Barta24

মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

‘গান চুরি’র অভিযোগ শিহাব শাহীনের বিরুদ্ধে

‘গান চুরি’র অভিযোগ শিহাব শাহীনের বিরুদ্ধে
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট


  • Font increase
  • Font Decrease

‘এই শহরে কেউ নেই’ নামে একটি টেলিফিল্ম নির্মাণ করেছিলেন শিহাব শাহীন।

প্রচার হয়েছিলো গত ইদে, চ্যানেল নাইনে।

এতে যে গান তিনি ব্যবহার করেছেন, সেটি স্যমন্তকের গাওয়া এবং ওই গান ব্যবহারের জন্য তার কাছ থেকে কোনো ধরণের অনুমতি নেয়া হয়নি- বলে সম্প্রতি অভিযোগ করেছেন স্যমন্তক সিনহা।
/uploads/files/r4YGeXzEI3GploFrgAG9iJk2weYZIpaZfFbvP4MX.jpeg

স্যমন্তক কলকাতার সংগীতশিল্পী।

এ প্রজন্মের এই মেধাবী শিল্পী প্লেব্যাক করেছেন বেশকিছু চলচ্চিত্রে।

‘স্যমন্তক অ্যান্ড মেটস’ নামে একটি ব্যান্ডও আছে তার। করছেন সংগীত পরিচালনাও।

আরও পড়ুনঃ খয়েরি বিকেল যারা করলেন

শ্যামল মিত্রের ‘কী নামে ডেকে বলবো তোমাকে’ গানটিতে নতুন সংগীতায়োজনে কণ্ঠ দেন স্যমন্তক।

তার গাওয়া এ গান ইউটিউবে প্রকাশ হয় ২০১৭ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি।

স্যমন্তকের অভিযোগ,

তার গাওয়া এ গানটিই শিহাব শাহীন ব্যবহার করেছেন ‘এই শহরে কেউ নেই’ টেলিফিল্মে।

গান ব্যবহারের জন্য কোনো ধরণের সম্মানী প্রদান তো দূরে থাক, তার কাছ থেকে বিন্দুমাত্র অনুমতিও নেননি শিহাব শাহীন।

এ বিষয়ে স্যমন্তক ৮ জুলাই ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। আক্ষেপ করে তিনি লিখেছেন,

‘গানটি আমার গাওয়া, এবং সংগীতায়োজনও আমার। প্রযোজনা করেছে ‘কলকাতা ভিডিওস’। এই টেলিফিল্মে [এই শহরে কেউ নেই] সেটা থিম মিউজিক হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। আমাদেরকে জানানোও হয়নি। এটার জন্য তারা কৃতজ্ঞতা স্বীকার কিংবা আমাদের নামটিও ব্যবহার করার প্রয়োজন বোধ করেননি। আমরা খুবই মর্মাহত হয়েছি। কিন্তু অবাক হইনি, কারণ, আমাদের মতো যারা স্বাধীন শিল্পী তারা এভাবেই অপমানজনক ব্যবহারের স্বীকার হন প্রায়ই।’

এ ঘটনায় কলকাতার আরও অনেক সংগীতসংশ্লিষ্টরা, বিশেষ করে সাহানা বাজপেয়ী, ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

তবে তাতে কোনো লাভ হয়নি।

আরও পড়ুনঃ পাঁচ কন্যার গল্প

নির্মাতা শিহাব শাহীন, যার বিরুদ্ধে ‘গান চুরি’র অভিযোগ, তিনি যোগাযোগও করেননি স্যমন্তকের সঙ্গে। দুঃখপ্রকাশ তো দূরে থাক।

তবে ‘গান চুরি’র অভিযোগ নিয়ে যখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচনা তুঙ্গে, তখন টেলিফিল্মটির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান চুপিচুপি বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেছেন। ইউটিউবে আপলোডকৃত টেলিফিল্মটির ডেসক্রিপশন বক্সে জুড়ে দিয়েছেন স্যমন্তকের নামটি! এবং স্যমন্তক অভিযোগ করছেন- সেটাও হয়েছে তাকে না জানিয়ে!

এ বিষয়ে ফেসবুকে স্যমন্তকের স্ট্যাটাস:

স্ট্যাটাস দিয়েছেন সাহানা বাজপেয়ীও:

আরও পড়তে পারেনঃ

নায়ক রাজের নামে ইনস্টিটিউট চান ববিতা
আপনার মতামত লিখুন :

বলিউডে শাহরুখের ২৭ বছর পূর্ণ

বলিউডে শাহরুখের ২৭ বছর পূর্ণ
শাহরুখ খান

১৯৬৫ সালের ২ নভেম্বর নয়াদিল্লিতে জন্মগ্রহণ করেন শাহরুখ। তার শৈশব কেটেছে কর্নাটকের ম্যাঙ্গালোরে। পাঁচ বছর পর্যন্ত সেখানেই ছিলেন পরিবারের সঙ্গে। এরপর দিল্লির রাজেন্দ্রনগরে বেড়ে ওঠেন তিনি। আর সেখান থেকেই শুরু হয় তার সংগ্রামী জীবনের।

