সাতক্ষীরায় সাকিব মেমোরিয়াল ক্লিনিকে আগুন



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম, সাতক্ষীরা
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলায় সাকিব মেমোরিয়াল ক্লিনিকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে।

শুক্রবার (৮ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ক্লিনিকটিতে আগুন লাগে। তবে এতে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

কলারোয়া থানা পুলিশ জানায়, ক্লিনিক ভবনের পাশের কেরোসিন ডিজেল তেলের দোকান থেকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত বলে ধারণা করছে তারা। সেখান থেকে আগুন ক্লিনিক ভবনে ছড়িয়ে পড়ে। ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে। প্রায় আধা ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

পুলিশ জানায়, আগুন ছড়িয়ে পড়ার আগেই ক্লিনিকে অবস্থানকারীরা বেরিয়ে যায়। এ জন্য হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

   

চুয়াডাঙ্গায় নকল পণ্য বিক্রি, ৪ প্রতিষ্ঠানে জরিমানা



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চুয়াডাঙ্গা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

চুয়াডাঙ্গায় নকল পণ্য বিক্রিসহ নানা অনিয়মের অভিযোগে জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালিত হয়েছে। এসময় ভেজাল পণ্যের ডিলারসহ চার প্রতিষ্ঠানকে ৮৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

সোমবার (৪ মার্চ) পৃথকভাবে এ অভিযান পরিচালনা করে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর ও দামুড়হুদা উপজেলা প্রশাসন।

দামুড়হুদা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট সজল কুমার দাস জানান, দামুড়হুদা বাসস্ট্যান্ড ও দশমী পাড়ায় দুটি বেকারি ও একটি মিছরি তৈরি কারখানায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। এসময় বিএসটিআই-এর অনুমোদন না থাকা, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাদ্যপণ্য প্রস্তুতকরণ এবং পণ্যের মোড়কে বাজারজাত ও মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ না থাকায় তারিন ফুড প্রোডাক্টসকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৩৭ ও ৪৫ ধারায় ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এরপর অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাদ্যপণ্য উৎপাদন ও ওজনের কম দেয়ায় মিষ্টি বাড়ি নামক মিষ্টি ও বেকারি পণ্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৪৬ ও ৫৩ ধারায় ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। সেই সাথে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে মিছরি প্রস্তুত করায় দশমী পাড়ায় অবস্থিত এক মিছরি কারখানার মালিককে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৫৩ ধারায় ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এর আগে সোমবার দুপুরে চুয়াডাঙ্গা শহরের শেকড়াতলা নামক স্থানে এক ভেজাল পণ্যের ডিলারে অভিযান চালায় জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর। এসময় ডিলার জানিফ হোসেন নকল পণ্য বিক্রির কথা স্বীকার করেন। পরে তার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে প্যারাসুট তেল, জনসন ও কুমারিকা তেলসহ অন্যান্য নকল পণ্য জব্দ করে জনসম্মুখে ধ্বংস করা হয়। আর জানিফ হোসেনকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৪১ ধারায় ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

অভিযান পরিচালনা করেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের চুয়াডাঙ্গা জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সজল আহমেদ। সহযোগিতায় ছিলেন এসআই হাসানের নেতৃত্বে চুয়াডাঙ্গা সদর থানার পুলিশের একটি টিম।

;

সড়ক দুর্ঘটনা তহবিলে জমা ১৩৪ কোটি টাকা: ওবায়দুল কাদের



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ এর আওতায় দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের জন্য গঠিত আর্থিক সহায়তা তহবিলে চলতি বছরের ২৪ জানুয়ারি পর্যন্ত ১৩৩ কোটি ৯৫ লাখ ৮৮৮ টাকা জমা পড়েছে। ওই তহবিল থেকে এ যাবত সড়ক দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত ২১৪ জনকে মোট ৯ কোটি ৪৪ লাখ টাকার আর্থিক সহায়তার চেক দেওয়া হয়েছে বলে সংসদে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

সোমবার (৪ মার্চ) দ্বাদশ জাতীয় সংসদ অধিবেশনের প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারি দলের সংসদ সদস্য মোরশেদ আলমের লিখিত প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন।

লিখিত উত্তরে মন্ত্রী জানান, ২০০৯-১০ অর্থবছর থেকে ২০২২-২৩ অর্থবছর পর্যন্ত সড়ক ও জনপথ অধিদফতরের অধীনে ৬৩টি ফেরি ও ৬৮টি পন্টুন নির্মাণ করা হয়েছে।

