করোনায় যমজ সন্তানসহ অন্তঃসত্ত্বার মৃত্যু



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, খুলনা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

খুলনার করোনা হাসপাতালে রু‌মিছা বেগম (৩২) নামে এক অন্তঃসত্ত্বার মৃত্যু হয়েছে। পেটের ভেতর লালন পালন করছিলেন ৩২ সপ্তাহের দুই যমজ সন্তানদের।

শুক্রবার (২৬ জুন) দুপুর ২টার দিকে খুলনা নগরীর নূরনগরস্থ করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। এর আগে বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) সন্ধ্যা ৬টা ২৫ মিনিটে রু‌মিছা বেগমকে করোনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি বাগেরহাট জেলার মোড়েলগঞ্জের বাসিন্দা।

খুলনা করোনা হাসপাতালের সমন্বয়ক ডা. মো. মিজানুর রহমান বলেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে করোনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শুক্রবার দুপুরে তার মৃত্যু হয়। রু‌মিছা বেগমের গর্ভে যমজ দু‌টি সন্তান ছিলো। যমজ বাচ্চা নিয়ে মৃত্যুর ঘটনা খুলনায় এই প্রথম।

   

কেন ইসরায়েল থেকে ঢাকায় ফ্লাইট অবতরণ? ব্যাখা দিল বেবিচক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সম্প্রতি ইসরায়েল থেকে দুটি ফ্লাইট সরাসরি ঢাকায় অবতরণ করার বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছে বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।

শনিবার বেবিচকের উপ-পরিচালক (জনসংযোগ) মোহাম্মদ সোহেল কামরুজ্জামানের স্বাক্ষর করা এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘ইসরাইল থেকে বিমান এলো ঢাকায়’ শিরোনামে বিভিন্ন পত্রপত্রিকার অনলাইন সংস্করণে ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের প্রতি বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। বাংলাদেশের তৈরি পোশাক মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপে নিয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে গত ৭ এপ্রিল একটি বিমান তেল আবিব থেকে উড্ডয়ন করে সন্ধ্যা ৭টা ২২ মিনিটে ঢাকায় অবতরণ করে ও কার্গো নিয়ে রাত ১১টা ৫৫ ঘটিকায় ঢাকা থেকে উড্ডয়ন করে এবং অপরটি গত ১১ এপ্রিল তারিখ রাতে ঢাকায় অবতরণ ও মধ্যরাত সাড়ে ১২ টায় কার্গো নিয়ে ঢাকা থেকে উড্ডয়ন করে। দুটি বিমানই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিবন্ধিত এবং ওই দেশের বিমান সংস্থা ন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের।’

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ‌‘বাংলাদেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বিমান চলাচল চুক্তি রয়েছে। বিমান চলাচল চুক্তি অনুযায়ী কার্গো ফ্লাইট দুটি ঢাকা এসেছিল। ঢাকা থেকে তৈরি পোশাক নিয়ে ফ্লাইট দুটি সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজাহ এবং ইউরোপের একটি গন্তব্যে গিয়েছে। বাংলাদেশ ও ইসরাইলের মধ্যে কোনো বিমান চলাচল চুক্তি নেই এবং ইসরাইলের কোনো বিমান বাংলাদেশে অবতরণের কোনো ঘটনা ঘটেনি।’

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, ‘ইসরাইল থেকে বিমান এলো ঢাকায়’ শিরোনামে বিভিন্ন অনলাইন পত্রিকা ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি ভিন্নভাবে প্রকাশের ফলে জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। তাছাড়া, এ ধরনের বিভ্রান্তিকর সংবাদ পরিবেশনা অনাকাঙ্ক্ষিত ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত হিসাবে বিবেচ্য। এরূপ সংবাদ পরিবেশন হতে বিরত থাকার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে অনুরোধ করা হলো। 

;

পিরোজপুরে আন্ত:জেলা চোর চক্রের মাস্টারমাইন্ড গ্রেফতার



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, পিরোজপুর
পিরোজপুরে আন্ত:জেলা চোর চক্রের মাস্টারমাইন্ড গ্রেফতার

পিরোজপুরে আন্ত:জেলা চোর চক্রের মাস্টারমাইন্ড গ্রেফতার

  • Font increase
  • Font Decrease

পিরোজপুরে আন্ত:জেলা মোটরসাইকেল চোরচক্রের মাস্টারমাইন্ড সেলিম খানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ সময় তার কাছ থেকে চোরাই একটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরে পিরোজপুরে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) শেখ মোস্তাফিজুর রহমান সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

গ্রেফতার সেলিম খান (৪৪) নারায়নগঞ্জ জেলার রুপগঞ্জ থানার শাহাপুর এখারার গফফার খানের পুত্র।

