কেউ কী কাঁদছে...

তানিয়া চক্রবর্তী
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

গত রোববারের পরবর্তী অংশ

রাতে দুজনে ঘুমিয়ে পড়ে। হঠাৎ নেহা দরজা খোলার আওয়াজ পায়। ক্যাঁচ, ক্যাঁচ, ক্যাঁচ! চমকে জেগে ওঠে নেহা। দরজার দিকে তাকিয়ে দেখে দরজা বন্ধ। আবার ঘুমোনোর চেষ্টা করে নেহা। কিছু পরে আবার এক আওয়াজ। নেহা আবার তাকায়।আবারো দরজা বন্ধই। নেহা দেখে ঈশান অঘোরে ঘুমোচ্ছে। নেহা আবার ঘুমোনোর চেষ্টা করে। এবার একটা হালকা কান্নার আওয়াজ পায় নেহা। এবার ঘুম ভেঙ্গে উঠে নেহা উঠে বসে কারণ দরজাটা হাট করে খোলা।

কান্নার আওয়াজটা বাইরে থেকেই আসছে। ঈশান ঘুমোচ্ছে। নেহা একবার ভাবে ঈশানকে ডাকবে। কিন্তু না ডেকে নিজেই ফোনের আলো জ্বালিয়ে বাইরে বেরিয়ে আসে। দরজার সামনে একটা ছোট গলির মতো লন হঠাৎ ফোনের আলো দিলে মনে হয় কেউ হাঁটুতে মুখ গুঁজে কাঁদছে। নেহার ভয় করে তবু আরেকবার ঐখানে আলো ফেলে কিন্তু আরও কিচ্ছু দেখা যায় না। মনের ভুল ভেবে নেহা ফিরে আসে। অদ্ভুত আর কোনো আওয়াজ নেই।

আরও পড়ুন: কেউ কী কাঁদছে...

বিছানায় বসতেই নেহা টের পায় ঈশানের বদলে বিছানায় শুয়ে আছে এক লম্বা চুলের মহিলা। সে অন্যদিকে পাশ ফিরে শুয়ে আছে। বিছানা থেকে ছিটকে দূরে সরে যায় নেহা।তার চোখকে সে বিশ্বাস করতে পারে না।অনেকক্ষণ সব নিস্তব্ধ দেখে নেহা এক হাতে আলো ধরে ভদ্রমহিলার গায়ে হাত দেয়। আর পাশ ফিরতেই দেখে ঈশান। লম্বা চুল, মহিলার শাড়ি সব কী তাহলে ভ্রম ছিল!নেহা পাগলের মতো ঈশানকে জড়িয়ে ধরে।ঈশানকে সব বলে নেহা।

সব শুনে ঈশান বলে “প্লিজ এসব ভেবো না। এসব বাইরে নয় তোমার ভূতের গল্প পড়ার ফল। ঘুমোও আর এরকম আচমকা ডেকো না” অগত্যা নেহা শুয়ে পড়ে।

কিছু পরে আবার ক্যাঁচ ক্যাঁচ ক্যাঁচ আওয়াজ। এবারে দরজা পুরো খোলা। নেহা এবারে ঘুম ভেঙ্গে স্পষ্ট দেখে দেখে বিছানায় তার পাশে এক মহিলা পাশ ফিরে শুয়ে ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছে।কোথাও ঈশানের কোনো চিহ্ন নেই। নেহা কাঁপতে কাঁপতে বাইরে বেরিয়ে আসে। বাইরেও সেই এক কান্না। এবার মোবাইলের আলোয় নেহা স্পষ্ট দেখে কেউ আগে সেখানে যেভাবে বসে কাঁদছিল ঠিক সেভাবেই বসে হাঁটুতে মুখ গুঁজে বিস্রস্ত চুল এলিয়ে কাঁদছে।

ক্রমশ... আগামী রোববারের বাকিটা অংশ

আপনার মতামত লিখুন :