বড় প্রকল্পে বড় চুরি, প্রকৌশলীদের পোয়াবারো! 



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বড় প্রকল্পে বড় চুরি,  প্রকৌশলীদের পোয়াবারো! 

বড় প্রকল্পে বড় চুরি, প্রকৌশলীদের পোয়াবারো! 

  • Font increase
  • Font Decrease

মেহেরপুর-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়ক বর্ধিতকরণসহ সংস্কার কাজ চলছে প্রায় দুই মাস ধরে। জেলার সবচেয়ে বড় এই প্রকল্পের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান যাচ্ছেতাই ভাবে কাজ সম্পাদন করলেও অজ্ঞাত কারণে সড়কে অনুপস্থিত কর্তাব্যীক্তরা। নিম্নমানের ইট ও বালুর ব্যবহার এবং সড়কের পাশের মাটি কেটে রাস্তা ভরাট করা হচ্ছে। কালভার্ট নির্মাণে দেওয়া হচ্ছে ঢাকার লোকাল রড। এত কিছুর পরেও দায়িত্বপ্রাপ্ত কোন প্রকৌশলী থাকেন না কাজের পাশে। ফলে  এই বড় প্রকল্পে বড় চুরি আর প্রকৌশলীদের পোয়াবারো বলে মন্তব্য করেছেন এলাকার বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ।

জানা গেছে, মেহেরপুর-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়ক বর্ধিতকরণ ও সংস্কার প্রকল্পের আওতায় গাংনীর তেরাইল ডিগ্রি কলেজ থেকে খলিশাকুন্ডি ব্রিজের পূর্বপাশ পর্যন্ত একটি প্যাকেজ। এ প্যাকেজটি বাস্তবায়ন করছে ঢাকার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এমএম বিল্ডার্স ইঞ্জিনিয়ারিং লিং, মেসার্স রিমি নির্মাণ সংস্থা। এ প্যাকেজটির প্রাক্কলিত মূল্য ৯০ কোটি ৮৯ লাখ টাকা।

জানা গেছে, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বামন্দী বাজারের অদূরে অস্থায়ী কার্যালয় ও ফিল্ড স্থাপন করেছে। সেখানে প্রকাশ্য দিবালোকে নিম্নমানের ইট ভেঙ্গে বানানো হচ্ছে খোয়া। এই খোয়া ও নিম্নমানের বালু দিয়েই সম্প্রসারিত অংশের ডাব্লিউবিএম সম্পন্ন হচ্ছে। সঠিকভাবে কমপ্কেশন করা হচ্ছে না মর্মে এলাকার লোকজান বারবার অভিযোগ দিলেও তাতে কর্ণপাত করেনি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। কাজের পাশে দেখা মিলছে না সড়ক ও জনপথ বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের। ফলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের ইচ্ছেমাফিক নিন্মমানের কাজ করলেও নালিশ করার জায়গা নেই এলাকার মানুষের।


নিয়ামানুযায়ী বাইরে থেকে মাটি এনে রাস্তার দুপাশ ভরাট করার শর্ত থাকলেও তা অগ্রাহ্য। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের লোকজন রাস্তার পাশে সরকারি ও ব্যক্তি মালিকানা জমি থেকে মাটি কেটে রাস্তা ভরাট করেছে। এতে জমির মালিকরা ক্ষতিগ্রস্থ হলেও প্রতিকার পাচ্ছেন না। তাছাড়া একটু ভারি বৃষ্টি হলেই রাস্তার পাশে দেওয়া ওই মাটি ধ্বসে রাস্তা বিনষ্ট হওয়ার আশংকাও দেখা দিয়েছে।

জানা গেছে, সড়কটিতে রয়েছে কয়েকটি কালভার্ট। কালভার্ট নির্মাণে ব্যবহার করা হচ্ছে নিম্নমানের ইট, খোয়া আর ঢাকার লোকাল রড। স্থানীয়রা এ বিষয়টিতে বাধা দিলেও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের হুমকিতে মুখ বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছেন তারা।

