প্রধানমন্ত্রীর ওপর এবার অ্যানিমেশন সিনেমা



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
অ্যানিমেশন সিনেমা ‘হাসিনা: দি আনটোল্ড স্টোরি’র পোস্টার

অ্যানিমেশন সিনেমা ‘হাসিনা: দি আনটোল্ড স্টোরি’র পোস্টার

  • Font increase
  • Font Decrease

ছয় বছর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে প্রামাণ্যচিত্র ‘হাসিনা : আ ডটারস টেল’ নির্মাণ করেছিলেন পিপলু আর খান। এবার তাকে নিয়ে নির্মিত হতে যাচ্ছে থ্রিডি অ্যানিমেশন সিনেমা, নাম ‘হাসিনা: দি আনটোল্ড স্টোরি’। এটি নির্মাণ করছেন রাতুল বিশ্বাস।

তিনি জানান, সিনেমাটি নির্মিত হবে নাল স্টেশন স্টুডিও থেকে। তত্ত্বাবধানে থাকছে আইসিটি বিভাগ। আর সিনেমাটি নিয়ে ইতিমধ্যেই তিনি দেখা করেছেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সঙ্গে। মন্ত্রী আশ্বাস দিয়েছেন, সিনেমাটি নির্মাণ করতে সর্বোচ্চ সহায়তা করবে আইসিটি বিভাগ।

‘হাসিনা: দি আনটোল্ড স্টোরি’ সিনেমার গল্প শুরু হবে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় থেকে। দেখা যাবে প্রধানমন্ত্রীর ২০৪১ সালের পরিকল্পনা পর্যন্ত।
নির্মাতার কথায়, ‘প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে লেখা নানা বই থেকে আমরা চিত্রনাট্য তৈরির চেষ্টা করছি। তবে চিত্রনাট্য চূড়ান্ত করা হবে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে। কারণ, তিনিই সবচেয়ে ভালো জানেন, সেই সময়ে কী ঘটেছিল, কীভাবে ঘটেছিল, কেমন ছিল তার মানসিক অবস্থা।’

রাতুল বলেন, ‘এই সিনেমার গল্প আমরা হয়তো সবাই জানি। কিন্তু ভিজ্যুয়ালটা দেখেনি অনেকেই। সিনেমাটি নির্মিত হবে উন্নতমানের টেকনোলজি দিয়ে। যেমনটা হয় হলিউডে। সিনেমা দেখে যেন মনে হয়, এটা রিয়েল শুট করা। এখানে থাকবে এআই প্রযুক্তির ব্যবহার। আমরা এমন একটি প্রজেক্ট নির্মাণ করতে চাই, যা দিয়ে আন্তর্জাতিক বাজারে লড়তে পারি। আমাদের প্রধান লক্ষ্য সিনেমাটি দিয়ে অস্কারে ফাইট দেওয়া।’

এদিকে, সম্প্রতি প্রকাশ করা হয়েছে সিনেমার টিজার। ১ মিনিট ৩৫ সেকেন্ডের ভিডিওতে দেখা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে।

জানা গেছে, ‘দি আনটোল্ড স্টোরি’র ব্যাপ্তি হবে প্রায় তিন ঘণ্টা। এটি ডাবিং করা হবে বাংলা, হিন্দি ও ইংরেজি ভাষায়। সব ঠিক থাকলে আগামী ২০২৫ সালে প্রেক্ষাগৃহে সিনেমাটি মুক্তি দিতে চান নির্মাতা। এর সহপরিচালক হিসেবে আছেন আরটিবি রুহান, মিউজিকের দায়িত্বে আছেন সালমান জেইম।

   

রোহিতের রিল-রিয়েল লাইফ হিরো দীপিকা



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
রোহিতের রিল-রিয়েল লাইফ হিরো দীপিকা

রোহিতের রিল-রিয়েল লাইফ হিরো দীপিকা

  • Font increase
  • Font Decrease

বাঘের মতো থাবা দিতে প্রস্তুত নারী পুলিশ অফিসার। কপ ইউনিভার্সের প্রথম নারী পুলিশ সদস্য শক্তি শেঠি। শুধু তাই নয়, পরিচালক রোহিতের হিরোও তিনি। এই শক্তি শেঠি এর কেউ নন, বলিউডের অন্যতম সেরা অভিনেত্রী দীপিকা পাডুকোন।  

