ঠাকুরবাড়ির তেজস্বিনী



সানজিদা সামরিন
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

উনিশ শতকে বাংলার নবজাগরণ শুরুর অন্যতম পীঠস্থান উত্তর কলকাতার জোড়াসাঁকো ঠাকুরবাড়ি। নবজাগৃত বাংলায় সুরুচি,নন্দনতত্ত্ব ও সৌন্দর্য্যবোধের অনেকটাই ঠাকুরবাড়ির অবদান।

দ্বারকানাথের আমল থেকেই এ বাড়িতে নিজস্ব একটি সংস্কার গড়ে ওঠে। এই নব উত্তরণের পর্বে ঠাকুরবাড়ির মেযেরাও অন্দরমহলের আবছা পর্দার আড়ালে নিজেদের লুকিয়ে রাখেন নি। নবযুগের ভিত গড়ার কাজে তারা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে হাত লাগিয়েছেন।

প্রথমদিকে অবশ্য অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে। তবে এদের অনেকেই শিল্প ও সাহিত্যে বিশেষ ভূমিকা রেখে গেছেন। নিজের চলার মসৃণ পথ তারা পাননি, পথ তৈরি করে নিতে হয়েছিল তাদের। তারা তৎকালীন নারীদের জন্য উন্মুক্ত করেছেন সম্ভাবনার পথ। মূলত ঔপনিবেশিক শাসনে বাঙালি নারীর এগিয়ে যাওয়ার আদি প্রেরণা ও শক্তি সঞ্চারিত হয়েছিল ঠাকুরবাড়ির মেয়েদের কাছ থেকেই। চলুন জেনে আসি ঠাকুরবাড়ির তেজস্বিনীদের সম্পর্কে-

অলকাসুন্দরী

ঠাকুরবাড়ির মেয়েদের মধ্যে যার কথা সবার আগে বলা প্রয়োজন, তিনি হলেন রবীন্দ্রনাথের প্রপিতামহী অলকাসুন্দরী। তিনি ছিলেন দ্বারকানাথের মা ও রামলোচনের স্ত্রী। ঠাকুরবাড়ির অন্যান্য মেয়েদের মধ্যে তিনিও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন সে যুগে। দ্বারকানাথের বয়স যখন মাত্র ১৩ তখন রামলোচন দেহত্যাগ করেন। উইলে নাবালক দ্বারকানাথকে রামলোচন নির্দেশ করেছিলেন, সে প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার আগ অব্দি প্রযোজনীয় যাবতীয় দস্তখত মা অলকাসুন্দরীই করবেন। তাছাড়া প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার পরও যাবতীয় আমদানির তহবিল যেন অলকাসুন্দরীর কাছেই রাখা হয়। এ নির্দেশই জানান দেয়, হিসাব নিকাশ রাখা ও সিদ্ধান্ত গ্রহনের ক্ষেত্রে অলকাসুন্দরীর শক্ত অবস্থানের কথা। তিনি শক্ত হাতে সংসার ও স্বামীর কাজের হাল ধরেছিলেন বৈকি! তিনি ধর্মে যেমন বিশ্বাসী ছিলেন, তেমনি তার স্বাধীনভাবে চিন্তা করার ক্ষমতাও ছিল অসীম। মৃত্যুর সময়েও তিনি তার স্বাধীন চিন্তা ব্যক্ত করেছিলেন। গঙ্গায় অন্তর্জলি যাত্রায় সম্মতি দেননি। যদিও ওই যুগে অলকাসুন্দরীর এ ইচ্ছায় স্বাভাবিকভাবেই কেউ কর্ণপাত করেনি। যার পরিপ্রেক্ষিতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন তিনি। বলেছিলেন, যদি দ্বারকানাথ বাড়ি থাকত তবে আমাকে এভাবে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হতো না। তিনি আরও বাঁচতে চেয়েছিলেন।

