনার মতামত লিখুন :