সরকারি দলের সদস্য এম আবদুল লতিফের এক প্রশ্নের লিখিত উত্তরে ওবায়দুল কাদের জানান, ২০২২ সালের ২৮ ডিসেম্বর মেট্রোরেলের উত্তরা উত্তর হতে আগারগাঁও পর্যন্ত অংশ এবং গত বছরের ৪ নভেম্বর আগারগাঁও থেকে মতিঝিল পর্যন্ত অংশ প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করেন। এখন শুক্রবার ব্যতিত প্রতিদিন সকাল ৭টা ১০ মিনিট থেকে রাত ৮টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত উত্তরা উত্তর হতে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল বাণিজ্যিকভাবে নির্ধারিত সময়সূচি অনুযায়ী নিয়মিত চলাচল করছে। অডিট ফার্মের নিরীক্ষা করা ২০২২-২৩ অর্থবছরের চূড়ান্ত হিসাব অনুযায়ী জুন মাস পর্যন্ত মোট আয় ১৮ কোটি ২৮ লাখ ৬ হাজার ৫১৪ টাকা।

একই প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন অনুসরণে এমআরটি লাইন-৬ মতিঝিল থেকে কমলাপুর পর্যন্ত এক দশমিক ১৬ কিলোমিটার বর্ধিত করার জন্য নির্মাণকাজ পুরোদমে এগিয়ে চলছে। এ পর্যন্ত কাজের সার্বিক অগ্রগতি ২৫ ভাগ। আগামী বছর জুন মাসে ওই অংশ চালুর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

;

ময়মনসিংহ ও কুমিল্লা সিটি ভোট: প্রতি কেন্দ্রে থাকবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ১৭ সদস্য



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন নির্বাচন ও কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রে নিরাপত্তার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ১৭ জন সদস্য মোতায়েন থাকবে বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন ইসি।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার কর্মকর্তারা এমন তথ্য জানিয়েছেন। সেই সাথে সাধারণ ভোটকেন্দ্রে ১৬ জন সদস্য থাকবে।

ইসি কর্মকর্তারা জানান, ময়মনসিংহ সিটিতে ১২৮টি ভোটকেন্দ্র রয়েছে। এসব কেন্দ্রের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ছাড়াও ভোটের এলাকায় নিয়োজিত থাকবে পুলিশ, এপিবিএন, আনসারের ৩৩ টি মোবাইল টিম, ১১টি স্ট্রাইকিং ফোর্স ও একটি রিজার্ভ টিম। ৩৩টি ওয়ার্ডে থাকবে র্যাবের ১৭টি টিম ও বিজিবি থাকবে ৭ প্লাটুন।

অন্যদিকে কুমিল্লা সিটির ২৭টি ওয়ার্ডে পুলিশ, এপিবিএন ও আনসারের ২৭টি, ৯টি স্ট্রাইকিং ফোর্স ও ২টি রিজার্ভ টিম থাকবে। এছাড়া নিয়োজিত থাকবে র‍্যাবের ২৭টি টিম ও বিজিবি ১২ প্লাটুন।

আগামী ৯ মার্চ এই দুই সিটির সঙ্গে স্থানীয় সরকারের বেশ কিছু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ২২ জনের ফোর্স অন্য স্থানীয় নির্বাচনের কেন্দ্রে মোতায়েন থাকবে।

;

ডিজিটাল সিটির পরিচ্ছন্নতাকর্মীরাই স্বাস্থ্যঝুঁকিতে



মশাহিদ আলী, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিলেট
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সিলেট সিটি করপোরেশনকে (সিসিক) বলা হয় দেশের প্রথম ডিজিটাল সিটি। কিন্তু সনাতন পদ্ধতি অবলম্বনের কারণে মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকিতে এই সিটির ৬০০ পরিচ্ছন্নতা কর্মী। অভাব অনটনের সংসার চালাতে জীবনের ঝুঁকি জেনেও বেছে নিয়েছেন এ কাজকে তারা।

সিলেট সিটি করপোরেশন ৪২টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত। প্রতিদিন ৪২টি ওয়ার্ড থেকে তিন থেকে পাঁচ হাজার টন বর্জ্য উৎপন্ন হয়। এই বর্জ্য অপসারণে কাজ করেন ৬শ জন কর্মী। তন্মধ্যে স্থানীয় কাউন্সিলরের অধীনে ১০ জন করে প্রতিটি ওয়ার্ডে পরিচ্ছন্নতাকর্মী কাজ করছেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পরিচ্ছন্নতার কাজ করতে গিয়ে গ্যাস্ট্রিক, চর্মরোগ, শ্বাস-প্রশ্বাসের রোগসহ বিভিন্নস্থানে ছত্রাকের আক্রমণ হতে পারে। এছাড়াও হাত-পা কেটে যাওয়ার ঘটনা ঘটছে প্রায়ই।

সিসিকের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ শোনালেন আশার বাণী। তারা বলছেন, নতুন মেয়র দায়িত্ব নেওয়ার পর তার নির্দেশনায় বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। শিগগিরই সনাতন পদ্ধতি থেকে বের হয়ে পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষাসামগ্রী দেওয়া হবে।

