করোনার ভ্যাকসিনে পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া! সতর্ক করলেন চিকিৎসকরা



নাছরিন আক্তার উর্মি, বার্তা২৪.কম
করোনাভাইরাস ভ্যাকসিনের ৫ টি পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া। ছবি: সংগৃহীত

করোনাভাইরাস ভ্যাকসিনের ৫ টি পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া। ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাভাইরাসে ভ্যাকসিনের অগ্রগতি মারাত্মক এই মহামারী ছড়িয়ে পড়া বন্ধে অভূতপূর্ব কাজ করছে। যদিও এই প্রথম কোন মহামারী সংক্রমণের পর এত দ্রুত ভ্যাকসিন তৈরি করা হয়েছে। তবে ভ্যাকসিন দেওয়ার পরে এটি শরীরে প্রচুর পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া তৈরির জায়গাও সৃষ্টি করেছে।

যদিও কোন ভ্যাকসিনই পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া মুক্ত নয়। তবে বর্তমানে আমাদের বেশিরভাগ ভ্যাকসিনগুলো নিরাপদ এবং কার্যকর হিসাবে বিবেচিত হচ্ছে। চিকিৎসক এবং ওষুধ সংস্থাগুলি হুশিয়ারি দিচ্ছেন- করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে টিকা নেওয়া  সহজ কোন প্রক্রিয়া নয়। ভ্যাকসিন নেয়ার ফলে অনেকেরই অ্যালার্জি কিংবা অন্যান্য পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া হওয়ার ঝুঁকি বেশি রয়েছে।

যা জানাচ্ছেন ট্রায়ালে ভ্যাকসিন গ্রহণকারীরা:

অংশগ্রহনকারীরা যারা এই মুহুর্তে কিছু নেতৃস্থানীয় ভ্যাকসিন পরীক্ষার জন্য স্বেচ্ছাসেবী হয়েছেন তারা কিছুটা হালকা, দীর্ঘকালীন এবং কিছু ক্ষেত্রে 'সম্পূর্ণ অদ্ভুদ' পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া বর্ণনা করেছেন। যদি আমরা ভ্যাকসিনের শতভাগ নিরাপদ কার্যকারিতা চাই, তবে ভ্যাকসিনের পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া সম্পর্কেও সচেতন হওয়া দরকার। তার জন্য নিজেকে প্রস্তুত করুন। সর্বোপরি, একটি ভ্যাকসিন তৈরি করা সংক্রামক নির্মূল করার লড়াইয়ের অর্ধেক লড়াই।

ভ্যাকসিনের পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া সম্পর্কেও সচেতন হওয়া দরকার.png
ভ্যাকসিনের পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া সম্পর্কেও সচেতন হওয়া দরকার। ছবি: সংগৃহীত

পোস্ট ভ্যাকসিনে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার অভিজ্ঞতা:

পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া অনুভব করা ভীতিজনক হতে পারে। তবে চরম ঝুঁকিপূর্ণ নয়। করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন যদি সম্ভাব্য জীবন-হুমকির জটিলতা বহন করে তবে এটি ব্যবহারের জন্য অনুমোদিত হবে না। পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলি শক্তিশালী ইমিউনিটি তৈরি করার জন্যই হয়ে থাকে। 

নিচে কয়েকটি পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে বর্ণনা করা হলো:

লালচে এবং ফোলাসহ নিম্ন-গ্রেড বা উচ্চ জ্বরও হতে পারে
লালচে এবং ফোলাসহ নিম্ন-গ্রেড বা উচ্চ জ্বরও হতে পারে। ছবি: সংগৃহীত

জ্বর এবং সর্দি

মডের্নার পরীক্ষায় অংশগ্রহনকারীদের মধ্যে একজন প্রচন্ড ঠাণ্ডার অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন। তিনি বলেন, ভ্যাকসিন দেওয়ার কয়েক ঘন্টা পরে জ্বরের তাপমাত্রা ১০২ ডিগ্রি ফারেনহাইটে চলে যায়। তিনি নিশ্চিত করে আরও বলেন, লক্ষণগুলি কয়েক ঘন্টা পরে আপনা-আপনি হ্রাস পেয়েছে এবং অতিরিক্ত কোন চিকিৎসা সহায়তার প্রয়োজন হয়নি।