স্থানীয়রা জানান, এ সড়কটি অত্যন্ত জনগুরুত্বপুর্ণ। জেলা থেকে প্রতিদিন কয়েক হাজার মে. টন খাদ্য শস্য রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা হয়। তাছাড়া দূরপাল্লার যাত্রীবাহি বাস ও স্থানীয় হাজার হাজার যানবাহন চলাচল করে। সড়কটির গুরুত্ব বিবেচনা করে কর্তৃপক্ষ বড় প্রকল্পের আওতাভুক্ত করেছে। কয়েকশ কোটি টাকার এই প্রকল্পটি সরকারের সুনাম অর্জন হওয়ার কথা। অথচ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাথে প্রকৌশলীদের আতাতের কারনে তা ভেস্তে যাচ্ছে।

স্থানীয়রা জানান, এ প্যাকেজ আওতাধীন সড়কে কয়েকটি  কালভার্ট নির্মাণ হচ্ছে। এতে নিম্নমানের ইট,  বালু আর ঢাকার লোকাল রড ব্যবহার করা হচ্ছে দেদারসে। ফলে নতুন নির্মিত এসব কালভার্ট জীবনঝুঁকির মধ্যে ফেলবে এ সড়কে চলাচলকারীদের।

অভিযোগের বিষয়ে মটমুড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সোহেল আহম্মেদ বলেন, আমার পরিষদের সামনে দিয়ে কাজ হচ্ছে। নিম্নমানের ইট, বালু দিয়ে রাস্তা করা হলেও প্রকৌশলীদের কাছে পাইনি। তাছাড়া রাস্তার পাশের মাটি কেটে রাস্তায় দেওয়ায় রাস্তা ভেঙ্গে পড়ার আংশকা দেখা দিয়েছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান স্বেচ্ছাচারিতার ভিত্তিতে শত কোটি টাকার কাজে পুকুর চুরি করছে। জনস্বার্থে সড়কটির কাজ ভাল করা দরকার।

এ বিষয়ে জানতে চেয়ে কয়েকদিন আগে কল দেওয়া হয় মেহেরপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীর সরকারি মোবাইল নম্বর। তিনি কল রিসিভ করে অপর একজন প্রকৌশলীর নম্বরে কর দিতে বলেন। সেই নম্বরে কয়েকদিন যাবত কল দিলেও তা রিসিভ হয়নি। অপরদিকে সাংবাদিকদের অনুসন্ধানের সময় কাজের পাশে পাওয়া যায়নি দায়িত্বপ্রাপ্ত কোন প্রকৌশলীর। যার ফলে নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রীর বিষয়ে কোন বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি সড়ক ও জনপথ বিভাগের দায়িত্বশীলদের কাছ থেকে।

   

যাত্রাবাড়ি থেকে ১৪ ছিনতাইকারী গ্রেফতার, যা বলছে পুলিশ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর যাত্রাবাড়ি, ডেমরা ও আশপাশের এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১৪ ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহনাগর পুলিশের (ডিএমপি) ওয়ারি বিভাগের বিভিন্ন থানা পুলিশ। এ সময় তাদের কাছ থেকে ছিনতাই করা ছয়টি মোবাইল, দুটি চাকু, একটি ব্লেড, জান্ডুবাম মলম ও ৫০ গ্রাম মরিচের গুড়া উদ্ধার করা হয়েছে। পুলিশ বলছে, দেশের বিভিন্ন জেলায় যাতায়াত করা যাত্রীদের টার্গেট করে ছিনতাই করত তারা। 


বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর ওয়ারিতে নিজ কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)’র ওয়ারি বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইন। 

ডিসি মোহাম্মদ ইকবাল বলেন, আপনারা জানেন যাত্রাবাড়ি দিয়ে দেশের ৪০টি জেলায় যাতায়াত করা হয়। ফলে দিনরাত ২৪ ঘণ্টাই এই এলাকা গাড়ি চলাচল করে। রাতের আধারে সমান তালে ব্যস্ত থাকায় এই এলাকায় প্রায়ই ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। 


এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল ডেমরা থেকে ছিনতাইয়ের সময় হাতেনাতে তিনটি ছেলেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া ওয়ারি গেন্ডারিয়া এলাকায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে ১২জন ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে ৫ থেকে ৬টিরও বেশি মামলা রয়েছে।  গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে সুমন নামের একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে যিনি তিনদিন আগে জেল থেকে জামিন পেয়েছে।

ওয়ারি বিভাগের ডিসি আরও বলেন, গ্রেফতারকৃতদের সবার বয়স ১৫ থেকে ২০ এর মধ্যে। তারা রাতের বেলা মহসড়কসহ বিভিন্ন অলিগলিতে ওঁৎ পেতে থাকে। রাতের বেলা যখন বিভিন্ন জেলা থেকে সাধারণ মানুষ ঢাকায় এসে নামে অথবা ঢাকা থেকে যাওয়ার জন্য রাস্তায় বের হয় তখন তারা এই সকল যাত্রীদের অস্ত্রের মুখে ভয় দেখিয়ে ছিনতাই করে।

তিনি বলেন, আমরা বাপ্পা নামের একটি ছেলেকে গ্রেফতার করেছি। তার বাড়ি কক্সবাজারে। তার বিরুদ্ধে ৬টি ছিনতাইয়ের মামলা রয়েছে। তার কাছ থেকে ছিনতাই হওয়া মোবাইল উদ্ধার করা হয়েছে। ছিনতাইকারীদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে। 

এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, আমরা অপরাধীদের নিয়মিত নজরদারিতে রাখি। কিন্তু তাদের সংখ্যাটা অনেক বেশি। এছাড়া তারা জামিন পেয়ে এলাকা পরিবর্তন করে ফেলে। যাত্রাবাড়ি এলাকায় অপরাধ করে গ্রেফতার হলে জেল থেকে বের হয়ে মিরপুর এলাকায় চলে যায়। তখন তাকে নজরদারিতে রাখা কষ্ট হয়ে যায়। তবে ডিএমপির ক্রাইম বিভাগের পক্ষ থেকে নজরদারি করার জন্য টিম রয়েছে। পাশাপাশি ছিনতাই প্রতিরোধে একটি টাস্ক ফোর্স গঠন করা হয়েছে। এই টাস্ক ফোর্সটির তদারকি ডিএমপি কমিশনার নিজেই করেন। ফলে ঢাকায় প্রতিনিয়ত অভিযান চলছে। 

তিনি বলেন, ডিএমপির ওয়ারি বিভাগে ইতোমধ্যে তিনজন অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) ও তিনজন সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি)কে নিয়ে একটি টাস্ক ফোর্স গঠন করা হয়েছে। আমি নিজেও তাদের সঙ্গে কাজ করছি। প্রতিদিন রাতে ওয়ারি বিভাগের ৩৬টি টিম কাজ করে। ফলে অনেকেই গ্রেফতার হন। ছিনতাইকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে। ছিনতাই মুক্ত করতে যা যা করা দরকার আমরা করব। 

বিভিন্ন অপরাধী চক্রের সঙ্গে পুলিশ সদস্যদের জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে ইকবাল হোসাইন বলেন, আপনারা জানেন ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) গোয়েন্দা টিম ও ডিএমপির ডিসিপ্লিন শাখা থেকে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে। কোনো পুলিশ সদস্যকে চুল পরিমাণ ছাড় দেওয়া হয় না। এমন কী পুলিশের প্রধান আইজিপি বারবার বলেছেন, কোনো পুলিশ সদস্য অপরাধ করলে দ্বিতীয় বার কোনো সুযোগ দেওয়া হবে না। কোনো অপরাধ করলে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা হবে। তাই এমন কোনো তথ্য থাকলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ইতোমধ্যে ওয়ারি বিভাগ থেকে তিনজনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। সব মিলিয়ে কোনো অপরাধের সঙ্গে জড়িত থাকলে কোনো ছাড় নেই।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে ডিসি বলেন, আপনারা জানেন ঢাকা শহরে যানজট একটি বড় সমস্যা। আমরা এই বিষয়টি মাথায় রেখে যানজট নিরসনে বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়োছি। ওয়ারি বিভাগের ট্রাফিক ডিভিশনকে সঙ্গে নিয়ে আমরা কাজ করছি। ইতোমধ্যে স্কুল কলেজের সামনে থেকে হকার, গাড়ি পার্কিং বন্ধ করা হয়েছে। যাতে স্কুলে যাতায়াত করা সহজ হয়। দ্রুতই ভালো ফলাফল পাবে আশা করি।