দিগম্বরী

লোকমুখে শোনা যায়, অপরূপ লাবণ্যময়ী দিগম্বরী এসেছিলেন ঠাকুরবাড়ির লক্ষ্ণীশ্রী হয়ে। দিগম্বরীর জন্ম যশোরের নরেন্দ্রপুরে। মাত্র ছয় বছর বয়সে দ্বারকানাথের স্ত্রী হয়ে তিনি পা রাখেন জোড়াসাঁকোর ঠাকুরবাড়িতে। দিগম্বরীর রূপ এখন প্রবাদে পরিণত হয়েছে। ধারণা করা হয় দিগম্বরীর সময় থেকেই ঠাকুরবাড়ির মেয়েদের রূপের খ্যাতি। শোনা যায় তার মুখের আদলেই নাকি ঠাকুরবাড়ির জগদ্ধাত্রী প্রতিমা গড়া হতো। দুধে-আলতা মেশানো গায়ের রঙ, পিঠে একঢাল কোঁকড়া কালো চুল, চাঁপাকলির মতো আঙুল আর দেব প্রতিমার মতো তার পা দুখানি ছিল। রূপের সঙ্গে দিগম্বরীর ছিল প্রচণ্ড তেজ। শাশুড়ি অলকাসুন্দরীও এই ব্যক্তিত্বময়ী বউটিকে সমীহ করে চলতেন বলে শোনা যায়। ব্যবসায়িক সাফল্যের সঙ্গে সঙ্গে যখন বিলাসিতা আর বাবুয়ানির ছদ্মবেশ পরে নবযুগের ভাবনার বাসা বাঁধলো দ্বারকানাথের মনে তখন তিনি নিজ হাতে পূজা করা ছাড়লেন।মাইনে দিয়ে রাখলেন ১৮জন শুদ্ধাচরী ব্রাহ্মণ।তাছাড়া ব্যবসায়িক প্রয়োজনে ইংরেজের মতো মাংস ও শেরি খাওয়া অভ্যাস করলেন। এসময়ে ভিন্নখাতে বইতে শুরু করলো দ্বারকানাথ ও ধর্মকর্মে মগ্ন দিগম্বরীর জীবন। এক পর্যায়ে দিগম্বরী জানতে পারেন দ্বারকানাথের ভোজসভায় নাকি মদের স্রোত বয়ে যাচ্ছে। প্রথমে বিশ্বস না করলেও পরে পতিব্রতা দিগম্বরী স্বয়ং হাজির হন ম্লেচ্ছ ভোজসভায়। দেখলেন সাহেব-বিবিদের সঙ্গে একাসনে পানাহারে মত্ত তার স্বামী। বুকটা ভেঙে গুঁড়িয়ে গিয়েছিল তার। কিন্তু তবুও চেষ্টা করেছিলেন সে পথ থেকে দ্বারকানাথকে ফিরিয়ে আনতে। সেকালে এমন পরিস্থিতিতে ধনী গৃহিনীরা অন্দরমহলেই কেঁদে-কেটে সময় পার করতেন। তবুও চাইতেন সংসার টিকিয়ে রাখতে। কিন্তু দিগম্বরী নিজ ধর্মকর্মে আরও মন দিলেন। ব্রাহ্মণ পণ্ডিতদের মতামত চাইলেন, এমন পরিস্থিতিতে কী করা উচিৎ তার? স্বামীকে ত্যাগ করে কূল ধর্ম ত্যাগ করবেন কিনা? অতঃপর নির্ধারিত হলো কেবল সেবা ছাড়া স্বামীর কাছে তিনি যাবেন না। আলাদা বাবুর্চিও রাখা হলো। খুব প্রয়োজন ছাড়া কথা বলাও বন্ধ করে দিলেন। যে যুগে স্বামীর আদেশ অমান্য করা ও আলাদা থাকার ব্যাপারটি স্ত্রীরা ভাবতেও পারতো না। সেসময়ে দিগম্বরী স্বামীকে ত্যাগ করার বিষয়েও সিদ্ধান্ত চেয়েছিলেন ব্রহ্মাণের কাছে। যুগের পরিপ্রেক্ষিতে দিগম্বরী যে সাহস দেখিয়েছেন সেই তেজ, সেই শক্তি তার পুত্রবধুদের মধ্যে দেখা যায়নি।

তথ্যসূত্র: চিত্রা দেবের 'ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল' অবলম্বনে।

নজরুলের ফজিলাতুন্নেসা



কনক জ্যোতি, কন্ট্রিবিউটিং করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
নজরুল ও ফজিলতুন্নেসা। সংগৃহীত

নজরুল ও ফজিলতুন্নেসা। সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ফজিলাতুন্নেসাকে ‘সঞ্চিতা’ উৎসর্গ করতে চেয়ে নজরুল লিখেছিলেন – ‘'আপনি বাংলার মুসলিম নারীদের রাণী, আপনার অসামান্য প্রতিভার উদ্দেশ্যে সামান্য কবির অপার শ্রদ্ধার নিদর্শন স্বরূপ ‘সঞ্চিতা’ আপনার নামে উৎসর্গ করিয়া ধন্য হইতে চাই। আশা করি এজন্য আপনার আর সম্মতি পত্র লইতে হইবে না। আমি ক্ষুদ্র কবি, আমার জীবনের সঞ্চিত শ্রেষ্ঠ ফুলগুলি দিয়া পুষ্পাঞ্জলী অর্পণ করা ব্যতীত আপনার প্রতিভার অন্য কী সম্মান করিব?’'

