পিএসজির দুই ক্লাব-সতীর্থের হাতেই দুই দলের বিশ্বকাপ-ভাগ্য

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’


স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

লিওনেল মেসি ও কিলিয়ান এমবাপে; একজন আর্জেন্টিনার স্বপ্নসারথি, আরেকজন ফ্রান্সের। বিশ্বকাপে দুর্দান্ত খেলছেন দুজনই। দলকে জেতাতে রাখছেন সরাসরি ভূমিকা; করছেন গোল, করাচ্ছেন গোল। ফাইনালে তাদের দুজনের ভূমিকাই নির্ধারণ করে দিতে পারে দুই দলের বিশ্বকাপ-ভাগ্য।

মেসি ও এমবাপে দুজনই ফ্রান্সের লিগ ওয়ানের প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ে (পিএসজি) খেলেন। এই ক্লাবটি আবার অরিক্স কাতার ইনভেস্টমেন্টের মালিকানাধীন, যার সভাপতি নাসের আল খেলাইফি, যিনি পিএসজিরও চেয়ারম্যান।

ক্লাবে মেসি-এমবাপে দুই সতীর্থ এখন বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হওয়ার দৌড়ে। ফাইনালে জিতবেন একজনই; হয় এমবাপে, নয়তো মেসি। বিশ্বকাপের দুইদিন পর চব্বিশ হতে যাওয়া কিলিয়ান এমবাপে ইতোমধ্যেই বিশ্বকাপ জিতেছেন; এদিকে আগামী পঁয়ত্রিশের লিওনেল মেসি এখনও জিততে পারেননি বিশ্বকাপ।

কাতার বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত ৬ ম্যাচ খেলে দুজনই করেছেন সমান ৫ গোল করে। অ্যাসিস্টে আবার এগিয়ে মেসি। আর্জেন্টাইন মহাতারকা যেখানে ৩ অ্যাসিস্ট করেছেন সেখানে এমবাপের অ্যাসিস্ট সংখ্যা ২।

বিশ্বকাপে লিওনেল মেসির ৫ গোলের মধ্যে ৩টিই এসেছে পেনাল্টি থেকে, পোল্যান্ডের বিপক্ষে একটি পেনাল্টি মিসও করেছেন তিনি। মেসি গ্রুপ পর্যায়ে সৌদি আরবের বিপক্ষে পেনাল্টি থেকে গোল করার পর গোল করেছিলেন মেক্সিকোর বিপক্ষেও। শেষ ষোলোতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে, কোয়ার্টার ফাইনালে নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে পেনাল্টি থেকে এবং সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে পেনাল্টি থেকে গোল করেছেন মেসি।

এদিকে কিলিয়ান এমবাপের বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্যায়ে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম গোল করার পর দ্বিতীয় ম্যাচে ডেনমার্কের বিপক্ষে জোড়া গোল করেন। শেষ ষোলোতে পোল্যান্ডের বিপক্ষে ফের জোড়া গোল করার পর কোয়ার্টার ফাইনাল ও সেমিফাইনালে গোলের দেখা পাননি এমবাপে।

লিওনেল মেসি এবারের আসরসহ ৫টি বিশ্বকাপে ২৫ ম্যাচ খেলে গোল করেছেন ১১টি, সঙ্গে আছে ৬টি অ্যাসিস্ট। হলুদ কার্ড দেখেছেন ২ বার। অন্যদিকে, কিলিয়ান এমবাপে এবারের আসরসহ ২টি বিশ্বকাপে ১৩ ম্যাচ খেলে গোল করেছেন ৯টি, সঙ্গে আছে ২টি অ্যাসিস্ট। হলুদ কার্ড দেখেছেন ২ বার।

   

