বাংলাদেশ থামল ৪৬৫ রানে, লিড ৬৮



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
লিটন দাস

লিটন দাস

  • Font increase
  • Font Decrease

লিটন দাস দুরন্ত ব্যাটিং চালিয়ে যাচ্ছিলেন। ব্যাটিং ঝলকে দেখিয়ে যাচ্ছিলেন সেঞ্চুরির আভাস। তবে মধ্যাহ্নভোজ শেষে মাঠে নামতেই ছন্দ হারিয়ে ফেলেন তারকা এ উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান। কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েও শতক মিস করেছেন।

তবে ধৈর্য্যের পরীক্ষায় উতরে ঠিকই সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন মুশফিকুর রহিম। দুজনের দুরন্ত ব্যাটিংয়ে সবগুলো উইকেট হারিয়ে প্রথম ইনিংসে ৪৬৫ রানের পাহাড় গড়েছে বাংলাদেশ। এতেই টাইগাররা লিড নিয়েছে ৬৮ রানের।

কাসুন রাজিথার বলে উইকেটের পিছনে নিরোশান ডিকভেলার গ্লাভসবন্দি হয়ে ফেরেন লিটন। তারপরই ফের মাঠে নামেন তামিম ইকবাল। তারকা এ ওপেনার তৃতীয় দিন শেষে অপরাজিতই ছিলেন। রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে চলে গিয়েছিলেন ড্রেসিংরুমে।

চতুর্থ দিন মধ্যাহ্নভোজ বিরতির মাঠে নামলেও মাত্র তিন বল মোকাবেলা করেন তামিম। ব্যক্তিগত ১৩৩ রানের আর কোনো রানই যোগ করতে পারেননি। ২১৮ রানে ১৫ বাউন্ডারিতে ইনিংসটি সাজিয়ে রাজিথার বলে বোল্ড হন দেশসেরা এ ওপেনার। বঞ্চিত হন ডাবল সেঞ্চুরি থেকে ।

তৃতীয় দিনের শেষ ভাগটায় ব্যাটিংয়ে দাপট দেখিয়েছেন দুজনে। চতুর্থ দিনেও দ্যুতি ছড়ালেন তারা। ব্যাট হাতে মুশফিকুর রহিম সেঞ্চুরি পেলেও লিটন দাস অসাধারণ দৃঢ়তা দেখিয়েও পুড়েছেন সেঞ্চুরি মিসের আক্ষেপে। 

জাদুকরী তিন অঙ্ক ছুঁলেও খুব বেশি দূর আগাতে পারেননি মুশফিকুর রহিম। ২৮২ বলে ৪ বাউন্ডারিতে ১০৫ রানের দুর্বার এক ক্রিকেটীয় ইনিংস খেলেনি লাসিথ এম্বুলদেনিয়ার ঘূর্ণি জাদুতে হন পরাস্ত। টেস্টে এটি তার অষ্টম শতক। ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ডাবল সেঞ্চুরির পর এটাই তার প্রথম শতক। টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম বাংলাদেশি ব্যাটার হিসেবে পাঁচ হাজার রানের ক্লাবে জায়গা করে নিয়েছেন মিস্টার ডিপেন্ডেবল।

আর লিটন ১৮৯ বলে ১০ বাউন্ডারিতে ৮৮ রান নিয়ে ফিরে গেছেন সাজঘরে। করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট নিয়ে মাঠে নামা সাকিব আল হাসান বল হাতে আলো ছড়ালে ব্যাট হাতে বড় ইনিংস উপহার দিতে পারলেন না। ৪৪ বলে ৩ বাউন্ডারিতে ২৬ রান সংগ্রহ করে উইকেট থেকে বিদায় নিয়েছেন বিশ্বসেরা এ অলরাউন্ডার।

শেষ দিকে অবশ্য ব্যাটিং ঝলক দেখিয়েছেন তাইজুল ইসলাম। নিজের ইনিংসটা টেনে বড় করতে পারেননি। ৪৫ বলে ৩ বাউন্ডারিতে দলীয় স্কোরে যোগ করেন ২০ রান।

শ্রীলঙ্কার হয়ে কাসুন রাজিথা চার উইকেট শিকার করেছেন। ২৪.১ ওভারে তিনি খরচ করেছেন ৬০ রান। ৩ উইকেট পেয়েছেন আসিথা ফার্নান্দো। ২৬ ওভারে তার খরচ হয়েছে ৭২ রান। একটি করে উইকেট নেন লাসিথ এম্বুলদেনিয়া ও ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। দুজনে দেন যথাক্রমে ১০৪ ও ৪৮ রান। 

তার আগে ৩ উইকেটে ৩১৮ রান নিয়ে চতুর্থ দিনের খেলা শুরু করেছে বাংলাদেশ। তৃতীয় দিন শেষে মুশফিক ৫৩ ও লিটন ৫৪ রানে অপরাজিত ছিলেন। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে এক রানের জন্য ডাবল সেঞ্চুরি মিস করেছেন লঙ্কান তারকা অলরাউন্ডার অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস। তার ব্যাটিং নৈপুণ্যে প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে শ্রীলঙ্কা সবকটি উইকেট হারিয়ে সংগ্রহ করেছে ৩৯৭ রান।