সেই নারী, ফজিলাতুন্নেসা নজরুলের এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছিলেন। আহত নজরুল পরবর্তীকালে রবীন্দ্রনাথকে উৎসর্গ করেন ‘সঞ্চিতা’।

অবশ্য সেই সংকলনে রয়েছে একটি গান, যেটি ফজিলাতুন্নেসার বিলেত যাওয়ার আগে, বিদায়-সংবর্ধনার উপলক্ষে লেখা।

ফজিলাতুন্নেসা ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অঙ্কের ছাত্রী। তিনিই মুসলিম বাঙালি নারীদের মধ্যে প্রথম এমএ ডিগ্রিধারী। ফলে, পড়াশোনায় তাঁর অর্জন নিয়ে সন্দেহ থাকতে পারে না। মাস্টার্সের শেষে উচ্চশিক্ষার জন্য ইংল্যান্ডে যাত্রা করেন তিনি। সেখানেই তাঁর সঙ্গে প্রেম হয় খুলনার এক যুবকের সঙ্গে। দেশে ফিরে, বিয়ে করেন তাঁরা।

ফজিলাতুন্নেসার প্রতি নজরুলের এই যে অনুরাগ, বলা ভালো, প্রেম – তা কি একপাক্ষিক ছিল? নজরুল-গবেষকরা একবাক্যে জানিয়েছেন হ্যাঁ। ফজিলাতুন্নেসার পক্ষ থেকে কোনো প্রশ্রয় বা আকর্ষণই ছিল না নজরুলের প্রতি। কারণ ফজিলাতুন্নেসা তখন মেধাবী এক ছাত্রী, উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ তাঁর সামনে। আর নজরুল বিবাহিত, স্ত্রী-পুত্র নিয়ে রয়েছে ভরাট সংসার। নজরুলের প্রেমকে প্রশ্রয় নিয়ে নিজের ভবিষ্যতকে অনিশ্চিত করতে চাননি ফজিলাতুন্নেসা।

ফজিলাতুন্নেসার প্রতি নজরুলের মনোভাবের কথা একমাত্র জানতেন কাজী মোতাহার হোসেন, যিনি ছিলেন নজরুলের বন্ধু এবং ফজিলতুন্নেসার অধ্যাপক। এই মোতাহারের সৌজন্যেই ঢাকায় প্রথম আলাপ নজরুল-ফজিলাতুন্নেসার। এরপর, একের পর এক চিঠিতে মোতাহারের কাছে নিজের অনুভব জানিয়েছেন নজরুল। প্রত্যাখ্যাত প্রেমিকের ব্যথা জড়িয়ে আছে সেই চিঠিগুলোর ছত্রে ছত্রে।

পরবর্তীকালে কাজী মোতাহার হোসেন লিখেছেন – '‘ফজিলাতের প্রতি নজরুলের অনুভূতির তীব্রতা দু’তিন বছরের সময়সীমায় নিঃশেষিত হয়ে যায়।’'

কিন্তু সেই সময় ফজিলাতুন্নেসাকে লেখা নজরুলের চিঠি পড়লে, বোঝা যায়, তীব্রতা ছিল কতখানি গভীর। কবি লিখছেন –"আপনার অন্ততঃ কুশল সংবাদটুকু মাঝে মাঝে জানিতে বড্ডো ইচ্ছা করি। যদি দয়া করিয়া দুটি কথায় – শুধু কেমন আছেন লিখিয়া জানান – তাহা হইলে আমি আপনার নিকট চির ঋণী থাকিব। আমার ইহা বিনা অধিকারের দাবী।’'

প্রেম, সফল বা ব্যর্থ হলেও প্রেমই। আর কবির প্রেম দুর্দমনীয়,  লেলিহান। নজরুল তার জ্বলন্ত প্রমাণ।

;