শান্তর এখন খানিকটা বিশ্রাম প্রয়োজন: আশরাফুল



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটের অধিনায়কের দায়িত্ব একসঙ্গে দেওয়া হয়েছিল নাজমুল হোসেন শান্তকে। সবাই ভেবেছিল কিছুটা সময় পেলে নিজের ব্যাটিং এবং সার্বিক পারফরম্যান্সটা আয়ত্তে আনতে পারবেন তিনি। কিন্তু টানা বাজে পারফরম্যান্স ও ব্যাট হাতে ব্যর্থতার পর তীব্র সমালোচনার শিকার হয়েই যাচ্ছেন শান্ত। এবার তো তাকে বিশ্রামেই বসিয়ে দিতে বললেন বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুল।

বিডিক্রিকটাইমের সঙ্গে এক ভিডিও বার্তায় আশরাফুল বলেছেন, ’ব্যাট হাতে অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত রান পাচ্ছে না। জিম্বাবুয়ে সিরিজেও ব্যাটার হিসেবে তার সময় ব্যর্থতার মধ্যেই কেটেছে। বিপিএলেও তেমন রান মিলেনি। বিপিএলের পর শ্রীলঙ্কা সিরিজে একটা ফিফটি ছিল তার। তারপর রান খরায় পড়েছে সে। সবকিছু মিলে আমার কাছে মনে হয়েছে তার এখন খানিকটা বিশ্রাম প্রয়োজন।‘

অধিনায়ক বিশ্রামে গেলে তার পরিবর্তে অধিনায়কত্বের দায়িত্বটা কে পালন করবেন এমন প্রশ্নের জবাবে আশরাফুল বলেছেন, ‘আমার পছন্দ সাকিব আল হাসান। এখন টিম ম্যানেজমেন্ট সার্বিক পরিস্থিতি যদি সাকিবকে বোঝাতে পারেন তাহলে হয়ত সে রাজি হতেও পারে।‘

এমনকি শান্তর পরিবর্তে চলমান যুক্তরাষ্ট্র সিরিজে তানজিম হাসান সাকিবকে দলে সুযোগ করে দেওয়ার কথাও বলেছেন সাবেক টাইগার অধিনায়ক, ‘অধিনায়কত্ব সাকিবকে দিয়ে শান্তর জায়গায় তামিমকে একাদশে ফিরিয়ে আনা যেতে পারে।  আমি দ্বিতীয় এই ম্যাচে শান্তকে বিশ্রামে রাখতে বলছি, তবে বিশ্বকাপে কিন্তু সে-ই থাকছে আমাদের অধিনায়ক। সেই বড় দায়িত্ব শুরুর আগে এই সিরিজে শান্তর একটু বিশ্রাম প্রয়োজন, বাইরে থেকে খেলা দেখা প্রয়োজন।’

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’

;

কোচ হিসেবে পন্টিংকে চাচ্ছে ভারত



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পর্দা উঠছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের নবম আসরের। এই টুর্নামেন্টের পরই ভারত ক্রিকেট দলের দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন রাহুল দ্রাবিড়। নতুন কোচের খোঁজ করে ইতোমধ্যে বিজ্ঞপ্তিও দিয়েছে বিসিসিআই। চলতি মাসের ২৭ তারিখ পর্যন্ত আবেদন করা যাবে তাতে।

ক্রিকেট বিশ্লেষণভিত্তিক ওয়েবসাইট ইএসপিএনক্রিকইনফোর গত সপ্তাহে তাদের সূত্র মতে জানিয়েছে, ভারতের সাবেক ক্রিকেটার গৌতম গম্ভীরের হাতে দলের দায়িত্ব দিতে চায় ভারতের ক্রিকেট বোর্ড। তবে এবার শোনা গেল নতুন আরেক। ভারতের প্রধান কোচ হতে বিসিসিআই নাকি যোগাযোগ করেছে বিশ্বকাপজয়ী সাবেক অস্ট্রেলিয়ান তারকা রিকি পন্টিংয়ের সঙ্গে।

সাবেক অজি অধিনায়ক যদিও বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় এটিকে প্রায় অসম্ভব বলেই জানিয়েছেন। ‘আইসিসি রিভিউ’-তে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বিষয়টি নিজেই প্রকাশ করেছেন পন্টিং। সেখানে তিনি বলেছেন, ‘আমি এটি নিয়ে অনেক রিপোর্ট দেখেছি। সাধারণত এই জিনিসগুলো আপনি নিজে জানার আগেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে যায়। তবে আইপিএলে আমার সঙ্গে একান্তে ভারতের প্রধান কোচ প্রসঙ্গ নিয়ে বেশ কয়েকবার কথা হয়েছিল। মূলত আমি এটি করতে আগ্রহী কি-না সেটি নিশ্চিত করতেই।’

