রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে কম্বোডিয়ার সমর্থন চেয়েছে বাংলাদেশ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম,ঢাকা
কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ফারুক খান

কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ফারুক খান

  • Font increase
  • Font Decrease

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের দ্রুত ও নিরাপদ প্রত্যাবাসনের জন্য কম্বোডিয়ার সমর্থন চেয়েছে বাংলাদেশ।

সোমবার (৬ জানুয়ারি) নমপেনে কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী সামাদেক আক্কা মোহা সেনা পাকদেয় টেকো হুন সেনের সঙ্গে পিস প্যালেসে (প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়) বৈঠককালে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ফারুক খান এ সমর্থন চেয়েছেন।

এ সময় তিনি অস্থায়ীভাবে বাংলাদেশে আশ্রয়প্রাপ্ত মিয়ানমারের নাগরিকদের দ্রুত প্রত্যাবাসনের বিষয়ে মতামত গঠনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মানবিক ইঙ্গিত তুলে ধরেন। এ ইস্যুতে ফারুক খান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চার নীতি প্রধানমন্ত্রী হুন সেনের কাছে তুলে ধরেন। 

তিনি বাংলাদেশ এবং আসিয়ান দেশসমূহ এবং এর বাইরেও এই রোহিঙ্গা মানুষের দীর্ঘ সময় থাকার নেতিবাচক পরিণতির কথাও তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রী হুন সেন রোহিঙ্গা সঙ্কটের শান্তিপূর্ণ সমাধান আশা করেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে নমপেনে এবং কম্বোডিয়ার প্রয়াত কিং নুর নোডোম সিহানুকের নামে ঢাকায় সড়কের নামকরণ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও জোরদার করবে বলে আশা ব্যক্ত করেন ফারুক খান।  

এ সময় তারা বাণিজ্য, কৃষি, পর্যটন ইত্যাদিসহ অন্যান্য দ্বিপক্ষীয় ইস্যু নিয়েও আলোচনা করেন। ফারুক খান উল্লেখ করেছেন যে, ২০২০ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের মার্চ পর্যন্ত মুজিববর্ষের সময় কম্বোডিয়ায় বাংলাদেশ অনুষ্ঠানের আয়োজন করবে যাতে কম্বোডিয়ার জনগণ তার গৌরবময় জীবন সম্পর্কে আরও জানতে পারে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য গোলাম ফারুক খন্দকার প্রিন্স, মো. আবদুল মজিদ খান, নাহিম রাজ্জাক, কম্বোডিয়ায় নিযুক্ত (অনাবাসী) বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. নাজমুল কাউয়াইন এবং কম্বোডিয়ান সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। প্রতিনিধি দলের সদস্যরা গতকাল সন্ধ্যায় নমপেনে কম্বোডিয়ায় বসবাসরত বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যদের সাথে বৈঠক করেছেন।

আপনার মতামত লিখুন :