স্বাচ্ছন্দ্যে কাপড় ধোয়ায় হাতের নাগালেই ওয়াশিং মেশিন



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা২৪
ওয়াশিং মেশিন

ওয়াশিং মেশিন

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাভাইরাসের প্রকোপে গৃহবন্দী হয়ে পড়েছে সাধারণ মানুষ। যদিও ইতোমধ্যে অফিসের কাজ এবং বেশ কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পড়াশোনা অনলাইনে বাসায় বসে চললেও ধীরে ধীরে খুলতে শুরু করেছে দেশের বিভিন্ন অফিস, কারখানা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। করোনাভাইরাস খুবই ছোঁয়াচে রোগ এবং কাপড়েও বেশ কিছুদিন বেঁচে থাকতে পারে, তাই বৈশ্বিক মহামারির এ প্রেক্ষাপটে কাপড় ধোয়ার ব্যাপারে সবাইকে বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করতে হচ্ছে। এক্ষেত্রে, সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পারে ওয়াশিং মেশিন। এ মহামারির ভেতর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা নিয়ে বাড়তি সতর্কতা ওয়াশিং মেশিনকে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় হোম অ্যাপ্লায়েন্সে পরিণত করেছে।

কাপড়চোপড় ধোয়ার কাজটা সাধারণত গৃহহকর্মীদের ওপরই ন্যস্ত থাকে। কিন্তু করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারি শুরু থেকেই সংক্রমণ রোধে অনেক বাসাবাড়িতে তাদের প্রবেশ কমিয়ে দেয়া হয়েছে। তাই বলে কাপড় ধোয়া তো থেমে থাকছে না। কিন্তু কাজটা যে মোটেই সহজ নয় তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। এদিকে দেশে চলছে বর্ষাকাল। গরমের পাশাপাশি বৃষ্টিতে ভেজা কাপড় ধোয়াটা সারাদিনের কাজের পাশাপাশি একটা অতিরিক্ত ঝামেলাও মনে হতে পারে। এদিকে, বাসার যে ব্যক্তিরা বাইরে বেরোচ্ছেন, সাবধানতার জন্য তাদের কাপড়গুলো আলাদা করে ভালোভাবে পরিষ্কার করাও জরুরি। এক্ষেত্রে হাতের মাধ্যমে জীবাণু নাকে মুখে প্রবেশ করতে পারে তাই হাতের ব্যবহার যত কম করা যায় ততোটাই নিরাপদ। ওয়াশিং মেশিনের ব্যবহার এ ক্ষেত্রে হতে পারে খুবই সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত, যা পরিবারের প্রতিদিনের কাজের চাপ কমিয়ে স্বাচ্ছন্দ্যে কাপড় ধোয়াকে নিরাপদ ও সহজ করে তুলবে।

ভাইরাসের প্রকোপ কমাতে বিশেষজ্ঞরা ভালোভাবে কাপড় ধোয়ার ওপর জোর দিচ্ছেন। যারা নানান প্রয়োজনে বাসার বাইরে যাচ্ছেন, তাদের পরা কাপড় বাসায় ফিরে সাথে সাথেই ধুয়ে ফেলার পরামর্শ দিচ্ছেন তারা। পরিবারের সকলের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এবং দৈনন্দিন কাজে স্বাচ্ছন্দ্য আনতে অনেকেই ওয়াশিং মেশিন ক্রয় করছেন। তবে, ওয়াশিং মেশিন বিভিন্ন আয়ের মানুষের হাতের নাগালে না থাকায় সবাই এর সুবিধা উপভোগও করতে পারেন না। মহামারির এ ক্রান্তিকালে কাপড় ধোয়া নিয়ে সাধারণ মানুষের দুশ্চিন্তা লাঘবে এগিয়ে এসেছে কনজিউমার ইলেক্ট্রনিক্সের স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান সিঙ্গার বাংলাদেশ।

