১৯৭১: বিদেশি পত্রিকায় মার্চ থেকে ডিসেম্বর (পর্ব ১)

অনুবাদ ও গ্রন্থনা : আন্দালিব রাশদী
গ্রাফিক বার্তা২৪.কম

গ্রাফিক বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

১৯৭১-এ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাংলাদেশের পক্ষে তথা সত্যের পক্ষে যুদ্ধে নেমেছিলেন সংবাদকর্মী সিডনি শনবার্গ, মাইকেল লরেন্ট, অ্যান্থনি ম্যসকারেনহাস, লেয়ার লেভিন, ড্যান কোগিন, সাইমন ড্রিঙ, নিকোলাস টোমালিন, মার্ক টালি, ক্লেয়ার হোলিংওয়ার্থ, মার্টিন ওলাকট, জন পিলজার, ডেভিড লোশাক, পিটার হ্যাজেলহার্স্ট ও আরো অনেকে।

২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী যখন হত্যাযজ্ঞে মেতে উঠল, তার সাক্ষী হয়ে রইলেন কজন বিদেশি সাংবাদিক। ৩৫ জন বিদেশি গণমাধ্যম প্রতিনিধিকে ৪৮ ঘণ্টারও বেশি সময়ের জন্য আটকে রাখা হয় ঢাকার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে। ২৭ মার্চ বলপ্রয়োগ করে পূর্ব পাকিস্তান থেকে তাঁদের বহিষ্কার করা হয়। উড়োজাহাজে তোলার আগে সাংবাদিকদের তল্লাশি করা হয়। তাঁদের নোটবই, ছবির ফিল্ম ও ফাইল বাজেয়াপ্ত করা হয়। বহিষ্কৃত সাংবাদিকেরা যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাজ্য, কানাডা, ফ্রান্স, জাপান ও রাশিয়ার সংবাদপত্রসহ অন্যান্য গণমাধ্যমে কর্মরত ছিলেন। বহিষ্কারের কারণ জানতে চাওয়া হলে দায়িত্বপ্রাপ্ত সামরিক কর্মকর্তা বলেন, ব্যাখ্যা করার কিছু নেই, এটা আমাদের দেশ।

মার্চ থেকে ডিসেম্বর প্রতিমাসের একটি করে নমুনা অনূদিত ও সংকলিত হলো, কোনো পুরোপুরি, কোনোটা আংশিক, ডিসেম্বরে কেবল দুটো।

দ্য বাল্টিমোর সান
মার্চ: গোলাগুলি ও অগ্নিশিখার শহর ঢাকা


জন উডরাফের প্রতিবেদন: স্বয়ংক্রিয় আগ্নেয়াস্ত্রের অবিরাম গুলিবর্ষণের মাঝে কখনো কখনো কয়েকটা গুলির শব্দ স্পষ্টই জানিয়ে দেয় কেউ যেন সেনাবাহিনীর গুলির জবাব দিচ্ছে। দুদিনের অবিশ্রান্ত গুলিবর্ষণ ও অগ্নিসংযোগের পর ঢাকা শহরকে গোলাগুলি ও অগ্নিশিখার শহরে পরিণত করে স্বাধীনতার দিকে পূর্ব পাকিস্তানের ঝুঁকে পড়াটা হঠাৎ যেন আটকে দিয়েছে। প্রেসিডেন্ট এএম ইয়াহিয়া খান যখন গতরাতে গণতন্ত্রের পথ উত্তরণে তার দু বছরের সতর্ক পরীক্ষা-নিরীক্ষার অবসানের ঘোষণা দিলেন, সেনাবাহিনী ততক্ষণে গুলি করতে করতে পূর্ব পাকিস্তানের রাজধানীর নিয়ন্ত্রণ হাতে নিয়ে নিল—সব দিকে রেখে গেল গোলাগুলির দৃশ্যমান চিহ্ন, পূর্ব পাকিস্তানের সাড়ে সাত কোটি মানুষের নির্বাচিত নেতা শেখ মুজিবুর রহমানকে আটকে ফেলল কারাগারে।

