‘তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের যথাযথ বাস্তবায়ন ও প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন

রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন

  • Font increase
  • Font Decrease

রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন বলেছেন, বাংলাদেশ থেকে তামাক নির্মূল করতে হলে তামাকের উৎপাদন ও ব্যবহার দুটোই কমিয়ে আনতে হবে। একইসঙ্গে প্রয়োজনীয় সংশোধনী আনয়নসহ বিদ্যমান তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের যথাযথ বাস্তবায়ন ও প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে উল্লেখ করে তিনি এ বিষয়ে সরকারের পাশপাশি নাগরিক সমাজ, পেশাজীবী সংগঠন, বেসরকারি সংস্থা ও গণমাধ্যমকে সমন্বিত প্রয়াস চালানোর আহ্বান জানান।

বুধবার (৩১ মে) ‘বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস' উপলক্ষে দেওয়া এক বাণীতে রাষ্ট্রপতি এ আহবান জানান।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও ‘বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস’ পালনের উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে তিনি বলেন, তামাক এক প্রকার বিষ যা মানুষকে ক্রমান্বয়ে মৃত্যুর দিকে ধাবিত করে। তামাক চাষ হতে শুরু করে প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং তামাকজাত পণ্য সেবন প্রতিটি পর্যায় জনস্বাস্থ্য, পরিবেশ ও অর্থনীতির জন্য ক্ষতিকর।

মো. সাহাবুদ্দিন বলেন, ধূমপান ও তামাক সেবন প্রতিরোধযোগ্য মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ। তামাকসৃষ্ট রোগে পৃথিবীতে প্রতিবছর ৭০ লক্ষাধিক মানুষ অকালে মারা যায়। ধূমপানকে বলা হয় মাদক সেবনের প্রবেশ পথ। তামাক ও ধূমপান শুধু ধূমপায়ীকে ক্ষতিগ্রস্ত করে না, পরোক্ষভাবে অধূমপায়ীকেও সমানভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করে। বিশ্বব্যাপী জনসংখ্যা বৃদ্ধি, নগরায়নসহ বিভিন্ন কারণে খাদ্য উৎপাদনযোগ্য কৃষি জমি কমে আসছে। অপরদিকে জলবায়ু পরিবর্তন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধসহ বিভিন্ন সমস্যা খাদ্য উৎপাদনের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে।

এমতাবস্থায় খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সকল কৃষি জমিতে খাদ্যশস্য চাষ করার জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা আবশ্যক জানিয়ে তিনি বলেন, সেজন্য খাদ্য উৎপাদনযোগ্য কৃষি জমিতে ক্ষতিকর নেশাদ্রব্য তৈরির উপকরণ ও তামাক চাষের পরিবর্তে খাদ্যশস্য চাষ করা, কৃষকের উৎপাদিত ফসলের বাজার নিশ্চিত করা এবং টেকসই ও পুষ্টিকর শস্য চাষ বৃদ্ধিতে সংশি¬ষ্ট কৃষকদের প্রয়োজনীয় কারিগরি সহায়তা প্রদানের মাধ্যমে উৎসাহিত করা জরুরি। এ প্রেক্ষিতে এবছর বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘তামাক নয়, খাদ্য ফলান’ অত্যন্ত যথার্থ হয়েছে বলে তিনি মনে করেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, গবেষণায় দেখা গেছে, তামাক চাষে অনেক বেশি সার ও কীটনাশক ব্যবহার করতে হয়, যা ক্রমশ মাটির উর্বরতা হ্রাস করে। ফলে পরবর্তী সময়ে তামাক চাষের জমিতে খাদ্যশস্য উৎপাদন ভাল হয় না। এছাড়া কাঁচা তামাক পাতা চুল্লি¬তে আগুনের তাপে শুকানো ও বিড়ি-সিগারেট তৈরির জন্য বনজ সম্পদ ধ্বংস হয় এবং চুল্লির আশপাশের বায়ু মারাত্মক দূষিত হয়। তামাক সেবন ও ধূমপানের ফলে হৃদরোগ, স্ট্রোক, ক্যান্সার, ডায়াবেটিস, হাঁপানিসহ বিভিন্ন অসংক্রামক রোগের ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়। তামাকের এই বহুমাত্রিক ক্ষতি বিবেচনায় নিয়ে তামাক চাষ কমাতে পারলে জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) অর্জনের পথ ত্বরান্বিত হবে।

সৈয়দপুরে পুলিশ বক্সে আগুন, অর্ধশতাধিক আহত



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম, নীলফামারী
পুলিশ বক্সে আগুন ধরিয়ে দেয় বিক্ষুব্ধরা।

পুলিশ বক্সে আগুন ধরিয়ে দেয় বিক্ষুব্ধরা।

  • Font increase
  • Font Decrease

নীলফামারীর সৈয়দপুরে কোটা সংস্কারের দাবিতেে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুলিশের সাথে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় আন্দোলনকারীরা পাঁচমাথা মোড়ের একটি পুলিশ বক্সে আগুন ধরিয়ে দেয় বিক্ষুব্ধরা।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) দুপুরে শহরের পাচঁমাথা মোড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