নারীশক্তির ধারক শক্তি শেঠি। কপ ইউনিভার্সের নতুন সদস্য তিনি। পরিচালক এই চরিত্রকে নিজের হিরো মনে করেন। ১৯ এপ্রিল (শুক্রবার )তাঁর ইন্সটাগ্রাম একাউন্ট থেকে এই তথ্য নিজেই জানান দেন রোহিত। বর্তমানে গর্ভাবস্থায় থাকলেও সিংহাম এগেইনের শ্যুটিং করছেন দীপিকা। শক্তি চরিত্রের এক ঝলক প্রকাশ করলেন রোহিত। 

এই চরিত্রে অভিনয় করেছেন দীপিকা পাডুকোন। আসন্ন সিংহাম সিরিজের ৩য় কিস্তি সিনেমা সিংহাম এগেইন সিনেমায় এই চরিত্রে দেখা যাবে দীপিকাকে। পুলিশের ইউনিফর্মে দীপিকা পাডুকোন, কব্জিতে আইকনিক সিংহাম ভঙ্গি। সেই ছবির ক্যাপশনে লিখেছেন,’ আমার হিরো। রিল এবং রিয়েল লাইফ- দুই জায়গাতেই, নারী সিংহাম।


অজয় দেবগণের সিংহাম সিনেমা দিয়ে শুরু হয়েছিল কমেডি পরিচালক রোহিত শর্মার কপ ইউনিভার্স। এরপর ইউনিভার্সে একে একে জুড়েছে নতুন সব চরিত্র। রণবীর সিংয়ের সিম্বা এবং অক্ষয় কুমারের সূর্যবংশী দু’টো সিনেমাই রোহিত শেঠির কপ ইউনিভার্সের অংশ। এই ৩ জন দমদার পুলিশ অফিসারকে একত্রে স্ক্রিনে দর্শক দেখতে পায় কপ ইউনিভার্সের সর্বশেষ সিনেমা সূর্যবংশীতে।

এই কপ ইউনিভার্সের আরো অনেক চমক অপেক্ষা করছিল ভক্তদের জন্য। এরমধ্যেই নেটিজেনদের জন্য চমক নিয়ে হাজির হলেন পরিচালক রোহিত শেঠি নিজেই। এই ছবির মাধ্যমেই ঘোষ্ণা দিলেন- দীপিকা পাডুকোন রোহিত শর্মার কপ ইউনিভার্সের নতুন সিংহাম। ভক্তদের ম্ধ্যে ইতোমধ্যেই দীপিকার এই চরিত্র সাড়া ফেলেছে। ছবিটির কমেন্ট সেকশনে ভক্তদের মন্তব্য তারই জানান দেয়। দর্শক ফ্রাঞ্চাইজির এই নতুন ধাপ দেখার জন্য মুখিয়ে রয়েছে।

;

খালিদকে স্মরণ করে শুরু হচ্ছে টিএমএম বাংলা সংগীত প্রতিযোগিতা



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
খালিদকে স্মরণ করে শুরু হচ্ছে টিএমএম বাংলা সংগীত প্রতিযোগিতা

খালিদকে স্মরণ করে শুরু হচ্ছে টিএমএম বাংলা সংগীত প্রতিযোগিতা

  • Font increase
  • Font Decrease

টিভি মেট্রো মেইল কানাডার ব্যানারে সংগীত শিল্পী খালিদকে স্মরণ করে অনলাইনে শুরু হচ্ছে 'টিএমএম বাংলা সংগীত প্রতিযোগিতা ২০২৪'। উত্তর আমেরিকায় বসবাসরত ১৬ বছরের ঊর্ধ্বে যে কোনো প্রতিযোগী রেজিস্ট্রেশন করে নিজের গানের ভিডিও পাঠাতে পারবেন। প্রতিযোগী সেরা দশজনকে নিয়ে অনলাইনে অনুষ্ঠিত হবে তিন পর্বের ফাইনাল রাউন্ড। 