কর্মক্ষেত্রে থেমে নেই নারীর বিড়ম্বনা



মীর ফরহাদ হোসেন সুমন, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, লক্ষ্মীপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নারীরা চার দেয়ালের ঘেরাটোপ ভেঙে পুরুষের সঙ্গে সমানতালে অফিস-আদালতে কাজ করছেন। ব্যক্তি উদ্যোগে অনেকে ব্যবসা বাণিজ্যসহ নানান আয়বর্ধক কাজে অদম্য উৎসাহে এগিয়ে চলার চেষ্টা করছেন। নারীরা এখন পরিবার, সমাজ, রাষ্ট্রর গুরুত্বপূর্ণ চালিকাশক্তি হিসেবে আত্মনিয়োজিত। তথাপি পুরুষতান্ত্রিক সমাজে এখনো বদলায়নি নারীদের প্রতি পুরুষের মানসিকতা। এ কারণেই কর্মক্ষেত্রে নারীরা এখনো নিপীড়নের শিকার হন, মুখোমুখি হন ব্যক্তিগত নানা বিড়ম্বনার। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর দীর্ঘ এই সময়েও সামাজিক ও পারিবারিক প্রতিবন্ধকতা-বিড়ম্বনা কর্মজীবী নারীদের পিছু ছাড়ছে না।

নারীরা প্রতিবন্ধকতা ও বিড়ম্বনার শিকার হওয়ার এই চিত্র প্রায় সর্বক্ষেত্রে। মফস্বল এলাকায় এই চিত্র যেন আরও বেশি। কয়েকজন কর্মজীবী নারীর সঙ্গে কথা বলে উঠে আসে এমন না জানা অনেক তথ্য।

বেসরকারি একটি টিভি চ্যানেলের লক্ষ্মীপুর জেলা প্রতিনিধি জান্নাতুল ফেরদৌস নয়ন বলেন, বিদ্যমান সামাজিক কুসংস্কার-অপসংস্কৃতি দূর করার আন্দোলনে অংশীদার হতে কলম যোদ্ধা হিসেবে পথচলা শুরু করি। ইতিমধ্যে এ পথচলার দীর্ঘ সময় পেরিয়ে এসেছি। অথচ সামাজিক বিড়ম্বনা থেকে এখনও নিজেকে মুক্ত করতে পারিনি। এই পথচলায় ব্যক্তিগত জীবনে আমার অসংখ্য তিক্ত অভিজ্ঞতা রয়েছে। পেশাগত জীবনের পথচলার শুরু থেকে আজকের জায়গায় আসতে অনেক কষ্ট, নিভৃত কান্নার নোনা জল রয়েছে। বৈরিতার সাথে লড়তে লড়তে আজকের এই পর্যায়ে এসেছি। তবে অনেক শুভাকাঙ্ক্ষীর সহযোগিতাও পেয়েছি। যা কোনদিনই অস্বীকার করার নয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক নারী জানান, কুদৃষ্টি, গায়ে ধাক্কা, অশ্লীল ইশারা, কুপ্রস্তাব, অশ্লীল কথাবার্তা—এ ধরনের অনেক বিব্রতকর পরিস্থিতির শিকার হতে হয় নারীকে। এমনকি কোন কোন ক্ষেত্রে অফিসের বড় কর্মকর্তারা নানা অজুহাতে তাদের কক্ষে ডেকে পাঠান। আকার-ইঙ্গিতে নানা কিছু বোঝানোর চেষ্টা করেন। বুঝলে বিপদ, না বুঝলেও বিপদ।

পুরুষ সহকর্মীদের দ্বারা নানা ধরনের গসিপ, কানাকানি, কথা লাগানো তো নিত্য ঘটনা। বস ও সহকর্মী দ্বারা হয়রানির শিকার হতে হয় অনেক কর্মজীবী নারীকে। ঘটে যৌন নিপীড়নের মতো ঘটনা।

এ বিষয়ে স্থানীয় একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার প্রধান নির্বাহী পারভিন হালিম বলেন, নারী-পুরুষের বৈষম্যের বিষয়টি এখন বড় সমস্যা হয়ে দেখা দিয়েছে। বৈষম্য বৃদ্ধির ফলে নারীরা কাজ কম পাচ্ছেন। যেসব নারী কাজ পাচ্ছেন, তারাও খুব মানসম্পন্ন কাজ পাচ্ছেন না। একই মানের কাজ করেও কর্মক্ষেত্রে নারীরা পুরুষদের তুলনায় কম পারিশ্রমিক পাচ্ছেন।

তিনি বলেন, মেধা, যোগ্যতা আর দক্ষতার বিচারে পুরুষদের সমকক্ষ নন নারীরা—এমনটাই মনে করা হয় পুরুষতান্ত্রিক সমাজে। একজন নারীকে তারা ততক্ষণ সহ্য করেন, যতক্ষণ পর্যন্ত তিনি তার ওপরে না ওঠেন। যখনই ওপরে উঠতে যান, তখনই শুরু হয় দ্বন্দ্ব ও নানা সমস্যা।

