৫০ বছর ধরে একটি সেতু নির্মাণের দাবি

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নওগাঁ
বাঁশের সাঁকো, ছবি: বার্তা২৪.কম

বাঁশের সাঁকো, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

নওগাঁর মান্দা উপজেলার কালিকাপুর বাজারে আত্রাই নদের উপর একটি বাঁশের সেতু রয়েছে। এ সেতু দিয়ে মান্দা, মহাদেবপুর ও নিয়ামতপুর উপজেলার মানুষ পারাপার হচ্ছে।

আক্তারুজ্জামান বুলবুল নামে এক ব্যক্তি ১ লাখ ১০ হাজার টাকায় খেয়াঘাট ইজারা নিয়ে আরও ৮০ হাজার টাকা খরচ করে বাঁশের সাঁকোটি নির্মাণ করে চাঁদা আদায় করছেন। সাঁকো পার হতে জনপ্রতি ৫ টাকা ও মোটরসাইকেল বাবদ ১০ টাকা করে নেয়া হচ্ছে।

স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তি অভিযোগ করে জানান, দীর্ঘ ৫০ বছর ধরে একটি সেতু নির্মাণের দাবি জানানো হচ্ছে। কিন্তু এখানে সেতু নির্মাণের প্রতি জোর দিচ্ছেন না জনপ্রতিনিধিরা। অথচ বাঁশের সাঁকোর পূর্ব পাশে ১৫টি আর পশ্চিম পাশে ১৮টি গ্রাম রয়েছে। এসব এলাকার প্রায় ২৫-৩০ হাজার মানুষ তাদের উৎপাদিত ফসল নিয়ে বাঁশের ওই সাঁকোর উপর দিয়ে প্রতিদিন চলাচল করে। সাঁকো পার হতে গিয়ে জনপ্রতি ৫ টাকা করে দেয়ায় গরিব মানুষের গলাকাটা যাচ্ছে। অনেক সময় টাকা না থাকলে ইজারাদার খারাপ ব্যবহার করেন।

ইজারাদার আক্তারুজ্জামান বুলবুল বার্তা২৪.কমকে জানান, ১ লাখ ১০ হাজার টাকায় খেয়াঘাট ইজারা নিয়ে আরও ৮০ হাজার টাকা খরচ করে বাঁশের সাঁকোটি নির্মাণ করা হয়েছে। খরচের টাকা তুলতে জনপ্রতি ৫ টাকা এবং প্রতিটি মোটরসাইকেলের জন্য ১০ টাকা করে নিতে হচ্ছে।

মান্দা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেন তোফা জানান, ঘাটটি জেলা পরিষদ থেকে ইজারা দেয়া হয়েছে। এখানে দীর্ঘদিন ধরে একটি সেতু নির্মাণের দাবি জানানো হচ্ছে।

মান্দা উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) শাহ মো. শহিদুল ইসলাম জানান, কালিকাপুর ঘাটে পাকা সেতু নির্মাণের কোনো প্রকার কর্মপরিকল্পনা এখন পর্যন্ত তাদের হাতে আসেনি।

আপনার মতামত লিখুন :