এই প্রতিযোগিতায় বিচারক হিসেবে থাকবেন বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় সংগীত শিল্পীরা। প্রতিযোগিতার বিভিন্ন পর্বে বিচারক হিসাবে থাকবেন সংগীত শিল্পী তপন চৌধুরী , সামিনা চৌধুরী, আশিকুজ্জামান টুলু, সাইদ হাসান টিপু (অবসকিউর), তানভীর তারেক, এবং তরুণ মুন্সী। আগামী ২৫-২৬ মে এবং জুনের ১ তারিখ টরন্টো/নিউইয়র্ক সময় দুপুর ১২টা আর ঢাকা সময় রাত ১০টায় যথাক্রমে অনুষ্ঠিত হবে এই তিনটি পর্ব।

সেরা ১০ জনকে পুরস্কার হিসেবে দেওয়া হবে বিশেষ সনদপত্র এবং সেরা ৩ জনকে সনদপত্রসহ পুরস্কার হিসাবে টিভি মেট্রো মেইলের ব্যানারে দেশের স্বনামধন্য সংগীত শিল্পীদের তত্ত্বাবধানে ১টি করে মৌলিক গান সুর ও কম্পোজে করে দেয়া হবে।

প্রতিযোগিতাটির আয়োজক টিভি মেট্রো মেইলের নির্বাহী সম্পাদক ইমামুল হক জানান, "অনলাইনে বাছাইপর্ব অনুষ্ঠিত হলেও মূল তিনটি পর্ব হবে সরাসরি লাইভ। এই প্রতিযোগিতাটির মাধ্যমে আমরা উত্তর আমেরিকাতে বাংলা সংগীতের জন্যে প্রতিভাবান সংগীতশিল্পীদের উৎসাহিত করতে চাই। টিএমএম এর পুরো আয়োজনটি সদ্য প্রয়াত সংগীত শিল্পী খালিদকে স্মরণ করে করা হচ্ছে।"

বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত ১৬ বছরের ঊর্ধ্বে উত্তর আমেরিকার অধিবাসী যে কেউ এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারবেন। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী শিল্পীরা কেবল মাত্র একটি বাংলা গান, আধুনিক, ব্যান্ড সঙ্গীত অথবা লোক সঙ্গীত, ১৫ মে এর মধ্যে পাঠাতে পারবেন।

অনলাইন এ রেজিস্ট্রেশন শুরু হয়েছে। বাদ্যযন্ত্র ছাড়া, কিংবা বাদ্যযন্ত্র সহ কিংবা মিউজিক ট্র্যাক ব্যবহার করে নিজকণ্ঠে গাওয়া যে কোনো বাংলা গানের (cover song) ভিডিও ক্লিপ ‘টিভি মেট্রো মেইলের’ নির্দিষ্ট ঠিকানায় পাঠাতে হবে।

সংগীত শিল্পী তপন চৌধুরী, সামিনা চৌধুরী, আশিকুজ্জামান টুলু, সাইদ হাসান টিপু, তানভীর তারেক, মালিহা চৌধুরী মালা এবং ইমামুল হক গত শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) এক অনলাইন প্রস্তুতি সভায় মিলিত হয়ে আয়োজনের নানান বিষয় সিদ্ধান্ত নেন। প্রতিযোগিতার বিস্তারিত নিয়মাবলী ও শর্তের জন্যে আয়োজকরা TV Metro Mail এর ফেসবুক পেজ, ইভেন্ট পেজ ও ইউটিউবে নজর রাখবার জন্যে সবাইকে অনুরোধ জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত তথ্য জানতে চাইলে ইমেইল করতে পারেন।

;

টেলরের ব্রেকআপ গানে সবাই কাঁদছে কেন?



বিনোদন ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

‘দ্য টর্চারড পোয়েটস ডিপার্টমেন্ট’ টেলর সুইফটের ১১ তম স্টুডিও অ্যালবাম। আবেগে ভরপুর এ অ্যালবামের জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলেন ভক্তরা। অপেক্ষার পালা শেষে একসাথে একটি ডবল অ্যালবাম বের করেছেন তিনি।

গানে গানে শ্রোতাদের হৃদয়ে কাপন ধরিয়ে দিয়েছে সুইফট। গানের কথায় উঠে এসেছে বাস্তবতার ছোঁয়া।

