প্রধানমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ারদের দেশ গড়ার কাজে লাগাতে বলেছেন: নওফেল 



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা ২৪

ছবি: বার্তা ২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেছেন, যারা ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করেছেন তাদেরকে দেশ গড়ার কাজে লাগাতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শিক্ষার কাজে তাদেরকে নিয়োজিত হতে বলেছেন। রাষ্ট্রের প্রয়োজনে তাদের লব্ধ জ্ঞান এবং মেধা ব্যবহার করার জন্য বলেছেন তিনি।

শনিবার (২ মার্চ) রাজধানীর ইনস্টিটিউট অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স, বাংলাদেশ (আইডিইবি ) এর ২ দিনব্যাপী প্রতিনিধি সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠান তিনি এসব কথা বলেন।

মহিবুল হাসান বলেন, বেসরকারি বিদ্যালয় পর্যায়ে বর্তমানে নতুন কারিকুলামের সকলের জন্য গণিতের যে প্রচলন হয়েছে সেখানে আমাদের অনেক শিক্ষকের প্রয়োজন। শিক্ষকের সেই যোগ্যতার জায়গায় আমাদের যে এত ডিপ্লোমা পর্যায়ে পাশ করেছেন, আমি মনে করি বিদ্যালয় পর্যায়ে গণিত এবং বিজ্ঞান শেখানোর জন্য তারা সবাই যোগ্য। আমরা মনে করছি প্রায় ৬০ হাজারের মতো প্যাটার্ন ভুক্ত শিক্ষকের অভাব আছে। পাস করা ইঞ্জিনিয়ারদের আমরা যদি সেখানে নিয়োজিত করতে পারি তাহলে কিন্তু আমাদের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার জন্য বিশেষ এক সহায়ক হবে। সেটা আমাদের বিবেচনায় আছে।

আরেকটি বিষয়, আমাদের অধ্যক্ষ হিসেবে পদোন্নতির ক্ষেত্রে যে চ্যালেঞ্জগুলো আছে এবং ইনক্রিমেন্টের ক্ষেত্রে যে চ্যালেঞ্জগুলো আছে সেগুলো অবশ্যই আমাদের নিরসন করতে হবে। তবে আপনারা জানেন বর্তমানে বৈশিক অর্থনৈতিক কারণে আমাদের অনেক চ্যালেঞ্জ আছে। সেগুলো বিবেচনা করেই আমাদের এগোতে হবে। 

তিনি বলেন, ভালো খারাপ সব জায়গাতেই আছে। তাই কোন বিশেষ খাত সমালোচনার মুখে পরুক আমরা সেটা মনে করি না গ্রহণযোগ্য। তাই বেসরকারি পলিটেকনিক্যল হলেই যে খারাপ হবে এটা আমি মনে করি না। কারণ অনেক পলিটেকনিক্যাল কিন্তু দেখা যাচ্ছে সরকারি পলিটেকনিক্যাল যেগুলো ভালো করছে না তাদের থেকে ভালো করছে। তাই আমরা এক কাতারে সবাইকে ফেলবো না। এখন আমরা কিভাবে মান নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের পর্যায়ে থেকে যথাযথভাবে করতে পারি সেটা আমাদের দায়িত্ব। আমাদের ব্যর্থতাকে আমরা সেক্টরের ব্যর্থতা বলতে চাই না।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমাদের অর্থনৈতিক বিশাল অংশ কিন্তু এখন বেসরকারি খাত। তাদের চাহিদাটা কি এটা কিন্তু আমাদের ইনস্টিটিউশনকে অবশ্যই গণনার মধ্যে আনতে হবে। সারা বিশ্ব কিন্তু এখন লেবার মার্কেট। সারা বিশ্বই কর্ম জগৎ। কেন তোমরা ইঞ্জিনিয়াররা ভাষা শিখে দক্ষতা অর্জন করে সারা বিশ্বে ছরিয়ে পড়তে পারবে না। শুধু সরকারের দিকে তাকিয়ে থাকবো পদ সৃজন হবে, প্রযুক্তিভিত্তিক পদ সৃজন হবে এটা তো কোন সঠিক সমাধান নয়। টেকসই সমাধান নয়। আমার শিক্ষার্থীরা তাহলে এতদিন ধরে কি করবে? ভাষার উপর প্রশিক্ষণ দিন। আমি যাই কিছু জানি না কেন প্রকাশ করতে না পারলে আমার চাকরি সম্ভব নয়। আমি মনে করি যে বিজ্ঞান, গণিত এবং কম্পিউটার প্রযুক্তির ক্ষেত্রে মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষকের যে স্বল্পতা সেটা আমার মনে হয় ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার পাস করাদের দ্বারা এটা নিরসন করা সম্ভব। এই লক্ষ্যে আমরা একটা বিশেষ ব্যবস্থা নিব। এটা নিয়ে আমরা কাজ শুরু করছি।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির সভাপতি রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক। সভাপতিত্ব করেন আইডিইবির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি এ কে এম এ হামিদ।

