Barta24

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

নায়ক রাজের নামে ইনস্টিটিউট চান ববিতা

নায়ক রাজের নামে ইনস্টিটিউট চান ববিতা
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট


  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশি চলচ্চিত্রে সেরা রোমান্টিক জুটির তালিকা করলে, রাজ্জাক-ববিতা প্রথম সারিতে থাকবেন নিঃসন্দেহে।

জহির রায়হানের ১৯৭০ সালের ছবি ‘টাকা আনা পাই’ থেকে যাত্রা শুরু এ জুটির।

যদিও এর আগে ‘সংসার’ [১৯৬৮] ছবিতে ববিতা অভিনয় করেছিলেন রাজ্জাক-সুচন্দা জুটির মেয়ে হিসেবে।

১৯৭২-এর ছবি ‘স্বরলিপি’ দিয়ে রাজ্জাক-ববিতা সবার পছন্দের শীর্ষে চলে আসেন।

নিজের পরিচালিত প্রথম ছবি ‘অনন্ত প্রেম-এ নায়িকা হিসেবে ববিতাকেই কাস্ট করেন রাজ্জাক।

এরপর ‘পিচ ঢালা পথ’, ‘আলোর মিছিল’, ‘বাঁদী থেকে বেগম’, ‘সোহাগ’, ‘বিরহ ব্যথা’, ‘প্রফেসর’, ‘কখনো মেঘ কখনো বৃষ্টি’-একসঙ্গে কাজ হয়েছে অনেক।

নায়করাজের মৃত্যুর আগ পর্যন্ত দু’জনের সখ্যতাও ছিলো দারুণ।

/uploads/files/N6qeIkjoDIPKKDp6PlTxXXItOj0D5kAUtGXanNfT.jpeg

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের মঞ্চে আজীবন সম্মাননার পুরস্কার নিতে উঠে রাজ্জাকের কথা তাই মনে হলো ববিতার।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে তাই নায়করাজ রাজ্জাকের নামে ফিল্ম ইনস্টিটিউট অথবা ফিল্ম আর্কাইভ প্রতিষ্ঠার আবেদন করলেন তিনি।
বললেন,

‘বাংলা চলচ্চিত্রের প্রবাদ পুরুষ নায়করাজ রাজ্জাক চলে গেছেন মহাকালের পথে। কিংবদন্তি এই শিল্পী যিনি স্বাধীনতা পদক, আজীবন সম্মাননাসহ এদেশের মানুষের অতি আপনজন হয়ে উঠেছিলেন। রাজ্জাকের অবদান এবং স্মৃতি অমর করে রাখার জন্য রাজ্জাক ফিল্ম ইনস্টিটিউট অথবা রাজ্জাক ফিল্ম আর্কাইভ নামকরণের জন্য আবেদন করছি।’

/uploads/files/pUzJA4eJgHwR13JOIA2IWm35Wh9Z1LINpLjpjz7u.jpeg

এছাড়া ববিতা শিল্পীদের জন্য স্বল্পমূল্যে বাসস্থানের ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিও রাখেন প্রধানমন্ত্রীর কাছে।

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৬-এর পুরস্কার প্রদানের আসর বসেছিলো রবিবার [৮ জুলাই] সন্ধ্যায়, বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে।

এবারের আসরে আজীবন সম্মাননা পান ববিতা ও ফারুক।

আরও পড়ুন:


যারা পেলেন এবারের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার
বিমানে বসে সিনেমা দেখেন প্রধানমন্ত্রী
আপনার মতামত লিখুন :

পুত্র সন্তানের বাবা হলেন অর্জুন রামপাল

পুত্র সন্তানের বাবা হলেন অর্জুন রামপাল
অর্জুন রামপাল ও গ্যাব্রিয়েলা

পুত্র সন্তানকে স্বাগত জানালেন বলিউড অভিনেতা অর্জুন রামপাল ও তার প্রেমিকা গ্যাব্রিয়েলা। বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) মুম্বাইয়ের হিন্দুজা হাসপাতালে নবজাতকের জন্ম দেন গ্যাব্রিয়েলা। মা ও সন্তান দু’জনই সুস্থ রয়েছেন।

