২০২২ সালের ছুটির তালিকা প্রকাশ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সরকার ২০২২ সালের ছুটির তালিকা প্রকাশ করেছে। গত ২৮ অক্টোবর অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে অনুমোদনের পর রোববার (৩১ অক্টোবর ) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ২০২২ সালের ছুটির তালিকা প্রকাশ করেছে।

তালিকা অনুযায়ী, এবার ১৪ দিন সাধারণ ছুটি এবং নির্বাহী আদেশে ৮ দিন ছুটি থাকবে। এরমধ্যে ৩ দিন করে মোট ৬ দিন পড়েছে সাপ্তাহিক ছুটির (শুক্র-শনি) মধ্যে।

সাধারণ ছুটির মধ্যে রয়েছে- ২০২২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস, ১৭ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস, ২৬ মার্চ স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস, ২৯ এপ্রিল জুমাতুল বিদা, মে দিবস, ৩ মে ঈদুল ফিতর, ১৫ মে বুদ্ধপূর্ণিমা (বৈশাখী পূর্ণিমা), ১০ জুলাই ঈদুল আজহা, ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস, ১৮ আগস্ট জন্মাষ্টমী, ৫ অক্টোবর দুর্গাপূজা (বিজয়া দশমী), ৯ অক্টোবর ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.), ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস এবং ২৫ ডিসেম্বর যিশু খ্রিস্টের জন্মদিন (বড়দিন)।

অন্যদিকে, আগামী বছরের ১৯ মার্চ শব-ই-বরাত, ১৪ এপ্রিল বাংলা নববর্ষ, ২৯ এপ্রিল শবে কদর, ঈদুল ফিতরের আগে ও পরের দুই দিন ২ এবং ৪ মে, ঈদুল আজহার আগে ও পরের ২ দিন ৯ ও ১১ জুলাই এবং ৯ আগস্ট আশুরার দিন নির্বাহী আদেশে ছুটি থাকবে।

ঐচ্ছিক ছুটি

ঐচ্ছিক ছুটির মুসলিম পর্বের মধ্যে রয়েছে- ১ মার্চ শবে মেরাজ, ৫ মে ঈদুল ফিতরের তৃতীয় দিন, ১২ জুলাই ঈদুল আজহার তৃতীয় দিন, ২১ সেপ্টেম্বর আখেরি চাহার সোম্বা এবং ৭ নভেম্বর ফাতেহা-ই-ইয়াজদাহম।

হিন্দু পর্বের ঐচ্ছিক ছুটির দিনগুলোর মধ্যে রয়েছে- ৫ ফেব্রুয়ারি সরস্বতী পূজা, ১ মার্চ শিবরাত্রী ব্রত, ১৮ মার্চ দোলযাত্রা, ৩০ মার্চ হরিচাঁদ ঠাকুরের আবির্ভাব, ২৫ সেপ্টেম্বর মহালয়া, ৪ অক্টোবর দুর্গাপূজা (নবমী), ৯ অক্টোবর লক্ষ্মীপূজা এবং ২৪ অক্টোবর শ্যামাপূজা।

এছাড়া ১ জানুয়ারি ইংরেজি নববর্ষ, ২ মার্চ ভস্ম বুধবার, ১৪ এপ্রিল পূণ্য বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল পূণ্য শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল পূণ্য শনিবার, ১৭ এপ্রিল ইস্টার সানডে এবং ২৪ ও ২৬ ডিসেম্বর যিশু খ্রিস্টের জন্মোৎসব (বড়দিনের আগে ও পরের দিন) হচ্ছে খ্রিস্টান পর্বের ঐচ্ছিক ছুটি।

ঐচ্ছিক ছুটির বৌদ্ধ পর্বের মধ্যে রয়েছে- ১৬ ফেব্রুয়ারি মাঘী পূর্ণিমা, ১৩ এপ্রিল চৈত্র সংক্রান্তি, ১২ জুলাই আষাঢ়ি পূর্ণিমা, ৯ সেপ্টেম্বর মধু পূর্ণিমা এবং ৯ অক্টোবর প্রবারণা পূর্ণিমা (আশ্বিনী পূর্ণিমা)।

পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকা ও এর বাইরে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত কর্মচারীদের জন্য ঐচ্ছিক ছুটির মধ্যে রয়েছে- ১২ ও ১৫ এপ্রিল বৈসাবি ও পার্বত্য চট্টগ্রামের অন্যান্য ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীগুলোর অনুরূপ সামাজিক উৎসব।

ছুটির আদেশে বলা হয়েছে, একজন কর্মচারীকে তার নিজ ধর্ম অনুযায়ী বছরে অনধিক তিন দিনের ঐচ্ছিক ছুটি ভোগ করার অনুমতি দেওয়া যেতে পারে। প্রত্যেক কর্মচারীকে বছরের শুরুতে নিজ ধর্ম অনুযায়ী নির্ধারিত তিন দিনের ঐচ্ছিক ছুটি ভোগ করার জন্য উপযুক্ত কর্তৃপক্ষের পূর্ব অনুমোদন গ্রহণ করতে হবে।

