বাণিজ্য মেলায় বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়নে ভিড়



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি প্যাভিলিয়ন

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি প্যাভিলিয়ন

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি প্যাভিলিয়নে ছোট-বড় সকলে প্রচুর ভিড় জমাচ্ছেন। এই প্যাভিলিয়নে রয়েছে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কিত বিভিন্ন ধরনের ইতিহাস সম্বলিত তথ্য। তবে এই প্যাভিলিয়নে তরুণ প্রজন্মের আনাগোনা সবচেয়ে বেশি।

রোববার (২৬ জানুয়ারি) সরেজমিনে দেখা যায় প্রচুর মানুষের আনাগোনা। প্যাভিলিয়নের সামনেই বঙ্গবন্ধুর সেই ঐতিহাসিক ভাষণের ভাস্কর্যটি নজর কাড়ে অনেকেরই।

বঙ্গবন্ধুর ব্যবহৃত মুজিব কোট ও চশমা

যে ভাষণে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’। মনে রাখবা, রক্ত যখন দিয়েছি রক্ত আরও দেব, এ দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাআল্লাহ। প্যাভিলিয়নের সামনে এসেই অনেকে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের সামনে সেলফি নিতে ভুল করছেন না।

বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়নে ঘুরতে আসা কলেজ শিক্ষার্থী আহসান হাবিব বার্তা২৪.কম-কে বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের জাতির পিতা। তার অর্জন ভুলার মত নয়। তিনি না থাকলে এই বাংলাদেশের সৃষ্টি হতো না। আমরা তরুণ প্রজন্ম সব সময় স্মরণ করি উনাকে। এই প্যাভিলিয়নের ভিতরে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কিত অনেক তথ্য আছে যা আমাদের প্রজন্মকে সমৃদ্ধ করবে।

বঙ্গবন্ধু সম্পর্কিত বিভিন্ন ধরনের ইতিহাস দেখছেন দর্শনাথীরা

বাচ্চাকে নিয়ে ঘুরতে আসা এক অভিভাবক রায়হান শেখ বার্তা২৪.কম-কে বলেন, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশকে জানার জন্য বাচ্চাকে নিয়ে এসেছি এই প্যাভিলিয়নে। দেশের জন্য যারা অবদান অসামান্য তার সম্পর্কে জানবার জন্য এখানে পর্যাপ্ত তথ্য ও ভিডিওচিত্র রয়েছে। যা দেখে বাচ্চারা জানতে পারবে জাতির পিতা কে।

বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়ন ঘুরে দেখা যায়, প্রবেশ মুখেই চোখে পড়বে বঙ্গবন্ধুর বিভিন্ন ধরনের তথ্য। সেই সময় পরিবারের সঙ্গে কাটানো জাতির পিতার ছবি। বঙ্গবন্ধুর জেলে কাটানো নানান তথ্য। এছাড়া বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে করা বিশ্ব নেতাদের নানা ধরনের উক্তিও রয়েছে প্যাভিলিয়নের দেয়াল জুড়ে। তাছাড়া বঙ্গবন্ধুর ব্যবহৃত চশমাসহ নানা জিনিস পত্র রয়েছে এখানে।

বঙ্গবন্ধুর ব্যবহৃত জিনিস

তাছাড়া, বঙ্গবন্ধু প্যাভিলিয়নের ভিতরে সরকারের মেগা প্রকল্পের বিষয়ে ছবিসহ বিভিন্ন তথ্য দেওয়া আছে মানুষকে জানানোর জন্য। এই প্যাভিলিয়নটি নকশা প্রণয়ন করেছে স্থাপত্য অধিদফতর এবং নির্মাণ করেছে গণপূর্ত অধিদফতর।