সুদানে দুর্ভিক্ষে মারা যাচ্ছে শিশু, খাবারের বিনিময়ে নারীরা বেছে নিচ্ছেন যৌনতা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: আল জাজিরা

ছবি: আল জাজিরা

  • Font increase
  • Font Decrease

সুদানে সামরিক ও আধা সামরিক বাহিনীর দুই গ্রুপের যুদ্ধের এক বছর পর তীব্র খাদ্য সংকটে পড়েছে দেশটি। খাদ্যের অভাবে ক্ষুধায় মারা যাচ্ছে শিশুরা, দেশটিতে অসুস্থ মানুষেরা অর্থ খরচ করে ওষুধ না কিনে সেই অর্থ দিয়ে খাবার কিনে খাচ্ছেন। এমতাবস্থায় দেশটিতে দুর্ভিক্ষ দেখা দিয়েছে।

গত বছরের এপ্রিলের মাঝামাঝি সেনাপ্রধান আবদেল ফাত্তাহ আল-বুরহান এবং আধাসামরিক র‌্যাপিড সাপোর্ট ফোর্সেসের (আরএসএফ) প্রধান মোহাম্মদ হামদান "হেমেদতি" দাগালোর দ্বন্দ্বের জেরে প্রকাশে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে দুই গ্রুপ।

যুদ্ধ শুরুর পর থেকে দেশটিতে কৃষি উৎপাদন অনেক কমে যায়। গত এক বছরে দেশটিতে উল্লেখযোগ্য খাদ্যের দাম বেড়েছে এবং পর্যাপ্ত খাবারও পাওয়া যাচ্ছে না।

সারাদেশে বেসামরিক মানুষদের সাহায্য করা স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘ইমার্জেন্সি রেসপন্স রুম’র (ইআরআর) মুখপাত্র মুখতার আতিফ বলেছেন, যুদ্ধে বেসামরিকরা নীরবে মারা যাচ্ছেন।

আতিফের নেটওয়ার্ক সংগঠনটি জাতীয় রাজধানী অঞ্চলের তিনটি শহরের খার্তুম উত্তরের ৭০টি সম্প্রদায়ের প্রায় ৪৫ হাজার মানুষকে খাবারসরবরাহ করে।

ইআরআর সুদান জুড়ে হাজার হাজার মানুষের ভরসাস্থল হয়ে ওঠেছে। কিন্তু মাঝে মাঝে বিভিন্ন জায়গায় পৌঁছনো তাদের জন্য সীমিত করা হয়ে থাকে। সংগঠনটি অনুদানের উপর নির্ভর করে তাদের কর্যক্রম চালায়, যার বেশিরভাগই আসে মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাপের মাধ্যমে। গত ফেব্রুয়ারি মাসে যোগাযোগ বিভ্রাট শুরু হওয়ার এটি প্রায় বন্ধ হয়ে যায়।

এ সংগঠনের সহায়তা ছাড়া শত শত রান্নাঘরে আগুন জলে না। প্রতিদিন সাহায্যের জন্য দীর্ঘ সারি দেখা যায়। মানুষেরা জ্বালানীর জন্য পাত্র হাতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকে।

যদিও যুদ্ধটির বেশিরভাগই খার্তুমকে কেন্দ্র করে চলছে। যুদ্ধ শুরুর পর এ অঞ্চলের মানুষেরা বিভিন্ন দিকে ছড়িয়ে পড়ে। যুদ্ধের ফলে খাদ্য ও ত্রাণবাহী যানবাহনের নিয়মিত চলাচলকে মারাত্মকভাবে সীমিত করা হয়েছে এবং সুদানে ক্ষুধার সংকট আরও গভীর হয়েছে।

জাতিসংঘ অনুমান করেছে, প্রায় ২৫ মিলিয়ন মানুষের জন্য সাহায্যের প্রয়োজন যা সুদানের মোট জনসংখ্যার অর্ধেক। সংঘাতে ৮ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ তাদের বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছে।

জাতিসংঘের একটি সূত্র আল জাজিরাকে জানিয়েছে, যুদ্ধরত উভয় পক্ষই খাদ্য সহায়তায় বাধা সৃষ্টি করছে। তারা নিজেদের নিয়ন্ত্রিত এলাকায় খাবার পৌঁছাতে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করছে।

