আজ কোথায় কখন লোডশেডিং



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

জ্বালানি সংকটের কারণে বিদ্যুৎ উৎপাদনের ঘাটতির জন্য দেশজুড়ে এলাকাভিত্তিক আজও লোডশেডিং শুরু হচ্ছে। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী শনিবারের (১ অক্টোবর) তালিকা প্রকাশ করেছে বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানিগুলো।

ঢাকা বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি (ডিপিডিসি), ঢাকা ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি (ডেসকো), নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি (নেসকো), ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউসন কোম্পানি (ওজোপাডিকো), বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (বিআরইবি) এবং বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিপিডিবি) এর ওয়েবাসাইটের নির্দিষ্ট লিংককে গিয়ে এই তালিকা দেখতে পারবেন গ্রাহকরা।

আজকে কোন এলাকায় কখন লোডশেডিং হবে, এর সূচি দেওয়া হয়েছে। দেখে নেওয়া যাক।

https://www.desco.org.bd/bangla/loadshed_b.php

http://www.wzpdcl.org.bd/

https://nesco.portal.gov.bd/site/page/13ccd456-1e1d-4b24-828d-5811a856f107

http://reb.portal.gov.bd/site/page/c65ac273-d051-416f-9a93-5cd300079047

https://bpdb.portal.gov.bd/site/page/cafea028-95e6-4fca-8fea-e4415aef9a60

https://www.desco.org.bd/bangla/loadshed_b.php

জ্বালানি সাশ্রয়ে উচ্চ ব্যয়ের ডিজেলচালিত বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ রাখার সরকারি সিদ্ধান্তের পর সরবরাহ সংকটে দেশজুড়ে প্রতিদিন সূচি ধরে কোথাও এক ঘণ্টা আবার কোথাও ২ ঘণ্টা করে লোডশেডিং করা শুরু হয় মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) থেকে।

এর আগে ১৮ জুলাই লোডশেডিংয়ের সিদ্ধান্ত সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বিদ্যুৎ ও জ্বালানিবিষয়ক সমন্বয় সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

   

মাতৃভাষা দিবসে শ্রদ্ধা জানিয়ে কৃষকের শিল্পকর্ম



ছাইদুর রহমান নাঈম, উপজেলা করেসপন্ডেন্ট, বার্তা ২৪.কম, কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ)
ছবি: বার্তা ২৪

ছবি: বার্তা ২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

২১ শে ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে কৃষক তার জমিকে বিভিন্ন শিল্পকর্ম দিয়ে সাজিয়েছেন ৷ দেশের প্রতি শহীদদের প্রতি সম্মান ও ভালোবাসা জানিয়ে শিল্পকর্ম এঁকেছেন নিজের জমিতে। পরম যত্নে এসব কাজ নিজের হাতে করেছেন কৃষক রুমান আলী।

দৃষ্টি নন্দিত কারুকার্য শোভিত সবুজ ফসলের মাঠ। যেখানে ফুটিয়ে তুলা হয়েছে দেশের বিভিন্ন চিত্র। যে মাটির ঘাসে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের রক্তে লাল হয়েছিল বাংলার জমিন। যে মাটিতে মিশে আছে শহীদের রক্ত। সেই মাটির ফসলের মাঠে কৃষক ফুটিয়ে তুলেছেন লাল সবুজের পতাকা ও শহীদ মিনার ৷ ভাষার মাসে উন্মুক্ত করে দিয়েছেন সবার জন্য।

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরের গোবরিয়া-আবদুল্লাহপুর ইউনিয়নের জাফরাবাদ গ্রামে ফসলের মাঠে এমনি শিল্পকর্ম তৈরি করে তাক লাগিয়েছেন কৃষক রুমান আলী। শাকসবজি দিয়ে তৈরি করেছেন শহীদ মিনার, লাল সবুজের পতাকা, বাংলা লেখা সহ বিভিন্ন দৃশ্য।


জাতীয় দিবসগুলোতে তিনি তার জমিকে সাজান বিভিন্ন ভাবে ৷ বিভিন্ন স্থানের মানুষ আসেন দেখার জন্য। এই চিত্র দেখতে বিভিন্ন স্থান থেকে ছুটে আসছে মানুষ। ভাষার মাসে উন্মুক্ত থাকবে এই ফসলের মাঠ।

জানা যায়, কুলিয়ারচর উপজেলার গোবরিয়া আবদুল্লাহপুর ইউনিয়নের জাফরাবাদ গ্রামে ফসলের মাঠে কৃষক রুমান আলী তৈরি করেছেন শিল্পকর্ম। নিজের এক একর ১৪ শতাংশ জমিতে ঘাস এবং শাক সবজি দিয়ে সুনিপূণ কারুকার্য তৈরি করেছেন। মানুষজন তার জমিতে এসে ছবি তুলছেন। লাল শাক, ঘাস দিয়ে তৈরি হয়েছে শিল্পকর্মটি।

