রাঙামাটিতে গুলিবিদ্ধ হয়ে ইউপিডিএফ’র কালেক্টর নিহত



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাঙামাটি
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

রাঙামাটির বাঘাইছড়িতে পার্বত্য চুক্তি বিরোধী সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের (ইউপিডিএফ) মূল দলের অন্যতম প্রধান চাঁদা কালেক্টর সোগা ওরফে নিপুন চাকমাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। এ সময় অপর সহকারী কালেক্টর সোহেল চাকমাও গুলিতে আহত হয়েছেন।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ১০টার দিকে বাঘাইছড়ি উপজেলাধীন ৩৫নং বঙ্গলতলী ইউনিয়নের বোধিপুর বনবিহার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

রাঙামাটির বাঘাইছড়ি সার্কেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী পুলিশ সুপার আব্দুল আউয়াল জানিয়েছেন, আমরা ঘটনাটি শুনেছি এবং পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। কে বা কারা এই সশস্ত্র হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে এই মুহুর্তে সেটি আমরা নিশ্চিত হতে পারিনি।

স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে, বঙ্গলতলী ইউনিয়নের বোধিপুর বনবিহার নামক এলাকায় একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে সেখানে গিয়েছিলেন নিপুন চাকমা ও তার সহকর্মী সোহেল চাকমা।

বিষয়টি আগে থেকেই জেনে যায় ইউপিডিএফ এর প্রতিপক্ষ আঞ্চলিক সংগঠন জেএসএস। পরবর্তীতে রাতের অন্ধকারে সশস্ত্র হামলা চালিয়ে নিপুণ চাকমাকে ব্রাশ ফায়ারে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়।

এই ঘটনায় সোহেল চাকমা পায়ে গুলিবিদ্ধ হলেও পালিয়ে প্রাণে রক্ষা পায়। তাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে ভূয়াছড়ির অজ্ঞাত স্থানের দিকে নিয়ে গেছে বলে জানা গেছে।

ইউপিডিএফ প্রসিত দলের বঙ্গলতলী এলাকার সমন্বয়ক আর্জেন্ট চাকমা হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ইউপিডিএফ এর বেশ কয়েকজন সদস্য দাঁড়িয়ে কথা বলার সময় জেএসএস সন্তু দলের  দুই সন্ত্রাসি অতর্কিত ব্রাশ ফায়ার করে পালিয়ে যায়। এতে ঘটনা স্থলে নিপুণ চাকমা চোগা মৃত্যুবরণ করে। এই হত্যাকাণ্ডের জন্য তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে খুনিদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন তিনি। এদিকে জেএসএস সন্তু দলের উপজেলা সমন্বয়ক ত্রিদিপ চাকমা এই হত্যাকাণ্ড ইউপিডিএফ এর অভ্যন্তরিন কোন্দলে কারণে ঘটেছে বলে দাবি করেছেন।

   

চিকিৎসকের ওপর হামলায় জড়িতদের গ্রেফতারের দাবিতে আল্টিমেটাম



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
চিকিৎসকের ওপর হামলায় জড়িতদের গ্রেফতারের দাবি

চিকিৎসকের ওপর হামলায় জড়িতদের গ্রেফতারের দাবি

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রামের পটিয়া ও নগরের দুই চিকিৎসকের ওপর হামলায় জড়িতদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেফতার করা না হলে সর্বাত্মক কর্মবিরতি পালনের আল্টিমেটাম দিয়েছে বেসরকারি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান সমিতি।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) দুপুর ২টায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ আল্টিমেটাম দেওয়া হয়।

সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির সভাপতি ডা. মোহাম্মদ শরীফ বলেন, পেশাগত দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে নানাভাবে নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন চিকিৎসকরা। একের পর এক চিকিৎসকের ওপর হামলা ঘটনা ঘটলেও উপযুক্ত বিচার না হওয়ার কারণে চিকিৎসকদের ওপর হামলা বেড়েই চলছে।

চিকিৎসকদের ওপর যে হামলাগুলো হচ্ছে, এর অন্যতম কারণ হলো বিচারহীনতার সংস্কৃতি। একটা ঘটনার যদি বিচার না হয়, অপরাধীরা যদি ছাড় পেয়ে যায়, তাহলে সন্ত্রাসীরা আরো দুঃসাহস দেখাবে।

'সার্বিকভাবে চিকিৎসকরা কর্মক্ষেত্রে খুবই অনিরাপদ। চিকিৎসকদের সুরক্ষায় শক্তিশালী একটা আইন হোক। চিকিৎসকদের মধ্যে যদি নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে উৎকণ্ঠা কাজ করে, তাহলে তাদের কাছ থেকে কখনোই ভালো চিকিৎসাসেবা আমরা আশা যাবে না। ফলে রোগীরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন, দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থা ভেঙে পড়বে।'

তিনি আরও বলেন, প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে চিকিৎসকদের উপর হামলার ঘটনায় জড়িতদের অনতিবিলম্বে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শান্তির জোর দাবি জানাচ্ছি। পটিয়া ও মেডিকেল সেন্টারের ঘটনায় আসামিদের অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে হামলাকারীদের গ্রেফতার করা না হলে সর্বাত্মক কর্মবিরতির মতো কঠোর পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হবে।

