আফগানিস্তানের ঐতিহাসিক হেরাত গ্র্যান্ড মসজিদ



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
আফগানিস্তানের ঐতিহাসিক হেরাত গ্র্যান্ড মসজিদ

আফগানিস্তানের ঐতিহাসিক হেরাত গ্র্যান্ড মসজিদ

  • Font increase
  • Font Decrease

আফগানিস্তানের দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশ হেরাতে অবস্থিত বিখ্যাত হেরাত গ্র্যান্ড মসজিদ। এই মসজিদকে আফগানিস্তানের ইতিহাস, সংস্কৃতি ও শিল্প তুলে ধরার এক অনন্য নজির হিসেবে উল্লেখ করা যায়। ইতিহাসে এসেছে, এই মসজিদের স্থানে অতীতে অ্যারিয়ানদের উপাসনালয় ছিল। জরাস্ট্রিয়ানরা এখানে অগ্নিমন্দির নির্মাণ করে আগুনের উপাসনা করত। হেরাতের জনগণ ইসলাম গ্রহণের পর ২৯ হিজরিতে অগ্নিমন্দিরকে মসজিদে রূপান্তর করা হয়।

হেরাত জামে মসজিদে আফগান কারুকার্যময় শিল্পের চমৎকার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। একসঙ্গে এক লাখ মুসল্লি এখানে জামাতে নামাজ আদায় করতে পারেন। বিশাল এলাকাজুড়ে নির্মিত এই মসজিদে রয়েছে ৪৬০টি গম্বুজ, ১২টি মিনার, ৪৪৪টি স্তম্ভ, ১৩০টি ছোটবড় ছাদযুক্ত বারান্দা এবং কোরআনে কারিমের আয়াতখচিত চারটি বিশাল শিলালিপি।

আফগানিস্তানের ঐতিহাসিক হেরাত গ্র্যান্ড মসজিদ

 

মসজিদের মিম্বরটি একখণ্ড বড় পাথর খোদাই করে তৈরি করা হয়েছে। হেরাত জামে মসজিদে রয়েছে একটি বিশাল অজুখানা, চার হাজার বইসমৃদ্ধ একটি পাঠাগার এবং একটি মাদরাসা। এই মসজিদ নির্মাণে ইট, চুনাপাথর ও টাইলসসহ ঐতিহাসিক স্থাপনা নির্মাণের সমস্ত উপাদান ও কলাকৌশল প্রয়োগ করা হয়েছে। মসজিদটির সৌন্দর্য চোখে না দেখলে বর্ণনা করে বোঝানো কঠিন।

মজার ব্যাপার হচ্ছে, একটি নির্দিষ্ট সময়ে পুরো মসজিদ তৈরি না হয়ে যুগে যুগে এর এক একটি অংশ নির্মিত হয়েছে বলে নানা যুগের স্থাপত্যশৈলী এখানে চোখে পড়ে। ঘোরী শাসনামল থেকে শুরু করে তৈমুরি শাসন হয়ে পরবর্তী নানা শাসকের শিল্পকর্ম ও স্থাপত্যশৈলী এই মসজিদে দেখতে পাওয়া যায়। শত শত বছর আগে নির্মিত মসজিদটি প্রাকৃতিক দুর্যোগসহ নানা কারণে ধ্বংসপ্রাপ্ত ও পুনর্নির্মিত হয়েছে।

আফগানিস্তানের ঐতিহাসিক হেরাত গ্র্যান্ড মসজিদ

 

৪১৪ হিজরিতে তখনকার কাঠনির্মিত মসজিদটির অর্ধেকটা আগুনে পুড়ে গিয়েছিল। জনগণের সহযোগিতা নিয়ে খাজা মোহাম্মাদ তাকি তখনকার মতো মসজিদটি মেরামত করেন। ওই ঘটনার প্রায় দুইশ’ বছর পর ফখরুদ্দিন রাজির প্রস্তাবনায় সুলতান গিয়াসুদ্দিন ঘোরী মসজিদটির পুনর্নিমাণের নির্দেশ দেন। তৎকালীন যুগের শ্রেষ্ঠ স্থাপত্যবিদ ও নির্মাণশিল্পীদের দিয়ে হেরাত জামে মসজিদ তৈরি হয়।