বিভিন্ন ধারণক্ষমতার সকল ওয়াশিং মেশিন ক্রয়ে সহজ কিস্তির ব্যবস্থা করেছে প্রতিষ্ঠানটি। সর্বনিম্ন ১২৮২ টাকা কিস্তিতে ঘরে নিয়ে আসতে পারেন নতুন ওয়াশিং মেশিন। ৬ কেজি থেকে ১১ কেজি ধারণক্ষমতার ফ্র্রন্টলোড ও টপ লোডের বিশাল সম্ভার থেকে প্রয়োজন ও পছন্দ অনুযায়ী ওয়াশিং মেশিন সিঙ্গারের শোরুম ছাড়াও অনলাইনেও ক্রয় করা যাবে। এক্ষেত্রে, রয়েছে বিনামূল্যে ডেলিভারির ব্যবস্থা। মডেল ভেদে সর্বোচ্চ ৩১% পর্যন্ত ডিসকাউন্ট রয়েছে। বিভিন্ন মডেলের ওয়াশিং মেশিনে ২ বছরের ফুল সার্ভিসিং ওয়্যারেন্টি এবং মোটরে ৫ বছরের ওয়্যারেন্টি সুবিধা প্রদান করছে।

গলা থেকে মাছের কাঁটা নামানোর ঘরোয়া টোটকা



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

মাছে ভাতে বাঙালি, কথাতেই আছে। বাঙালি মাছপ্রিয় বলেই খাওয়ার সময় গলায় মাছের কাঁটা আটকে যাওয়ার ঘটনা ঘটতে পারে। কিন্তু কাঁটার ভয়ে মাছের স্বাদ থেকে দূরে থাকবেন, তা তো হতে পারে না। বরং কাঁটা যদি গলায় ঢুকেও যায়, ঘরোয়া উপায়ে তা বার করার সহজ টোটকাগুলো জেনে রাখুন। কাজে লাগবে।

শুকনো ভাত

কিছুটা শুকনো ভাত সামান্য চটকে নিয়ে দলা পাকিয়ে গিলে ফেলুন। এক বারে না হলে বেশ কয়েক বার চেষ্টা করুন।

পাকা কলা

একটি পাকা কলা একটু বেশি করে নিয়ে চিবিয়ে একবারে গিলে নিন। এতেও উপকার পাবেন।

মার্শমেলো

শুনতে অদ্ভুত লাগলেও মাছের কাঁটা দূর করতে এই ফিকির বেশ উপকারী। একটি বড় মার্শমেলো নিয়ে মুখে কিছুক্ষণ রেখে লালা দিয়ে সামান্য নরম করে নিন। তারপর একবারে গিলে ফেলুন। মার্শমেলোর চটচটে চিনি কাঁটাও আটকে নিয়ে পেটে পৌঁছে দেবে।

ভিনিগার

ভিনিগারে মিশিয়ে নিন পানি। এ বার এই মিশ্রণ অল্প অল্প করে খেতে শুরু করলেই এক সময়ে নেমে যাবে কাঁটা। ভিনিগারের অম্লতা ও কাঁটা নরম করে দেওয়ার ক্ষমতাই এর জন্য দায়ী।

;

দাঁতের ক্ষয় রুখতে যা করবেন



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দাঁত থাকতে দাঁতের মর্ম বোঝেন না অনেকেই। ফলে বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে দেখা দেয় দাঁতের ক্ষয়, মাড়ি থেকে রক্তপাতের মতো সমস্যা। ৬০-৭০-এর দোরগোড়ায় পৌঁছলেই দাঁত তোলা বা রুট ক্যানাল হয়ে পড়ে অবশ্যম্ভাবী। আর তার উপর আপনি যদি ধূমপায়ী হন, তা হলে তো কথাই নেই। ধূমপানের অভ্যাস দাঁতের বারোটা বাজায়। ধূমপায়ীরা প্রথম থেকেই একটু একটু করে দাঁতের যত্ন নিতে শুরু করলে পড়ি কি মরি করে চিকিৎসকের কাছে তাদের আর ছুটতে হয় না।

ধূমপায়ীরা দাঁতের যত্ন নিতে কী কী করবেন?

