শোয়ার ঘর পরিষ্কার রাখবেন যেভাবে



লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তা ২৪.কম
সকালে ঘুম থেকে উঠেও অপরিষ্কার ঘর দেখলে মন-মেজাজ খারাপ হবে। ছবি: সংগৃহীত

সকালে ঘুম থেকে উঠেও অপরিষ্কার ঘর দেখলে মন-মেজাজ খারাপ হবে। ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

দিন কাজের জন্য, রাতটা বিশ্রামের। রোজ রাতে যে ঘরে ঘুমাতে যাচ্ছেন, সেই ঘরটা অগোছালো হলে মোটেই শান্তিতে ঘুম হবে না। সকালে ঘুম থেকে উঠেও অপরিষ্কার ঘর দেখলে মন-মেজাজ খারাপ হবে। তাই শোয়ার ঘরটা গুছিয়ে রাখা খুব প্রয়োজন। এর জন্য খুব বেশি পরিশ্রমও করতে হবে না। জেনে নিন চট করে ঘর গোছোনার সহজ কয়েকটি উপায়।

লন্ড্রি ব্যাগ

জামা-কাপড় এদিক-সেদিক পড়ে থাকলে, সেটা দেখতে সবচেয়ে খারাপ লাগে। তাই বাজার থেকে একটা সুন্দর লন্ড্রি ব্যাগ কিনে ঘরের এক কোণে রাখুন। যাবতীয় পোশাক যেগুলো ধুতে হবে, এখানে জমিয়ে রাখুন।

হ্যাঙ্গার-হুকের ব্যবহার

ঘর গুছিয়ে রাখার ক্ষেত্রে এগুলোর জুড়ি মেলা ভার। মাটিতে অহেতুক জিনিস পড়ে থাকলে ঘর কোনোদিন পরিষ্কার করা সম্ভব নয়। তাই দরজার পিছনে বা ঘরের কোনো লুকানো কোনায় হুক বা হ্যাঙ্গার লাগিয়ে নিন। যেখানে বাইরের ব্যাগ, জামা, ছাতা ঝুলিয়ে রাখতে পারবেন।

কাগজপত্রের জায়গা

আলাদা একটা বাক্স বা ড্রয়ারে যাবতীয় কাগজ, ওষুধ, জরুরি জিনিস গুছিয়ে রাখুন। টেবিলের উপরে বা খাটের পাশের ছোট্ট জায়গায় এগুলো ফেলে রাখবেন না। দেখতে খুব খারাপ লাগে।

বিছানা

যেটা শোয়ার ঘরের আসল আসবাব, সেটা কিন্তু পরিষ্কার রাখতেই হবে। কারণ দিনের শেষে ঘরে ঢুকে আপনি প্রথমে বিছানার দিকেই তাকাবেন। রোজ ঘুম থেকে উঠে কোনো সময় নষ্ট না করে প্রথমেই বিছানা গুছিয়ে ফেলুন। এক সপ্তাহ অন্তর বালিশের কাভার, বিছানার চাদর ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে ১০ মিনিট বরাদ্দ করে রাখুন, যখন বিছানার ধারগুলো মুছে পরিষ্কার করবেন। বেডস্ট্যান্ডে কোনো বই, আলো বা পুতুল থাকলে সেগুলোর ওপরেও ধুলো জমে। তাই সপ্তাহে একদিন ধুলা ঝাড়া প্রয়োজন।