পরবর্তীতে হেরাতে চেঙ্গিস খানের হামলায় মসজিদটির অপূরণীয় ক্ষতি হয়। ৭০৭ হিজরিতে তৎকালীন সুলতান গিয়াসুদ্দিন কুর্তের নির্দেশে মসজিদটি পুনর্নির্মাণ করা হয় এবং এরসঙ্গে ‘গিয়াসিয়াহ’ নামে একটি মাদরাসা স্থাপন করা হয়। পাশাপাশি মসজিদে স্থাপন করা হয় ব্রোঞ্জ-নির্মিত একটি বিশাল পাত্র। চমৎকার কারুকার্যখচিত এই পাত্রে অতীতে ধর্মীয় উৎসবের দিনগুলোতে শরবত তৈরি করে হাজার হাজার মানুষের মাঝে বিতরণ করা হতো। চার দশমিক ছয় মিটার ব্যাসের পাত্রটির গভীরতা প্রায় দেড় মিটার।

মসজিদের কারুকাজ

 

হেরাত জামে মসজিদের আশপাশের মুসল্লিদের কানে আজান পৌঁছে দেওয়ার জন্য মসজিদটিতে যেসব মিনার সংযোজন করা হয় সেগুলোর উচ্চতা ১৭ থেকে ৩৬ মিটার পর্যন্ত। এসব মিনারের ব্যাস ৭ থেকে ১০ মিটার পর্যন্ত এবং এগুলোর প্রত্যেকটির ভেতর দিয়ে মিনারের শীর্ষে ওঠার সিঁড়ি রয়েছে। দশম হিজরিতে সুলতান হোসেইন বাইকারার শাসনামলে হেরাত জামে মসজিদ আরেকবার সংস্কার ও পুনর্নির্মাণ করা হয়।

১৯৪৩ সালে আফগানিস্তানের শেষ বাদশাহ মোহাম্মাদ জহির খানের নির্দেশে তৎকালীন সেরা স্থাপত্যবিদ আব্দুল্লাহ খান মেলকিয়ারের তত্ত্বাবধানে সর্বশেষবারের মতো এই মসজিদের সার্বিক সংস্কার করা হয়। মেলকিয়ার এমন একদল স্থাপত্যশিল্পীকে এই কাজে নিয়োজিত করেন যাদের ঐতিহ্যবাহী স্থাপত্যশৈলীতে দখল রয়েছে। এসব শিল্পী নিপুণ হাতে মসজিদের অতীত স্থাপত্যরীতি অক্ষুণ্ন রেখে এটির আধুনিকায়ন করেন।

মসজিদের প্রবেশদ্বার

 

বিস্ময়ের কথা হলো, ঐতিহাসিক এই মসজিদটির সংস্কার ও মেরামত কাজ এখনও অব্যাহত রয়েছে। হেরাতের মানুষের মধ্যে জনশ্রুতি রয়েছে, এই মসজিদের নির্মাণ কাজ কোনোদিন শেষ হবে না; যদি কোনোদিন শেষ হয়ে যায় সেদিন কেয়ামত সংঘটিত হবে।

মসজিদটিকে ইউনেসকোর বিশ্ব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, আফগানিস্তানে ঔপনিবেশিক শাসনের পর ঐতিহাসিক কোনো মসজিদ অক্ষত ছিল না। ১৯৪৫ সালে বিধ্বস্ত স্থাপনাগুলো পুনর্নির্মাণের একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। তখন মসজিদের উত্তর-পশ্চিমাংশ ১০১-১২১ মিটার পর্যন্ত সম্প্রসারণ করা হয়।

প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী সম্মেলন অনুিষ্ঠত



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী সম্মেলন অনুিষ্ঠত

প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী সম্মেলন অনুিষ্ঠত

  • Font increase
  • Font Decrease

তিন হাজারের বেশি প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয়েছে মিরপুররের জামিয়া হোসাইনিয়া ইসলামিয়া আরজাবাদের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী ‘আবনায়ে আরজাবাদ সম্মেলন’। সম্মেলনে বিশেষ নসিহত ও দোয়া পরিচালনা করেন শায়খুল হাদিস আল্লামা মুফতি তাজুল ইসলাম।

