আলো ছড়াবে আলোকবর্তিকা!



সোহেল মিয়া, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজবাড়ী
আলো ছড়াবে আলোকবর্তিকা!

আলো ছড়াবে আলোকবর্তিকা!

  • Font increase
  • Font Decrease

শিক্ষার সার্বিক উন্নয়নে যেটি কাজ করে সেটি হলো গ্রন্থাগার। বলা যেতে পারে শিক্ষার উন্নয়নের মূল ভিত্তিই হলো গ্রন্থাগার। গ্রন্থাগার সমাজ উন্নয়নের বাহন। একটি জাতির মেধা, মনন, ইতিহাস ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির ধারণ ও লালনপালনকারী হিসাবে সমাজে গ্রন্থাগারের ভূমিকা অনস্বীকার্য। জ্ঞানের আলো ছড়িয়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে গ্রন্থাগারের রয়েছে সুদূরপ্রসারী ভূমিকা।

আগামীর স্মার্ট বাংলাদেশ গড়া এবং পরবর্তী প্রজন্মের কথা ভেবে রাজবাড়ীর আত্নমানবতার কাজে প্রতিষ্ঠিত সবচেয়ে জনপ্রিয় ও মানবিক সামাজিক সংগঠন “রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশন” এবার প্রতিষ্ঠিত করতে যাচ্ছেন “আলোকবর্তিকা” নামে একটি গ্রন্থাগার। যেটি এখন উদ্বোধনের অপেক্ষায়। এরই মধ্যে গ্রন্থাগার স্থাপনের সকল কার্যক্রম সম্পন্ন করেছেন সংগঠনটির সদস্যবৃন্দ।

গ্রন্থাগার ব্যবহার করে আমাদের প্রজন্ম তাদের মেধার বিকাশ ঘটিয়ে একটি বৈশ্বিক মানবিক মূল্যবোধসম্পন্ন মানুষ হিসাবে নিজেদেরকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারবে এমন ধারণা থেকেই জেলার বিভিন্ন স্থানে সংগঠনটি গ্রন্থাগার প্রতিষ্ঠা করার জন্য কাজ হাতে নিয়েছে।

রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশনের সাধারণ সম্পাদক আফরোজা মিথুন বার্তা২৪.কমকে বলেন, করোনাকালীন সময়ে মানুষ যখন বিপদগ্রস্থ হয়ে পড়ে ঠিক সেই দুর্যোগ মুহূর্তে ক্যাপ্টেন ডা. সুমন হুসাইনসহ একঝাঁক তরুণ স্বপ্নবাজ প্রতিষ্ঠা করেন রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশন। সেই করোনাকালীন সময়ে করোনায় আক্রান্ত দরিদ্র রোগীদের বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা প্রদানের মাধ্যমেই আত্নপ্রকাশ করে সংগঠনটি। তখনই রাজবাড়ীবাসীর হৃদয়ে ঠাঁই করে নেয় সংগঠনটি।

এরপর থেকে রাজবাড়ীতে নানাবিধ সামাজিক ও মানবিক কাজ করে যাচ্ছে সংগঠনটির নিবেদিত কর্মীরা। তারই ধারাবাহিকতায় এবার আমরা জেলার বিভিন্ন স্থানে গ্রন্থাগার নির্মাণের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। প্রধম ধাপে আমরা বালিয়াকান্দি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে আলোকবর্তিকা গ্রন্থাগারটি তৈরি করছি। সব কিছু ঠিক থাকলে প্রাথমিক ভাবে ৫০০ বইয়ের সংগ্রহ নিয়ে ফাউন্ডেশনের মানবিক সদস্যদের নিজস্ব অর্থায়নে ২৬ জানুয়ারি (বৃহস্পতিবার) এটির উদ্বোধন করা হবে। এই গ্রন্থাগার উদ্বোধনের পর বিদ্যালয়ের প্রায় ১ হাজার ৪০০ শিক্ষার্থী সরাসরি সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত অর্থ্যাৎ বিদ্যালয় চলাকালীন সময় আলোকবর্তিকা গ্রন্থাগারটি ব্যবহার করতে পারবেন।

গ্রন্থাগার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকতে সদয় সম্মতিজ্ঞাপন করেছেন বালিয়াকান্দি উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান মো: মনিরুজ্জামান মনির, সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো: হাসিবুল হাসান, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পারমিস সুলতানা ও বালিয়াকান্দি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: কুতুবউদ্দীন মোল্লা।