এতে বলা হয়, সাধারণ ছুটি, নির্বাহী আদেশে সরকারি ছুটি ও সাপ্তাহিক ছুটির সঙ্গে যুক্ত করে ঐচ্ছিক ছুটি ভোগ করার অনুমতি দেওয়া যেতে পারে।

আদেশে আরও বলা হয়, যেসব অফিসের সময়সূচি ও ছুটি তাদের নিজস্ব আইন-কানুন দিয়ে নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে বা যেসব অফিস, সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের চাকরি সরকার থেকে অত্যাবশ্যক হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে সেক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট অফিস, সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান নিজস্ব আইন-কানুন অনুযায়ী জনস্বার্থ বিবেচনা করে এ ছুটি ষোষণা করবে।

ভালুকায় পানির গর্ত থেকে শিশুর মরদেহ উদ্ধার



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ময়মনসিংহ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ময়মনসিংহের ভালুকায় ময়লা পানির গর্ত থেকে মারুফ নামে ৬ বছরের এক শিশুর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সোমবার (৬ নভেম্বর) রাত ১২টার দিকে উপজেলার হবিরবাড়ী ইউনিয়নের জামিরদিয়া এলাকা থেকে শিশুর মরদেহটি উদ্ধার করেছে ভালুকা মডেল থানা পুলিশ।

স্থানীয়রা জানায়, শিশুর পিতা মাহমুদুল হাসান প্রথম স্ত্রীকে তালাক দিয়ে আরেকটি বিয়ে করলে সৎ মা লাবলী আক্তার শিশুটিকে প্রায়ই নির্যাতন করতো। ঘটনার দিন শিশুটি নিখোঁজের সংবাদে খোঁজাখুঁজির পর স্থানীয়রা গোসলখানার ময়লা পানির গর্তে তার লাশ দেখতে পায়। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেছে ভালুকা মডেল থানা পুলিশ।

ভালুকা মডেল থানা পুলিশ পরিদর্শক মো: জাহাঙ্গীর আলম জানান, খবর পেয়ে নিহত মারুফের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। মরদেহের গলা ও পায়ে আঘাতের চিহ্ন পাওয়ায় সৎ মাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নেওয়া হয়েছে।

;

সিরাজগঞ্জে পিকআপ-লরির মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিরাজগঞ্জ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সিরাজগঞ্জে মাছের পিকআপ গাড়ি ও লরির সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে ইয়াসিন (৩০) নামের একজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরো ২ জন আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) সকালে রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের হরিণচড়া বাজারের পশ্চিম সাইডে ইট ভাটার সামনে এ দুঘর্টনা ঘটে।

নিহত ইয়াসিন (৩০) ময়মনসিংহ জেলার মুক্তাগাছা থানার কাটগড়া গ্রামের বাদশা ফকিরের ছেলে।

হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার টি আই মনির হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, জেলার সলঙ্গা থানার হাটিকুমরুল বনপাড়া মহাসড়কের হরিণচড়া বাজারের পশ্চিম পাশে একটি লরি ও মাছের গাড়ির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই ১ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরো ২ জন আহত হয়েছেন বলে তিনি জানান।

তিনি আরো জানান, নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

;

হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামীণ জনপদের ঐতিহ্যবাহী ভেসাল জাল



সোহেল মিয়া, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজবাড়ী
ভেসাল জাল

ভেসাল জাল

  • Font increase
  • Font Decrease

নদীমাতৃক দেশ আমাদের এই সোনার বাংলাদেশ। প্রকৃতির বিচিত্র দানে অপরূপ রুপে সজ্জিত এই দেশ। বাংলা নামের এ জনপদকে অধিক সমৃদ্ধ করে রেখেছে হাজার হাজার খাল-বিল, হাওড়-বিল ও নদী-নালা। আর এ কারণেই বাংলা হয়েছে নদীমাতৃক বাংলাদেশ। মানব সভ্যতার সূচনালগ্ন থেকেই মানুষের জীবনযাত্রার সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে রয়েছে নদ-নদী।

এমন এক সময় ছিল বাংলার মানুষের জীবনজীবিকার সাথে মাছ ধরা ছিল অন্যতম একটি পেশা। পাড়ায় পাড়ায় গড়ে উঠেছিল জেলে সম্প্রদায়। কিন্তু সময়ের আবর্তনের সাথে সাথে আজ হারিয়ে যেতে বসেছে সব। অস্তিত্ব সংকটে ভুগছে জেলে সম্প্রদায়। ভেসাল জাল পুস্তুকের কথা হলেও স্থানীয় গ্রামের ভাষায় একে বেয়াল জাল বা খেয়া জাল বলে। গ্রামের সাধারণ মানুষের কাছে এ নামেই বেশি পরিচিত।

একটা সময় দেশের খালে-বিলে বর্ষা মৌসুমে ভেসাল জাল দিয়ে মাছ শিকার করতো জেলে সম্প্রদায়। প্রতিটি নদ-নদীতেই দেখা মিলত বাঁশ-সুতো দিয়ে তৈরি মাছ শিকারের বিশেষ এই যন্ত্র ভেসাল জাল। ঝাঁক বেঁধে উঠতো দেশীয় প্রজাতির নানা প্রকারের মাছ।

