এসপিএম থেকে ৪০ হাজার টন তেল খালাস



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
মহেশখালীর পাম্পিং স্টেশন থেকে ৪০ হাজার টন তেল খালাস

মহেশখালীর পাম্পিং স্টেশন থেকে ৪০ হাজার টন তেল খালাস

  • Font increase
  • Font Decrease

মহেশখালীর পাম্পিং স্টেশন থেকে ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেড (ইআরএল) ৪০ হাজার মেট্রিক টন অপরিশোধিত তেল নিরাপদে পরিবহন করা হয়েছে। এর মাধ্যমে দীর্ঘ লালিত এসপিএম (সিঙ্গেল পয়েন্ট মুরিং) প্রকল্পের কমিশনিং সম্পন্ন হয়েছে।

শুক্রবার (১৫ মার্চ) ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মো. লোকমান এক বার্তায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেছেন, আশা করছি এসপিএম (সিঙ্গেল পয়েন্ট মুরিং) প্রকল্প সাশ্রয়ী ও লাভজনক হবে।

এসপিএম প্রকল্পের কাজ শুরু হয় ২০১৫ সালের নভেম্বরে। গত বছরের জুনে কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল।

এসপিএম প্রকল্পে ব্যয় হবে ৪৪৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। অপরেশনে যাওয়ার ৬ থেকে ৭ বছরের মধ্যে বিনিয়োগ উঠে আসবে। এরপর পুরোটাই মুনাফায় থাকবে বলে জানিয়েছেন ইআরএল এমডি।

মহেষখালীর দক্ষিণে গভীর সমুদ্রে থাকছে প্রধান কেন্দ্র। সেখান থেকে ১৭ কিলোমিটার দূরত্বে থাকছে রিজার্ভার ট্যাংক। এই ১৭ কিলোমিটার থাকছে ৩৬ ইঞ্চি ব্যসের পাইপ। গভীর সমুদ্রে মাদার ভ্যাসেল থেকে ক্রুড অয়েল সরাসরি পাইপের মাধ্যে রির্জাভারে আসবে। এই রির্জাভারের ধারণ ক্ষমতা নির্ধারণ করা হয়েছে আড়াই লাখ মেট্রিক টন।

স্টোরেজ ট্যাংকার থেকে ইআরএল পর্যন্ত অবসোরে ৬৩ কিলোমিটার এবং অনসোরে ৩০ কিলোমিটার মোট ৯৩ কিলোমিটার ডাবল পাইপ লাইন। এর একটি হচ্ছে ১৮ ইঞ্চি ডায়া অপরটি থাকছে ১০ ইঞ্চি ডায়া।

ইআরএল এমডি জানান, বাংলাদেশ মারবান ও অ্যারাবিয়ান লাইট ক্রড আমদানি করছে। একটি পাইপ লাইন দিয়ে মারবান ক্রড(কালচে রঙয়ের), অপর দিয়ে তুলনামুলক উজ্জল অ্যারাবিয়ান লাইট ক্রুড সঞ্চালণ করা হবে।

যা এখন গভীর সমুদ্রে মাদার ভ্যাসেল থেকে লাইটারেজের মাধ্যমে কর্ণফূলী নদীতে অবস্থিত ইষ্টার্ণ রিফাইনারীরতে জেটিতে আনা হচ্ছে। সেখান থেকে পাইপ লাইনের মাধ্যমে ইআরএল’র স্টোরেজে নেওয়া হয়।

এতে প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ নানাবিধ কারণে মাদার ভ্যাসেল থেকে ক্রুড আনলোড করতে বিলম্ব হচ্ছে। এ কারণে মোটা অংকের লোকসান দিতে হয় বিপিসিকে। এসপিএম নির্মাণ হলে অনিশ্চয়তা দূর হয়ে সক্ষমতা বাড়বে ইআরএল’র। বছরে সাড়ে পাঁচ মিলিয়ন টন অর্থাৎ সাড়ে ৫৫ লাখ টন ক্রুড অয়েল হ্যান্ডেলিং করতে পারবে রাষ্ট্রীয় মালিকার প্রতিষ্ঠানটি।

   

সীতাকুণ্ডে রেলক্রসিংয়ে ট্রেনের ইঞ্জিন বিকল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম,চট্টগ্রাম
ছবি: বার্তা ২৪

ছবি: বার্তা ২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডের রেলক্রসিংয়ে ইঞ্জিন ত্রুটির কারণে থেমে আছে মালবাহী ট্রেন। এতে সড়কের দুই পাশে দীর্ঘ যানজটে তীব্র গরমে দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রীরা।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) সকাল সাড়ে দশটার দিকে বারইয়ারহাট পৌরসভার রেলক্রসিং মালবাহী ট্রেনের ইঞ্জিন নষ্ট হওয়ার ঘটনা ঘটে।

চিনকি আস্তানা রেলস্টেশনের স্টেশন কর্মকর্তা সিরাজুর ইসলাম বলেন, রেলের ইঞ্জিন বসে গেছে, মেরামত করা হচ্ছে। অতিদ্রুত মেরামত করে সচল করা হবে। গাড়ি পারাপার ব্যাহত হওয়ায় সড়কে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। 

চট্টগ্রাম রেলওয়ে স্টেশন ম্যানেজার মো. মনিরুজ্জামান বলেন, সীতাকুণ্ডে মালবাহী ট্রেনের ইঞ্জিনে ত্রুটির কারণে সড়কে যানজট সৃষ্টি হয়। এখন ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।

;

মাদারীপুরে এক্সপ্রেসওয়েতে বাস উল্টে নিহত ১, আহত ১০



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট,বার্তা২৪.কম, মাদারীপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