দীলিপ কুমার, অমিতাভ বচ্চন, মুমতাজ ও ছোটবেলার বান্ধবী অভিনেত্রী অমৃতা সিংকে দেখেই অভিনেতা হওয়ার স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছিলেন শাহরুখ খান। সেই স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে ১৯৮৮ সালে হংসরাজ কলেজ থেকে ইকনোমিকে ব্যাচেলর ডিগ্রি লাভ করার পরই তিনি যোগ দেন দিল্লি থিয়েটার অ্যাকশন গ্রুপে। যেখানে অভিনয় নিয়ে পড়াশোনা করেন তিনি।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/25/1561472931685.jpgশাহরুখ খানের অভিনয়ের শুরুটা হয় ১৯৮৮ সালে লেখ ট্যান্ডনের পরিচালিত ‘দিল দরিয়া’ টেলিভিশন সিরিয়ালের মধ্য দিয়ে। কিন্তু কোনো কারণে সেটি আটকে যায়। পরে ১৯৮৯ সালে ‘ফওজি’ সিরিয়ালের মধ্য দিয়ে টেলিভিশন জগতে পা রাখেন তিনি। এরপর এক এক করে অভিনয় করেন ‘সার্কাস’, ‘ইডিয়ট’সহ বেশ কয়েকটি টেলিভিশন সিরিজে।

তবে শুধু ছোটপর্দায় নিজেকে সীমবদ্ধ রাখতে চাননি শাহরুখ খান। তাই রূপালি পর্দায় অভিনয়ের স্বপ্ন দেখা শুরু করেন আজকের এই সুপারস্টার। রূপালি পর্দায় শাহরুখের শুরুটা হয়েছিলো ‘দিওয়ানা’ ছবির মধ্য দিয়ে। এটি মুক্তি পেয়েছিলো ১৯৯২ সালের ২৬ জুন। এতে তার সহশিল্পী ছিলেন দিব্যা ভারতী এবং ঋষি কাপুর। হেমা মালিনী পরিচালিত ছবিটিতে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে বক্স অফিসে বাজিমাত করে ফেলেন শাহরুখ। এমনকি ছবিটির জন্য ফিল্মফেয়ারে সেরা নবাগত অভিনেতার পুরস্কার ঘরে তোলেন।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/25/1561472948799.jpgদেখতে দেখতে ক্যারিয়ারের ২৭ বছর পূর্ণ করে ফেললেন শাহরুখ খান। আজ তিনি বলিউডের বাদশা। বলিউড তো বটেই, হলিউডের কয়েকজন বাঘা তারকার চেয়েও ধনী শাহরুখ খান। শুধু সফল অভিনেতা, প্রযোজক কিংবা টিভি অনুষ্ঠানের সঞ্চালকই নন, আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্স দলের গর্বিত মালিকও তিনি।

বিয়ের পর শপথ

বিয়ের পর শপথ
নুসরাত জাহান ও মিমি চক্রবর্তী

শপথগ্রহণ করলেন টালিউডের জনপ্রিয় দুই অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী ও নুসরাত জাহান। মঙ্গলবার (২৫ জুন) সংসদে গিয়ে শপথগ্রহণ করেন তারা।

শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানের জন্য সাদা সালোয়ার-কামিজ বেছে নিয়েছিলেন যাদবপুরের সাংসদ মিমি চক্রবর্তী। তবে বসিরহাটের সাংসদ নুসরাত জাহানের সাজ ছিল চোখে পড়ার মতো। সাদা-বেগুনি পাড়ের শাড়ি পরেছিলেন নুসরাত। সিঁথিতে ছিল চওড়া করে সিঁদুর দেওয়া। দুই হাত ভর্তি ছিল চূড়া। এমনকি সুন্দর নকশা করে দেওয়া মেহেদীও দেখা গেছে তার হাতে।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/25/1561464341200.jpgজানা গেছে- বাংলায় শপথগ্রহণ করেছেন নুসরাত জাহান ও মিমি চক্রবর্তী। শপথগ্রহণ শেষে দু’জনের গলাতেই ছিল বাংলা ও ভারতের নামে জয়ধ্বনি।

গত ১৭ জুন শপথগ্রহণ করার কথা ছিল জনপ্রিয় এই দুই অভিনেত্রীর। এদিন সাংসদ হিসেবে বাকিরা শপথ নিলেও এই দুই নবনির্বাচিত তৃণমূল সাংসদের পক্ষে তা সম্ভব হয়নি। কারণ দু’জনেই তখন ছিলেন দেশের বাইরে।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/25/1561464362289.jpgগত ১৯ জুন প্রেমিক নিখিল জৈনের সঙ্গে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন নুসরাত জাহান। তাই ১৬ জুন তুরস্ক রওনা দিয়েছিলেন তিনি। মিমিও প্রিয় বান্ধবীর বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পাড়ি দিয়েছিলেন সেই মুলুকে। এ কারণে তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ জানানো হয়, আগামী ২৫ জুন শপথ নেবেন দুই তারকা সাংসদ। সেই মতো আজ যাদবপুর ও বসিরহাটের সাংসদ অধিবেশনের আগে শপথ নেন এই দুই তরকা।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র