এমপি আনার হত্যা, গ্যাস বাবুকে নিয়ে অভিযানের আদেশ



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনারকে খুনের উদ্দেশ্যে অপহরণ মামলায় ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক কাজী কামাল আহমেদ বাবু ওরফে গ্যাস বাবুকে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন নাকচ করেছেন আদালত। তবে ফেলে দেয়া ৩টি মোবাইল উদ্ধারের জন্য তাকে নিয়ে ১০ কার্যদিবসের মধ্যে ম্যাজিস্ট্রেটের অধীনে ঝিনাইদহে অভিযান পরিচালনা করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (২৪ জুন) বাবুকে ফের পাঁচ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সহকারী কমিশনার মাহফুজুর রহমান। রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, ভিকটিম আনোয়ারুল আজিম আনারকে প্রলুব্ধ করে অপহরণ ও হত্যার মূল ঘাতক শিমুল ভুইয়ার জব্দকৃত মোবাইল সেট পর্যালোচনায় পাওয়া যায় যে, শিমুল ভূইয়া ১৫ মে ভারত থেকে বাংলাদেশে আসে এবং ১৬ মে রাতে গ্যাস বাবুর সাথে যোগাযোগ করে এমপি আনোয়ারুল আজিম আনারকে অপহরণ ও হত্যা সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে কথা বলে।

পরবর্তীতে শিমুল ভুইয়া ও গ্যাস বাবু ফরিদপুরের ভাঙ্গা এলাকায় মিটিং করে ভিকটিম এমপি আনারের ছবি বিনিময় করে। এ ছাড়াও ১৭ মে থেকে ১৯ মে রাত পর্যন্ত শিমুল ভূইয়ার সঙ্গে বাবুর হোয়াটস অ্যাপে যোগাযোগ হয়, এসএমএস আদান-প্রদান হয় এবং ভিকটিম আনার অপহরণ ও পরবর্তী টাকা পয়সা সংক্রান্তে কথাবার্তা হয়।

বাবুকে গ্রেফতার করে প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদে সে ঘাতক শিমুল ভূইয়ার সাথে ভিকটিম আনার অপহরণ ও হত্যা সংক্রান্তে হোয়াটসঅ্যাপে যোগাযোগ, ছবি আদান প্রদান ও এসএমএস আদান প্রদানের কথা স্বীকার করে। শিমুল ভূইয়ার সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপে যোগাযোগ করার মোবাইল সেটগুলো কোথায় এ বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে বাবু জানায় তার মোবাইল সেটগুলো হারিয়ে গেছে এবং এই সংক্রান্তে থানায় জিডি করেছে। পরবর্তীতে ১৪ জুন মামলার ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়ে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে।

জবানবন্দিতে আসামি স্বীকার করে যে, আসামি শিমুল ভূইয়ার সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপে যোগাযোগকৃত মোবাইল সেট তিনটির মধ্যে দুটি গাঙ্গুলী হোটেলের পেছনের পুকুরে এবং একটি স্টেডিয়ামের পূর্ব পার্শ্বের পুকুরের পানিতে ফেলে দেয়। এসব মোবাইল সেটগুলোতে ভিকটিম আনার অপহরণ ও হত্যা সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য রয়েছে বিধায় সেটগুলো প্রয়োজন।

আসামি পক্ষের আইনজীবী আবুল কাশেম রিমান্ডের আবেদন বাতিল ও জামিনের আবেদন করেন। এছাড়া রাষ্ট্র পক্ষে মহানগর পিপি আব্দুল্লাহ আবু রিমান্ডের পক্ষে শুনানি করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আতাউল্লাহ রিমান্ড ও জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করেন। তবে মোবাইল ফোন উদ্ধারে বাবুকে নিয়ে ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে ঝিনাইদহে অভিযান চালানোর অনুমতি প্রদান করেন।

গত ২২ মে আনোয়ারুল আজীমকে খুন করার উদ্দেশ্যে অপহরণের অভিযোগে তার মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন বাদী হয়ে শেরেবাংলা নগর থানায় মামলা করেন ।

সীমান্ত রেখা থেকে ৮ কিলোমিটার ফাঁকা রাখাসহ ৪ পরামর্শ হাইকোর্টের



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
আদালত/ছবি: সংগৃহীত

আদালত/ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সীমান্ত রেখা থেকে দেশের অভ্যন্তরে ১০ মাইল বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সম্পত্তি ঘোষণা করা, ৮ কিলোমিটার জমি সম্পূর্ণ ফাঁকা রাখাসহ সংসদকে ৪ পরামর্শ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

শনিবার (১৩ জুলাই) বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের একক হাইকোর্ট বেঞ্চ এক মামলার রায়ে এ পরামর্শ দেন।