;

গণতন্ত্রকে হত্যা করার চেষ্টা করেছিল বিএনপি: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গণতন্ত্রকে হত্যা করার চেষ্টা করেছিল বিএনপি, খালেদা জিয়া এবং 'কুলাঙ্গার' তারেক রহমান লন্ডনে বসে ষড়যন্ত্র করে বলে সংসদে মন্তব্য করেছেন নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেন, বাংলাদেশের পথকে তারা বিচ্যুত করতে পারেনি। বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ আছে, ঐক্যবদ্ধ থাকবে।

বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) রাতে জাতীয় সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আনা আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, সমগ্র পৃথিবীতে শেখ হাসিনা একটি রোল মডেল। খুব ভালো লাগে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের বিখ্যাত সব বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতিবিদগণ বাংলাদেশের মাইক্রো ইকোনমিক নিয়ে যখন গবেষণা করে, যে বাংলাদেশের এই উন্নয়ন কিভাবে সম্ভব হচ্ছে। ভাবতেই আনন্দ লাগে। অথচ এই বাংলাদেশকে তলাবিহীন ঝুড়ি হিসাবে আখ্যায়িত করার চেস্টা করা হয়েছিল। সেই বাংলাদেশ আজকে উন্নয়নের রোল মডেল হয়েছে। এটাই হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, এই বাংলাদেশকে টেনে ধরার জন্য একটি অপরাজনীতি করা হয়, যা আমরা নিকট অতীতে দেখেছি। বাংলাদেশের নির্বাচন, বাংলাদেশের সংসদ, বাংলাদেশের আইন, নির্বাহী বিভাগ, সংবিধান মানছে না। বাংলাদেশকে একটি অন্ধকারে তলিয়ে দেয়ার জন্য গভীর ষড়যন্ত্র করা হচ্ছিল। আজকে কিন্তু তারা অন্ধকারে তলিয়ে গেছে। নির্বাচন নিয়ে কতো অপকর্ম, কতো ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। অথচ আমরা দেখলাম ৭ই জানুয়ারির নির্বাচনে জনগণের কি অভূতপূর্ব অংশগ্রহণ।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, তারা অনেকে বলেছিল বাংলাদেশকে স্যাংশন (নিষেধাজ্ঞা) দিয়ে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রাকে বন্ধ করে দেওয়া হবে। এই বাংলাদেশে নির্বাচন হবে না। এই বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক ধারা সামনের দিকে এগিয়ে যাবে না। কিন্তু শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের মানুষ ঐক্যবদ্ধ। উন্নয়নকে তারা সমর্থন করেছে ৭ই জানুয়ারির নির্বাচনে সেটি প্রতিফলিত হয়েছে। সমগ্র বাংলাদেশের মানুষ নৌকা মার্কা এবং শেখ হাসিনার উপর আস্থা রেখে যারা নৌকার বাইরে নির্বাচিত হয়েছেন তারাও কিন্তু শেখ হাসিনার স্লোগান দিয়ে এখানে নির্বাচিত হয়ে এসেছেন।

;

রমজানে মানবিকতা নিয়ে ব্যবসা করার আহ্বান বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রীর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ব্যবসায়ীদের পবিত্র রমজান মাসে মানবিকতা নিয়ে ব্যবসা করার আহ্বান জানিয়েছেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু। তিনি বলেন, ' ভোক্তা অধিকার সমিতির প্রতিনিধি ছাড়া কোনো অভিযান পরিচালনা করবে না। সরকার রমজান মাসে পণ্যের সরবরাহ ঠিক রাখতে কাজ করে যাচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর মৌলভীবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাকক্ষে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি'র বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, 'প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা সাধারণ মানুষ যেনো ন্যায্যমূল্যে পণ্য পান। কোনো মিল কিংবা পণ্য আমদানিকারক ইচ্ছাকৃতভাবে পণ্য সরবরাহ না করলে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে। অসাধু ব্যবসায়ীদের কারণে যেনো অন্যদের কষ্ট না হয়। '