পিরোজপুরে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) শেখ মোস্তাফিজুর রহমান জানান, গত ১৯ মার্চ পিরোজপুরে শহরের পাড়েরহাট সড়ক থেকে একটি মোটরসাইকেল চুরি হয়। পরে মোটরসাইকেলের মালিক মাইনুর ইসলাম বাদি হয়ে পিরোজপুর সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করে। পরে পুলিশ সিসি টিভি ফুটেজ এবং তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে দুই জন চোরকে সনাক্ত করে। এ সময় ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে গত ২৮ মার্চ ঢাকা জেলার সাভার থানা এলাকা থেকে মোটরসাইকেল চুরির সাথে জড়িত বাদশা ফরাজিকে গ্রেফতার করে। বাদশা ফরাজিকে গ্রেফতারের পরে তাকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের পরে তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে শুক্রবার (১২ এপ্রিল) নারায়নগঞ্জের রুপগঞ্জ এলাকা থেকে আন্ত:জেলা মোটরসাইকেল চোরচক্রের অন্যতম হোতা ও মাস্টারমাইন্ড সেলিম খানকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সেলিম খানের দেয়া তথ্য অনুযায়ী টাঙ্গাইল জেরার রাবনা বাইপাসস এলাকা থেকে চুরি যাওয়া মোটরসাইকেলটিও উদ্ধার করা হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) শেখ মোস্তাফিজুর রহমান আরো জানান, আন্ত:জেলা মোটরসাইকেল চোরচক্রের অন্যতম হোতা ও মাস্টারমাইন্ড সেলিম খানের নামে ঢাকা, মানিকগঞ্জ, সিরাজগঞ্জ, নারায়নগঞ্জ, মাগুরা, বাগেরহাট সহ দেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। এছাড়া সেলিম খান এ চোরাই মোটরসাইকেল দিয়ে মাদক পাচার সহ বিভিন্ন অপরাধ কার্যক্রম করে আসছিলো।

;

চুয়াডাঙ্গায় আবারও মাঝারি তাপদাহ শুরু, জনজীবনে অস্বস্তি



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চুয়াডাঙ্গা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

চুয়াডাঙ্গায় আবারও শুরু হয়েছে মাঝারি ধরনের তাপদাহ।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) বেলা ৩টায় এ জেলার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৩৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এসময় বাতাসের আর্দ্রতা ছিল ২৯ শতাংশ। এদিকে, বাইরে তীব্র রোদ আর ভ্যাপসা গরমে জনজীবনে অস্বস্তি শুরু হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা প্রথম শ্রেণির আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার সূত্রে জানা গেছে, ঈদের পরদিন শুক্রবার (১২ এপ্রিল) এ জেলার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৩৬ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা মৃদু তাপপ্রবাহ। একদিনের ব্যবধানে তাপমাত্রা ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়েছে। শনিবার দুপুর ১২টায় জেলার তাপমাত্রা ছিল ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বেলা ৩টায় এ জেলার তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৩৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এর আগে গত ৬ এপ্রিল চুয়াডাঙ্গায় সর্বোচ্চ ৪০ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। যা ছিল চলতি মৌসুমে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা।

চুয়াডাঙ্গা আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ইনচার্জ জামিনুর রহমান জানান, আগামী ১০ দিন আবহাওয়া পরিস্থিতি একই রকম থাকবে। এসময় তাপমাত্রা আরও বাড়বে। আপাতত স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের কোনো সম্ভাবনা নেই। তবে কালবৈশাখী ঝড় হলে তার সাথে বৃষ্টি হতে পারে। এটা আগে থেকে বলা সম্ভব নয়।

এদিকে, তীব্র গরমে জনজীবনে নেমে এসেছে ভোগান্তি। ঈদের ছুটিতে অনেকে এখন গ্রামে অবস্থান করছেন। কিন্তু গরমের কারণে কেউ বাইরে বের হতে পারছেন না। এক প্রকার ঘরবন্দি সময় পার করছেন তারা।

;

নানীর সাথে নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে দুই ভাইয়ের মৃত্যু



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, জামালপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

 

জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলায় নানীর সাথে যমুনা নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে মিনহাজ উদ্দিন (১০) ও মিনাল মিয়া (৮) নামে দুই সহোদর ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরে উপজেলার সাপধরী ইউনিয়নের দুর্গম চরশিশুয়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

তারা উপজেলার বেলগাছা ইউনিয়নের জারুলতলা এলাকার আজাহার মিয়ার ছেলে। এর আগে ঈদের দুইদিন আগে বাবা-মার সাথে তারা নানা দুদু সরকারের বাড়িতে ঘুরতে আসে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সাপধরী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ্ আলম মন্ডল।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আজ দুপুর ১টার দিকে বাড়ির পাশে নানীর সাথে যমুনা নদীতে মাছ ধরতে যায় ওই দুই শিশু। মাছ ধরার এক পর্যায়ে নদীর পানিতে ডুবে নিখোঁজ হয় তারা। অনেক খোঁজাখুজির এক থেকে দেড় ঘণ্টা পর তাদের মরদেহ নদীতে ভেসে উঠে।

সাপধরী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ্ আলম মন্ডল বার্তা২৪.কম-কে জানান, তাদের নানা খুবই দরিদ্র। নদীতে মাছ ধরেই জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন। দুপুরে নানীর সাথে যমুনা নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।

;