এ বিষয়ে কৃষক রুমান আলী বার্তা ২৪.কম-কে বলেন, দেশের প্রতি ভালোবাসা থেকেই আমি এটি করেছি। এছাড়াও কৃষি কাজের প্রতি বর্তমান সময়ের তরুণদের আকৃষ্ট করাটাও লক্ষ্য ছিল। দেশকে ভালোবাসি। মুক্তিযুদ্ধ ও ভাষা শহীদদের জন্য আমি আমার এ কাজকে উৎসর্গ করলাম। 

;

তারা হুইলচেয়ারে এসে শ্রদ্ধা জানালেন ভাষা শহীদদের



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রথম প্রহরে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানান রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। এরপর সকলের জন্য কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার উন্মুক্ত করে দেওয়া হলে ঢল নামে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের। সেই ঢলের মধ্যেই একদল শিশু এসেছিল হুইলচেয়ারে বসে। শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে নিজেদের প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে শহীদ মিনারে চলে এসেছে তারা।

বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা মেডিকেল কলেজ সংলগ্ন কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে দেখা যায়, বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ ফাউন্ডেশনের ব্যানারে ৪/৫ জন শিশু হুইলচেয়ারে বসে ফুল নিয়ে এসেছে।

নিজ পায়ে দাঁড়াতে অক্ষম ১০ বছর বয়সী শিশু রাফিয়া আক্তার মৌ। হাঁটতে অক্ষম হলেও ইচ্ছা শক্তির জোরে ও বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় সে এসেছে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে। শিশু মৌ বার্তা২৪.কমকে বলে, আমার অনেক ইচ্ছা ছিল একুশে ফেব্রুয়ারিতে শহীদ মিনারে ফুল দেওয়ার। আমার সে ইচ্ছা পূরণ করেছে বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ ফাউন্ডেশন। আমার অনেক খুশি লাগছে।

বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক মনিরুল আলম বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমরা প্রতিবন্ধী বাচ্চাদেরকে শহীদ মিনারে ফুল দিতে নিয়ে এসেছি। এতে তারাও শহীদদের ও শহীদ দিবসের সম্পর্কে জানতে পারবে।

তিনি আরও বলেন, এই শিশুরা ভাষার ব্যাপারে যাতে নিয়মিত পড়াশোনা করতে পারে সেজন্যে আমরা প্রতি সপ্তাহেই তাদের নিয়ে সাহিত্য আসরের আয়োজন করি। সেখানে প্রতিমন্ত্রীসহ অনেকেই আসেন।

;

শ্রদ্ধা জানাতে রংপুরে শহীদ মিনারে মানুষের ঢল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম,রংপুর
ছবি: বার্তা ২৪

ছবি: বার্তা ২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

রংপুরে গভীর শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় একুশের প্রথম প্রহরে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের আত্মত্যাগের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়েছে।

মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের প্রথম প্রহরে রাত ১২ টা ১ মিনিটে রংপুর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন সর্বস্তরের মানুষ।

এর আগে রাত সাড়ে ১০ টা থেকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পণ করতে শহীদ মিনার চত্বরসহ আশপাশের সড়কে মানুষের ঢল নামে।

এ সময় নেপথ্যে বাজছিল অমর একুশের কালজয়ী গান, আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি...।

পরে রাত ১২ টা ১ মিনিট থেকে রংপুর বিভাগীয় কমিশনার হাবিবুর রহমান, সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মনিরুজ্জামান, রংপুর জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোবাশ্বের হাসান, পুলিশ সুপার ফেরদৌস আলী চৌধুরী, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোছাদ্দেক হোসেন বাবলু, মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি, বিএনপি, জাসদ, বাসদসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক, পেশাজীবী সংগঠনের নেতারা শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করে।

পরে রংপুর প্রেসক্লাব, রিপোর্টার্স ক্লাব রংপুর, রিপোর্টার্স ইউনিটি, বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন, ভিডিও জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন, সিটি প্রেসক্লাব, বাংলার চোখসহ বিভিন্ন সংগঠন এবং সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান একে একে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায়।

এ ছাড়াও বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা পুষ্পস্তবক নিয়ে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

প্রসঙ্গত, রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে ১৯৫২ সালে ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগের দিনটি বাংলাদেশের ইতিহাসে মহান শহীদ দিবস হিসেবে পালন হয়ে আসছে। তবে দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে অমর একুশে এখন পালিত হচ্ছে সারা বিশ্বে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে। ১৯৯৯ সালে ইউনেসকো একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

;

জেলা প্রশাসক সম্মেলন ৩-৬ মার্চ



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আগামী ৩-৬ মার্চ ঢাকায় ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক সম্মেলন-২০২৪ অনুষ্ঠিত হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৩ মার্চ সকাল সাড়ে ১০টায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

এক তথ্যবিবরণীতে একথা জানানো হয়।

চার দিনব্যাপী সম্মেলনে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী, উপদেষ্টা, প্রতিমন্ত্রীবর্গ এবং মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সিনিয়র সচিব-সচিববৃন্দ এবং সরকারের বিভিন্ন সংস্থার প্রধানগণ অংশগ্রহণ করবেন।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সাধারণ সেবা-১ অধিশাখা থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

;