শনিবার (১২ নভেম্বর) সকাল নয়টায় শুরু হওয়া সম্মেলন শেষ হয় আসরের নামাজের আগে। ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে বিগত পঞ্চাশ বছরে আরজাবাদ মাদরাসা থেকে হাফেজ, মাওলানা ও মুফতিসহ প্রাক্তন ছাত্ররা দিনটি আনন্দঘন পরিবেশে কাটিয়েছেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জামিয়া আরজাবাদের মুহতামিম মাওলানা বাহাউদ্দিন যাকারিয়া। অনুষ্ঠান পরিচালন করেন মুফতি মুরতাজা হাসান ফয়জি মাসুম, মুফতি মাহমুদুল হাসান ও মাওলানা সাইফুদ্দিন ইয়াহইয়া ফাহিম।


অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন শায়খুল হাদিস মাওলানা আবদুল কুদ্দুস, মাওলানা রহুল আমিন উজানভী, মাওলানা আবদুস সালাম, মাওলানা মুঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী, মাওলানা লোকমান মাজহারী, মাওলানা হাবিবুল্লাহ মাহমুদ কামেসী, মাওলানা শামছুল আরেফিন খান, মুফতি এনায়েতুল্লাহ, মাওলানা ওয়ালী উল্লাহ আরমান ও প্রমুখ।

দেশের অন্যতম দীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রাজধানীর জামিয়া হোসাইনিয়া ইসলামিয়া আরজাবাদ, মিরপুর। ১৯৭০ সালে প্রতিষ্ঠিত এই মাদরাসায় ১৯৮৫-৮৬ শিক্ষাবর্ষে দাওরায়ে হাদিসের দরস শুরু হয়। এর আগে থেকেই হিফজসহ অন্যান্য বিভাগ চালু ছিল। পরবর্তী সময়ে পবিত্র রমজান মাসে তাফসির ও ফেরাকে বাতেলাসহ বিশেষ কোর্স চালু হয়। ২০০০ সালে খোলা হয় ইফতা বিভাগ।

ঐতিহ্যবাহী জামিয়া আরজাবাদের সঙ্গে জড়িয়ে আছে মুজাহিদে মিল্লাত আল্লামা শামছুদ্দীন কাসেমী (রহ.), মাওলানা মোস্তফা আজাদ (রহ.), মাওলানা রিজাউল কারিম ইসলামাবাদী (রহ.)-এর মতো গুণীজনদের স্মৃতি। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির মুহতামিদের দায়িত্ব পালন করছেন আল্লামা শামছুদ্দীন কাসেমী (রহ.)-এর বড় ছেলে মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া।

সম্মেলনে আরজাবাদ মাদরাসার সাবেক ও বর্তমান শিক্ষকদের বিশেষ সম্মাননা জানানো হয়। এ উপলক্ষে মাসিক পয়গামে হক্বের একটি বিশেষ সংখ্যা বের করা হয়। সংখ্যাটি সাজানো হয়েছে আরজাবাদ মাদরাসার মরহুম, সাবেক এবং বর্তমান শিক্ষকদের জীবনী দিয়ে। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদের বিভিন্ন স্মারক উপহার দেওয়া হয়।

;

শনিবার জামিয়া আরজাবাদের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী সম্মেলন



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
শনিবার জামিয়া আরজাবাদের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী সম্মেলন

শনিবার জামিয়া আরজাবাদের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী সম্মেলন

  • Font increase
  • Font Decrease

ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা আর বর্ণিল আয়োজনে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে দেশের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান রাজধানীর মিরপুরের জামিয়া হোসাইনিয়া ইসলামিয়া আরজাবাদের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী ‘আবনায়ে আরজাবাদ সম্মেলন’।