লক্ষ্মীপুরের একটি কলেজের প্রভাষক সুলতানা মাসুমা রিতু বলেন, শিক্ষকতার পাশাপাশি সৃষ্টিশীল কাজের প্রতি আগ্রহ আমার। আমি কবিতা লিখি ও আবৃত্তি করি। চাকরির পাশাপাশি মননশীল এ কাজে বাড়তি সময় ব্যয় করতে পারি না সহজে। পরিবারের নানান বাধা আর কৈফিয়ত আমাকে কুঁড়ে কুঁড়ে খাচ্ছে।

এডভোকেট আফরোজা ববি নামের একজন বলেন, এ সমাজের পুরুষরা আমাদের চাওয়া-পাওয়ার কোন মূল্যায়নই করতে রাজি নয়। পুরুষরা আমাদের নারীদের প্রতিনিয়ত বিভিন্নভাবে হয়রানি করে চলছে। টেলিফোন, এসএমএস, ই-মেইলের মাধ্যমেও হয়রানি করেন অনেক পুরুষ সহকর্মী।

লক্ষ্মীপুর সরকারি মহাবিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ও সংস্কৃতিবিদ অধ্যাপক মাইন উদ্দিন পাঠান বলেন, সবার আগে পুরুষদের দৃষ্টিভঙ্গি বা মানসিকতার পরিবর্তন করতে হবে, তা না হলে এটি চলতে থাকবে। নারীদেরও সচেতন হতে হবে। কোনো সমস্যা হলে সেটি নিয়ে চুপ করে বসে থাকলে চলবে না। এ ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে হবে। নারী যেখানে কাজ করছেন, সেই প্রতিষ্ঠান না চাইলে এসব সমস্যার সমাধান হবে না। প্রতিষ্ঠানকে বিভিন্ন পলিসির মাধ্যমে নারীদের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার বিষয় যেমন—প্রশিক্ষণ, বেতন-ভাতা ও পদোন্নতি নিশ্চিত করতে হবে। কর্মক্ষেত্রে নারী নির্যাতন বা নিপীড়ন বন্ধে আইন আছে, এর প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। নিপীড়নের বিষয়ে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে পলিসি থাকতে হবে, নারীরা যাতে অভিযোগ করতে পারেন ও তাকে যেন এ আশঙ্কা না করতে হয়, অভিযোগ করলে চাকরি চলে যাবে। মিডিয়ারও একটি জোরালো ভূমিকা আছে। মিডিয়া নারীদের বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরতে পারে।

;

একজন নারীর এগিয়ে যাওয়া



আসমাউল হুসনা
আসমাউল হুসনা, সহযোগী অধ্যাপক, পবিপ্রবি। ছবি: সংগৃহীত

আসমাউল হুসনা, সহযোগী অধ্যাপক, পবিপ্রবি। ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আমাদের দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। মানুষের জীবন যাত্রার মান, শিক্ষার হার, অর্থনৈতিক সূচক বা অবকাঠামোগত উন্নয়নের সাথে সাথে মানুষেন মন মানসিকতারও উন্নয়ন হয়েছে। মেয়েদেকে এগিয়ে যেতে এখন আর অতো বেশি বাধাগ্রস্ত হতে হয় না বা অন্য কারো কথা শুনতে হয় না।

অথচ আশির দশকেও আমরা অনেক কুসংস্কারে বিশ্বাস করতাম, অনেক ধরনের আজেবাজে কথা মেয়েদেরকে শুনতে হতো। যেমন- মেয়েরা এটা করতে পারবে না, ওটা করতে পারবে না, এখানে যেতে পারবে না, ওখানে যেতে পারবে না ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্ত এখন অন্তত মেয়েদের এসব কথা শুনতে হয় না।

মেয়েদের প্রতি তার নিজের পরিবারের সদস্যদের ভাবনা এখন অনেক বদলেছে কারন একজন মেয়ের এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে প্রথমেই প্রয়োজন তার নিজ পরিবারের সাপোর্ট। তাছাড়া চলার পথে বা কর্মক্ষেত্রে পুরুষের দৃষ্টিভংঙ্গিও এখন কিছুটা বদলেছে।

তবে একজন নারীর এগিয়ে যাওয়ার বিষয়টা একটি পুরুষের মতো অতোটা সাবলিল নয়। মাতৃত্ব, সন্তান, সংসার এবং পরিবার-এই বিষয়গুলোর সাথে একজন নারী অতোপ্রতোভাবে জড়িত। এসবের জন্য একজন নারীকে অনেক কিছু সেক্রিফাইস করতে হয়।