সুদানে সহায়তার খাবারের জন্য অপেক্ষা 

সেনাবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে থাকা সুদানের এক পোর্ট দিয়ে আধাসামরিক বাহিনীর নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকার বেসামরিক মানুষদের জন্য পাঠানো সহায়তা বেশ কয়েকটি ধাপ অতিক্রম করতে হয়। আল জাজিরার সূত্র বলছে, এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পাঁচটি ভিন্ন স্ট্যাম্পের প্রয়োজন। এতে কয়েক দিন থেকে সপ্তাহ পর্যন্ত সময় নিতে পারে। গত জানুয়ারি মাসে ৭০টিরও বেশি ট্রাক ছাড়পত্রের জন্য দুই সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে এ বন্দরে অপেক্ষায় ছিল।

আধাসামরিক বাহিনীর নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকায় সাহায্য পৌঁছাতে বাধা দেয় কিনা জানতে চাইলে আল জাজিরাকে কোনো উত্তর দেয়নি সেনাবাহিনী।

সূত্রটি আরও জানিয়েছে, অক্টোবর থেকে উত্তর কর্ডোফান রাজ্যে ৭০টিরও বেশি ত্রাণবাহী ট্রাক আটকা পড়েছে। একটি এলাকায় সেনাবাহিনী নিয়ন্ত্রণ করে তবে আরএসএফ দ্বারা বেষ্টিত। এ এলাকায় সহায়তার ট্রাক নিরাপদে যেতে হলে ট্যাক্স দিয়ে যেতে হয়। তা অর্থ, পণ্য বা জ্বালানিই হোক না কেন।

আরএসএফের মুখপাত্র আবদেল রহমান আল-জালি ত্রাণবাহী গাড়ি থেকে অর্থ নিয়ে লাভবান হচ্ছে কিনা সে বিষয়ে লিখিত প্রশ্নের কোনো জবাব দেননি।

প্রায় দুই মাস মোবাইল নেটওয়ার্ক বন্ধের কারণে খাদ্য সংকট আরও জটিল হয়েছে। এ সময় মানুষের বিদেশে থাকা আত্মীয়দের পাঠানো রেমিট্যান্সও সংগ্রহ করতে পারেনি তারা। মোবাইল নেটওয়ার্ক অনেকের জন্য গুরুত্বপূর্ণ তারা মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাপের মাধ্যমে অর্থ গ্রহণ করার জন্য ব্যবহার করে।

গত তিন সপ্তাহে ধরে এলন মাস্কের স্টারলিঙ্ক স্যাটেলাইট যোগাযোগ পরিষেবা সংযোগ দেওয়ার জন্য প্রস্তাব দিচ্ছে। কিন্তু ঐ এলাকায় এটি একটি ব্যবসায় পরিণত হয়েছে। কিছু এলাকায় মানুষকে ১০ মিনিটের জন্য সংযোগ পেতে হলে ৪ হাজার সুদানিজ পাউন্ড (৬.৬ ডলার) পর্যন্ত দিতে হবে।

ডাব্লুএফপি কর্মকর্তা এবং কর্মীরা জানিয়েছেন, পিতামাতারা তাদের সন্তানদের কম খাবার খাওয়াচ্ছেন। তাদের শেষ সম্বল বিক্রি করছেন, অর্থের জন্য ভিক্ষা করছেন বা ওষুধ থেকে খাবারের জন্য অর্থ সরিয়ে নিচ্ছেন।

সুদানিজ থিঙ্ক ট্যাঙ্ক ফিকরার নীতি ও ওকালতিতে কর্মরত একজন রাজনৈতিক ভাষ্যকার ডালিয়া আবদেলমোনিয়েম জানিয়েছেন, পরিবারের নিরাপত্তা এবং খাবারের নিশ্চয়তা পাবার জন্য মহিলারা যৌন বিনিময় এবং আরএসএয় যোদ্ধাদের উপপত্নী হতে বাধ্য হচ্ছেন।

সুদানে লিঙ্গ-ভিত্তিক সহিংসতার শিকার নারীদের সাথে কাজ করা একজন কর্মী বলেছেন, এখানে বেঁচে থাকার জন্য যৌনতা একটি "সাধারণ প্রবণতা" হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে।