মাদারীপুরের শিবচরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক্সপ্রেসওয়েতে যাত্রীবাহী বাস উল্টে গোলাম রহমান শিকদার নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে মাদারীপুরের শিবচরের বন্দরখোলা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মাদারীপুরের শিবচর হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাকিল আহমেদ।

হাইওয়ে পুলিশ জানায়, ইউনিক পরিবহনের যাত্রীবাহী একটি বাস ঢাকা থেকে পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় যাচ্ছিল। বাসটি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক্সপ্রেসওয়ের মাদারীপুরের শিবচরের বন্দরখোলা এলাকায় পৌঁছালে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় গোলাম রহমান শিকদার নামে এক যাত্রী। এ সময় আহত হন ১০ জন।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আহতদের উদ্ধার করে শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও স্থানীয় কয়েকটি প্রাইভেট ক্লিনিকে ভর্তি করা ফায়ার সার্ভিস ও হাইওয়ে পুলিশ।

ওসি মো. শাকিল আহমেদ বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় এক যাত্রী নিহত হয়েছেন। নিহতের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনি কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

 

;

বিশেষ ট্রেনের ২ বগি লাইনচ্যুত, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার যোগাযোগ বন্ধ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কক্সবাজার
কক্সবাজারগামী বিশেষ ট্রেনের ২ বগি লাইনচ্যুত

কক্সবাজারগামী বিশেষ ট্রেনের ২ বগি লাইনচ্যুত

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রুটে চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজারগামী বিশেষ ট্রেন (ঈদ স্পেশাল) লাইনচ্যুত হয়েছে। এতে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম রুটে রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) সকাল ৯ টা ৪০ মিনিটের দিকে কক্সবাজারের চকরিয়ার ডুলাহাজারা জংশনে এ ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি বার্তা২৪.কমকে নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার রেলস্টেশনের স্টেশন মাস্টার গোলাম রব্বানী।

তিনি বলেন, ডুলাহাজারা জংশনে কক্সবাজারগামী ঈদ স্পেশাল ট্রেনের ২ টি কোচ লাইনচ্যুত হয়েছে। চট্টগ্রাম থেকে ট্রেনটি উদ্ধার করার জন্য উদ্ধারকারী দল রওয়ানা দিয়েছে।

ডুলাহাজারা থেকে তীব্র গরমের মধ্যে বাসে সবাই কক্সবাজারে ফিরে এসেছে বলে জানান যাত্রীরা।

ঈদ স্পেশাল ট্রেনের যাত্রী সায়ন্তন ভট্টাচার্য বলেন, চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজারে ঈদ স্পেশাল ট্রেনে করে নিজ বাড়িতে ফিরছিলাম। ট্রেনটি ডুলাহাজারা স্টেশনে লাইনচ্যুত হয়। তীব্র গরমের মধ্যে সব যাত্রীরা বাসে ফিরে যাচ্ছে। আমরাও বাসেই কক্সবাজারে চলে আসি। ট্রেনটি ঠিক হতে হয়তো সারাদিন লেগে যেতে পারে।

;

র‌্যাবের নতুন মুখপাত্র হলেন কমান্ডার আরাফাত ইসলাম



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালকের দায়িত্ব পেয়েছেন কমান্ডার আরাফাত ইসলাম। তিনি কমান্ডার খন্দকার আল মঈনের স্থলাভিষিক্ত হলেন।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) তাকে দায়িত্ব দিয়ে অফিস আদেশ জারি করা হয়েছে। র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার সহকারী পরিচালক এএসপি ইমরান খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখন পর্যন্ত র‌্যাব ১১ জন মুখপাত্র পেয়েছে। আরাফাত ১২তম মুখপাত্র হলেন।

দীর্ঘ তিনবছর মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করা মঈন গত বৃহস্পতিবার নিজ বাহিনীতে ফেরত যান। এর আগে তিনি ২০২১ সালের ২৫ মার্চ র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক হন।

জানা গেছে, কমান্ডার আরাফাত ইসলাম বর্তমানে র‌্যাব-১৩-এর অধিনায়ক (সিও) হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। গতবছরের জানুয়ারিতে তিনি ব্যাটালিয়নের দায়িত্ব পান। ২০২২ সালে তিনি প্রেষণে র‌্যাবে আসেন। নৌবাহিনীর এই কর্মকর্তা ১৯৯৫ সালে বাহিনীতে যোগ দেন এবং ১৯৯৭ সালের ১ জুলাই এক্সিকিউটিভ ব্রাঞ্চে কমিশন লাভ করেন। পেশাগত জীবনে আরাফাত ইসলাম নেভিগেশন অ্যান্ড ডাইরেকশনের ওপর স্পেশালাইজেশন সম্পন্ন করেন। এছাড়া তিনি আবহাওয়াবিদ্যায় উচ্চশিক্ষা অর্জন করেন। এছাড়াও তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ ডিগ্রি অর্জন করেছেন।

পেশাগত জীবনে তিনি নৌবাহিনীর পাশাপাশি র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব), কোস্টগার্ডসহ বিভিন্ন বাহিনীতে চাকরির অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন। এছাড়া জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে লেবানন এবং সাউথ সুদানে সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন। পেশাগত দক্ষতা প্রদর্শনের মাধ্যমে তিনি নৌবাহিনী প্রধানের প্রশংসা, ফোর্স কমান্ডার’স কমেন্ডেশনসহ নৌ উৎকর্ষতা পদক (এনইউপি) এবং প্রেসিডেন্ট কোস্ট গার্ড মেডেল (পিসিজিএম) এ ভূষিত হন। তাছাড়া পৃথিবীর পাঁচটি মহাদেশের প্রায় ৩৪টি দেশ ভ্রমণ করেছেন।

ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত ও দুই কন্যা সন্তানের জনক কমান্ডার আরাফাত ইসলাম।

;