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য সোলায়মান সেলিম (ঢাকা-৭), জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিকুজ্জামান, মৌলভীবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি সৈয়দ মো. বশিরউদ্দিন, ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোলাম মওলাসহ বিভিন্ন ব্যবসায়ী সমিতির প্রতিনিধিবৃন্দ।

মতবিনিময়কালে বিভিন্ন ব্যবসায়ী প্রতিনিধি ব্যবসা সংক্রান্ত সমস্যা তুলে ধরলে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী তা দ্রুত সমাধানের আশ্বাস দেন। অনুষ্ঠান শেষে প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু মৌলভীবাজারে সরেজমিনে বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করেন।

;

রায়পুরে এখনো চলছে মা-মনি স্পেশালাইজড ডায়াগনস্টিক সেন্টার



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, লক্ষ্মীপুর
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে লাইসেন্স না থাকায় মা-মনি স্পেশালাইজড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। কিন্তু প্রশাসনের নির্দেশ উপেক্ষা করে কার্যক্রম চলমান রেখেছে কর্তৃপক্ষ। বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায়ও প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম চলমান দেখা গেছে।

এরআগে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি জেলা সিভিল সার্জন আহাম্মদ কবীর ওই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম বন্ধ রাখার জন্য ব্যবস্থাপনা পরিচালককে চিঠি ইস্যু করেন। সেখানে বলা হয়, প্রতিষ্ঠানটির লাইসেন্স নেই। মেডিকেল প্র্যাকটিস এন্ড প্রাইভেট ক্লিনিক এন্ড ল্যাবরেটরিস (রেজুলেশন) অর্ডিন্যান্স-১৯৮২ অনুযায়ী বেসরকারি হাসপাতাল, ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ব্লাড ব্যাংকের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য লাইসেন্স থাকা বাধ্যতামূলক। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর প্রতিষ্ঠানটির সকল কার্যক্রম পত্র জারীর পরবর্তী দিন থেকে বন্ধ রাখার জন্য নির্দেশ প্রদান করে। চিঠিটি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, চট্টগ্রাম বিভাগের পরিচালক, জেলা প্রশাসক, জেলা পুলিশ সুপারসহ আরও ৮টি দপ্তরে পাঠানো হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মা-মনি স্পেশালাইজড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের নিয়মিত প্রসূতিদের অস্ত্রোপাচার করা হচ্ছে। সেখানে অস্ত্রোপাচারে সম্প্রতি একাধিক নবজাতক মৃত্যু ঝুঁকিতে রয়েছে।

জেলা প্রাইভেট ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক ওনার্স এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মেহেরুন হাসান রাজু বলেন, সকল প্রতিষ্ঠানকেই লাইসেন্স করতে বলা হয়েছে। আমাদের সদস্য হতে হলে লাইসেন্স বাধ্যতামূলক। লাইসেন্স করতে বলা ছাড়া সাংগঠনিকভাবে আমাদের অন্য কোন ব্যবস্থা নেওয়ার সুযোগ নেই।

এ ব্যাপারে জানতে হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডা. অন্তরা কর্মকারের মোবাইলফোনে একাধিকবার কল করলেও তিনি রিসিভ করেননি।

লক্ষ্মীপুর জেলা সিভিল সার্জন ডা. আহাম্মদ কবীর বলেন, ইতিমধ্যে লাইসেন্সবিহীন প্রতিষ্ঠানকে আমরা কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছি। যারা বন্ধ রাখছে না তাদের বিরুদ্ধে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের সহযোগিতায় মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে অভিযান চালানো হবে। নির্দেশনা না মানলে সিলগালা করে দেওয়া হবে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা রয়েছে, লাইসেন্স না পাওয়া পর্যন্ত কোনো ভাবেই প্রতিষ্ঠান চালানো যাবে না।

;