দেশের উন্নয়নে নারীর ক্ষমতায়ন প্রয়োজন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, দেশ ও জাতির এগিয়ে যেতে হলে রাজনৈতিক, কর্মক্ষেত্রসহ সর্বক্ষেত্রে নারীর ক্ষমতায়ন প্রয়োজন। সে লক্ষ্যেই আমরা কাজ করে যাচ্ছি। 

বুধবার (১৩ মার্চ) নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সনেট ভবনে 'আন্তর্জাতিক নারী দিবস' উপলক্ষে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা সেন্টার ফর জেন্ডার এন্ড ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ-এর আয়োজিত সভায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, নারীর ক্ষমতায়নে বিনিয়োগ করলে সমাজ ও রাষ্ট্র এগিয়ে যাবে। গত ১৫ বছরে নারীর ক্ষমতায়নে আমাদের অবদান সারা বিশ্বে আলোচিত। নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। সব উন্নয়নের পেছনে নারীর অবদান রয়েছে।

মন্ত্রী আরও বলেন, আমাদের নারীদের আরও দক্ষতা বাড়াতে হবে। শুধু অ্যাকাডেমিক ক্ষেত্রে নয়, সঠিক জ্ঞান-অর্জন করে জাতি তৈরি করতে হবে। আমরা এমন একটি রাষ্ট্র ব্যবস্থা চাই যা হবে মানবিক, সামাজিক, কল্যাণকর। দেশের উন্নয়ন করতে গেলে প্রথমে নারীদের উন্নয়ন করতে হবে। নারী অর্থনৈতিকভাবে নির্ভরশীল না হলে সন্তান জন্মদানের সিদ্ধান্ত তার কাছে থাকে না। অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হতে হবে।

এক সমীক্ষায় উঠে এসেছে নারীরা দুই-তৃতীয়াংশ কাজ করে। তাই উন্নত ও সমৃদ্ধ রাষ্ট্র গড়তে অর্থনৈতিক, সামাজিকভাবে নারীর ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করতে হবে বলেও জানান তিনি।

আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত সভাটির সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ডক্টর এ এস এম মাকসুদ কামাল।

তিনি বলেন, নারীদের সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক পরিপ্রেক্ষিতে আসার জন্য অনুকূল পরিবেশ তৈরি করা হচ্ছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নারী শিক্ষার্থীদের ফলাফল ছেলেদের তুলনায় অনেক ভালো। তারা প্রতিবছর সফলতার নানা ক্ষেত্রে অবদান রাখছেন।

সভার প্রধান বক্তা বাংলাদেশ আলায়েন্স ফর ওম্যান লিডারশিপ এর প্রেসিডেন্ট নাসিম ফিরদৌস বলেন, স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে নারীদের সমান অংশগ্রহণ প্রয়োজন। অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে অবদান না রাখলে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। নারীদের জন্য বিনিয়োগ, উচ্চশিক্ষা অর্জন অতি জরুরি। বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব একজন মহৎ ব্যক্তি তিনি স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় বঙ্গবন্ধুকে প্রেরণা যুগিয়েছেন। তার আদর্শ আমাদের অনুপ্রেরণা।

অনুষ্ঠানের স্বাগত বক্তব্য রাখেন, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা সেন্টার ফর জেন্ডার এন্ড ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ-এর পরিচালক প্রফেসর ডক্টর তানিয়া হক। তিনি বলেন, লিঙ্গ সমতা এবং নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের উপর জোর দিতে হবে। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন অত্যন্ত জরুরি।

সম্মানিত অতিথি হিসেবে সভায় ভার্চুয়্যালি যুক্ত হয়ে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ হাই কমিশন এর সৈয়দা মুনা তাসনিম। তিনি শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবকে স্মরণ করেন এবং বঙ্গবন্ধু জেলে থাকাকালীনতার সাহসী ভূমিকার কথা উল্লেখ করেন।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, ফারা কবির শমি কায়সার, বাংলাদেশি ফ্যাশন ডিজাইনার বিবি রাসেল, বাংলাদেশ হাইওয়ে পুলিশ এর ফরিদা পারভীন সহ অনেকে।