আদালত রায়ে বলেছেন, বাংলাদেশের সীমান্ত নিরাপত্তা কার্যকারভাবে রক্ষা এবং আন্তঃরাষ্ট্র সীমান্ত অপরাধ শুন্যের কোটায় নামিয়ে আনতে হলে এবং জাতীয় রাজস্ব আয় ফাঁকি প্রতিরোধ করতে হলে মহান জাতীয় সংসদকে নিম্ন বর্ণিত পরামর্শসমূহকে গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করতে হবে।

মহান জাতীয় সংসদকে প্রদত্ত পরামর্শ-

১. সীমান্ত রেখা থেকে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ১০ মাইল পর্যন্ত সীমান্ত এলাকা বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের সম্পত্তি ঘোষণা করা।

২. উক্ত ঘোষণার ফলে ক্ষতিগ্রন্থ সব ব্যক্তিগত সম্পত্তির মালিকদের ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয় করতঃ সমমূল্যের সরকারি খাস সম্পত্তি হতে তাদের বরাদ্দ প্রদান।

৩. সীমান্ত লাইন থেকে ৮ কিলোমিটার ভূমি সম্পূর্ণ ফাঁকা এবং সমান থাকবে। যেন এই ৮ কিলোমিটার প্রতিটি ইঞ্চি ৮ কিলোমিটার দূর থেকে পরিস্কার দেখা যায়।

৪. সীমান্ত রেখা থেকে ৮-১০ কিলোমিটার মধ্যবর্তী স্থান বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের যাবতীয় স্থাপনা, প্রশিক্ষণসহ যাবতীয় কর্মকাণ্ডের জন্য সংরক্ষিত রাখা।

এই রায় ও আদেশের অনুলিপি অধস্তন আদালতের সকল বিচারককে ই-মেইলের মাধ্যমে পাঠানোর জন্য রেজিষ্ট্রার জেনারেলকে নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

রায় ও আদেশের অনুলিপি মহা-পরিচালক, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশকে ই-মেইলের মাধ্যমে পাঠানোর জন্য রেজিস্ট্রার জেনারেলকে নির্দেশ প্রদান করেছেন হাইকোর্ট। পাশাপাশি রায় ও আদেশের অনুলিপি সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে ই-মেইলের মাধ্যমে পাঠানোর জন্য রেজিষ্ট্রার জেনারেলকে নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

রায়ে বলা হয়েছে, এই রায় ও আদেশের অনুলিপি জাতীয় সংসদের সকল সম্মানিত সংসদ সদস্যকে ই-মেইলের মাধ্যমে পাঠানোর জন্য রেজিষ্ট্রার জেনারেলকে নির্দেশ প্রদান করা হলো।

;

পিএসসির উপ-পরিচালকসহ ৬ আসামির রিমান্ড শুনানি ১৬ জুলাই



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
পিএসসির উপ-পরিচালকসহ ৬ আসামির রিমান্ড শুনানি ১৬ জুলাই

পিএসসির উপ-পরিচালকসহ ৬ আসামির রিমান্ড শুনানি ১৬ জুলাই

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) অধীনে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের (বিসিএস) ক্যাডার, নন-ক্যাডার পরীক্ষাসহ বিভিন্ন নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের ঘটনায় করা মামলায় পিএসসির উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীর আলমসহ ছয় আসামির রিমান্ড শুনানির জন্য আগামী ১৬ জুলাই ধার্য করেছেন আদালত।

অপর পাঁচ আসামি হলেন- পিএসসির সহকারী পরিচালক এস এম আলমগীর কবির, ডিডি আবু জাফর, প্রতিরক্ষা ও অর্থ বিভাগ এসিসিডিএফের (বিওএফ) অডিটর প্রিয়নাথ রায়, মিরপুরের পোশাক কারখানার ব্যবসায়ী নোমান সিদ্দিকী ও ব্যবসায়ী জাহেদুল ইসলাম।

বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির অতিরিক্ত বিশেষ পুলিশ সুপার জুয়েল চাকমা আসামিদের ১০ দিন রিমান্ডে নেওয়ার জন্য ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আবেদন করেছিলেন।

গত ৯ জুলাই পিএসসির সাবেক গাড়িচালক সৈয়দ আবেদ আলীসহ ১০ জনকে আদালতে হাজির করা হয়েছিল। আসামিদের মধ্যে আবেদ আলীসহ ৭ জন দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেন।

অপর ছয় আসামি হলেন- অফিস সহায়ক খলিলুর রহমান, অফিস সহায়ক (ডিসপাস) সাজেদুল ইসলাম, ঢাবির সাবেক শিক্ষার্থী বর্তমানে মিরপুরের ব্যবসায়ী আবু সোলায়মান মো. সোহেল, ব্যবসায়ী সহোদর সাখাওয়াত হোসেন ও সায়েম হোসেন এবং লিটন সরকার (বেকার)।