চতুর্থ দিনের শেষ দিকে ব্যাটিংয়ে নেমে সুবিধা করতে পারেনি শ্রীলঙ্কা। ৩৯ রান তুলতেই ২ উইকেট হারিয়ে ফেলেছে সফরকারীরা। ফিরে গেছেন ওপেনার ওশাদা ফার্নান্দো (১৯) ও নাইট ওয়াচম্যান লাসিথ এমবুলদেনিয়া (২)। ১৮ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে আছেন ক্যাপ্টেন দিমুথ করুণারত্নে। এতে জয়ের স্বপ্ন বুনছে টাইগাররা। 

বৃষ্টিতে ভেসে গেল টাইগারদের ম্যাচ



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
কাভারে ঢাকা মাঠ

কাভারে ঢাকা মাঠ

  • Font increase
  • Font Decrease

বৃষ্টিতে ভেসে গেছে বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার প্রথম টি-টোয়েন্টি। টস হেরে শুরুতে ব্যাটিং করল টাইগাররা। কিন্তু ম্যাচে কোনো ফল আসলো না। ফলে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে এখন ০-০ তে সমতা বিরাজ করছে। 

লড়াইটা সাদা বলে হলেও বাজে ব্যাটিংটা পিছু ছাড়েনি বাংলাদেশকে। বৃষ্টির কারণে ম্যাচের পরিধি প্রথমে কমে আসে ১৬ ওভারে। পরে সেটা নেমে আসে ১৩ ওভারে। নির্ধারিত সেই ১৩ ওভার ব্যাটিং করে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা ৮ উইকেটে তুলেছিল মাত্র ১০৫ রান। 

নিয়মিত বিরতিতে উইকেট পড়তে থাকে। ৭৭ রানে অতিথিরা খুইয়ে ফেলে ৭ উইকেট। ব্যাট হাতে সাকিব আল হাসান (২৯) ও নুরুল হাসান সোহান (২৫) যা একটু ঝলক দেখান। ১৬ রান আসে এনামুল হক বিজয়ের ব্যাট থেকে। বাকিরা থেকে যায় সিঙ্গেল ডিজিটে। 

নিশ্চিত হারই অপেক্ষা করছিল টাইগারদের সামনে। শেষে বৃষ্টি এসে হারের লজ্জা থেকে বাঁচিয়ে দিল সফরকারীদের।

রোমারিও শেফার্ড শিকার করেন তিন উইকেট। দুটি উইকেট নেন হেডেন ওয়ালশ। একটি করে উইকেট পান আকিল হোসেইন, ওবেড ম্যাককয় ও ওডিন স্মিথ।

;

টস হেরে ব্যাটিংয়ে টাইগাররা, উদ্বোধনে মুনিম-বিজয়



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট লড়াই

বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট লড়াই

  • Font increase
  • Font Decrease

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টিতে টস ভাগ্য সহায় হয়নি টাইগার ক্যাপ্টেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের। টস জিতে শুরুতে বোলিং বেছে নিয়েছেন ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক নিকোলাস পুরান।

তাই তো ম্যাচের শুরুতে ব্যাট হাতে মাঠে নেমেছে টাইগাররা। প্রথমবারের মতো ইনিংস উদ্বোধন করেছেন মুনিম শাহরিয়ার ও এনামুল হক বিজয়। 

বৃষ্টির কারণে খেলা শুরু হতে দেরি হয়েছে অনেক। এ কারণে ম্যাচের পরিধি কমে এসেছে ১৬ ওভারে। তবে পাওয়ার প্লে থাকছে পাঁচ ওভার। 

টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াশের লজ্জা ভুলতে জয় চায় টাইগাররা। জিততে চায় টি-টোয়েন্টি সিরিজ।

বাংলাদেশ একাদশ: মুনিম শাহরিয়ার, লিটন দাস, এনামুল হক বিজয়, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), আফিফ হোসেন, নুরুল হাসান সোহান (উইকেটরক্ষক), মেহেদী হাসান, শরিফুল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান ও নাসুম আহমেদ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ একাদশ: কাইল মেয়ার্স, ব্র্যান্ডন কিং, শামারহ ব্রুকস, নিকোলাস পুরান (অধিনায়ক), রোভম্যান পাওয়েল, ডেভন টমাস, ওডেন স্মিথ, রোমারিও শেফার্ড, আকিল হোসেইন, ওবেড ম্যাককয় ও হেডেন ওয়ালশ। 

;

ব্রডের লজ্জার বিশ্বরেকর্ড, বুমরাহর গর্বের ইতিহাস



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
জাসপ্রিত বুমরাহ

জাসপ্রিত বুমরাহ

  • Font increase
  • Font Decrease

ক্যারিয়ারের সায়াহ্নে পৌঁছে গেছেন। তবু ভারত ভীতিটা এখনো কাটেনি স্টুয়ার্ট ব্রডের। ২০০৭ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে যুবরাজ সিংয়ের কাছে এ ইংলিশ পেসার খেয়েছিলেন ছয় ছক্কার মার।