পরে চিকিৎসকদের ওপর হামলার বিষয়ে নিয়ে কথা বলে বিএমএ নেতা ও স্বাচিপ চট্টগ্রামের সভাপতি ডা. শেখ শফিউল আজম।

তিনি বলেন, আমার নিরাপত্তাহীনতার ভুগছি। চিকিৎসকরা অনিরাপদ থাকলে চিকিৎসা সেবা ব্যহত হবে। আমরা এমন ঘটনার নিন্দা জানাচ্ছি, পাশাপাশি এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন, বেসরকারি হাসপাতাল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ডা. লিয়াকত আলী খান, ডা. আবুল কাসেম মাসুদ, ডা. আরিফুল আমিন, ডা. রেজাউল করিম, ডা. মনিরুল ইসলাম, ডা. মনিউজ্জামান, প্রমুখ।

গত ১১ এপ্রিল রাতে পটিয়া জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক রক্তিম দাশ ওপর এ হামলা করে দুর্বৃত্তরা। এর দুই দিন পর ১৪ এপ্রিল সকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল সেন্টার হাসপাতালে স্বজনদের হামলা শিকার হন ওই হাসপাতালের চিকিৎসক রিয়াজ উদ্দিন শিবলু।

;

মদপানের অনুমতি ছিল না তাদের, বারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে ডিবি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
মদপানের অনুমতি ছিল না তাদের

মদপানের অনুমতি ছিল না তাদের

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর গুলশান-২ নম্বরের ক্যাফে সেলেব্রিটা বারের সামনে মদ খেয়ে কয়েকজন নারী মিলে এক নারীকে মারধরের ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। গ্রেফতারকৃতরা হলো- শারমিন আক্তার মিম (২৪), ফাহিমা ইসলাম তুরিন (২৬) ও নুসরাত আফরিন।

ডিবি বলছে, মারামারির ঘটনায় গ্রেফতার নারীদের মদপানের লাইসেন্স ছিল না। তারা অবৈধভাবে অতিরিক্ত মদ করে মাতাল হয়ে মারামারিতে জড়ান। সেলেব্রিটা বার নারীদের কাছে অবৈধভাবে মদ বিক্রি করায় তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেবে গোয়েন্দা পুলিশ।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) বিকেলে রাজধানীর মিন্টো রোডে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন- ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (গোয়েন্দা) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

তিনি বলেন, আমরা এই নগরে সবাই বাস করি। আর নগরে বাস করতে গেলে কিছু নিয়মকানুন মেনে চলতে হয়। মদ খাওয়ার জন্য কোনো পুরুষ বা নারীর লাইসেন্স থাকলে বৈধ লাইন্স বার থেকে মদ পান করতে পারে। একে আইনগত কোনো বাধা নেই। কিন্তু গত পহেলা বৈশাখের রাতে গুলশানের মতো একটি এলাকা যেখানে অভিজাত পরিবারের বসবাস। সেখানে তারা মদ পান করেছেন, কারো কোনো লাইসেন্স ছিল না। লাইসেন্সহীন কারো কাছে বার কর্তৃপক্ষ মদ বিক্রি করতে পারে না। তাদের উচিত ছিল এই সকল নারীদের মদ লাইসেন্স পরীক্ষা করা। এমন কি এই নারীদের কাছে অতিরিক্ত পরিমাণে মদ বিক্রি করেছেন। যা পান করে মাতাল, বেসামাল হয়ে গেলেন। বারের লোকজনের উচিত ছিল বেসামাল নারীদের নিয়ন্ত্রণ করা। এই নারীরা বার থেকে বের হয়ে রাস্তায় গিয়ে প্রকাশ্যে মারামারিতে জড়ালেন। যা গুলশানের বাসিন্দারা দেখলেন। তারা ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দিলেন।

গোয়েন্দা পুলিশের প্রধান আরও বলেন, আমি মনে করি আমাদের দেশের সাধারণ মানুষ এ ভিডিও দেখে ভাববে শহরের রাস্তায় নারীরা মাতলামি করবে, মারামারি করবে, এটা কোনো অভিভাবকই মেনে নিতে পারবেন না। এই সকল নারীরা কারো না কারো সন্তান। তাদের অভিভাবকদের উচিত মেয়েরা কোথায় যায়, কী করে সেদিকে খেয়াল রাখা। আজকে এই নারীরা বারে গিয়ে মদ পান করে এমন কর্মকাণ্ড ঘটিয়েছেন। যে মেয়েকে তারা মেরেছে সেই মেয়েটিও মাতাল ছিল। এই ঘটনায় ভুক্তভোগী নারী একটি অভিযোগ করেছে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। যে বারগুলো লাইসেন্স ছাড়া মদ বিক্রি করেছে তাদের বিরুদ্ধেও আমরা ব্যবস্থা নিবো।