সুইফটের ছয় বছরের সম্পর্কের অবসানের পর "দ্য টর্চারড পোয়েটস ডিপার্টমেন্ট" প্রথম রিলিজ ঘোষণা করা হয়। এতে ব্রেকআপ গানে রাগ, দুঃখ, আকাঙ্ক্ষা এবং বিভ্রান্তির কথা দর্শকদের কাছে ফুটে উঠেছে।

গানে গানে প্রেম ভেঙে যাওয়ার গল্প তুলে এনেছেন শিল্পি। বিয়ের আংটি বদলের পর বিচ্ছেদে তার হৃদয় ভেঙ্গে যায়, সে তার জীবনের গতি হারায়- এই ধরণের ব্যথা শ্রোতাদরে সামনে হাজির করেছেন টেলর।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, হৃদয়বিদারক সঙ্গীতের সাথে শ্রোতাদের সংযোগ করা স্বাভাবিক এবং সহায়ক। সুইফট এ অ্যালবাম সম্পর্কে তার নিজস্ব দর্শন ইনস্টাগ্রাম পোস্টে ভক্তদের সাথে ভাগ করেছেন।

ওহিও স্টেট ইউনিভার্সিটি ওয়েক্সনার মেডিকেল সেন্টারের গ্যাবে ওয়েল-বিয়িং অফিস এবং স্ট্রেস, ট্রমা অ্যান্ড রেজিলিয়েন্স (স্টার) প্রোগ্রামের পরিচালক আরিয়ানা গালিঘর বলেছেন, এই লেখকের দৃঢ় বিশ্বাস চোখের পানি কাগজের পাতায় কালির মতো পবিত্র। একবার আমরা আমাদের সবচেয়ে দুঃখজনক গল্পটি বলে ফেললে, আমরা এটি থেকে মুক্ত হতে পারি।

তিনি বলেন, আপনি যদি "অল টু ওয়েল"-এর একটি পারফরম্যান্স দেখে থাকেন তবে আপনি জানেন যে সুইফট সবচেয়ে হৃদয়বিদারক অংশগুলিকে চিৎকার করে গান গাইতে দারুণ আনন্দ পায়।

ওহিও স্টেট ইউনিভার্সিটি ওয়েক্সনার মেডিক্যাল সেন্টারের মনোবিজ্ঞানী ড. জ্যারিড হিসার বলেছেন, আপনি নিজে ব্রেকআপের মধ্যে না থাকলেও, অতীতের অভিজ্ঞতাগুলো থেকে সেই আবেগগুলোকে আবার ব্যবহার করা সাহায্য করতে পারে।

তিনি বলেন, আমরা সবাই এই আবেগ এড়ানোর ফাঁদে পড়ে যাই। অতীতের মানুষটার কাছে ফিরে গেছেন এমন ভাবনা চলে আসে।

এই প্রক্রিয়াটি সেই অভিজ্ঞতাগুলির আরও গ্রহণযোগ্যতার দিকে নিয়ে যেতে পারে এবং আপনি যদি সেগুলি সম্পর্কে পুরোপুরি ঠিক বোধ না করেন তবে এটি ঠিক আছে।

হিসার বলেন, যারা সেই কঠিন অভিজ্ঞতা এবং আবেগগুলি মনে করতে নিরাপদ বোধ করেন না, সঙ্গীত এমন মানুষদের জন্য মুখ্য হতে পারে। আমি মনে করি এটি মননশীলতার একটি সহজ উপায়। তিনি বলেন। "যদি আমরা সব সময় মননশীল হতে সক্ষম হই, তবে এটি দুর্দান্ত হবে, কিন্তু আমাদের বেশিরভাগই পারে না।

গ্যালিগার বলেছেন, সুইফটের ব্রেকআপ গানের কথা লেখার মধ্যে যে সূক্ষ্মতা রয়েছে তা প্রকাশ হওয়ার পরই তিনি সাফল্য পেয়েছেন।

তিনি বলেন, যদিও তার লেখায় দুঃখ এবং ক্ষতি হতে পারে, তবে তার কাজে ক্ষমতায়নের থিমও রয়েছে।