সংগঠনটির সভাপতি প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ্ আল রনি বার্তা২৪.কমকে বলেন, গ্রন্থাগার প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে আমাদের বৃহৎ পরিকল্পনা রয়েছে। বিশেষ করে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠির সন্তানদের কথা বিবেচনা করে আমরা এরপর পর্যায়ক্রমে ইউনিয়ন পর্যায়ে দুর্গম চরসহ বিভিন্ন স্থানে গ্রন্থাগার স্থাপনের চেষ্টা করা হবে।

সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা ও স্বপ্নদ্রষ্ট্রা ক্যাপ্টেন ডা. সুমন হুসাইন বার্তা২৪.কমকে বলেন, “এসো বই পড়ি, উন্নত জীবন গড়ি” এই প্রতিপাদ্য নিয়ে আমরা রাজবাড়ী হেল্পলাইন ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে প্রথম লাইব্রেরি “আলোকবর্তিকা” উদ্বোধন করতে যাচ্ছি। আশা রাখছি ঘুনে ধরা অন্ধকার সমাজে আলো ছড়াবে আলোকবর্তিকা গ্রন্থাগারটি।

   

কুষ্টিয়ায় স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমিককে হত্যা, স্বামীসহ গ্রেফতার ৩



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কুষ্টিয়া
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

কুষ্টিয়ায় স্ত্রীর সঙ্গে হাতেনাতে ধরার পর প্রেমিককে পিটিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় স্বামীসহ ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

পরকীয়ার জেরে নিহত যুবকের নাম ইকবাল হোসেন (৩০)। 

শুক্রবার (২৪ মে) বিকেলে কুষ্টিয়া শহরের আদর্শপাড়া এলাকার মজিবর রহমান সড়কের বাসিন্দা নাজিম উদ্দিনের বাসায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ইকবাল হোসেন আদর্শপাড়া এলাকার নুকুল ইসলামের ছেলে। তিনি স্থানীয় একটি রাইস মিলের ম্যানেজার ছিলেন। ইকবালের এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ সোহেল রানা জানান, পুলিশ জানান, প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে প্রতিবেশী নাজিমের স্ত্রীর সঙ্গে ইকবালের পরকীয়ার সম্পর্ক ছিল। সেই সম্পর্কের জেরে আজ দুপুরে ইকবাল ওই বাড়িতে গেলে নাজিম উদ্দিন অন্তরঙ্গ অবস্থায় তাদের হাতেনাতে ধরে ফেলে। এ সময় নাজিমসহ কয়েকজন ইকবালকে মারধর ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। 

তিনি আরও জানান, নিহত ইকবাল হোসেন আদর্শপাড়া এলাকার নুকুল ইসলামের ছেলে। তিনি স্থানীয় একটি রাইস মিলের ম্যানেজার ছিলেন। ইকবালের এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। নুকুল হোসেন এরই মধ্যে থানায় এজাহার দিয়েছেন। শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে প্রেমিকার স্বামীসহ পুলিশ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে।

তবে নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে ইকবালকে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছে নাজিম ও তার লোকজন। 

;

পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের চাঁদা দাবি: রাঙামাটিতে উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ বন্ধ



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাঙামাটি
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

পাহাড়ে আঞ্চলিক দলীয় সন্ত্রাসীদের বেপরোয়া চাঁদাবাজিতে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রম। 

শুক্রবার (২৪ মে) বিকেলে খোদ রাঙামাটি পৌর শহরের আসামবস্তি এলাকায় সড়কের চলমান উন্নয়ন কাজে সশস্ত্র হামলা চালিয়ে কাজ বন্ধ করে দিয়েছে সন্ত্রাসীরা। এসময় কাজে নিযুক্ত থাকা শ্রমিকদের মারধর করে তাদের কাছে থাকা অন্তত ৬টি মুঠোফোন ছিনিয়ে নিয়ে গেছে বলে শ্রমিকরা জানিয়েছে।

ঘটনার সময় উন্নয়ন কাজ তদারকির দায়িত্বে থাকা এলজিইডি’র কার্যসহকারী রেজাউল করিম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করলেও কে বা কারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে সেটি নিয়ে বিস্তারিত জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেছেন। 

মাত্র কিছুদিন আগেও এই একই আসামবস্তি-কাপ্তাই সড়কে জেএসএস এর নামধারী অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে নির্মাণ শ্রমিকদের কাছ থেকে ৯টি মুঠোফোন নিয়ে গেছে বলে নিরাপত্তা বাহিনীর সূত্র নিশ্চিত করেছে। এই ঘটনার পর আসামবস্তি ব্রিজ সংস্কারের কাজ বন্ধ রেখেছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ।