গত ১৬ মার্চ একটি ল্যানসেট রিপোর্টে বলা হয়, ক্ষুধার সংকটের সাথে সাথে স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থার পতন হয়েছে। রাজধানী খার্তুমের একমাত্র অবশিষ্ট শিশু স্বাস্থ্য সুবিধা বেষ্টিত আল-বালুক হাসপাতালে প্রতি সপ্তাহে দুই বা তিনটি শিশু ক্ষুধায় মারা যায়।

যুক্তরাজ্যের দাতব্য সংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেন জানিয়েছে, আগামী মাসে ক্ষুধার কারণে ২ লাখ ৩০ হাজার শিশু, গর্ভবতী মহিলা এবং নতুন মা মারা যেতে পারে।

ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচার অর্গানাইজেশন (এফএও) গত সপ্তাহে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে জানায়, ২০২৩ সালে সুদানের শস্য উৎপাদন প্রায় অর্ধেক হয়। সবচেয়ে বেশি খাদ্য শস্য উৎপাদন কমে যেখানে সংঘাত সবচেয়ে তীব্র ছিল। এফএও জানায়, বৃহত্তর কর্ডোফান রাজ্য এবং দারফুরের অঞ্চলগুলিতে গড়ে ৮০ শতাংশ উৎপাদন কম হয়।

   

সলোমন দ্বীপপুঞ্জে সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারাল চীনপন্থী প্রধানমন্ত্রী মানসেহ সোগাভারে



আন্তর্জাতিক ডেস্ক বার্তা২৪.কম
ছবি: আল-জাজিরা

ছবি: আল-জাজিরা

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপরাষ্ট্র সলোমন দ্বীপপুঞ্জের নির্বাচনে নিজেদেগর সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিশ্চিত করতে পারেনি চীনপন্থী প্রধানমন্ত্রী মানসেহ সোগাভারে। প্রতিদ্বন্দ্বী বিরোধী রাজনীতিবিদদের সাথে জোট গঠন ছাড়া নতুন করে সরকার গঠন করতে পারবেন না তিনি।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) নির্বাচনী ফলাফলে দেখা গেছে সোগাভারের ‘আওয়ার পার্টি’ জাতীয় সংসদে ৫০টি আসনের মধ্যে ১৫টি আসন জিতেছে, যেখানে প্রধান বিরোধী দলগুলো ২০টি এবং স্বতন্ত্র ও ক্ষুদ্র দলগুলি ১৫টি আসন পেয়েছে।

সলোমন দ্বীপবাসীরা এক সপ্তাহ আগে হওয়া নির্বাচনী লড়াইয়ে ভোট দেন। সোগাভারে ২০১৯ সালে তাইপেই থেকে বেইজিং-এ কূটনৈতিক সম্পর্ক পরিবর্তন করে চীনের সাথে একটি বিতর্কিত নিরাপত্তা চুক্তিতে সম্মত হয়েছিল।

ইউনাইটেড পার্টির নেতা পিটার কেনিলোরিয়া জুনিয়র তাইওয়ানের সাথে সম্পর্ক ফিরিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন এবং ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স পার্টির নেতা রিক হাউ রয়টার্স নিউজ এজেন্সিকে বলেছেন, সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় ২৬টি আসন নিশ্চিত করার জন্য রাজনীতিবিদরা স্বতন্ত্রদের লবিং করছেন।

বিশ্লেষকরা আল জাজিরাকে বলেছিলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় চীন সম্পর্কের দিকে মনোনিবেশ করতে পারে, সলোমন দ্বীপবাসীরা জীবনযাত্রার ব্যয়, স্বাস্থ্য এবং শিক্ষার মতো সমস্যা নিয়ে বেশি উদ্বিগ্ন ছিল।

সোগাভারে তার আসনে অল্প ভোটে পুনঃনির্বাচিত হওয়ার পর জানান, তিনি দেশের নিরাপত্তার নিয়ন্ত্রণে কাজ করছেন।

তাভুলি নিউজের এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, যখন এই দেশের নিরাপত্তার কথা আসে তখন আমি পূর্ণ নির্বাহী ক্ষমতা প্রয়োগ করি। আমি দেশ পরিচালনা চালিয়ে যাচ্ছি। তিনি সম্ভাব্য দাঙ্গা সম্পর্কে উদ্বিগ্ন বলেও জানিয়েছেন।