দাঁত মাজা

ঘুম থেকে উঠে দাঁত মাজার অভ্যাস সকলের নিয়মের মধ্যেই পড়ে। তবে তার চেয়েও বেশি গুরুত্বপূর্ণ হল রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে আরেক বার দাঁত মাজার অভ্যাস। বিশেষ করে ধূমপায়ীদের ক্ষেত্রে এই নিয়ম মেনে না চললেই নয়।

টুথপেস্ট বাছাই

বিজ্ঞাপনের জমানায় আমাদের সামনে একাধিক টুথপেস্টের সম্ভার। টিভি খুললেই মাজনের বিজ্ঞাপনগুলোর বেশ রমরমা চোখে পড়ে। তবে টুথপেস্ট বাছাই করার সময়ে অবশ্যই মাথায় রাখুন, তাতে যেন ফ্লুরাইড থাকে। দাঁত পরিষ্কার রাখতে এই যৌগটির জুড়ি নেই।

মাউথওয়াশ

চেষ্টা করুন দিনে এক থেকে দু’বার কোনও অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল মাউথওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলতে। এতে মুখে দুর্গন্ধ হবে না আর দাঁতের উপর জমে থাকা জীবাণুর স্তরও সরে যায় সহজেই। ধূমপানে অভ্যস্ত হলে এই অভ্যাস শুরু করুন।

চিকিৎসকের কাছে যাওয়া

প্রত্যেককেই নিয়ম করে বছরে দু’বার দাঁতের চিকিৎসকের কাছে যাওয়া উচিত। ধূমপায়ীরা আরও বেশি বার গেলে ভাল। ধূমপায়ীদের দাঁতের সমস্যা হওয়ার আশঙ্কা সব সময়েই বাকিদের তুলনায় বেশি। দাঁতের স্বাস্থ্য ভাল রাখতে তাই বছরে অন্তত দু’বার স্কেলিং করানো জরুরি।

কুলকুচি

খাওয়াদাওয়ার পর সব সময়ে চেষ্টা করবেন যাতে পানি দিয়ে কুলকুচি করে নিতে পারেন। ধূমপানের ক্ষেত্রেও এমনটাই করা উচিত। নইলে নিকোটিনের স্তর জমে দাঁতের বারোটা বাজে।

;

জরায়ুমুখের ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি কাদের বেশি?



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সম্প্রতি একটি গবেষণাপত্রে প্রকাশিত হয়েছে, মানসিক সমস্যা বা স্নায়ুর সঙ্গে যুক্ত মনের রোগে আক্রান্ত নারীদের জরায়ুমুখের ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা দ্বিগুণ। কারণ, নিয়মিত পর্যবেক্ষণ বা চিকিৎসার অভাব।

সুইডেনের ক্যারোলিনস্কা ইনস্টিটিউটের গবেষকরা জানান, নারীদের জরায়ুমুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা ঠেকিয়ে রাখা যায় নিয়মিত পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে।

১৯৪০ থেকে ১৯৯৫ সালের মধ্যে জন্মেছেন এমন ৪০ লাখ নারীর উপর পর্যবেক্ষণ করে দেখা গিয়েছে, মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত এমন বহু নারীর শরীরেই এই ক্যান্সারের লক্ষণ দেখা গিয়েছে।

গবেষকদের মধ্যে অন্যতম কেইজ়া হু বলেন, আমরা দেখেছি, একটা বয়সের পর নারীদের নিয়মিত পর্যবেক্ষণের মধ্যে থাকা উচিত। বিশেষত যাদের এই ধরনের মানসিক সমস্যা আছে, তাদের তো আরও বেশি করে পর্যবেক্ষণে থাকা উচিত। কারণ, এই রোগে আক্রান্তরা নিয়মিত চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার কথা মনেই রাখতে পারেন না। ব্যক্তিগত ভাল-মন্দের খেয়াল তাদের থাকে না।