ভুক্তভোগী নারী রিতা আক্তার সুস্মি বলেন, আমি ও আমার এক বন্ধু মিলে খাবার খেতে ওই রেস্তরাঁয় যাই। খাওয়ার এক পর্যায়ে টয়লেটে যাওয়ার জন্য গিয়ে দেখি চারজন মেয়ে একসঙ্গে টয়লেট প্রবেশ করেছে। বিষয়টি রেস্তরাঁর ম্যানেজারকে বলি। তারা মেয়েদের বের করে দেয়। পরবর্তীতে আমি রেস্তোরাঁ থেকে বের হওয়ার সময় তারা আমার ওপর হামলা করে।

সুস্মি আরও বলেন, আমাকে চড় থাপ্পড় দিতে পারতো। কিন্তু রাস্তার মধ্যে আমার কাপড় খুলে ফেলে আমাকে মারধর করে। আমি তাদের সঠিক বিচার চাই। কারণ রাস্তায় একজন মেয়ে হয়ে আরেকজন মেয়ের কাপড় খুলে ফেলতে পারে না।

;

ইরান-ইসরায়েল সংঘাত

মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতি নজরে রাখতে নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

ইসরায়েলে ইরানের নজিরবিহীন হামলার পরবর্তী মধ্যপ্রাচ্যের চলমান উত্তেজনা নিয়ে মন্ত্রিসভার সকল সদস্য ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে তীক্ষ্ণ নজর রাখার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) বিকেলে সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকের সিদ্ধান্ত জানাতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মাহবুব হোসেন এ কথা জানান।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ইসরায়েলে ইরানের হামলার পর এর প্রতিক্রিয়া মোকাবিলায় যার যার খাত, সবাইকেই প্রস্তুত থাকতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। তবে বাণিজ্য কিংবা অর্থনীতির কথা সুনির্দিষ্ট করে বলেননি তিনি। সবাইকেই প্রস্তুতি নিতে বলেছেন এবং এ বিষয়ে প্রতিবেদন দিতে বলেছেন। ক্রাইসিস তৈরি হলে জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যেতে পারে, তখন কী করা যায়, সেসব বিষয়ে পরিকল্পনা রাখতে বলেছেন।

;

চিকিৎসকের পোশাক পরিবর্তনের ভিডিও ধারণ, দোষীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম, জামালপুর
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

জামালপুর শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজের এক নারী ইন্টার্ন চিকিৎসকের পোশাক পরিবর্তনের ভিডিও ধারণ করে টাকা দাবি করার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে ও দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বুধবার (১৭ এপ্রিল) দুপুরে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জামালপুর জেনারেল হাসপাতাল প্রাঙ্গণে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

যৌন হয়রানির প্রতিবাদে ও আসামিদের শাস্তির দাবিতে এই মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করে শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজের ইন্টার্ন চিকিৎসক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ।

ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধনে ইন্টার্ন চিকিৎসক ডা. জাকারিয়া জাকি, ডা. মোহনা দেব তৃষা, শিক্ষার্থী কামরুল ইসলামসহ অন্যান্যরা বক্তব্য রাখেন।

এ সময় বক্তারা বলেন, গত ৬ এপ্রিল হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসকদের কোয়ার্টারে এক নারী ইন্টার্ন চিকিৎসক তার পোশাক পরিবর্তনের সময় পার্শ্ববর্তী নার্সদের কোয়ার্টারের ছাদ থেকে হাসপাতালে কর্মরত নার্স রেহেনা পারভীনের ছেলে নাইমুর রহমান অংকন (২০) ভিডিও ধারণ করে।

পরে ধারণকৃত সেই ভিডিও আরেক নার্স রত্না খাতুনের ছেলে ইমরুল হাসান আলিফ (১৮), হাসপাতালের স্টাফ ফজলুল হকের ছেলে জাকারিয়া হোসেন বেনজির (২৪) ও তাদের বন্ধু ইসলামপুর উপজেলার আমিনুল ইসলামের ছেলে আরাফাতের সাথে অনলাইনে শেয়ার করে।

এরপর থেকে ওই ইন্টার্ন চিকিৎসকের কাছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ও অন্যান্য ইন্টার্ন চিকিৎসদের মাধ্যমে বিভিন্নভাবে এক লাখ পঞ্চাশ টাকা চাঁদা দাবি করে, অন্যথায় ভিডিওটি অনলাইন প্ল্যাটফর্মে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয় তারা।

পরবর্তীতে গত ৯ এপ্রিল ভূক্তভোগী ওই ইন্টার্ন চিকিৎসক পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করলে পুলিশ তাৎক্ষণিক ওই চার যুবককে হাসপাতালের কোয়ার্টার থেকে আটক করে।

প্রথামিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা ভিডিও ধারণ করার বিষয়টি শিকার করলে গত ১০ এপ্রিল থানায় মামলা দায়ের করেন যৌন হয়রানির শিকার ওই ইন্টার্ন চিকিৎসক।

পরে তাদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়।

এই ঘটনায় দোষীদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ, দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও ইন্টার্ন চিকিৎসদের নিরাপত্তার দাবি জানান বক্তারা।

;