তার নতুন অ্যালবাম, "ফ্রেশ আউট দ্য স্ল্যামার" এর একটি গানে, সুইফট লিখেছেন ‘প্রতিদিন তার হাসি এক ঝলকের জন্য অদৃশ্য হয়ে যায়’। এ থেকে তিনি শিখেছেন, তিনি মুক্ত, এবং তিনি পাঠকে এগিয়ে নিতে চলেছেন তার সাথে।

গ্যালিগার বলেছেন, তিনি সর্বদা প্রতিশোধমূলক ব্রেক আপ গানের সাথে জিলটেড প্রাক্তনের ট্রপ অনুসরণ করেন না।

তিনি বলেন, তার অনেক গান আসলে কথোপকথনে কিছুটা ভারসাম্য আনে। "এবং হ্যাঁ, (কিছু গান) এক ধরণের হাইলাইট 'এ কারণেই আমি একটি সীমানা নির্ধারণ করছি', তবে প্রায়শই এমন গানের কথাও রয়েছে যা 'আমি কীভাবে বড় হয়েছি এবং পরিবর্তিত হয়েছি এবং আমি নিজের সম্পর্কে কী শিখেছি তা এখানে রয়েছে।

সুইফ্ট তার ইনস্টাগ্রাম পোস্টে অ্যালবামটিকে প্রাসঙ্গিক করে বলেছেন যে গানগুলিতে অনুভূতির প্রকাশের অর্থ এই নয় যে এখনে একজন ভিলেন এবং একজন নায়ক রয়েছে।

ব্রেকআপ গান সান্ত্বনাদায়ক, ক্ষমতায়ন করতে পারে। এখানে খুব বেশি ভালো জিনিসও থাকতে পারে। এই আবেগগুলি উপস্থিত থাকার জন্য স্থান দেওয়া সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ, এবং সঙ্গীত সত্যিই আমাদের এটিতে ট্যাপ করতে সহায়তা করতে পারে।

;

জিতেই যেতেন নিপুণ, তবে...



বিনোদন ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
নিপুণ /  ছবি : ফেসবুক

নিপুণ / ছবি : ফেসবুক

  • Font increase
  • Font Decrease

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে ডিপজলের কাছে সাধারণ সম্পাদক পদে মাত্র ১৬ ভোটের ব্যবধানে হেরেছেন দুই বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত চিত্রনায়িকা নিপুণ আক্তার। আজ (২০ এপ্রিল) সকালে ফল ঘোষণার পরে ডিপজলকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে নিয়েছেন পরাজিত এই প্রার্থী।

এ সময় সাংবাদিকদের নিপুণ বলেন, ‘ডিপজল ভাইয়ের বিপক্ষে মাত্র ১৬ ভোটে হারবো সেটা আমি চিন্তাও করিনি। আমি ভেবেছিলাম ডিপজল সাহেবের সঙ্গে আমি যখন দাঁড়াবো, খুব বেশি হলে ৫০টা ভোট পাবো।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার ২৬টা ভোট নষ্ট হয়েছে, ২০৯টি ভোট আমি পেয়েছি। যেখানে ডিপজল ভাই পেয়েছেন ২২৫টি ভোট। শিল্পী সমিতির ভাই-বোনেরা প্রমাণ করে দিয়েছেন যে, তারা আমাকে ভালোবাসেন। আমাকে এত সম্মান দেওয়ার জন্যে আমি তাদেরকে ধন্যবাদ দিতে চাই।’

নিপুণ /  ছবি : ফেসবুক

নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে মন্তব্য করে নিপুণ আরও বলেন, ‘প্রথমেই ধন্যবাদ জানাই ২০২৪-২৬ নির্বাচন যারা পরিচালনা করেছেন তাদের। আমার মনে হয় আমার টার্মে থেকে আমি খুব সুন্দর একটি নির্বাচন পরিচালনা করেছি।’

তকাল শুক্রবার চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশন (বিএফডিসি) প্রাঙ্গনে শিল্পী সমিতির কার্যালয়ে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে শুরু হয় ভোটগ্রহণ। চলে বিকেল ৬টা পর্যন্ত। ভোটগ্রহণের পর ভোট গণনা শুরু হয় রাত আটটায়। রাতভর গণনা শেষে সকাল পৌনে ৭টার দিকে দিকে প্রাথমিকভাবে ভোট ভোটের ফলাফল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার খোরশেদ আলম খসরু।

;