শনিবার (১২ নভেম্বর) সকাল নয়টা থেকে শুরু হয়ে আয়োজন চলবে সন্ধ্যা পর্যন্ত। আয়োজনে যোগ দিতে ইতোমধ্যেই প্রায় তিন হাজার প্রাক্তন শিক্ষার্থী নিবন্ধন সম্পন্ন করেছেন। যাদের মধ্যে বিগত পঞ্চাশ বছরে আরজাবাদ মাদরাসা থেকে হাফেজ, মাওলানা ও মুফতিদের পাশাপাশি বিভিন্ন কোর্সের শিক্ষার্থী এবং প্রাক্তন ছাত্ররা রয়েছেন।

পারস্পরিক সহযোগিতা, চেনা-জানা ও সম্পর্ক উন্নয়নের লক্ষে আয়োজিত পুনর্মিলনী সম্মেলনটি কর্তৃপক্ষ হৃদ্যতাপূর্ণ পরিবেশের মধ্য দিয়ে পালন করতে যাচ্ছে। প্রাক্তন ছাত্রদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে আরজাবাদ মাদরাসা থেকে হিফজ, দাওরায়ে হাদিস ও ইফতা সমাপ্তকারী ছাত্রদের পাশাপাশি রমজানের বিশেষ কোর্স এবং আরজাবাদ মাদরাসায় যেকোনো এক বছর পড়ালেখা করেছেন এমন শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণের সুযোগ পাচ্ছেন।

দেশের অন্যতম দীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রাজধানীর জামিয়া হোসাইনিয়া ইসলামিয়া আরজাবাদ, মিরপুর। ১৯৭০ সালে প্রতিষ্ঠিত এই মাদরাসায় ১৯৮৫-৮৬ শিক্ষাবর্ষে দাওরায়ে হাদিসের দরস শুরু হয়। এর আগে থেকেই হিফজসহ অন্যান্য বিভাগ চালু ছিল। পরবর্তী সময়ে পবিত্র রমজান মাসে তাফসির ও ফেরাকে বাতেলাসহ বিশেষ কোর্স চালু হয়। ২০০০ সালে খোলা হয় ইফতা বিভাগ।

ঐতিহ্যবাহী জামিয়া আরজাবাদের সঙ্গে জড়িয়ে আছে মুজাহিদে মিল্লাত আল্লামা শামছুদ্দীন কাসেমী (রহ.), মাওলানা মোস্তফা আজাদ (রহ.), মাওলানা রিজাউল কারিম ইসলামাবাদী (রহ.)-এর মতো গুণীজনদের স্মৃতি। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির মুহতামিদের দায়িত্ব পালন করছেন আল্লামা শামছুদ্দীন কাসেমী (রহ.)-এর বড় ছেলে মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া।

মাওলানা বাহাউদ্দিন যাকারিয়া জানিয়েছেন, প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনীতে সময়ের যোগ্য সারথিরা হাজির হবেন। যেখানে তাদের শৈশব, শিক্ষাকাল ও গড়ে ওঠার নানা ইতিহাস রচিত হয়েছে। অর্ধ শতবর্ষের গৌরবগাঁথাময় পুনর্মিলনীর এই আয়োজন সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করতে ভূমিকা রাখবে। আমাদের প্রস্তুতি চূড়ান্ত। শুধু অপেক্ষা অনুষ্ঠানের।

জামিয়া আরজাবাদের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী সম্মেলন দীর্ঘদিনের স্বপ্নে ফসল উল্লেখ করে সম্মেলনের প্রচার উপ-কমিটির প্রধান মুফতি এনায়েতুল্লাহ জানান, জামিয়া আরজাবাদের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী সম্মেলন ‘আবনায়ে আরজাবাদ সম্মেলন-২২’ নামে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সম্মেলনকে সফল ও সুন্দর করতে একাধিক উপ-কমিটি গঠিত হয়েছে। দেশের নানা সেক্টরে আলো ছড়ানো আরজাবাদের প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা তাদের অভিজ্ঞতা, পরিকল্পনা ও স্বপ্নের কথা একে-অপরের সঙ্গে শেয়ার করবেন। সম্মেলনে আরজাবাদ মাদরাসার সাবেক ও বর্তমান শিক্ষকদের বিশেষ সম্মাননা জানানো হবে। এ উপলক্ষে মাসিক পয়গামে হক্বের একটি বিশেষ সংখ্যা বের করা হয়েছে। সংখ্যাটি সাজানো হয়েছে আরজবাবাদ মাদরাসার মরহুম, সাবেক এবং বর্তমান শিক্ষকদের জীবনী দিয়ে। এছাড়া অংশগ্রহণকারীদের জন্য থাকছে বিভিন্ন স্মারক সম্বলিত উপহার।