তাই একজন নারী চাইলেই এসব ভুলে বা ছেড়ে থাকতে পারে না। থাকলেও তার অন্তর আত্মা ঢুকরে ঢুকরে কেঁদে ওঠে, যা কখনোই কেউ শুনতে পায় না। প্রকৃতি একজন নারীকে এভাবেই তৈরি করেছে। একজন নারীর একটি বিশেষ দিক হল সে চাইলে সকল দিক একা হাতে গুছিয়ে সবকিছু সামলিয়ে যে কোন অসাধ্যও সাধন করতে পারে।

অনেক সময় নিরুপায় হয়ে নারীরা অনেক শক্ত চ্যালেঞ্জও গ্রহণ করে। একজন নারীর সফলকাম হওয়ার অন্যতম প্রধান কারণ হলো সে যে কাজটিই করে সেটি অনেক ডেডিকেশন দিয়েই করতে পারে, যদি সে মন থেকে চায়।

আজকে আমাদের দেশে যেসব নারীরা স্ব স্ব ক্ষেত্রে এগিয়েছে বা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে তাদেরকে অনেক কঠিন কঠিন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে সামনে এগুতে হয়েছে। তাদের কারোরই চলার পথ অতো সহজ ছিল না। তবে যেসব নারীরা তথাকথিত সব বাধাবিপত্তি মোকাবিলা করে সামনে এগিয়ে যায় দিনশেষে তারাই সাফল্য পায়। ইতিহাস তো তাই বলে।

আমাদের দেশে নারী জাগরণের ইতিহাস ঘাটলে দেখা যায় নারীদের এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে তৎকালীন সমাজ তাঁকে কখনোই বরণ ডালায় নন্দিত করেনি। বরঞ্চ সমাজের তীব্র লাঞ্ছনা-গঞ্জনা ও তিক্ততার মাঝে তাঁর সংগ্রামী যাত্রাপথ নিদারুণভাবে বাধাগ্রস্থ হয়েছে।

নারী পথিকৃত বেগম রোকেয়া এবং তার উত্তরসূরী ফয়জুননেছা, জোবেদা খাতুন, সুফিয়া কামাল ওনাদের জীবন কাহিনী জানলে নারী জাগরণের সঠিক চিত্র পাওয়া যায়। তারাঁ নারী শিক্ষা, নারী অধিকারের জন্য আমৃত্যু সংগ্রাম করে গেছেন। নারীদের এগিয়ে যাওয়ার ভিত রচনা করেছেন। তাইতো ইতিহাসে তাদেঁর নাম স্বর্নাক্ষরে আজীবন লেখা থাকবে।

নারীদের এগিয়ে যেতে হবে প্রথমত তার নিজের জন্য। নিজেকে একজন সফল মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য। তার মাতৃত্ব, সন্তান, সংসারকে নিজের তাগিদে বাচিঁয়ে রাখার জন্য। এসবের একান্ত দাবীদার মুলত একজন নারী কারন এগুলোর মুল কারিগরই হচ্ছে নারী। এটা নারীর আবেগের জায়গা। নিজস্ব সম্পত্তি। এগুলো একজন নারীকে পরিপূর্ণ করে।

পুরুষরা এসবের অংশীদার হলেও এগুলো লালন কওে একজন নারী। তাই নারীদেরকে এমন অবস্থানে যেতে হবে যেন পুরুষরা চাইলেই তাকে অবজ্ঞা করতে না পারে। কোন ধরনের হুমকি, ভয় দেখাতে না পারে। আমাদের দেশে অনেক নারীরা এখনো মুখ বুজে অনেক কিছু মেনে নেয়।

অত্যাচার সহ্য করে। তাদের অন্তর আত্মার আর্জি মুখ ফুটে বলতেও পারে না। এখান থেকে নারীদেরকে বেরিয়ে আসতেই হবে। তবে নারী স্বাধীনতার নামে বা নারী অধিকারের নামে এমন কিছু করা যাবে না যেগুলো নারীদের আত্নসম্মানকে পদদলিত করে।

আমাদের দেশে নারীরা মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষায় খুবই ভালো করছে। রাজনীতিতে নারীরা বেশ এগিয়েছে। তবে কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে নারীর সংখ্যা বাড়লেও নারী নেতৃত্ব এখনো অপ্রতুল। কর্মক্ষেত্রে সফল নারীর সংখ্যা আশাব্যাঞ্জক নয়। তবে নারী উদ্যোক্তা ব্যপক হারে বেড়েছে।