সংবাদকর্মীরা সৈনিকদের ভারি মেশিনগানের সাহায্যে কোনো ধরনের সতর্ক সংকেত না দিয়ে নিরস্ত্র জনতার ওপর গুলি চালাতে দেখেছেন। মৃত্যু ও অন্যান্য ক্ষয়ক্ষতি নিশ্চিত করা যায়নি। যখন জানা গেল, প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান সন্ধ্যা পৌনে ছয়টার দিকে ব্যাপক সুরক্ষিত ঢাকার প্রেসিডেন্টস হাউস ছেড়ে গেছেন তখনই প্রথম বোঝা গেল আলোচনা ভেঙে যাওয়ার চেয়েও বড় কোনো ঘটনা ঘটেছে। দু ঘণ্টা পর যখন প্রেসিডেন্ট হাউসের কঠোর সেনাপ্রহরার অনেকটাই প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে, অবশিষ্টদের একজন বেসামরিক গার্ডের কাছে খবর দিতে গেলে তিনি যে জবাব দেন তা হচ্ছে: “কোনো প্রশ্ন করার জন্য (প্রেসিডেন্ট কোথায় আছেন) এটা বড় দুঃসময়।”

রাত এগারটার দিকে সৈন্যরা সাংবাদিকদের ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে জড়ো করল, হোটেলের ভেতরে না ঢুকলে গুলি করা হবে এই হুমকি দিয়ে তাদের ভেতরে পাঠিয়ে দেওয়া হলো। নগরীর বিভিন্ন অংশে স্বয়ংক্রিয় আগ্নেয়াস্ত্রের গুলিবর্ষণ শুরু হয়ে গেল। রাত ১২-২০ মিনিটে শেখ মুজিবের বাসায় টেলিফোন করা হলে এক শান্ত স্বরের জবাব শোনা গেল—“শেখ বিছানায়।”

আজ সকালেই করাচি বেতার প্রথমবারের মতো বিশেষ করে শেখ মুজিবের অবস্থান নিয়ে মুখ খুলেছে—পাঁচজন সহযোগীসহ তাকে সেই ফোন কলের এক ঘণ্টা দশ মিনিট পর গ্রেফতার করা হয়েছে। সেই ফোন কলের দশ মিনিট পরই হোটেলের সব ফোন ডেড হয়ে যায়। ততক্ষণে হোটেলের সৈন্যরা পাশেই উড়তে থাকা সবুজ, লাল ও সোনালি রঙের বাংলাদেশের পতাকা ছিঁড়ে ফেলে এবং স্তূপীকৃত পতাকা হোটেলের লনে পুড়িয়ে ফেলে। শুক্রবার দিবাগত রাত একটার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দিকে প্রথম কামান আক্রমণের শব্দ শোনা যায়—ছাত্রনেতারা সেখানে সক্রিয়।

২৫ থেকে ৩০ ট্রাক ভর্তি সৈন্য হোটেল ডিঙিয়ে দেড় মাইল দূরে ক্যাম্পাসের দিকে এগিয়ে যায়। কিছুক্ষণের মধ্যেই স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রের গোলাগুলির প্রতিধ্বনি আসতে থাকে। রাত দুটোর দিকে একই গন্তব্যে কামানের গোলার শব্দ আসতে থাকে আর আড়াইটার দিকে দুটো বড় ভবন অগ্নিশিখায় ঢাকা পড়ে—সে রাতের প্রথম ভয়াবহ অগ্নিসংযোগ। দশ তলার জানালা দিয়ে দেখে বাঙালি সাংবাদিকরা জানালেন ভবন দুটোর একটি ইকবাল হল ও একটি মহসিন হল—আওয়ামী লীগের ছাত্র সংগঠনের সক্রিয় আশ্রয়।

 

এক্সপ্রেসেন
এপ্রিল: বাংলায় গণহত্যা


শেখ মুজিবুর রহমানকে যে বন্দী করা হয়েছে তা প্রমাণ করতে পাকিস্তানের সামরিক কর্তৃপক্ষ একটি আলোকচিত্র অবমুক্ত করেছে। তাঁর বন্দীদশার ছবিটি দেখিয়ে সামরিক সরকার পূর্ব পাকিস্তানের মানুষের মনোবল ভেঙে দিতে চায়। প্রশ্ন, ছবিটি আগে ছাড়া হলো না কেন? কোন তারিখের ছবি তা-ই বা উল্লেখ করা হয়নি কেন? তারা শেখ মুজিবুর রহমানকে কেন দেখাচ্ছে না?