এ ছাড়াও গবেষকরা আরও দুটি বিষয়ের কথা উল্লেখ করেছেন, যেখান থেকে জরায়ুমুখের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যেতে পারে। এক, ধূমপান এবং অন্যটি হল জন্মনিয়ন্ত্রণের বড়ি। এই দুটির অনিয়ন্ত্রিত ব্যবহারেও নারীর জরায়ুমুখের ক্যান্সার আক্রান্ত হতে পারেন। তবে এই বিষয়ে নিশ্চিত হতে গেলে আরও গবেষণার প্রয়োজন রয়েছে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

;

যে ৫ টোটকায় বাড়বে ত্বকের জেল্লা



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ত্বকের জেল্লা বাড়াতে চান? তাহলে রোজ সকালে তো ত্বকের পরিচর্যা করতেই হবে। তবে অতিরিক্ত খরচ না করেও ঘরোয়া রূপচর্চাতেও কিন্তু ত্বকের জেল্লা বাড়ানো যায়। কিন্তু যেমন ইচ্ছা রূপচর্চা করলেই তো হল না। বিয়ের আগে ত্বকের জেল্লা ফেরানোর জন্য কয়েকটি নিয়ম মেনে চলতে হবে। তবেই বিশেষ দিনটিতে আশপাশের সকলের চেয়ে বেশি উজ্জ্বল থাকবে আপনার ত্বক।

কী কী করলে বাড়বে ত্বকের জেল্লা?

>> বিয়ের দিনটি এগিয়ে আসার আগে ঘরেই কয়েক বার ফেশিয়াল করে নেওয়া দরকার। ফেশিয়াল করলে রক্ত চলাচল ভাল হয়। ত্বক ঝলমল করে। কিন্তু চিন্তা করছেন কী দিয়ে ফেশিয়াল করবেন? ঘরে মুলতানি মাটি থাকলে তা ব্যবহার করে দেখতে পারেন। মুলতানি মাটির সঙ্গে কিছুটা দুধ আর মধু মিশিয়ে ফেশিয়াল করতে হবে।

>> মৌসুম বদলের সময়ে ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়। ত্বকের উপর জমতে থাকে মৃত কোষ। এই সময়ে মুখের উপর সেই জমা কোষ পরিষ্কার করা জরুরি। সপ্তাহে অন্তত দু’বার মধু আর টক দই মিশিয়ে মাখুন। তারপর কিছুক্ষণ মুখটা মালিশ করতে থাকুন। মৃত কোষ উঠে গিয়ে ত্বকের ঔজ্জ্বল্য ফিরবে।

>> রূপচর্চার ফল ভাল পাওয়ার জন্য খাওয়াদাওয়ার দিকেও বিশেষ নজর দিতে হবে। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত কী কী খাচ্ছেন, সে দিকে নজর দিন। ভিটামিন ডি ও ভিটামিন সি-তে ভরপুর খাবার এই সময়ে খেতে হবে। টক দই, সবজি, ফল মিশিয়ে রাখুন রোজের খাদ্যতালিকায়।

>> শরীরের ভাল রাখতেই নয়, ত্বকের জেল্লা বাড়াতেও বেশি করে পানি খেতে হবে। কাজের ফাঁকে নিয়ম করে ‘ডিটক্স ওয়াটার’-এ চুমুক দিতে থাকুন। রাতে শোয়ার আগে শসা, পুদিনা, লেবুর টুকরো এক জগ পানিতে ফেলে দিন। পরের দিন সারা দিন অল্প অল্প করে সেই পানি চুমক দেওয়ার অভ্যাস করুন। দিনে আড়াই থেকে তিন লিটার পানি খেতেই হবে।

>> বিয়ের আগে মনে নানা ধরনের চিন্তা থাকে। অনেক দায়িত্বও থাকে। এই সময়ে যেন ঘুম সম্পূর্ণ হয়, সেই বিষয়টি খেয়াল রাখুন। নইলে কিন্তু জেল্লা কখনওই বাড়বে না।

;