   

ফরিদপুরে দুর্ঘটনায় নিহতদের ৫ জন একই পরিবারের



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ফরিদপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ফরিদপুরের শহরতলীতে বাস ও পিকআপভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত বেড়ে ১৪ জনের মধ্যে ৫ জন ছিলেন একই পরিবারের।

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) সকাল পৌনে ৮টার দিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের শহরতলীর কানাইপুরের দিপনগর এলাকায় দুর্ঘটনায় তাদের মৃত্যু হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, একই পরিবারের নিহত পাঁচজন হলেন- ফরিদপুরের বোয়ালমারীর বেজিডাঙ্গা গ্রামের রফিক মোল্লা (৩৫), তার স্ত্রী সুমি বেগম (২৩), দুই ছেলে রুহান মোল্লা (৬), হাবিব মোল্লা (৩) ও রফিক মোল্লার মা। রফিক ঢাকায় একটি সরকারি অফিসে লিফটম্যান হিসেবে কর্মরত ছিলেন। ঈদের ছুটি শেষ করে তিনি মা, স্ত্রী ও দুই ছেলেকে নিয়ে পিকআপ ভ্যানে করে ঢাকায় যাচ্ছিলেন।

হাইওয়ে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহিনুল আলম বলেন, পিকআপভ্যানটি ভাড়া করে আলফাডাঙ্গা থেকে ফরিদপুর শহরে যাচ্ছিলেন যাত্রীরা। পথে মাগুরাগামী বাসের সঙ্গে ওই পিকআপভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলে ১৩ জনের মৃত্যু হয়। নিহদের সংখ্যা বেড়ে ১৪ জন হয়েছে। খবর পেয়ে নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস।

 

 

;

উপজেলা নির্বাচনে মন্ত্রী-এমপিদের হস্তক্ষেপে না করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে মন্ত্রী-এমপিদের হস্তক্ষেপে না করার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) দুপুরে ধানমণ্ডিতে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এ কথা জানান।

ওবায়দুল কাদের বলেন, মন্ত্রী এমপিদের প্রভাব বিস্তার না করতে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন। নির্বাচন যাতে শান্তিপূর্ণ ও সুষ্ঠু ভাবে হয়, কেউ কোন প্রকার হস্তক্ষেপ করবে না। প্রশাসন কোন প্রকার হস্তক্ষেপ করবে না। নির্বিঘ্নে ভোট দানের ব্যবস্থা করেছে নির্বাচন কমিশন।

এ সময় তিনি বিএনপি প্রকাশ্যে উপজেলা নির্বাচনের বিরোধিতা করলেও আমাদের জানামতে তাদের অনেকেই অংশগ্রহণ করবেন বলেও মন্তব্য করেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি প্রকাশ্যে উপজেলা নির্বাচনের বিরোধিতা করেছিল। আমাদের জানামতে, স্থানীয়পর্যায়ে তাদের অনেকেই নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে।

উপজেলা নির্বাচনের একজন প্রার্থীকে অপহরণ করা প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, এত বড় একটা নির্বাচন, তাতে টুকটাক কিছু ঘটনা যে ঘটবে না, ঘটেনি তা নয়। তবে তা নিয়ন্ত্রণে আমরা কাজ করছি। প্রশাসনিকভাবে আমরা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করছি।

উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী কতজন? প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমাদের কতজন প্রার্থী, আমরা সেটা হিসাব করে দেখার তাগিদ অনুভব করিনি। আমরা সবাইকে সুযোগ দিয়েছি।

জামায়াতে ইসলামী উপজেলা নির্বাচনে কাউকে না যেতে আহ্বান করেছে। এ বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, জামায়াতের আহ্বান নিয়ে কোনো প্রকার প্রতিক্রিয়া আমরা দিচ্ছি না।

বাংলাদেশ গণতন্ত্র সূচকে পিছিয়েছে। মার্কিন রাষ্ট্রদূতের এমন দাবি প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমি রাষ্ট্রদূতকে বলব, আপনার দেশ গণতন্ত্র সূচকে কত ধাপ পিছিয়েছে?