সম্মেলন বাস্তবায়ন কমিটির পক্ষে জানানো হয়েছে, সম্মেলনে অংশ নিতে আসা প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের নির্মানাধীন নতুন ভবনের নিচতলায় অবস্থিত বুথ থেকে টোকেন সংগ্রহ করতে হবে। প্রথম বুথে ১-৫০০, দ্বিতীয় বুথে ৫০১-১০০০, তৃতীয় বুথে ১০০১-১৫০০, চতুর্থ বুথে ১৫০১-২০০০ ও পঞ্চম বুথে ২০০১-২৫০০ ক্রমিক নম্বর পর্যন্ত নিবন্ধিতরা দুটি টোকেন সংগ্রহ করবেন। একটি খাবারের, অন্যটি গিফট সংগ্রহের। টোকেনে খাবার ও গিফট সংগ্রহের স্থান উল্লেখ থাকবে। এছাড়া প্রধান ফটকের বাইরে অভ্যর্থনা বুথ থাকবে যেকোনো সমস্যা, পরামর্শ কিংবা অনুসন্ধানের জন্য।

;

ডিসেম্বরে হেফাজতের সম্মেলন, প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দেবেন হেফাজত আমির



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় অরাজনৈতিক সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে ঢাকা মহানগর কমিটি সম্প্রসারণ ও চট্টগ্রাম মহানগর আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। ডিসেম্বরে উলামা মাশায়েখ সম্মেলন ও কারাবন্দী হেফাজত নেতা-কর্মীদের মুক্তি এবং হেফাজতের নামে ২০১৩ সাল থেকে আজ পর্যন্ত হওয়া সকল মামলা প্রত্যাহার করার জন্য প্রধানমন্ত্রী বরাবর চিঠি দেবেন হেফাজত আমির।

সোমবার (৩১ অক্টোবর) সকাল ১০টায় দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসায় সংগঠনের আমির আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরীর সভাপতিত্বে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ প্রচার সম্পাদক মুফতী কেফায়েতুল্লাহ আজহারী।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র নায়েবে আমীর আল্লামা মুহাম্মদ ইয়াহইয়া, নায়েবে আমীর মাওলানা সালাউদ্দিন নানুপুরী, মাওলানা আব্দুল আউয়াল, মুফতি জসিম উদ্দিন, মাওলানা ফুরকানুল্লাহ খলিল, মহাসচিব আল্লামা শায়েখ সাজিদুর রহমান, মাওলানা মাহমুদুল হাসান ফতেহপুরী, মাওলানা জহুরুল ইসলাম,  মাওলানা মুহিউদ্দিন রব্বানী, মাওলানা মীর ইদরীস, মুফতি মোহাম্মদ আলী, মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম সুবাহানী, মুফতি কিফায়াতুল্লাহ আজহারী, সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার, মাওলানা রাশেদ বিন নূর।

বৈঠকে কেন্দ্রীয় কমিটি ও ঢাকা মহনগর কমিটি সম্প্রসারণ এবং পুনঃবিন্যাস করা হয়। এছাড়াও চট্টগ্রাম মহানগর আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়।

কেন্দ্রীয় কমিটির প্রচার সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন রাব্বানী ও কেন্দ্রীয় দাওয়া সম্পাদক মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম সোবহানীকে যুগ্মসচিব করা হয়।

এছাড়াও মুফতী কিফায়াতুল্লাহ আযহারীকে প্রচার সম্পাদক ও মাওলানা রাশেদ বিন নূরকে দফতর সম্পাদক করা হয়।