পন্টিং এর আগে জাতীয় দলের দায়িত্বে পালনে নিজের ইচ্ছার কথা জানিয়েছিলেন। তবে তার বর্তমান কর্মক্ষেত্র, আইপিএলের দল দিল্লি ক্যাপিটালসের প্রধান ও কোচ নিজ দেশ অস্ট্রেলিয়ায় বিভিন্ন টেলিভেশনে কাজের ফাঁকে এমন বড় দায়িত্বের জন্য এটিকে সঠিক সময় মনে করছেন না পন্টিং। 

২০১৮ সাল থেকে দিল্লি ক্যাপিটালসের প্রধান কোচের দায়িত্ব পালন করে আসছেন পন্টিং। ভারতের জাতীয় দলের কোচ হলে আইপিএলের কোনো দলের দায়িত্ব পালন করা যাবে না। এটি সম্পর্কে ভালোভাবেই অবগত আছেন পন্টিং।

কোনো জাতীয় দলের দায়িত্ব নেওয়া মানেই বছরের প্রায় পুরো সময়ই দল নিয়ে ব্যস্ত থাকা। হঠাৎ করে এমন দায়িত্বের সঙ্গে নিজেকে খাপ খাইয়ে নেওয়ার ব্যাপারে বেশ দ্বিধায় আছেন পন্টিং। এমনকি সেটি তার বর্তমান জীবনযাত্রা এবং অভ্যাসের সঙ্গেও যায় না বলে জানান এই সাবেক অজি তারকা।

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’

;

৬১ বছর পর শিরোপা উঁচিয়ে ধরল আতালান্তা



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নিজেদের ক্লাব ইতিহাসে সবশেষ ৬১ বছর ধরে কোনো শিরোপারই দেখা পায়নি ইতালিয়ান ক্লাব আতালান্তা। ২০২৩-২৪ চলতি মৌসুমের উয়েফা ইউরোপা লিগের ফাইনালে জায়গা করার পর তাদের সামনে লক্ষ্য ছিল এই ট্রফিখরাটা কাটানো। অপরদিকে বায়ার লেভারকুসেন ছিল ট্রেবল গড়ার পথে, তার সঙ্গে চলতি মৌসুমে নিজেদের ৫২তম ম্যাচ জিতে অপরাজিত থাকার রেকর্ডটি আরও লম্বা করার লক্ষ্যও ছিল।

শেষ পর্যন্ত লেভারকুসের জয়রথ থামিয়ে ম্যাচটি জিতে নেন আতালান্তা। এর মাধ্যমে বিগত ৬১ বছরে প্রথমবার কোনো শিরোপার স্বাদ পেল তারা। এর আগে ১৯৬৩ সালে ইতালিয়ান কাপের শিরোপা ঘরে তুলেছিল তারা।

আয়ারল্যান্ডের আভিভা স্টেডিয়ামে আতালান্তার জয়ের নায়ক নাইজেরিয়ান উইংগার আদেমোলা লুকমান। তিনি একাই হ্যাটট্রিক করে চলতি মৌসুমের অন্যতম পরাশক্তি লেভারকুসেনকে রুখে দেন।

ম্যাচের শুরু থেকেই বল দখলে আধিপত্য দেখাতে থাকে জার্মান জায়ান্টরা। কিন্তু ১২তম মিনিটে প্রথম গোলটি হজম করে তারা। আকষ্মিক আক্রমণে ২৬তম মিনিটে আবারও লেভারকুসেনের জালে বল জড়ান লুকমান।