রাঙামাটির সাথে কাপ্তাইয়ের সংযোগ সড়ক যোগাযোগে এলজিইডি কর্তৃপক্ষ আসামবস্তি কাপ্তাই সড়কটি তৈরি করে এবং পর্যায়ক্রমে এই সড়কটিকে নানামুখী উন্নয়নের মাধ্যমে নয়নাভিরাম করে গড়ে তুলছে। ইতোমধ্যেই এই সড়কটি অন্যতম প্রধান পর্যটন এলাকায় পরিণত হয়েছে। সড়কের উভয় পাশেই গড়ে উঠেছে বিভিন্ন পর্যটন স্পট। সাম্প্রতিক সময়ে এই সড়কে চলমান উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়নে বাধা দিয়ে ঠিকাদারদের কাছে শতকোটি টাকা চাঁদা দাবি করছে পাহাড়ি সন্ত্রাসীরা। চাঁদার দাবিতে গত দুই বছরে একাধিকবার গাড়িতে অগ্নিসংযোগসহ চালকদের মারধর ও ঠিকাদারের লোকজনসহ বনবিভাগের লোকজনকেও আটকে রেখেছিলো জেএসএস নামধারী অস্ত্রধারীরা।

সর্বশেষ শুক্রবার বিকেলে আসামবস্তি ব্রিজের পরে আধা কিলোমিটার পরেই কাপ্তাইমুখী সড়কের কাজ চলাকালীন সময়ে অস্ত্রধারী পাঁচ যুবক অতর্কিত হামলা চালিয়ে শ্রমিকদের এলোপাতাড়ি মারধর করে। 

শ্রমিক মো. আকতার হোসেন জানিয়েছেন, আমরা প্রতিদিনের ন্যায় সকলে মিলে কাজ করছিলাম। বিকেল চারটার সময় আকস্মিকভাবে ৫/৬ জন চাকমা যুবক দুইটি রিভলভার হাতে নিয়ে এসেই আমাদেরকে এলোপাথাড়ি মারধর করতে থাকে। এসময় আমারসহ আমার সহকর্মী রুবেল, শামীম, আকাশ, রিপনসহ মিস্ত্রির আরও দুই সহযোগীর কাছ থেকে মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে গেছে।

এদিকে বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে চাইলে রাঙামাটির এলজিইডি’র দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের কেউই কথা বলতে রাজি হননি। নিরাপত্তার অভাববোধ করছেন জানিয়ে একজন উদ্বর্তন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, আসামবস্তি সড়কে বর্তমানে ১০ কোটি টাকার উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাস্তবায়ন বন্ধ করে দিয়েছে উপজাতীয় সন্ত্রাসীরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলজিইডি’র ওই কর্মকর্তা বলেন, এতোদিন দুর্গম এলাকাগুলোতে ব্যাপক চাঁদাবাজি করলেও সাম্প্রতিক সময়ে একেবারে রাঙামাটি শহরেই প্রকাশ্যে চাঁদাবাজি শুরু করেছে।

এদিকে, সংশ্লিষ্ট কাজের ঠিকাদাররা জানিয়েছেন, কাজ শুরুর আগেই উপজাতীয় সন্ত্রাসীদের চারটি গ্রুপকে ৫ পার্সেন্ট হারে চাঁদা দিয়েছি। এরই মধ্যে একাধিকবার হামলা চালিয়ে চাঁদা নিয়েছে। বর্তমানে জেএসএস নামে ১০ পার্সেন্ট করে চাঁদা দাবি করা হচ্ছে। বিগত কয়েক বছর আগের শিডিউল রেটে কাজ নিয়ে চারটি পাহাড়ি সংগঠনকে চাঁদা, অফিস খরচের পর আবার বর্তমান রেটে সরঞ্জাম কিনে কাজ বাস্তবায়ন করাটা চরম কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে। এমতাবস্থায় কাজ বন্ধ রাখার কোনো বিকল্প নেই বলেও জানিয়েছেন ঠিকাদাররা।

এদিকে, সন্ত্রাসী হামলার ব্যাপারে কেউ কোনো ধরনের লিখিত অভিযোগ দায়ের করেনি বলে জানিয়েছেন, রাঙামাটি কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আলী। তিনি জানান, বিষয়টি নিয়ে খোঁজ-খবর নিচ্ছি আমি। কেউ যদি লিখিত অভিযোগ দেয় তাহলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে পুলিশ।

;

খুলনার রূপসায় এক যুবককে কুপিয়ে জখম



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, খুলনা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

খুলনার রূপসা রহিমনগরে কোপাকোপির ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় ওই এলাকার মো. জহির শেখ (২৫) কে কুপিয়ে আহত করেছে।