তবে এটা স্পষ্ট, ইয়াহিয়া খানের শাসন যে কোনো মূল্যে তাঁর (শেখ মুজিব) শহীদ হওয়ার সুযোগ প্রতিহত করতে চাইবে। প্রশ্ন হচ্ছে কারাবন্দী শেখ মুজিবকে দেখার যে অনুভূতি পূর্ব পাকিস্তানে জন্মাবে, তা কি পরিস্থিতি পাল্টে দেবে? তাঁকে নিয়ে কিংবা তাঁকে ছাড়া (বন্দীদশায় রেখে) যে অবস্থায়ই হোক না কেন, পূর্ব পাকিস্তানের আর পিছু হটার পথ নেই।

সত্য গোপন করার জন্য সামরিক সরকারের সব প্রচেষ্টা সত্ত্বেও আমরা এখন জানি পূর্ব পাকিস্তানে কী ঘটছে। শরণার্থীরা ব্যাপক গোলাবর্ষণ, বেপরোয়া ধ্বংসযজ্ঞ এবং গণহত্যার সাক্ষ্য দিয়েছে। শত সহস্র মানুষ তাদের ঘর ছেড়ে পালাচ্ছে। ক্ষুধা ও দুর্ভিক্ষ হানা দিয়েছে। পাকিস্তানের ঐক্য অটুট রাখতেই হবে—এই প্রণোদনার নামে দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের প্রতি শক্রতার অস্ত্র প্রয়োগ করা হচ্ছে। দেশের প্রথম সংসদীয় নির্বাচনের ফলাফল ভণ্ডুল করে দেওয়ার পর জন্য সামরিকজান্তা সহিংস শক্তি প্রয়োগ করে চলেছে। সাধারণ নির্বাচনের ফলাফল হজম করার প্রস্তুতি পাকিস্তানি শাসকদের ছিল না, উলটো সামরিক বাহিনী লেলিয়ে দিয়েছে। এটা স্পষ্ট, এই পদ্ধতিতে কখনোই পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের পুনর্মিলন ঘটানো সম্ভব হবে না। নির্মমভাবে অধিকার প্রতিষ্ঠা অথবা যুদ্ধ—এ ছাড়া আর কোনো বিকল্প নেই।

 

ইন্টারন্যাশনাল হেরাল্ড ট্রিবিউন
মে: একটি সেন্সর করা সংবাদ
ইন্টারন্যাশনাল হেরাল্ড ট্রিবিউন-এর ৮ ও ৯ মে, ১৯৭১ সংখ্যায় প্রকাশিত সংবাদের শুরুতে বলা হয়েছে, পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তান থেকে পাওয়া সেন্সর করা সংবাদ


ঢাকা, পূর্ব পাকিস্তান, ৭ মে : পাকিস্তানের সামরিক গভর্নর জেনারেল টিক্কা খান আজ বলেছেন, ২৫ মার্চ রাতে সেনাবাহিনী পূর্ব পাকিস্তানের ওপর নিয়ন্ত্রণ পুনঃপ্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেয়। তাতে ঢাকায় ১৫০ জন নিহত হয়েছে। একটি সংবর্ধনায় বক্তব্য দিতে গিয়ে টিক্কা খান বলেন, প্রায় ১০ হাজার নিহত হওয়ার হিসাবে বেপরোয়া অতিরঞ্জন রয়েছে। এই সংবাদদাতাসহ যে ছয়জনের সঙ্গে জেনারেল খান দেখা করেছেন তাঁরা হচ্ছেন অ্যাসোসিয়েট প্রেস, রয়টার্স, টাইম, দ্য ফিনানশিয়াল টাইমস্ অব লন্ডন এবং চায়নিজ কমিউনিস্ট প্রেস এজেন্সি জিনহুয়ার সংবাদদাতা।

গাঙ্গেয় বদ্বীপে নদ-নদীর জাল ঢাকা শহর পর্যন্ত বিস্তৃত মনে হলো। যদিও প্রায় সব দোকানপাটই বন্ধ, কিন্তু রাস্তায় যানবাহনের সংখ্যা ভালোই ছিল। ধারণা করা হচ্ছে, লড়াই যখন শুরু হয়, তখন শহরের অর্ধেক মানুষ গ্রামাঞ্চলে ও বনজঙ্গলের দিকে পালিয়ে গেছে। এমনকি ঢাকার ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেল স্বাভাবিকের ২০ ভাগ কর্মচারী দিয়ে চালানো হচ্ছে। কিছুসংখ্যক বাঙালি বাসিন্দা সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেছেন, এখানকার ‘হত্যাযজ্ঞের’ খবর বহির্বিশ্বকে জানানো হয়নি।