   

এনডিসি কোর্সের প্রতিনিধি দলের এফবিসিসিআই কার্যালয় পরিদর্শন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন দ্য ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) মতিঝিল কার্যালয় পরিদর্শন করেছেন ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ (এনডিসি) কোর্স ২০২৪-এর উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধি দল।

কোর্স কারিকুলামের অংশ হিসেবে এফবিসিসিআই পরিদর্শনে আসেন তারা।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) সকালে এয়ার ভাইস মার্শাল এ এস এম ফখরুল ইসলামের নেতৃত্বে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী, বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস এবং প্রতিবেশী দেশ ভারতসহ, শ্রীলঙ্কা, ইন্দোনেশিয়া, পাকিস্তান, মালয়েশিয়া, নেপাল, চীন, কাতার, ওমান, কুয়েত, কেনিয়া, তানজানিয়া, দক্ষিণ সুদান, নাইজেরিয়া, জাম্বিয়া, সৌদি আরব, জর্দান, মালি প্রভৃতি দেশের সশস্ত্র বাহিনীর উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা এফবিসিসিআইয়ের আসেন।

সংবাদমাধ্যমে পাঠানো এফবিসিসিআইয়ের হেড অব পিআর অ্যান্ড কমিউনিকেশনসের তানজিদ বসুনিয়ার পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এফবিসিসিআই’র সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. আমিন হেলালীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন প্রতিনিধি দলের প্রধান এয়ার ভাইস মার্শাল এ এস এম ফখরুল ইসলাম। তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান মো. আমিন হেলালী।

পরে এফবিসিসিআইয়ের অডিটরিয়ামে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় এফবিসিসিআইয়ের চলমান কার্যক্রম ও কর্মপরিকল্পনার ওপর আলোকপাত করেন এফবিসিসিআইয়ের সিনিয়র সহ-সভাপতি।

এ সময় তিনি বলেন, গত ১৫ বছরে বাংলাদেশের অর্থনীতি একটি শক্তিশালী ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়েছে। ২০২৬ সালে এলডিসি গ্র্যাজুয়েশনের মধ্য দিয়ে দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি নতুন যাত্রাপথে পদার্পণ করবে, সম্ভাবনার পাশাপাশি যেখানে থাকবে বহু চ্যালেঞ্জ। সেসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে টেকসই অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য আমাদের অর্থনীতিকে বহুমুখীকরণ, রপ্তানি বৈচিত্র্যকরণ এবং সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি করতে হবে। এ সব বিষয় বিশেষভাবে বিবেচনায় নিয়ে সরকারের অন্যতম অংশীজন হিসেবে বেসরকারিখাত নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

মো. আমিন হেলালী বলেন, বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, সমৃদ্ধি এবং স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে এনডিসি কোর্স ২০২৪-এর চৌকস সদস্যবৃন্দ তাদের শক্তি ও বুদ্ধিমত্তার সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করবে।

এ সময় কোর্সে অংশ নেওয়া বিদেশি সদস্যদের নিজ নিজ দেশের জনগণ এবং সরকারের কাছে বাংলাদেশকে ইতিবাচকভাবে তুলে ধরার আহ্বান জানান তিনি।

এনডিসি প্রতিনিধিদলের প্রধান এয়ার ভাইস মার্শাল এ এস এম ফখরুল ইসলাম বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রায় এফবিসিসিআইয়ের কার্যক্রম ও উদ্যোগের ভূঁয়সী প্রশংসা করেন।

এফবিসিসিআই কার্যালয় পরিদর্শন, সংগঠনটির কার্যক্রম, কর্মকৌশল এবং পরিকল্পনা সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা এনডিসি প্রশিক্ষণার্থীদের জ্ঞানকে আরো সমৃদ্ধ করবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে উন্মুক্ত আলোচনায় এফবিসিসিআইয়ের সহ-সভাপতি মো. মুনির হোসেন বলেন, দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সরকার এবং বেসরকারিখাতের মধ্যে এ ধরনের যোগাযোগ অব্যাহত রাখা জরুরি।

এফবিসিসিআই নেতৃবৃন্দ এবং এনডিসি কোর্সের সদস্যদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে অনুষ্ঠান শেষ করেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ এম এম খায়রুল কবির।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক মো. ইকবাল হোসেন চৌধুরী, হাজী হাফেজ মো. হারুন-অর-রশিদ, মো. ইসহাকুল হোসেন সুইট, এফবিসিসিআইয়ের মহাসচিব মো. আলমগীর, এফবিসিসিআইয়ের সেফটি কাউন্সিলের উপদেষ্টা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আবু নাঈম মোহাম্মদ শহিদ উল্লাহসহ অন্যান্যরা।