ওইদিন ৭ আসামির জবানবন্দি গ্রহণ করে অপর ১০ আসামি জামিন আবেদন নাকচ করে তাদের কারাগারে পাঠায় আদালত।

বৃহস্পতিবার কারাগারে আটক ১০ আসামির মধ্যে ৬ জনকে ১০ দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করা হয়। বাকী ৪ জনের বিরুদ্ধে কোনো আবেদন না থাকায় আপাতত তাদের কারাগারেই থাকতে হচ্ছে।

৭ জুলাই রাতে বিসিএসের প্রশ্নফাঁস নিয়ে পিএসসির বিরুদ্ধে একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশের পর ফেসবুকে সৈয়দ আবেদ আলীর পোস্টগুলো ভাইরাল হতে থাকে। এ ঘটনায় ৮ জুলাই রাতে পুলিশ বাদী হয়ে পল্টন মডেল থানায় এ মামলা দায়ের করে।

;

মতিউর ও তার পরিবারের ৭১ বিঘা জমি, ৪টি ফ্ল্যাট জব্দের নির্দেশ



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত, এনবিআর-এর সাবেক সদস্য মো. মতিউর রহমান ও তার স্ত্রী-সন্তান

ছবি: সংগৃহীত, এনবিআর-এর সাবেক সদস্য মো. মতিউর রহমান ও তার স্ত্রী-সন্তান

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সাবেক সদস্য মো. মতিউর রহমান ও তার স্ত্রী-সন্তানদের নামে থাকা আরো ৭১ বিঘা জমি ও চারটি ফ্ল্যাট জব্দের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

এ ছাড়াও মতিউর রহমান ও তার স্ত্রী-সন্তানদের নামে ১শ ১৬টি ব্যাংক হিসাবে থাকা ১৩ কোটি ৪৪ টাকা ও ২৩টি বিও হিসাব ফ্রিজ করার আদেশ দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) দুর্নীতি দমন কমিশনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মহানগরের জ্যেষ্ঠ বিশেষ জজ মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেনের আদালত এ আদেশ দেন।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পাবলিক প্রসিকিউটর মাহমুদ হোসেন জাহাঙ্গীর এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

৪ জুলাই বেনজীর ও পরিপারের সদস্যদের নামে থাকা আরো ৮শ ৬৬ শতক জমি ও ঢাকার চারটি ফ্ল্যাট জব্দের আদেশ দিয়েছিলেন একই আদালত।

কোরবানির ঈদে মতিউর রহমানের দ্বিতীয় স্ত্রীর ছেলে মুশফিকুর রহমান ১৫ লাখ টাকার ছাগল কিনতে গিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক আলোচনায় আসেন। ছাগলের সূত্র ধরেই মতিউর ও তার পরিবারের বিপুল অবৈধ সম্পদের খোঁজ পায় দুদক।

;

কুমিল্লায় ব্যবসায়ীকে হত্যা, ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কুমিল্লা
কুমিল্লা জেলা ও দায়রা জজ আদালত

কুমিল্লা জেলা ও দায়রা জজ আদালত

  • Font increase
  • Font Decrease

কুমিল্লা মুরাদনগর উপজেলার উত্তর ত্রিশ গ্রামের বাসিন্দা কাপড় ব্যবসায়ী ফারুক আহমেদ রাজু (২২)কে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে নৃশংসভাবে হত্যার দায়ে ৪ জনকে মৃত্যুদণ্ড ও প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) বেলা ১২টার দিকে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক ফরিদা ইয়াসমিন এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- মুরাদনগর উপজেলার উত্তর ত্রিশ গ্রামের রফিক মিয়া, পার্শ্ববর্তী মির্জানগর গ্রামের সুমন মিয়া, আব্দুল মান্নান, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মাধবপুর গ্রামের নাজমুল শিকদার। আদালতে রায়ের সময় আসামিরা পলাতক ছিলেন।

মামলার এজহারসূত্রে জানা যায়, পাওনা টাকার জের ধরে ২০১৩ সালের ২ ডিসেম্বর বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে হত্যা করা হয় ফারুক আহমেদ রাজুকে। পরে আসামিরা তার দেহ থেকে মাথা বিচ্ছিন্ন করে সেফটি ট্যাংকে ফেলে দেয় এবং দেহটি মাটি চাপা দিয়ে দেয়।

এ ঘটনায় নিহতের বাবা মো. মোস্তফা বাদী হয়ে মুরাদনগর থানায় ৪ জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

;