কিন্তু বৈরি আবহাওয়া ও জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব, অবৈধ দখল আর অপরিকল্পিত ভাবে জলাশয় ভরাটের ফলে আজ যেমন মানচিত্র থেকে মুছে যাচ্ছে দেশের খাল-বিল, নদী-নালা। ঠিক তেমনি বিলুপ্তির পথে ভেসাল জাল। কোন এক সময় ভেসাল জাল সচরাচর চোখে পড়লেও বর্তমানে কালের বিবর্তনে হারিয়ে যেতে বসেছে। এখন আর চোখে পড়েনা বাংলার এক সময়ের মাছ শিকারের জনপ্রিয় এই ভেসাল। নদীর অস্তিত্ব সংকটের সাথে সাথে আজ দেশীয় প্রজাতির মাছ ও মাছ ধরার বিশেষ এই পদ্ধতিও হারিয়ে যাচ্ছে।

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দির সদর ইউনিয়নের ভীমনগর গ্রামের জেলে রমেন সেন বার্তা২৪.কমকে বলান, আমার বয়স এখন প্রায় ৮৫ বছর। এমন এক সময় ছিল সারা রাত ধরে চন্দনা নদীতে ভেসাল দিয়ে মাছ ধরতাম। প্রতি রাতে যে মাছ পেতাম তা দিয়েই চলত আমাদের সংসার। এখন চন্দনা নদীতে পানি থাকে না। ২-৩ মাস বর্ষা মৌসুমে একটু পানি থাকলেও আগের মতো আর মাছ পাওয়া যায় না। নদীতে যদি পানিই না থাকে তাহলে ভেসাল জাল থাকবে কি রে? পানি নেই, মাছ নেই তাই ভেসাল জালও নেই। 


বহরপুর ইউনিয়নের বারুগ্রাম আবাসনে গিয়ে দেখা যায়, সেখানকার খালে বেশ কয়েকটা ভেসাল রয়েছে। কথা হয় ভেসালের মালিক আমিরুল হোসেনের সাথে। তিনি জানান, আবাসনের এই বিলে বর্ষা মৌসুমে একটু পানি থাকে। তখন ভেসাল দেই আমরা। পানি শুকিয়ে গেলেই ভেসাল খুলে বাড়ি নিয়ে যাব। একটি ভেসাল দিতে যে খরচ সে খরচও এখন উঠতে চায়না। বিলে এখন মাছ নেই।

বালিয়াকান্দি উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুল মান্নাফ বার্তা২৪.কমকে বলেন, ভেসাল মাছ শিকারের একটি জনপ্রিয় পদ্ধতি। এটি গ্রামীণ জনপদের ঐতিহ্যবহন করে। মাছ শিকারের এই প্রক্রিয়াটি আজ সময়ের সাথে সাথে হারিয়ে যাচ্ছে। আগে গ্রামাঞ্চলের নদী-নালা, খাল-বিলে প্রচুর ভেসাল দেখা যেত। বাস্তবতা এখন ভিন্ন। বৈরি আবহাওয়া ও জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব, অবৈধ দখল আর অপরিকল্পিত ভাবে জলাশয় ভরাটের ফলে অস্তিত্ব সংকটে ভুগছে নদীগুলো। যার কারণে ভেসালও এখন আর তেমন চোখে পড়েনা।

;

গাইবান্ধা-৫ আসনে ভোট: সব কেন্দ্র সিসিটিভির আওতায় থাকবে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

অনিয়মের কারণে বন্ধ হওয়া গাইবান্ধা- ৫ আসনের উপনির্বাচনের নতুন তারিখ আগামী ৪ জানুয়ারি।

মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) কমিশন বৈঠকে ভোটের এই নতুন তারিখ ঘোষণা করা হয়। ওইদিন সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ইভিএমে ভোট হবে। আগের মতো এবারো ভোটে সিসি টিভি ক্যামেরা থাকবে।

মঙ্গলবার কমিশন সভা শেষে ইসি সচিব জাহাঙ্গীর আলম সাংবাদিকদের এ সব তথ্য জানান।

গত ১২ অক্টোবর গাইবান্ধা- ৫ আসনে উপনির্বাচনে সবগুলো কেন্দ্র সিসি টিভি ক্যামেরা দিয়ে ঢাকার নির্বাচন ভবনে বসে মনিটরিং করেন কাজী হাবিবুল আউয়াল কমিশন। ভোটে অনিয়ম ধরা পড়লে ভোট গ্রহণের চার ঘণ্টার মাথায় ১৪৫টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ৫১টি ভোটকেন্দ্র বন্ধ ঘোষণা করা হয়। পরে ভোট শেষের দেড় ঘণ্টা আগেই এ ভোট বন্ধ ঘোষণা করেন।

ভোট বন্ধের ঘোষণার পর রাজনৈতিক মহলে নানা আলোচনা সমালোচনার মুখে পড়ে বর্তমান কমিশন। এরপর এসব অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতেই তদন্ত কমিটি করে আউয়াল কমিশন।

;