মুজিববর্ষে একগুচ্ছ কর্মপরিকল্পনা মসিকের

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ময়মনসিংহ
সংবাদ সম্মেলনে  বক্তব্য দিচ্ছেন মেয়র ইকরামুল হক টিটু, ছবি: বার্তা২৪.কম

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দিচ্ছেন মেয়র ইকরামুল হক টিটু, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী পূর্ণ হতে যাচ্ছে আগামী ১৭ মার্চ। জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপনে চলতি বছরের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ১৭ মার্চ পর্যন্ত ‘মুজিববর্ষ’ হিসেবে ঘোষণা করেছে সরকার। আর মুজিবর্ষকে ঘিরে বছরব্যাপী একগুচ্ছ কর্মপরিকল্পনা হাতে নিয়েছে ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন (মসিক)।

কর্মপরিকল্পনার অংশ হিসেবে সিটি করপোরেশন সার্ভিস সিস্টেম পাইলট প্রকল্পের আওতায় অনলাইনে সেবা দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে মসিক। সেবাগুলো হলো- বিভিন্ন সার্টিফিকেট, ট্রেড লাইসেন্স, হোল্ডিং ট্যাক্স, প্রোপার্টি ম্যানেজমেন্ট ও পানির বিল। এছাড়া ময়মনসিংহকে ধুলা-বালু মুক্ত পরিচ্ছন্ন-সবুজ নগরী হিসেবে গড়ে তোলারও উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৯ জানুয়ারি) দুপুরে সিটি করপোরেশনের শহীদ শাহাবুদ্দীন মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান মেয়র ইকরামুল হক টিটু।

তিনি বলেন, 'অনলাইন সেবার মাধ্যমে নাগরিকরা ঘরে বসে কোনো ধরনের ভোগান্তি ছাড়াই তাদের সেবা পাবেন। এতে করে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার পাশাপাশি মানসম্মত সেবা প্রদান করা সম্ভব হবে।'

মেয়র টিটু আরও বলেন, 'বঙ্গবন্ধুর জীবন-কর্ম থেকে শিক্ষা নিয়ে সকলের জীবন পরিচালিত করতে পারলেই বঙ্গবন্ধুকে শ্রদ্ধা ও স্মরণ করা সার্থক হবে। একইসঙ্গে মুজিব আদর্শ ধারণ করে নতুন প্রজন্মকে দেশ ও জনগণের কল্যাণে কাজ করতে হবে।'

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন, মুজিববর্ষ উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক শফিকুল ইসলাম, কাউন্সিলর আসিফ হোসেন ডন, মাহবুবুল আলম, তাজুল আলম, শীতল সরকারসহ কর্মকর্তারা।

মসিক সূত্রে জানা গেছে, জাঁকজমকপূর্ণ পরিবেশে মুজিববর্ষ পালন উপলক্ষে বছরব্যাপী কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- বঙ্গবন্ধুর ওপর নির্মিত প্রামাণ্য চিত্র নগরীর বিভিন্ন স্থানে এলইডি স্ক্রিনের মাধ্যমে প্রদর্শন, জন্মশতবার্ষিকী ও শিশু দিবস উপলক্ষে কেক কাটা, শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরাল নির্মাণ, মসিকের সকল ওয়ার্ডে দুঃস্থ ও অসহায় মানুষদের জন্য আনন্দভোজ ও শীতবস্ত্র, সকল মসজিদ-মাদরাসায় কোরআন তেলাওয়াত ও বিশেষ প্রার্থনার ব্যবস্থা, কিশোরদের মাঝে চিত্রাঙ্কন, রচনা, কুইজ প্রতিযোগিতা, বিতর্ক প্রতিযোগিতার ব্যবস্থা, সপ্তাহে দু’দিন (শুক্র ও শনিবার) রক্তদান কর্মসূচির ব্যবস্থা, বিশেষ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা, গণস্বাক্ষর কার্যক্রম, সকল ওয়ার্ডে সড়ক বাতির ব্যবস্থা নিশ্চিত করা ও আলোকসজ্জাকরণ, ব্রহ্মপুত্র নদে লেজার শো’র ব্যবস্থা করা, প্রীতি ফুটবল ম্যাচ, ক্রিকেট-টি২০, ঘুড়ি উড়ানো, ঘৌড় দৌড়, নৌকাবাইচ, নারীদের জন্য বিশেষ খেলা, ম্যারাথন দৌড়, সাইকেল র‍্যালি, হাডুডু খেলার আয়োজন করা, মশক নিধন কার্যক্রম পরিচালনা, মানব চেইন তৈরি, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর জীবনাদর্শ সম্পর্কে আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন, বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত জায়গায় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা।

এছাড়া প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মাঝে হুইল চেয়ার বিতরণ, ক্যালেন্ডার ছাপানো ও বিতরণ, স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জীবনী সম্বলিত বই বিতরণ, অটিজম ও প্রতিবন্ধী শিশুদের নিয়ে বিশেষ কার্যক্রম গ্রহণ, বঙ্গবন্ধুর উপর আলোকচিত্র প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা, পরিচ্ছন্ন গ্রাম, পরিচ্ছন্ন শহর গড়ার জন্য বছরব্যাপী বিশেষ পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিচালনা, ১২ মাসে ১২টি উল্লেখযোগ্য অনুষ্ঠান আয়োজন, নগরীর প্রবেশমুখসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানসমূহে বঙ্গবন্ধুর ছবি সম্বলিত সাইনবোর্ডে ডিসপ্লে প্রদর্শন করা এবং ফলজ, বনজ ও ঔষধি বৃক্ষরোপণ।

আপনার মতামত লিখুন :