জানাজায় মানুষের ঢল, চার গ্রামে চলাচল কঠোরভাবে সীমিত



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাভাইরাস রোধে ঘোষিত লকডাউন উপেক্ষা করে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিশের সিনিয়র নায়েবে আমির ইসলামি আলোচক মাওলানা জুবায়ের আহমদ আনসারীর জানাজায় অংশ নেন প্রায় অর্ধলাখ মানুষ। তাই করোনা সংক্রমণ ঝুঁকির আশঙ্কায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে চারটি গ্রামের লোকজনের চলাচল কঠোরভাবে সীমিত করেছে প্রশাসন।

শনিবার (১৮ এপ্রিল) রাতে বিষয়টি বার্তা২৪.কম-কে নিশ্চিত করেছেন সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো শাহাদাত হোসেন।

তিনি জানান, সকালে মাওলানা জুবায়ের আহমদ আনসারীর জানাজায় অনেক লোকজন উপস্থিত হয়েছেন। তাই করোনা সংক্রমণ বাড়তে পারে এমন আশঙ্কায় উপজেলার শীতাহরণ, শান্তিনগর, বড়ইতলা ও বেড়তলা গ্রামের লোকজনের চলাচল কঠোরভাবে সীমিত করা হয়েছে।

এর আগে গত ১১ এপ্রিল থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় লকডাউন চলছিল। এই এলাকার লোকজন যেকোনো জরুরি প্রয়োজনে পুলিশের সহযোগিতায় বাসা থেকে বের হবেন। সবাই ১৪ দিন যার যার ঘরে অবস্থান করবেন বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:লকডাউন ভেঙে মাওলানা আনসারীর জানাজায় মানুষের ঢল

এ ব্যাপারে সরাইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এএসএম মোসা বার্তা২৪.কম-কে জানান, ১১ এপ্রিল থেকে জেলায় লকডাউন চলছে। তবে সকালে জানাজায় অনেক মুসল্লি যোগ দেওয়ার কারণে বেড়তলার আশপাশের মোট চারটি গ্রামের লোকজনের চলাচল সীমিত করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, শনিবার সকালে সরাইলের জামিয়া রহমানিয়া বেড়তলা মাদরাসায় মাওলানা জুবায়ের আহমদ আনসারীর জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। লকডাউন উপেক্ষা করে এতে অংশ নেন প্রায় অর্ধলাখ মানুষ। মাদরাসার প্রান্তর ছাড়িয়ে জানাজার সারি দীর্ঘ হয় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে। দেশ এবং জেলার শীর্ষ আলেমরা ছাড়াও মাদরাসার ছাত্র এবং সাধারণ মানুষ জানাজায় অংশ নেন। এ নিয়ে দেশজুড়ে সমালোচনার ঝড় বইছে।