সেই বাজে অভিজ্ঞতাটা হয়তো ভুলতে পারবেন না কোনো দিন। এবারই মধ্যে এজবাস্টন টেস্টে লজ্জার এক বিশ্বরেকর্ড গড়ে ফেলেছেন ব্রড। এক ওভারে খরচ করে ফেলেছেন ৩৫ রান (৪+৫+৭+৪+৪+৪+৬+১)। টেস্টে এটি অনাকাঙ্ক্ষিত নতুন এক মাইলফলক। 

ওই ওভারের ২৯ রানই এসেছে ম্যাচে ভারতের আপদকালীন অধিনায়ক যসপ্রীত বুমরাহর ব্যাট থেকে। এতে নতুন ইতিহাস লিখে ফেলেছেন ভারতের এ ব্যাটসম্যানও।

ভারতের ইনিংসের ৮৪তম ওভারে ওভারে ব্রড হজম করেন ৪ টি বাউন্ডারিতে বাউন্ডারি ও ২ টি ছক্কার মার। প্রথম বলেই বাউন্ডারির দেখা পান বুমরাহ। তার বাদেই ওয়াইড বল স্পর্শ করে সীমানাদড়ি। ভারত পায় ৫ রান।

পরের নো বলে বুমরাহ পান ছক্কা। আদায় করলেন তা থেকে। টানা তিন চারের পর ফের ছক্কা হাঁকান। শেষ বলে আসে এক রান।

এক ওভারে সর্বোচ্চ ২৮ রানের আগের রেকর্ডের মালিক ছিলেন যৌথভাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্রায়ান লারা, অস্ট্রেলিয়ার জর্জ বেইলি ও দক্ষিণ আফ্রিকার কেশভ মহারাজ। 

;

বিশ্বকাপে চোখ রেখে সিরিজ জয়ের স্বপ্ন বুনছে টাইগাররা



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
টি-টোয়েন্টি সিরিজ ট্রফি হাতে দুই ক্যাপ্টেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ-নিকোলাস পুরান

টি-টোয়েন্টি সিরিজ ট্রফি হাতে দুই ক্যাপ্টেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ-নিকোলাস পুরান

  • Font increase
  • Font Decrease

বিশ্বকাপের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে আজ বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ১১টায় ডোমেনিকার উইন্ডসর পার্কে প্রথম টি-টোয়েন্টি খেলতে নামবে টাইগাররা। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে মাঠের লড়াই শুরুর আগে বাংলাদেশ দলের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ দেখছেন সিরিজ জয়ের সুযোগ, ‘দল হিসেবে আমাদের জন্য সিরিজ জয়ের সুযোগ। বাংলাদেশের জন্য জেতার সুযোগ।’

টেস্টে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হলেও টি-টোয়েন্টি দলে তার প্রভাব পড়বে না। এমনটাই জানিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ, ‘সাদা বল আর লাল বল আলাদা। এখন ভিন্ন বলের খেলা। লাল বলের সিরিজকে এখন আমরা সামনে আনছি না, টি-টোয়েন্টিতেই মনোযোগ রাখার চেষ্টা করছি। একইসাথে আমরা বিশ্বকাপেরও প্রস্তুতি নিচ্ছি। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে তাদের ঘরের মাঠে মোকাবেলা করতে মুখিয়ে আছি।’

২০০৯ সালে ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে দুটি ম্যাচই জিতেছিল টাইগাররা। সেই সুখস্মৃতি থেকে অনুপ্রেরণা খুঁজছে টাইগাররা। মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘আজকে আমি আর সাকিব বাসে আসার সময় ওই সময়কার কথাগুলো বলছিলাম। আমি যখন ড্রেসিংরুমে ঢুকলাম তখন সাকিবকে বলছিলাম- এখানে এভাবে খেলে এভাবে জিতেছিলাম। এটা (অতীত রেকর্ড) সবসময়ই ভালো অনুভূতি দেয়। তবে একইসাথে এটা অনেক আগের কথা। এখন হয়ত এটা আমাদের জন্য নতুন একটা ভেন্যু।’

প্রস্তুতি আর উইকেট নিয়ে মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘আজ (শুক্রবার) বৃষ্টি পড়ছে, আবহাওয়ার কন্ডিশন সেই সুযোগ দেয়নি। সেন্ট লুসিয়ায় অনুশীলন সেশনে ফুটবল খেলেছি আর ৪০ মিনিটের ফিল্ডিং সেশন করেছি। কাল এসে কন্ডিশন দেখে মানসিকভাবে আমাদের ওভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে। আমি ওদের বলেছি- যারা মানসিকভাবে এগিয়ে থাকবে, বিশেষভাবে আমাদের কথা বলেছি, আমাদের খেলোয়াড়রা মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে পারলে এটাই ভালো করার সবচেয়ে ভালো সুযোগ।’

;