হোনিয়ারা ২০২১ সালে দাঙ্গায় কেঁপে উঠেছিল যখন বিক্ষোভকারীরা রাজধানীর চায়নাটাউনে ব্যবসাগুলিকে লক্ষ্যবস্তু করেছিল এবং সোগাভারের বাসভবনে হামলার চেষ্টা করেছিল। সে সময় সরকারের অনুরোধের প্রেক্ষিতে অস্ট্রেলিয়ান পুলিশের সহায়তায় শান্তি পুনরুদ্ধার হয়।

সোগাভারে বলেন, তার দলের প্রতি দুটি ছোট দলের সমর্থন রয়েছে। তিনি দাবি করেন, বিরোধী দলগুলি প্রধানমন্ত্রী হিসাবে কাকে সমর্থন করবে তা নিয়ে স্বতন্ত্রদের প্ররোচিত করবে।

ম্যাথু ওয়েলের সলোমন আইল্যান্ডস ডেমোক্রেটিক পার্টি (U4C) এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী রিক হাউ-এর ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স পার্টির (CARE) জোট ১৩টি আসনে রয়েছে।

কেনিলোরিয়া জুনিয়র বলেছেন যে তার দল, সাতটি আসন জিতেছে তারা সমমনা গ্রুপের সাথে একত্রিত হবে।

সলোমন দ্বীপপুঞ্জের শত শত দ্বীপ জুড়ে ৭ লাখ ৬০ হাজার জনসংখ্যা রয়েছে। নির্বাচন পরবর্তী সময়টি উত্তেজনাপূর্ণ হতে পারে কারণ রাজনীতিবিদরা একটি শাসক জোটকে একত্রিত করার চেষ্টা করছেন।

সোগাভারের সরকারের আমন্ত্রণে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, পাপুয়া নিউগিনি এবং ফিজির পুলিশ ও প্রতিরক্ষা বাহিনী নির্বাচনী নিরাপত্তায় সহায়তা করছে।

ইতিমধ্যে নির্বাচনের ফলাফলকে কেন্দ্র করে মালাইতা দ্বীপে দুটি গ্রামের মধ্যে সহিংসতা দমন করেছে পুলিশ।

;

মার্কিন সিনেটে ইসরায়েল-ইউক্রেনকে সহায়তা বিল অনুমোদন



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ইউক্রেন, ইসরায়েল ও তাইওয়ানের জন্য ৯৫ বিলিয়ন ডলারের সহায়তা প্যাকেজ অনুমোদন দিয়েছে মার্কিন সিনেট।

দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বুধবার এই বিলে স্বাক্ষর করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বিরোধীদের আপত্তি সত্ত্বেও বিলটি পাস হয়।
বুধবার (২৪ এপ্রিল) নিউ ইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশিত হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, মার্কিন সংসদের উচ্চকক্ষ সিনেটে ৭৯-১৮ ভোটে বিলটি পাস হয়েছে। মঙ্গলবার গভীর রাতে দেওয়া এক বিবৃতিতে বিলটি পাস করায় আইনপ্রণেতাদের প্রশংসা করেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন। এ সময় তিনি বলেন, গুরুত্বপূর্ণ এই আইন আমাদের দেশ ও বিশ্বকে আরও বেশি সুরক্ষিত করবে। আমরা আমাদের সেই বন্ধুদের সহায়তা করছি, যারা সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাস ও (রুশ প্রেসিডেন্ট) ভ্লাদিমির পুতিনের মতো স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে নিজেদের রক্ষায় লড়াই করছে।

এদিকে সহায়তা প্যাকেজ অনুমোদনের পর ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেন, এটি গণতন্ত্রের আলোকবর্তিকা এবং মুক্ত বিশ্বের নেতা হিসেবে আমেরিকার ভূমিকাকে শক্তিশালী করে।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটে পাস হওয়া বিদেশি সহায়তা প্যাকেজে ইসরায়েলে সামরিক ও গাজায় মানবিক সহায়তা হিসেবে ২৬ দশমিক ৪ বিলিয়ন ডলার বরাদ্দ রয়েছে। এছাড়া এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের মার্কিন মিত্র তাইওয়ানের জন্য ৮ দশমিক ১ বিলিয়ন ডলার সহায়তা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। কমিউনিস্ট শাসিত চীনকে মোকাবিলায় এই অর্থ সহায়তা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

;