দ্রব্যমূল্য সহনীয় অবস্থায় রাখার জন্য প্রধানমন্ত্রী কাজ করে যাচ্ছেন জানিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, দ্রব্যমূল্য একটা সহনীয় অবস্থায় রাখার জন্য আমাদের প্রধানমন্ত্রী যে এফোর্ড দিচ্ছেন, তা বিরল। ঈদে অর্থ প্রভাব বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে আমাদের অর্থনীতি কিছুটা চাঙ্গা হয়েছে। অর্থ লেনদেনের যে গতিময়তা, তা আমাদের অর্থনীতিতে একটা গতিশীলতা নিয়ে এসেছে। সে সুফল পাচ্ছে দেশের মানুষ। ব্যাংকিং খাতে লেনদেন বাড়ছে। প্রধানমন্ত্রীর যে প্রয়াস তা বাস্তবায়নে আওয়ামী লীগ পার্টি হিসেবে আমরা তার নির্দেশনা মেনে চলব।

এ সময় অন্যদের মধ্যে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, মির্জা আজম, সুজিত রায় নন্দি, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান উপস্থিত ছিলেন।

;

জলবায়ু পরিবর্তন ও স্বাস্থ্যের মধ্যে জোরালো সম্পর্ক আছে: পরিবেশমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় অভিযোজন পরিকল্পনায় (এনএপি) স্বাস্থ্যের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা হবে জানিয়ে পরিবেশে, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরী বলেছেন, জলবায়ু পরিবর্তন ও স্বাস্থ্যের মধ্যে একটা জোরালো সম্পর্ক আছে। আমরা যখন এনএপি চূড়ান্ত করি, তখন স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে কয়েকটা রেফারেন্স ছিল।

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) সচিবালয়ে নিজ মন্ত্রণালয়ে ঢাকায় সুইডিশ দূতাবাসের জলবায়ু স্বাস্থ্য ও পরিবেশ গ্রুপের চেয়ারম্যান এবং ফার্স্ট সেক্রেটারি ডা. ড্যানিয়েল নোভাকের সঙ্গে বৈঠকের সময় তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের জাতীয় অভিযোজন পরিকল্পনা (এনএপি) নিয়ে আপনারা জানেন। ২০২২ সালে এটি চূড়ান্ত করা হয়েছিল। তারপর থেকে লক্ষ্য করেছিলাম জলবায়ু পরিবর্তন ও স্বাস্থ্যের মধ্যে একটা জোরালো সম্পর্ক আছে। তবে সুনির্দিষ্টভাবে আমাদের যে ১১৩টি এজেন্ডার মধ্যে স্বাস্থ্য নিয়ে আমরা কোনো কাজ করিনি। এখন আমরা ভাবছি, এনএপিতে স্বাস্থ্যের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘এখন পর্যন্ত যে জরিপ আমরা করেছি বা বিভিন্ন তথ্য আমরা পাচ্ছি, বিশেষ করে উপকূলীয় এলাকা ও নারীদের মধ্যে নীতিবাচক প্রভাব আছে। এতে জনস্বাস্থ্যের বিষয়টি চলে আসে। আমাদের উপকূলীয় এলাকায় এমনিতেই অনেক চ্যালেঞ্জ আছে। সেখানে লবণাক্ততা একটি বড় চ্যালেঞ্জ আছে। সুপেয় পানির সংকট আছে, তারওপর স্বাস্থ্যের বিষয়টিও চলে আসে।’

‘যদিও স্বাস্থ্যের বিষয়টি আমাদের পরিবেশে সরাসরি আসে না। তারপরেও যখন জনস্বাস্থ্যের কথা বলি, তার সঙ্গে পরিবেশের একটা সম্পর্ক আছে। কাজেই একদিকে উন্নয়ন, আরেকদিকে পরিবেশ ও স্বাস্থ্য। এই তিনটি একজায়গায় চলে আসে। কাজেই আমাদের পক্ষে নতুন করে একটি ম্যাপ তৈরি করা সম্ভব না, প্রয়োজনও নেই। তবে বর্তমানে ম্যাপের যে কাঠামো আছে ও ১১৩টি এজেন্ডায় স্বাস্থ্যের বিষয়টি নিয়ে আসতে চাই’।