বিশেষ করে ডিজিটাল বাংলাদেশের সুফলতা নিয়ে অনেক নারী অনলাইন বিজনেস প্লাটফর্মে খুবই ভালো করছে। নারীরা এখন বুঝে গেছে নিজের পায়ের মাটি শক্ত করা কতটা জরুরী। গ্রামেগঞ্জে নারীরা সাবলম্বী হওয়া শুরু করেছে। নারীরা এখন চারদেয়ালে বন্দি কোন শোপিস নয় বা কবি লেখকের রসালো কবিতা বা উপন্যাসের মুল উপজীব্য নয়।

নারীদেরকে প্রকাশ্যে কেউ হেয়প্রতিপন্ন করতে এখন অন্তত চিন্তা করতে হয়। তবে সুযোগ পেলে নারীদের উপর তথাকথিত পুরুষরা বল প্রয়োগ করতে চায় তাই নারীদের উচিত কখনোই পুরুষকে সেই সুযোগ না দেয়া। নিজেকে অসহায় না ভাবা। সবর্দা আত্মবিশ্বাস নিয়ে চলা।

লেখক: পিএইচডি ফেলো, স্কুল অব বায়োলজিকাল সায়েন্স, ইউনিভার্সিটি সায়েন্স মালেয়শিয়া ও সহযোগী অধ্যাপক, বায়োটেকনোলজি বিভাগ, পবিপ্রবি, বাংলাদেশ।

;

নারীর প্রতি ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে তুলতে হবে: মনোয়ারা হাবীব



আনিসুর বুলবুল, কন্ট্রিবিউটিং এডিটর, বার্তা২৪.কম
মনোয়ারা হাবীব, সিজিডিএফ।

মনোয়ারা হাবীব, সিজিডিএফ।

  • Font increase
  • Font Decrease

মনোয়ারা হাবীব। বাংলাদেশের প্রথম নারী কন্ট্রোলার জেনারেল ডিফেন্স ফাইন্যান্স (সিজিডিএফ)। ডিফেন্স ফাইন্যান্স ডিপার্টমেন্টের (ডিএফডি) বিভাগীয় প্রধান কর্মকর্তা হিসেবে তিনি গত বছরের ১০ ফেব্রুয়ারি দায়িত্বগ্রহণ করেন। এর আগেও তিনি প্রথম নারী হিসেবে অডিট এন্ড অ্যাকাউন্টস ডিপার্টমেন্টের বিভাগীয় প্রধান কর্মকর্তা (ডেপুটি সিএজি সিনিয়র) পদে কর্মরত ছিলেন।

আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে সম্প্রতি রাজধানীর সেগুন বাগিচায় সিজিডিএফ কার্যালয়ে তাঁর সাথে কথা হয় এই প্রতিবেদকের। বাংলাদেশের নারী উন্নয়ন ও অংশগ্রহণের নানা বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ কথা বলেন তিনি।

মনোয়ারা হাবীব বলেন, বাংলাদেশে কর্মক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ আগের তুলনায় অনেক বেড়েছে। এরপরও নারীর আরও উন্নয়ন ও অংশগ্রহণের জন্য সবার আগে প্রয়োজন নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সকলের মানসিকতার পরিবর্তন। একটি শিশু জন্মগ্রহণের পর তাকে ছেলে কিংবা মেয়ে হিসেবে না দেখে সন্তান হিসেবে দেখতে হবে। মানসিকতার পরিবর্তন শুরু করতে হবে পরিবার থেকেই।

তিনি বলেন, আজ নারীরা ঘরে এবং বাইরে নানাবিধ পেশায় সাফল্যের সাথে কাজ করছে তারপরেও সমাজের একটি বদ্ধমূল ধারণা রয়েছে যে নারীরা অনেক কাজ করতে পারেন না। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে নারীরা যা পারে তার কোনো গুরুত্ব বা মূল্যায়ন করা হয় না।

সিজিডিএফ মনোয়ারা হাবীব বলেন, নারীর প্রতি পরিপূর্ণভাবে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে তুলতে হবে। নারী বাসায় সন্তান লালন-পালনসহ গুরুত্বপূর্ণ কাজ করেন, কিন্তু তার কোনো মূল্যায়ন নেই। গ্রামে নারী গৃহস্থালি, কৃষি ও পশু পালনের মতো উৎপাদন–কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত থাকলেও তার স্বীকৃতি নেই। নারীদের এসব কাজের স্বীকৃতি থাকা প্রয়োজন।