শুক্রবার (২৪ মে) রাত ৮টার দিকে উপজেলার নৈহাটি ইউনিয়নের রহিমনগর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানায়, রাত সোয়া ৮টার দিকে জেলার রূপসা উপজেলার নৈহাটি ইউনিয়নের রহিমনগর এলাকার মো. জহির শেখ (২৫) কে ওই এলাকার তালিমপুর গ্রামের মো. রসুল গাজীর ছেলে মো. রিয়াজুল ইসলাম (৩০)সহ আরও কয়েকজন এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে। তখন জহির শেখের আত্মচিৎকারে মানুষ এগিলে আসলে রিয়াজুলসহ অন্যরা পালিয়ে যায়। এসময় জহিরকে চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

রূপসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. এনামুল হক জানান, আমরা ঘটনা শুনেছি। সেখানে ফোর্স পাঠানো হয়েছে। তবে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, পূর্বশত্রুতার জের ধরে মো. রিয়াজুল ও তার সহযোগীরা মো. জহির শেখকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। 

;

সিসিক'র ২৭ ওয়ার্ডের হোল্ডিং ট্যাক্স অ্যাসেসমেন্ট রি-অ্যাসেসমেন্ট বাতিল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিলেট
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সিলেট সিটি করপোরেশনের চলমান ২৭টি ওয়ার্ডের হোল্ডিং ট্যাক্স অ্যাসেসমেন্ট রি-অ্যাসেসমেন্ট বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিসিক। একই সাথে নতুন অন্তর্ভুক্ত ১৫টি ওয়ার্ডের অ্যাসেসমেন্ট কার্ক্রম চালু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

শুক্রবার (২৪ মে) রাত ৮টায় নগর ভবনের সভাকক্ষে এক জরুরি সাধারণ সভা পরবর্তী জেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে সংবাদ সম্মেলনে এমন তথ্য জানান সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) মেয়র মো. আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী।

সাংবাদিক সম্মেলনে মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী বলেন, ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে বকেয়া হোল্ডিং ট্যাক্স আদায় অব্যাহত থাকবে। বকেয়া প্রদানের জন্য আহ্বান জানান তিনি।কাউন্সিলরদের সাথে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সম্মানিত নাগরিকবৃন্দের দাবির প্রতি সম্মান জানিয়ে ২৭টি ওয়ার্ডের হোল্ডিং ট্যাক্স অ্যাসেসমেন্ট রি-অ্যাসেসমেন্ট বাতিল করে হোল্ডিং সমূহে নতুন করে রি-অ্যাসেসমেন্ট ও একই সাথে নতুন অন্তর্ভুক্ত ১৫টি ওয়ার্ডের অ্যাসেসমেন্ট কার্যক্রম চালু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

মেয়র বলেন, এর আগে আমি সম্মানিত নাগরিকবৃন্দের কাছে বারবার বলেছিলাম যে, জনগণের জন্য অকল্যাণ হয় এমন কোনো সিদ্ধান্ত আমি নিবো না। জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধি হিসেবে আমার দায়িত্ব তাদের মতামতকে মূল্যায়ন করার। জনগণ ও কাউন্সিলরদের মতামতের ভিত্তিতে চলমান অ্যাসেসমেন্ট বাতিল করে নতুন করে রি-অ্যাসেসমেন্ট করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। বকেয়া হোল্ডিং ট্যাক্স প্রদানের জন্য নগরবাসীকে অনুরোধ জানান তিনি।

আমার অনুরোধের প্রেক্ষিতে চলমান অ্যাসেসমেন্ট নিয়ে নাগরিকবৃন্দ খুবই ধৈর্যশীলতার সাথে মেয়রের অনুরোধ রেখেছেন, এ জন্য আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন সিসিক মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী।

সিসিক মেয়র আরও বলেন, নগরবাসীকে সাথে নিয়ে নগরীর কল্যাণে নিয়ে যেকোনো প্রতিকূল পরিস্থিতি আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা হবে। জনগণের প্রতিষ্ঠানে জনমত প্রাধান্য পাবে।

এসময় সিলেট সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলরবৃন্দ, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী, প্রধান নির্বাহী প্রকৌশলী নূর আজিজুর রহমান,সচিবসহ বিভিন্ন শাখার কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং কাউন্সিলরবৃন্দের সর্বসম্মতিক্রমে ৪২টি ওয়ার্ডের হোল্ডিং সমূহে নতুন করে রি-অ্যাসেসমেন্ট করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 

;