‘ঢাকায় সুইডিশ দূতাবাস অনেকদিন ধরে এ বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে। তারা আগেও তাদের কিছু সুপারিশ আমাদের জানিয়েছে। কাজেই কীভাবে এ বিষয়টি নিয়ে আমরা সামনের দিকে যেতে পারি, তা নিয়ে আজ তাদের সঙ্গে কথা বলেছি,’ যোগ করেন সাবের হোসেন চৌধুরী।

‘আমি মনে করি, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রেক্ষাপটে এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। স্বাস্থ্যকে যে ধরনের গুরুত্ব দেওয়া উচিত, আগামীতে সেটা আমরা করতে চাই। আমরা আলাদাভাবে স্বাস্থ্যের ম্যাপ করবো না, তবে বর্তমানে যে ম্যাপ আছে, তাতে স্বাস্থ্যের বিষয়টিকে যোগ করতে চাই।’

মন্ত্রী বলেন, ‘সুইডেনের সঙ্গে আমাদের যে উন্নয়ন সম্পর্ক আছে, এই ক্ষেত্রটিকে ধরে সেটিকে আরও জোরদার করতে চাই।’

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ সচিব ড. ফারহিনা আহমেদ, সুইডিশ দুতাবাসের ফার্স্ট সেক্রেটারি নায়োকা মার্টিনেজ-ব্যাকস্ট্রোম।

;

লিটারে ১০ টাকা বাড়ল সয়াবিন তেলের দাম



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সয়াবিন তেলের নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। লিটার প্রতি ১০ টাকা বেড়ে সয়াবিন তেলের নতুন দাম ১৭৩ টাকা করা হয়েছে।

সোমবার (১৫ এপ্রিল) বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

এতে বলা হয়, ভোজ্যতেলের কাঁচামাল আমদানি, উৎপাদন পর্যায়ে গত ৭ ফেব্রুয়ারি জারিকৃত বিজ্ঞপ্তির মেয়াদ গত ১৫ এপ্রিল শেষ হয়েছে। ফলে ১৬ এপ্রিল থেকে বাজারে ভোজ্যতেল (পরিশোধিত পাম তেল এবং পরিশোধিত সয়াবিন তেল) ভ্যাট অব্যহতি পূর্ববর্তী মূল্যে সরবরাহ করা হবে।

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) থেকে নতুন দাম কার্যকর করা হবে। এছাড়াও বোতলজাত ৫ লিটার সয়াবিন তেল বিক্রি হবে ৮৪৫ টাকায়। আর প্রতি লিটার খোলা পাম তেলের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১৩২ টাকা।

এর আগে খুচরা পর্যায়ে প্রতি লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম ছিল ১৬৩ টাকা। আর লিটারে খোলা তেলের দর পড়বে ১৪৯ টাকা। এছাড়া বোতলজাত ৫ লিটার বিক্রি হবে ৮০০ টাকায়।

এদিকে, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি আয়োজিত মিট দ্য রিপোর্টার্স আয়োজনে বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু বলেছেন, সয়াবিন তেলের দাম কমবে না। আগের দামে ফিরে যাওয়ার সুযোগ নেই। তবে ট্যারিফ কমিশনের মাধ্যমে একটি নতুন দাম বেঁধে দেয়া হবে।

প্রতিমন্ত্রী জানান, সয়াবিন তেলের মাত্র ৫ শতাংশ ট্যাক্স কমানোর কারণে লিটারে তেলের দাম কমেছে ১০ টাকা। তেল-চালের ওপর ট্যাক্স বসিয়ে রাজস্ব আদায় যৌক্তিক না। এটির সঙ্গে সাধারণ মানুষের স্বার্থ জড়িত।

 

 

;