মডার্না ভ্যাকসিনের সবচেয়ে বেশি দুটি পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হলো জ্বর, সর্দি এবং ব্যথা। তবে ব্যথার তীব্রতা ব্যক্তি ভেদে পৃথক পৃথক হতে পারে। প্রদাহ চিহ্নিতকারীদের দেহ যখন অ্যান্টিবডি তৈরি করতে শুরু করে তখন লালচে এবং ফোলাসহ নিম্ন-গ্রেড বা উচ্চ জ্বরও হতে পারে।

প্রদাহজনিত প্রতিক্রিয়ার মধ্যে মাথা ব্যথা এবং হালকা ব্যথা রয়েছে।
প্রদাহজনিত প্রতিক্রিয়ার মধ্যে মাথা ব্যথা এবং হালকা ব্যথা রয়েছে। ছবি: সংগৃহীত

মাথাব্যথা

আর একটি লক্ষণ তা হলো মাথা ব্যথা। প্রদাহজনিত প্রতিক্রিয়ার মধ্যে মাথা ব্যথা এবং হালকা ব্যথা রয়েছে। এছাড়াও স্ট্রেস, বিরক্তি, তন্দ্রা এবং অন্যান্য নিয়মতান্ত্রিক প্রতিক্রিয়াও দেখা দিতে পারে। পরিসংখ্যান বলছে- ৫০ শতাংশেরও বেশি মানুষ যারা যেকোন সময় সংক্রমিত রোগের বিরুদ্ধে হালকা, মাঝারি স্তরের মাথাব্যথা অনুভব করতে পারে।

বমি বমি ভাব এবং বমি

একটি ভ্যাকসিন শট আপনার গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সিস্টেমেও প্রভাব ফেলতে পারে। মে মাসে মর্ডানার পরীক্ষার অংশ হিসাবে সর্বোচ্চ ডোজ পাওয়ার জন্য নির্বাচিত একজন স্বেচ্ছাসেবীর মতে, ভ্যাকসিন দেওয়ার পরে বেশ কয়েক ঘন্টা তার অনুভূতি 'ডাউন ও আউট' হয়ে গেছিলো। ভ্যাকসিন নেওয়ার পরে তিনি যে লক্ষণগুলোর মুখোমুখি হয়েছিলেন সেগুলো হলো বমি বমি ভাব, পেটে বাধা, বমি এবং ক্লান্তি। তিনি লক্ষণগুলি জানানোর পর অজ্ঞান হয়ে পড়েছিলেন বলে জানিয়েছিলেন।

একটি ভ্যাকসিন শট আপনার গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সিস্টেমেও প্রভাব ফেলতে পারে
একটি ভ্যাকসিন শট আপনার গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সিস্টেমেও প্রভাব ফেলতে পারে। ছবি: সংগৃহীত

পেশী ব্যথা এবং ব্যথা

ভ্যাকসিন ইনজেকশন দেয়ার স্থানে ত্বকের চারপাশে ঘা এবং পেশী ব্যথা অনুভব করা একটি সাধারণ ঘটনা। এই মুহুর্তে, আলোচিত তিনটি ভ্যাকসিন- ফাইজার, মর্ডানা এবং অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা তাদের ভ্যাকসিনগুলোর প্রতিক্রিয়াশীল পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হিসাবে পেশী ব্যথা এবং বেদনা রেকর্ড করেছেন।

মাইগ্রেন

ভ্যাকসিনের পরীক্ষার অংশ নেওয়া স্বেচ্ছাসেবীরা সবচেয়ে বেশি প্রত্যক্ষ করেছেন মাইগ্রেন। প্রতিবেদন অনুসারে, ফাইজার সমীক্ষায় অংশ নেওয়া একজন স্বেচ্ছাসেবক জানিয়েছেন যে, ভ্যাকসিন নেওয়ার পরে মাইগ্রেনের এক দুর্বল ব্যথা অনুভূত হয়েছিল। তিনি ভ্যাকসিন নেওয়ার পরে একদিন বিশ্রাম নেওয়ার পরামর্শ দেন। যারা ভ্যাকসিন নেওয়ার ফলে, মাইগ্রেনের আক্রমণে ঝুঁকিতে পড়েছেন তাদের স্পন্দনজনিত ব্যথা, বমি এবং বমি বমি ভাব হতে পারে।

তথ্যসূত্র: টাইমস অফ ইন্ডিয়া