;

গণপূর্তমন্ত্রীর সঙ্গে ইউএনডিপি’র আবাসিক প্রতিনিধির সাক্ষাৎ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ইউএনডিপির আবাসিক প্রতিনিধি স্টিফেন লিলার।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) সচিবালয়ে গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রীর দফতরে এ সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হয়।

সাক্ষাৎকালে জাতীয় সংসদের আদিবাসী ককাস গঠন ও ককাসের কার্যক্রম পরিচালনায় ইউএনডিপির সহযোগিতা প্রদানের বিষয়ে আলোচনা হয়। আদিবাসী ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর জনসাধারণের জীবনমান উন্নয়নে স্টিফেন লিলার আদিবাসী ককাসকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দেন। এছাড়া ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জনসাধারণের উন্নয়নে প্রচার- প্রচারণা, ক্যাম্পেইন পরিচালনা, জনসাধারনের মাঝে সচেতনতা বৃদ্ধি, ইতিবাচক আন্দোলন গড়ে তোলা ইত্যাদি বিষয়ে তিনি সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

সাক্ষাৎ শেষে আলোচনার বিষয় সম্পর্কে মন্ত্রী সাংবাদিকদের ব্রিফিং করেন। আদিবাসী ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর জনসাধারণের জীবনমান উন্নয়নে বিশেষ কোন কার্যক্রম গ্রহণে বিদ্যমান আইনের কোন পরিবর্তন প্রয়োজন হবে না বলে তিনি জানান।

;

সিইসির সুযোগ-সুবিধা বাংলা ভাষায় আইনে রূপান্তর করার সিদ্ধান্ত



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনের অন্যান্য সদস্যদের সুযোগ-সুবিধা সংক্রান্ত ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার এবং অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার (পারিতোষিক ও বিশেষাধিকার) আইন, ২০২৪ এর খসড়ার নীতিগত ও চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। ইংরেজিতে থাকা অধ্যাদেশটি বাংলা ভাষায় আইনে রূপান্তর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ সংক্রান্ত আইন অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সচিব আরও জানান, ১৯৮৩ সালের একটি অধ্যাদেশের মাধ্যমে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও অন্যান্য কমিশনারদের সুযোগ-সুবিধা প্রদান করা হচ্ছে। সামরিক সরকারের আমলের যেসব অধ্যাদেশ বর্তমানে প্রযোজ্য বলে বিবেচিত হবে সেগুলোকে আইনে রূপান্তর করার বিষয়ে হাইকোর্টের নির্দেশনা রয়েছে। তারই আলোকে নতুন আইনটি করা হচ্ছে।

সরকার এ অধ্যাদেশটি বাংলা ভাষার আইনে রূপান্তর করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সেই আলোকে তৈরি করা আইনের খসড়াটি মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত হয়েছে বলে জানান তিনি।

এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, বর্তমানে আপিল বিভাগের বিচারপতির সমান সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতিদের সমান সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন নির্বাচন কমিশনার। নতুন আইনে বড় কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি। আগে যেসব সুযোগ- সুবিধা দেওয়ার বিধান ছিল এখনও সেটাই বহাল রাখা হয়েছে।

;

চট্টগ্রামে মাদক মামলায় যুবকের ৬ বছর কারাদণ্ড



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রাম নগরীর খুলশীর থানার একটি মাদক মামলায় মো. শুক্কর আলী প্রকাশ ইউসুফ (২৮) নামের এক যুবককে ৬ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ৬ মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) চট্টগ্রামের চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ শরীফুল আলম ভূঁঞার আদালত এই রায় দেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৬ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি নগরীর খুলশী থানার কুসুমবাগ আবাসিক এলাকার আল সিরাজ টাওয়ার থেকে মো. শুক্কর আলী প্রকাশ ইউসুফকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-৭ । এ সময় শুক্কর আলীর বাসার ফ্লোরের বিছানার নিচ থেকে ৪ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় র‌্যাব-৭ এর তৎকালীন এসসিপিও মো. হারুন অর রশীদ বাদী হয়ে খুলশী থানায় মামলা করেন। মামলার তদন্ত শেষে ২০১৬ সালের ৯ মার্চ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করলে আদালত একই বছরের ১৯ জুলাই অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন।

আদালতের বেঞ্চ সহকারী ওমর ফুয়াদ বলেন, সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে ইয়াবা মামলায় আসামি মো. শুক্কর আলী প্রকাশ ইউসুফের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ৬ বছর সশ্রম কারাদণ্ড, ৫ হাজার টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে আরও ৬ মাস বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। রায়ের সময় আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন, পরে সাজা পরোয়ানা মূলে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

;