১৯৬৪ সালের ২৩ মার্চ জামালপুর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন মনোয়ারা হাবীব। তিনি বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের (অডিট অ্যান্ড অ্যাকাউন্টস ক্যাডার) ৮ম ব্যাচের সদস্য। তিনি ১৯৮৯ সালের ২০ ডিসেম্বর সিভিল সার্ভিসে যোগদান করেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী, বিরোধীদলীয় নেত্রী, স্পিকার নারী। সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে অনেক নারী কর্মকর্তা রয়েছেন। বাংলাদেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করা পোশাকশিল্পের শ্রমিকদের ৮০ শতাংশেরও বেশি নারী। বাংলাদেশ নারীর উন্নয়ন ও অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে অনেক দূর এগিয়েছে, কিন্তু পথটা অনেক লম্বা। আমাদের আরও অনেক দূর যেতে হবে।

নারী হয়ে এই অবস্থানে আসতে পরিবার বা কর্মস্থলে কখনো বাঁধার সম্মুখীন হতে হয়েছে? এমন প্রশ্নের জবাবে মনোয়ারা হাবীব বলেন, আমার কাছে মনে হয় না, আমি কোনো বাঁধার মুখে পড়েছি। পরিবার থেকে আমাকে সেই পরিবেশ ও সুযোগ তৈরি করে দেয়া হয়েছে। কর্মস্থলেও সকলের পারস্পরিক সহযোগিতা পেয়েছি। তারপরেও একজন মা হিসেবে সন্তানের প্রতি দায়িত্ব পালন এবং দাপ্তরিক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন দুটো একসাথে চালিয়ে যেতে একজন পুরুষের চেয়ে বেশি মানসিক পরিশ্রম করতে হয়।

তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে বিএ (অনার্স) এবং এমএ (মাস্টার্স) ডিগ্রি অর্জন করেন। শৈশব থেকেই তিনি লেখাপড়ায় অনেক ভালো ছিলেন। তিনি যথাক্রমে ১৯৭৯ এসএসসি ও ১৯৮১ সালে এইচএসসি পাস করেন।

দেশের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আমাকে দিয়ে কিছু হবে না এমনটা কখনো ভাবা যাবে না। মানুষ চাইলে সবই পারে, একজন নারীও তাই। এজন্য ইচ্ছা, শক্তি ও মনোবল থাকতে হবে। তাকে চেষ্টা করতে হবে। তবেই সফলতা আসবে। সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে কিন্তু অনেক নারী কর্মকর্তা রয়েছে। তাঁদের ইচ্ছা ছিল বলেই আজ গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোয় পুরুষের মতো তাঁরাও সাফল্যের সাথে এগিয়ে যাচ্ছে।

নারীদের এগিয়ে যেতে সমাজ ও পরিবারের ভূমিকা প্রসঙ্গে মনোয়ারা হাবীব বলেন, সমাজের কিছু কিছু মানুষ এখনো নারীকে ছোট করে দেখে। কর্মজীবী নারী যখন অফিসের কাজ শেষ করে বাসায় ফিরে তখন তার বিশ্রামের প্রয়োজন হয়। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে পরিবার মনে করে বাসার গৃহস্থালী কাজ শুধুই নারীদের, পুরুষের জন্য নয়। এই দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন জরুরি। পরিবার বা সমাজ থেকে নারীকে তার কাজের সুযোগ করে দিতে হবে এবং তাঁর প্রতি একটা শ্রদ্ধাবোধ থাকতে হবে। তার কাজে প্রয়োজনে সহায়তা করতে হবে। এই বিষয়টি সমাজ বুঝে উঠতে পারলে নারী-পুরুষ সমানভাবে এগিয়ে যাবে।

এর আগে মনোয়ারা হাবীব ফিন্যান্সিয়াল ম্যানেজমেন্ট একাডেমির (ফিমা) মহাপরিচালক, সিনিয়র ফাইন্যান্স কন্ট্রোলারসহ (আর্মি) অডিট অ্যান্ড একাউন্টস ডিপার্টমেন্টের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি প্রশিক্ষণ, সেমিনার ও বিভিন্ন সরকারি দায়িত্ব পালন উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জার্মানি, চীন, ভারত, মালয়েশিয়া, হংকং, সিঙ্গাপুর, ইন্দোনেশিয়া, থাইল্যান্ড, ফ্রান্স, গ্রিস, জর্ডান, বাহরাইন, দক্ষিণ কোরিয়া, ইতালি, মিশরসহ বিভিন্ন দেশ ভ্রমণ করেছেন।

;