মাওলানা তাজুল ইসলামকে আহবায়ক এবং মাওলানা মাওলানা লোকমান হাকিমকে সদস্য সচিব করে ১৭ সদস্য বিশিষ্ট চট্টগ্রাম মহানগর আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়।

বৈঠকে কারাবন্দী হেফাজত নেতা-কর্মীদের মুক্তি ও হেফাজতের নামে ২০১৩ সাল থেকে আজ পর্যন্ত  হওয়া  সকল মামলা প্রত্যাহার করার জন্য প্রধানমন্ত্রী বরাবর আমীরে হেফাজতের পক্ষ থেকে চিঠি দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

এছাড়াও আগামী ১৭ ডিসেম্বর রাজধানী ঢাকায় হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের উদ্যোগে জাতীয় উলামা মাশায়েখ সম্মেলন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বৈঠকে ব্যক্তি উদ্যোগে জাতীয় পর্যায়ের যে কোনো  কাজে হেফাজতের পদ পদবী ব্যবহার না করার জন্য আমীরে হেফাজত সকল দায়িত্বশীলদের সতর্ক করেন।

জেলা কমিটি গঠন করার জন্য মহাসচিব আল্লামা সাজিদুর রহমানকে প্রধান করে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট সাব কমিটি গঠন করা হয়। এতে আরো আছেন, মাওলানা মুহিউদ্দীন রাব্বানী,  মাওলানা মীর ইদরীস,  মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম সোবহানী ও মুফতী কিফায়াতুল্লাহ আজহারী।

;

বিশ্ব ইজতেমা শুরু ১৩ জানুয়ারি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
পুরোনো ছবি: বার্তা২৪.কম

পুরোনো ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনা মহামারির কারণে দুই বছর বিরতি দিয়ে ২০২৩ সালে প্রথম পর্ব শুরু হবে ১৩ জানুয়ারি, শেষ হবে ১৫ জানুয়ারি। আর দ্বিতীয় পর্ব শুরু হবে ২০ জানুয়ারি, যা ২২ জানুয়ারি শেষ হবে।

বৃহস্পতিবার (১৩ অক্টোবর) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে বিশ্ব ইজতেমা আয়োজন নিয়ে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক এক সভা শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এ তথ্য জানান।

সভায় বিশ্ব ইজতেমার স্থান টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীর ও আশপাশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি জোরদার করতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও স্থানীয় প্রশাসনকে প্রস্তুতি নিতে বলা হয়।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, করোনার কারণে গত দুই বছর ঐতিহাসিক বিশ্ব ইজতেমা হয়নি। এবার কোভিড পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় আগামী ২০২৩ সালে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সংক্ষিপ্ত আকারে টঙ্গীর মাঠে বিশ্ব ইজতেমা করার জন্য প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন।

তাবলিগ জামাতের দুই পক্ষের দ্বন্দ্বের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, আপনারা জানেন ইজতেমা করতে গিয়ে মতবিরোধ চলছিল এবং এখনও আছে। মতবিরোধ নিরসনে এর আগে আমরা দুই ভাগে ইজতেমা করার পরামর্শ দিয়েছিলাম, সেভাবে তারা সুসম্পন্ন করেছে। এবারও ঠিক সেভাবেই। এক দলের নেতা হলেন জনাব জুবায়ের (মাওলানা জুবায়ের আহমদ), অন্যদলের নেতা হচ্ছেন ওয়াসেক সাহেব (মাওলানা ওয়াসিফুল ইসলাম)। তারা দুজনেই আগে একসঙ্গে তাবলিগ করতেন, এখন ওনারা দুজন দুপ্রান্তে চলে গেছেন।

তিনি বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে, একটু দূরে বসা, মাস্ক পরা এবং টিকা নেওয়া ছাড়া কেউ ঢুকতে পারবে না- এই ধরনের কাজগুলো করতে হবে। আমরা নেতাদের কাছে আবেদন করেছি, গতবার যে জেলা থেকে যত লোক এসেছেন, এবার যাতে এ সংখ্যাটা কমিয়ে আনেন।

সভায় ধর্ম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান দুলাল, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, পুলিশ মহাপরিদর্শক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুনসহ অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

;