পরিচয় যার লৌহমানব
জেনারেল টিক্কা খান একজন কঠোর সেনা কমান্ডার হিসেবে পরিচিত। ২৫ মার্চ রাতে ঢাকা ও অন্যান্য স্থানে নির্বিচারে গণহত্যার আদেশ তিনিই দিয়েছেন বলে বিরোধীদের অভিযোগ।

টিক্কা খান বলেছেন, ‘আমাদের বিরুদ্ধে ছাত্রহত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে। কিন্তু আমরা ছাত্র কিংবা কোনো একক দলকে আক্রমণ করিনি। যখন আমাদের ওপর গুলি চালানো হয়েছে, আমরা পালটা গুলি চালিয়েছি।’ তিনি আরো বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় তো বন্ধ ছিল। সেখানে যারা ছিল তাদের থাকার কোনো কারণ ছিল না। যারা ভেতরে ছিল, তাদের বেরিয়ে আসতে বলেছি, তখন তারা গুলি চালায়। আমাদের তখন পাল্টা গুলি চালাতে হয়েছে।

‘আমি সবসময়ই বিশ্বাস করেছি, তাৎক্ষণিকভাবে শক্ত ব্যবস্থা নিলে পরের ক্ষয়ক্ষতি, যা সাধারণত ঘটে থাকে, এড়ানো সম্ভব হয়—দাবি টিক্কা খানের। সামরিক গভর্নর দাবি করেন, পূর্ব পাকিস্তানে সরকারি বাহিনীর বিরুদ্ধে সশস্ত্র প্রতিরোধ এখন হাওয়ায় মিলিয়ে গেছে। তিনি এখন ঢাকায় সান্ধ্য আইন তুলে নেওয়ার কথা ভাবছেন।

তবে টিক্কা খান স্বীকার করেন, বঙ্গোপসাগরের উপকূলবর্তী চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ভেতরের দিকে আসা গুরুত্বপূর্ণ রেলপথের সেতু ডিনামাইট দিয়ে উড়িয়ে দেওয়ায় কিংবা অন্য কোনো বাধার কারণে তা এখনো চালু করা যায়নি। তিনি বলেন, ‘এখন আমাদের প্রধান কাজ অতীত ভুলে যাওয়া এবং পূর্ব পাকিস্তানের পুনর্গঠন করা। যদি দেশের সব মানুষ কঠোর পরিশ্রম করে, তাহলে আমরা আশা করি, এক বছরেই লক্ষ্য অর্জন করা সম্ভব।...পূর্ব পাকিস্তানি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের বহুসংখ্যক আত্মসমর্পণ করেছে কিংবা রাস্তার পাশে অস্ত্র ফেলে রেখে পালিয়ে গেছে, যদিও ভারতীয় অনুপ্রবেশকারীরা সমস্যাকে উসকে দেওয়ার চেষ্টা করছে। এখানে গেরিলাযুদ্ধ মাথাচাড়া দিয়ে ওঠার কোনো সম্ভাবনা তিনি দেখছেন না।

 

দ্য হংকং স্ট্যান্ডার্ড
জুন: আরেক চেঙ্গিস [সম্পাদকীয়]


নির্মমতা ও কসাইবৃত্তির প্রতিশব্দ হিসেবে ৪০০ বছর ধরে চেঙ্গিস খানের নাম উচ্চারিত হয়ে আসছে। বিংশ শতকে তার নামের সঙ্গে মিল রয়েছে এমন একজন পাকিস্তানিকে মনে হচ্ছে, এই বীভৎস পূর্বসূরি খুনিকে হারিয়ে দিতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ তিনি। তিনি টিক্কা খান। পাকিস্তানিদের কাছে এই জেনারেল শান্তিদাতা, পূর্ব পাকিস্তানের বিদ্রোহীদের শান্ত করতে এসেছেন। তিনি কমান্ড করছেন ভয়ংকর পাঞ্জাবি ও পাঠান বাহিনীর, যারা মরিয়া হয়ে পূর্ব পাকিস্তানে ভয়াবহ রক্তস্রোত বইয়ে দিচ্ছে।