গত এপ্রিলে প্রেমিকা গ্যাব্রিয়েলার অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে অর্জুন ইনস্টাগ্রামে লিখেছিলেন, “আমি সৌভাগ্যবান যে তোমাকে পেয়েছি, সবকিছু নতুন করে শুরু করতে পেরেছি। এই সন্তানের জন্য তোমাকে ধন্যবাদ।”

১৯৯৮ সালে মডেল মেহের জেসিয়ার সঙ্গে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন অর্জুন রামপাল। কিন্তু গত বছরের ২৭ মে এক যৌথ বিবৃতির মাধ্যমে বিচ্ছেদের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন এই দম্পতি। মাহিকা ও মায়রা নামে দুটি মেয়ে রয়েছে তাদের।

স্ত্রী মেহেরের সঙ্গে বিচ্ছেদের পরই গ্যাব্রিয়েলার সঙ্গে বলিউডের এই অভিনেতার প্রেমের সম্পর্কের কথা সামনে আসে। গ্যাব্রিয়েলা দক্ষিণ আফ্রিকার সুপার মডেল। বলিউডের একটি সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন তিনি।

এফএইচএমের ‘১০০ সেক্সিয়েস্ট উইম্যান ইন দ্য ওয়ার্ল্ড’ হিসেবেও তার নাম ছিল। ‘মিস আইপিএল বলিউড’ প্রতিযোগিতায় আইপিএলে ডেকান চার্জার্স দলের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন তিনি। এছাড়া একাধিক ছবি ও মিউজিক ভিডিওতে দেখা গিয়েছে তাকে।

আসামে বন্যাদুর্গতদের ১ কোটি রুপি দিলেন অক্ষয়

আসামে বন্যাদুর্গতদের ১ কোটি রুপি দিলেন অক্ষয়
ছবি: সংগৃহীত

অক্ষয় কুমারের উদার মনের কথা কে না জানেন। যখনই কোথাও বিপদ দেখেন সাহায্যের জন্য সবসময় হাত বাড়িয়ে দেন বলিউডের এই অভিনেতা।

আসামের ভয়াবহ বন্যার কথা সকলেরই জানা। ১৭ জুলাই পর্যন্ত বন্যাজনিত কারণে মোট ২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। আসাম স্টেট ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট অথরিটি (এএসডিএমএ) সূত্রে খবর, রাজ্যের ৩৩টি জেলার মধ্যে ৩০টি জেলা বন্যাকবলিত। ফলে ৪ হাজার ৬২৬টি গ্রামের ৫৭ লাখ ৫১ হাজার ৯৩৮ জন মানুষ এখন ঘরছাড়া।

আসামের এই বিপদে পাশে এসে দাঁড়ালেন অক্ষয় কুমার। আসামের প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ১ কোটি এবং কাজিরঙ্গা জাতীয় উদ্যানের জন্য ১ কোটি রুপি অনুদান দিয়েছেন বলিউডের এই অভিনেতা।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে বিষয়টি নিশ্চিত করে অক্ষয় কুমার লিখেছেন- ‘আসামের ভয়াবহ পরিস্থিতির কথা শুনে খুব খারাপ লাগছে। এই দুঃসময়ে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ ও প্রাণীদের সহযোগিতার প্রয়োজন। তাই আমি আসামের প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল এবং কাজিরঙ্গা জাতীয় উদ্যানের জন্য দুই কোটি রুপি অনুদান দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আপনারাও সহযোগিতা করুন।’
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/18/1563439590008.jpgএর আগে পুলওয়ামা জঙ্গি হামলা ঘটনার সময়ও শহিদদের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন অক্ষয়। ‘ভারত কী বীর’ অ্যাপের মাধ্যমে ৫ কোটি রুপি দিয়েছিলেন অক্ষয়।এছাড়া ২০১৫ সালে চেন্নাইয়ের ভয়াবহ বন্যায় এক কোটি রুপি অনুদান দিয়েছিলেন তিনি।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র