জানা যায়, সিলেট সিটি করপোরেশনের বর্জ্য অপসারণে পরিচ্ছন্নকর্মীদের মধ্যে নেই মাস্ক, হ্যান্ড গ্লাভস, গামবুট, পিপি, হেলমেট। তারা ড্রেন পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করতে কোনো ধরনের স্বাস্থ্যসুরক্ষা সামগ্রী ব্যবহার না করেই হাত দিয়ে তুলছেন ময়লা-আবর্জনা। পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের বেশিরভাগই সিটি করপোরেশনের নিয়োগপ্রাপ্ত পরিচ্ছন্নতাকর্মী নন, দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে এ কাজ করেন। তাদের অধিকাংশই জানেন না স্বাস্থ্য সংক্রান্ত কিছু।

সম্প্রতি সরেজমিনে সিলেট সিটি করপোরেশনের ১১, ১৩ ও ১৪ নং ওয়ার্ড ঘুরে দেখা যায়, ড্রেন পরিষ্কারে বেশ কয়েকজন কাজ করছেন। কেউ ড্রেনের স্ল্যাব সরাচ্ছেন আর কেউবা ময়লা সংগ্রহ করছেন। তারা সবাই নিজেদের কোনো রকম স্বাস্থ্য সুরক্ষা বা নিরাপত্তা ব্যবস্থা না নিয়ে ঝুঁকিতে কাজ করছেন। স্বাস্থ্য সুরক্ষার মাস্ক, গ্লাভস ও গামবুট, পিপি ছাড়াই ময়লা সংগ্রহ ও পরিষ্কার করতে দেখা যায় পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের। পাশাপাশি তাদের জন্য নেই পর্যাপ্ত সরঞ্জাম।

পরিচ্ছন্নতাকর্মীরাই স্বাস্থ্যঝুঁকিতে

দৈনিক মজুরিভিত্তিতে কাজ করা নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন পরিচ্ছন্নতাকর্মী বলেন, আমাদের আর স্বাস্থ্য সুরক্ষা! কাজ না করলে পেটে ভাত পড়বে না। ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার করতে গিয়ে প্রায়ই হাত-পা কেটে যায়। কাজ করতে গিয়ে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েন। আবার কারো কারো হাত ঘা হয়ে যায়।

আরও বলেন, নগরীর বিভিন্ন এলাকায় ড্রেন পরিষ্কার করতে গিয়ে অনেক বাধার সম্মুখীন হতে হয়। বিশেষ করে ড্রেনের দুর্গন্ধ, প্লাস্টিকের বোতল ও কাচের আয়নাসহ বিভিন্ন ধরনের অপচনশীল জিনিসপত্র পাওয়া যায়। সেগুলো তুলতে গিয়ে হাত-পা কেটে যায়। আবার ময়লা-আবর্জনা সংগ্রহের জন্য সরঞ্জাম পর্যাপ্ত নেই।

এ বিষয়ে সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা মোহাম্মদ একলিম আবদীন বার্তা২৪.কমকে বলেন, নতুন মেয়র দায়িত্ব গ্রহণের পর তার নির্দেশনায় বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে বেশ কিছু গামবুট এসেছে। আরও কিছু গামবুট ও পিপি নিয়ে আনা হচ্ছে। সেগুলো পরে কাজ করলে পা ভিজবে না।

তিনি বলেন, কাজ করতে গিয়ে অনেক সময় অনেকেই হাত কেটে ফেলে এটা সত্য। আমাদের চাহিদা অনুযায়ী সরঞ্জাম পাচ্ছি না। আমাদের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে সিসিকের নতুন ওয়ার্ডগুলো। এসব ওয়ার্ড অনেক বড় হওয়াতে পুরোপুরি আমাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসতে পারিনি। তবে আশা আগামী ২-৩ মাসের মধ্যে পরিস্থিতির অনেকটা উন্নতি হবে।

এবিষয়ে জানতে চাইলে সিলেট সিটি করপোরেশেনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. জাহিদুল ইসলাম বার্তা২৪.কম-কে বলেন, স্বাভাবিকভাবে পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের স্বাস্থ্যসুরক্ষা সামগ্রী না থাকলে চর্ম, শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যাসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হতে পারেন।

তিনি বলেন, যারাই এসব কাজ করেন তাদের প্রত্যেকের উচিত স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী পরে কাজ করা। কারণ তারা সুরক্ষিত না থাকলে তাদের মাধ্যমে পরিবারের লোকজন বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হতে পারেন।

এক প্রশ্নের জবাবে ডা. মো. জাহিদুল ইসলাম বলেন, পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জন্য সিসিকের পক্ষে স্বাস্থ্য সচেতনতা বিষয়ক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রয়েছে।বিগত দিনে এমন প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। আগামীতে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণ করলে আমাদের স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা দেওয়া হবে।

;