তাদের নির্মম খুন, কাণ্ডজ্ঞানহীন শিশুহত্যা, ধর্ষণ, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ‘পতিতা’ সরবরাহ এবং সর্বাত্মক উন্মত্ততা, খামখেয়ালিপনা ও রক্তলোলুপতার পর্যাপ্ত সাক্ষ্য-প্রমাণ রয়েছে।

চেঙ্গিস খান তার ভয়ংকর নির্মমতায় জীবনে অন্তত একটা সাম্রাজ্য গড়তে পেরেছিলেন। আর টিক্কা খান ও তার উর্দিপরা কসাই সাঙ্গপাঙ্গদের ইতিহাস তাদের মনে রাখবে একটি জাতির বৃহদংশের ধ্বংসকারী হিসেবে।

 

দ্য ওয়াশিংটন স্টার
জুলাই: অস্ত্রবোঝাই পাকিস্তানি জাহাজে মাল তুলতে ডক ইউনিয়নের অস্বীকৃতি


বাল্টিমোর (এসোসিয়েটেড প্রেস) পাকিস্তানি পণ্যবাহী জাহাজ পদ্মাকে ডকে পণ্য ওঠাতে বাধা দিতে আজও বিক্ষোভ প্রদর্শন করা হবে। অভিযোগ রয়েছে, এই পাকিস্তানি জাহাজ যুদ্ধবিধ্বস্ত স্বদেশে অস্ত্র ও অন্যান্য মালামাল নিয়ে যাচ্ছে।

পুলিশ গত রাতে ছয়জন বিক্ষোভকারীকে জাহাজ ডকে আসতে বাধা দেওয়ার কারণে গ্রেপ্তার করেছে। তাদের কাছে ছিল তিনটি ক্যানু ও একটি কায়াক। একজন কর্মকর্তা জানান, জাহাজের অবাধ চলাচলে বাধা দেওয়ার জন্য তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের নিজেদের নিরাপত্তা বিবেচনা করেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক লং শোরম্যান অ্যাসোসিয়েশন তাদের বাল্টিমোর শাখাকে নির্দেশ দিয়েছে, যেন জাহাজে মাল তোলা না হয়। কারণ প্রতিবাদকারীরা জানিয়েছেন, রাষ্ট্রীয় নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও এই জাহাজে করে পাকিস্তানে সামরিক সরঞ্জাম পাঠানো হচ্ছে। পাকিস্তানি জাহাজের যুক্তরাষ্ট্রীয় এজেন্ট জানিয়েছে, এই মালবাহী জাহাজে কোনো সামরিক সরঞ্জাম নেই। ১৩ জন বিক্ষোভকারীর একজন কেবল পাকিস্তানি। শহরের অফিসপাড়ায় জমায়েত হয়েছে—জাহাজযোগে পাকিস্তানে সামরিক সরঞ্জাম পাঠানোর প্রতিবাদ জানাতে। ১৫ জুলাই, ১৯৭১ বাল্টিমোর শহরে ক্যালভার্ট অ্যান্ড রেডউড স্ট্রিটে কেয়সার ভবনের সামনে এই বিক্ষোভ—ইস্ট ওয়েস্ট শিপিং এজেন্সির বিরুদ্ধে হলেও মূলত বিক্ষোভ গোটা আমেরিকান সরকারের বিরুদ্ধে। এই এজেন্সি আসলে হ্যান্ডলিং এজেন্ট। ১৭ জুলাই বিকেলে পাকিস্তানি মালবাহী জাহাজ পদ্মা কভিংটন বন্দর টার্মিনালে আসছে, তারই ব্যবস্থাপনার ভার এই এজেন্সির।