সব হিন্দু শরণার্থী নাগরিকত্ব পাবে: নির্বাচনী প্রচারণায় অমিত শাহ



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভারতের লোকসভা নির্বাচনের প্রথম দফার ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। এবার সবার নজরে দ্বিতীয় দফার ভোট। আর তাই মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) প্রচার প্রচারণার জন্য ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা অমিত শাহ এসেছিলেন পশ্চিম বঙ্গে।

এ সময় ভাষণে অমিত শাহ বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলাদেশ থেকে আসা শরণার্থীদের আশ্রয় দিতে চাইছেন না। হিন্দু, বৌদ্ধ, শিখ, জৈন শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দিতে চাইছেন না। আমি কথা দিচ্ছি সব হিন্দু শরণার্থী নাগরিকত্ব পাবে।

এ বিষয়ে তৃণমূল কংগ্রেস নেতা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কড়া সমালোচনা করে তিনি বলেন, এবার আমরা এই বাংলা থেকে কাটমানির কালচার বন্ধ করে দুর্নীতিমুক্ত বাংলা গড়বো। সিএএ কার্যকর হবে। সিএএ ও এনআরসি বন্ধ করতে পারবে না মমতাদি।’

রাজ্যের মানুষ কেন কেন্দ্রীয় প্রকল্পের সুবিধা ভোগ করতে পারছে না, তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি। বলেন, মোদিজি গরিব মানুষের জন্য কাজ করেছেন। ১২ কোটির বেশি শৌচালয় বানানো হয়েছে। ৪ কোটির বেশি মানুষ নিজের বাড়ি পেয়েছেন। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন্দ্রীয় প্রকল্প এখানে আসতে দেন না।

এছাড়াও তিনি আরও বলেন, তৃণমূলের এক মন্ত্রীর বাড়ি থেকে ৫১ কোটি টাকা পাওয়া গেছে। তৃণমূলের যে নেতারা দশ বছর আগে ঝুপড়ি থাকত, সাইকেলে ঘুরত, তাদের এখন চারতলা বাড়ি।

এ সময় ভোটের টার্গেটের কথাও শোনান তিনি। পশ্চিম বঙ্গে বিজেপির লক্ষ্যমাত্রা ৪২টি সিটের মধ্যে তিরিশটির বেশি আসন জয়। শেষে বাংলার মানুষের কাছে চান ভোটের প্রতিশ্রুতি।

 

;

চলমান যুদ্ধের মধ্যেই রাশিয়ার উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী আটক



আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঘুষ নেয়ার অভিযোগে রাশিয়ার উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী তৈমুর ইভানভ কে আটক করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশিত হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, রাশিয়ার একজন উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে ঘুষ নেওয়ার সন্দেহে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির শীর্ষ তদন্তকারী সংস্থা। তদন্ত কমিটি মঙ্গলবার বলেছে, তৈমুর ইভানভকে আটক করা হচ্ছে এবং তার বিরুদ্ধে তদন্ত করা হচ্ছে।

ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ, রুশ সংবাদ সংস্থার বরাত দিয়ে বলেছেন, ইভানভকে আটকের বিষয়ে একটি প্রতিবেদন রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিনের কাছে উপস্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া তাকে আটকের বিষয়ে প্রতিরক্ষা মন্ত্রীকে আগেই জানানো হয়েছে।

দেশটির সংবাদ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অভিযোগ প্রমাণিত হলে ৪৮ বছর বয়সী ইভানভের ১৫ বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে।

বিবিসি বলছে, ২০১৬ সালে রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে নিযুক্ত হওয়া ৪৭ বছর বয়সী তৈমুর ইভানভ দেশটির সামরিক অবকাঠামো প্রকল্পের দায়িত্বে ছিলেন। মূলত অ্যাক্টিভিস্টরা দীর্ঘদিন ধরে রাশিয়ায় কথিত ব্যাপক মাত্রার দুর্নীতির সমালোচনা করে আসছেন।

তৈমুর ইভানভ পূর্বে মস্কো অঞ্চলের উপ-প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। আর এখানেই বর্তমান প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য গভর্নর হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তিনি শোইগুর ঘনিষ্ঠ সহযোগী ছিলেন বলে জানা যায়।

উল্লেখ্য, ইভানভের ওপর যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্যের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন তার বিরুদ্ধে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরাপের পাশাপাশি তার সম্পদও জব্দ করেছে।

;