কোটা সংস্কারের দাবিতে কমপ্লিট শাটডাউন' কর্মসূচী পালনের লক্ষ্যে সাধারণ শিক্ষার্থীরা সকাল থেকে শহরের বিভিন্ন জায়গায় জড়ো হতে থাকেন। পরে দুপুরের দিকে তারা বিক্ষোভ নিয়ে শহরের পাচঁমাথা মোড় এলাকায় অবস্থান করেন। এ সময়ে পুলিশ তাদের সেখান থেকে সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলে দুপক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। সে সময়ে পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাস, টিয়ারশেল ও রাবারবুলেট ছুঁড়েন।

এক পর্যায়ে আন্দোলনকারীরা একটি ট্রাফিক বক্সে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়। এতে দুই পুলিশ সদস্যসহ অর্ধশতাধীক শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় শহরে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

এ বিষয়ে সৈয়দপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কল্লোল কুমার দত্ত বলেন, সৈয়দপুরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। এ ঘটনায় আমাদের তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।

;

হাতিরঝিলে বিজিবির গাড়িতে অগ্নিসংযোগ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
হাতিরঝিলে বিজিবির গাড়িতে অগ্নিসংযোগ

হাতিরঝিলে বিজিবির গাড়িতে অগ্নিসংযোগ

  • Font increase
  • Font Decrease

কোটা সংস্কারের দাবিতে চলমান সহিংসতার মধ্যে রাজধানীর হাতিরঝিলে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) একটি গাড়িতে আগুন দিয়েছে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সন্ধ্যা ৬টার দিকে গাড়িটিতে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়।

বিক্ষোভকারীরা আগুন ধরিয়ে দেওয়ার আগে ৪০/৫০ জন বিজিবি সদস্য গাড়ি থেকে নেমে আসেন।

সূত্র: ইউএনবি 

;

কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
আন্দোলনকারীরা

আন্দোলনকারীরা

  • Font increase
  • Font Decrease

কোটা সংস্কারের দাবিতে চলমান কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক পোস্টে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন’-এর অন্যতম সমন্বয়ক মো. নাহিদ ইসলাম একথা জানান।

তিনি লিখেছেন, শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে সহিংসতা চালিয়ে সরকার উদ্ভুত পরিস্থিতি তৈরি করেছে। এর দায় সরকারেরই। সরকার আলোচনার কোনো পরিস্থিতি রাখেনি। যদি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে রাজপথ থেকে সরানো না হয়; যদি হল, ক্যাম্পাস, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে না দেওয়া হয়, যদি এখনো গুলি অব্যাহত থাকে তাহলে সরকারকেই সম্পূর্ণ দায় নিতে হবে।

আরও লিখেছেন, কেবল কোটা সংস্কার করলেই ফয়সালা হবে না। প্রথমে বিচার বিভাগকে ব্যবহার করে সরকার দাবি কর্ণপাত করেনি ৷ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও দলীয় ক্যাডার দিয়ে আন্দোলন দমনের প্রচেষ্টা করছে। এখন সংলাপের নামে, দাবি আদায়ের নামে নতুন প্রহসন করছে। বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটির নামেও কোনো প্রসহন মেনে নেওয়া হবে না।

মো. নাহিদ ইসলাম লিখেছেন, সকল ছাত্র হত্যার বিচার করতে হবে। ক্যাম্পাসগুলোকে ছাত্রলীগের সন্ত্রাসমুক্ত করতে হবে। অনতিবিলম্বে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও আওয়ামী সন্ত্রাসীদের নিরস্ত্র করে রাজপথ থেকে অপসারণ করতে হবে। শহীদের রক্তের ওপর কোনো সংলাপ হবে না। সরকারকেই সমাধানের পথ বের করতে হবে।

বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনীর কাছে আহ্বান থাকবে খুনি সরকারকে সমর্থন না দিয়ে ছাত্রদের পাশে থাকুন। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে আহ্বান বাংলাদেশের জনগণকে রক্ষা করতে এগিয়ে আসুন। বাংলাদেশে গণহত্যা চলছে।

আমাদেরকে আজকে রাতের মধ্যেই গ্রেফতার অথবা গুম করে ফেলতে পারে। আপনারা কর্মসূচী অব্যাহত রাখবেন। সবাই জনগণকে সাথে নিয়ে প্রতিটা ক্যাম্পাসে প্রবেশ করুন বলেন তিনি।

;

আগুনের কারণে বিটিভির সম্প্রচার বন্ধ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
বিটিভি ভবনে আগুন

বিটিভি ভবনে আগুন

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর রামপুরায় বাংলাদেশ টেলিভিশনের (বিটিভি) ভবনে দেয়া আগুন ছড়িয়ে পড়ায় সম্প্রচার বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। টিভি স্টেশনটির ট্রান্সমিশন বন্ধ হওয়ায় সম্প্রচার বন্ধ হয়ে যায়। আগানের কারণে ভবনের ভেতরে অনেকে আটকা পড়েছেন বলেও জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) দুপুর দুইটার দিকে কোটা সংস্কার আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা এ ভবনে আগুন দেয়। আগুন লাগার চার ঘণ্টা পার হলেও ভবনে পৌঁছতে পারেনি ফায়ার সার্ভিসের কোনো উদ্ধারকারী দল।

আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ায় বিটিভির এক ফেসবুক পোস্টে বলা হয়, বিটিভিতে ভয়াবহ আগুন। দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে। ভেতরে অনেকে আটকা পড়েছেন। এ অবস্থায় ফায়ার সার্ভিসের দ্রুত সহযোগিতা কামনা করা হচ্ছে।

;