স্টেট ডিপার্টমেন্টের তথ্য অনুযায়ী, জাহাজে ৯ লাখ ২৪ হার ৩২৯ ডলার মূল্যের জাহাজের যন্ত্রাংশ; এক লাখ ৮৪ হাজার ১৮৭ ডলার মূল্যের সামরিকযান যন্ত্রাংশ; ২৫ হাজার ৪১৭ ডলার মূল্যের ইলেক্ট্রনিক যন্ত্রাংশ; ৪৫ হাজার ১১৭ ডলার মূল্যের যানবাহন যন্ত্রাংশ এবং দুই হাজার ৮৩০ ডলার মূল্যের গোলন্দাজ যন্ত্রাংশ রয়েছে। নিউইয়র্ক থেকে এতে দুই হাজার ২০০ রাউন্ড ২২ ক্যালিবার গোলাবারুদ বোঝাই করা হয়েছে। এই মালবাহী জাহাজটি মন্ট্রিয়েল থেকে পাকিস্তানকে যুক্তরাষ্ট্রের সরবরাহ স্যাবর জেটের ৪৬ বাক্স খুচরা যন্ত্রাংশ ওঠাবে। তবে কানাডা সরকার এই মাল উত্তোলনে বাধা দিয়েছে। ফ্রেন্ডস অব ইস্ট বেঙ্গল নামের ফিলাডেলফিয়া-ভিত্তিক একটি সংস্থার ৩০ জন সদস্য তাঁদের বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছেন।

জাহাজ আটকানোর অপরাধে গ্রেফতার অভিযুক্তরা ছাড়া পেয়েছেন। দ্য ইভনিং বুলেটিন ফিলাডেলফিয়া জানিয়েছে, ক্যানু ও ক্যায়াকযোগে পানিতে নেমে জাহাজ আটকানোর চেষ্টা করার অপরাধে গ্রেপ্তারকৃত ছয়জন কারামুক্তি লাভ করেছেন।

দলনেতা চার্লস খান বলেছেন, অস্ত্রবাহী জাহাজটিকে তারা পুনরায় ফিলাডেলফিয়ায় আটকাতে চেষ্টা করবেন। নিউইয়র্ক বন্দর থেকে ছেড়ে আসা এই জাহাজের গন্তব্য পাকিস্তানের করাচি বন্দর—কয়েক সপ্তাহ ধরে এই জাহাজ বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দুতে। অভিযোগ উঠেছে, এই জাহাজে পাকিস্তানে অস্ত্রশস্ত্র পাঠানো হচ্ছে, সিনেটে এ নিয়ে বিতর্ক হয়েছে। একজন সিনেটর এই মালবাহী জাহাজের মালামাল প্রত্যাহার করে নেওয়ার জন্য প্রেসিডেন্ট নিক্সনকে অনুরোধ জানিয়েছেন।

 

লা ন্যাশিয়ন
আগস্ট: জাতিসংঘ মহাসচিবের মতামত


জাতিসংঘের মহাসচিব উ থান্ট পূর্ব পাকিস্তানের নিরঙ্কুশ সমর্থিত নেতা শেখ মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে আনীত রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার গোপন বিচার নিয়ে পাকিস্তান সরকারকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, নভেম্বরে পূর্ব বাংলায় হারিকেনের ধ্বংসযজ্ঞ এবং পরবর্তী কলেরা মহামারির চেয়ে ভয়াবহ হবে এই বিচারের পরিণতি।

আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকরা উ থান্টের সঙ্গে একমত পোষণ করেন। আওয়ামী লীগের জন্য ৯৮ ভাগ জনসমর্থনের ওপর ভিত্তি করে তারা এই মন্তব্য করেন।... ইয়াহিয়া খানের প্রশাসন কোথায় মুজিবুর রহমানের বিচার হচ্ছে তা প্রকাশ করতেও অস্বীকার করছে। তাদের সরবরাহকৃত তথ্যে বলা হয়েছে ‘পাকিস্তানের কোথাও’ তার বিচার হচ্ছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে বাঙালিরা কোনো রাজনৈতিক পদক্ষেপ নেবে তা যেখানে উদ্বেগের বিষয়, যেখানে তারা পশ্চিমাপন্থী, কিন্তু তারা রেড চীনের প্রতিবেশি, মুজিবুর রহমান যেখানে মধ্যস্থতার চেয়ে বাস্তব পদক্ষেপ নিতে বেশি ঝুঁকে আছেন—তিনি ভোটারের মতামত ইয়াহিয়া খানের সেনাবাহিনীর চাওয়ার তফাতটা ভালো করে জানেন তার গোপন বিচারের পরিণতি ভালো হওয়ার নয়। [চলবে]


পর্ব ২ ● সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর পড়তে ক্লিক করুন এখানে

আপনার মতামত লিখুন :