চলতি মৌসুমে একের অধিকবার দুই গোলে পিছিয়ে থেকেই ম্যাচ নিজেদের নামে করে নেওয়ার নজির ছিল জাবি আলোনসোর দলের। সমর্থকরা সে আশাতেই ছিল যে এবারও ঘুরে দাঁড়াবে অপ্রতিরোধ্য লেভারকুসেন। কিন্তু আতালান্তা সেরকমটা হতে দেয়নি। উল্টো ৭৫তম মিনিটে নিজের এবং দলের হয়ে তৃতীয় গোলটিও আদায় করে ফেলেন নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড লুকমান।

লেভারকুসেনের এই জয়যাত্রায় বাঁধা দিয়ে নিজেরা ৬১ বছর পর শিরোপা জয়ের আনন্দে মাতে আতালান্তা। অপরাজিত থাকার রেকর্ডে ভাটা পড়লেও লেভারকুসেনের সামনে রয়েছে জার্মান কাপের ফাইনাল, যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ কাইজারস্লাটার্ন। আপাতত সেই ম্যাচকে ঘিরেই মনোনিবেশ করতে চায় জার্মান ক্লাবটি।

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’

;

বেঙ্গালুরুকে বাদ করে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে রাজস্থান



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

এবারের আইপিএলে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু প্লে-অফে খেলবে এমনটাই বেশিরভাগ সমর্থক আশা করছিল না। কারণ আসর শুরুর আট ম্যাচের মধ্যে সাতটিতেই হেরে পয়েন্ট তালিকার তলানিতে ছিল তারা, সবার আগে বাদ পড়বে কোহলিরা এমনটাই ধরে রেখেছিল সবাই। কিন্তু অনেক সমীকরণের বাঁধা পেরিয়ে প্রত্যাবর্তনের গল্প লিখে দেখিয়েছে বেঙ্গালুরু। যদিও শেষ পর্যন্ত ফাইনালে খেলার এবং শিরোপা জেতার স্বপ্ন থেকে আরও একবার বঞ্চিত থাকতে হয়েছে তাদের।

আইপিএলের প্লে-অফে এলিমিনেটর ম্যাচে বেঙ্গালুরুকে ৪ উইকেটে হারিয়েছে রাজস্থান রয়্যালস। আরও একবার খালি হাতেই বিদায় নিতে হলো বিরাট কোহলিকে। দ্বিতীয় কোয়ালিফাইয়ারে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিপক্ষে লড়বে রাজস্থান।

বুধবার রাতে আহমেদাবাদের মাঠে টসে জিতে শুরুতে বেঙ্গালুরুকে ব্যাটিংয়ে পাঠায় রাজস্থান। ব্যাট হাতে এদিন জ্বলে উঠতে পারেননি কোহলিদের কেউই। নির্ধারিত ওভার শেষে তাদের দলীয় সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৭২ রানে।

জবাবে ব্যাট হাতে নেমে সাবলীল সূচনা করেন রাজস্থানের দুই ওপেনার। যদিও বেশিক্ষণ উইকেটে টিকে থাকতে পারেননি তারাও। শেষে দলীয় প্রচেষ্টায় চার উইকেট এবং এক ওভার হাতে রেখেই লক্ষ্যে পৌঁছে যায় রাজস্থান। রাজস্থানের এই জয়ে আরও একবার শিরোপা জয়ের স্বপ্নভঙ্গ হয় বেঙ্গালুরু সমর্থক ও বিরাট কোহলির।

২৪মে রাত ৮টায় দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে হায়দরাবাদের মুখোমুখি হবে রাজস্থান। তাদের মধ্যে যে জিতবে সে দল আগামী ২৬মে কলকাতার বিপক্ষে ফাইনাল ম্যাচের লড়াইয়ে নামবে।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

বেঙ্গালুরুঃ ১৭২/৮ (২০ ওভার); পাতিদার ৩৪, কোহলি ৩৩; আভেশ ৩-৪৪, অশ্বিন ২-১৯।

রাজস্থানঃ ১৭৪/৬ (১৯ ওভার); যশস্বী ৪৫, পরাগ ৩৬; সিরাজ ২-৩৩, কার্ন ১-১৯।

ফলাফলঃ রাজস্থান ৪ উইকেটে জয়ী।

ম্যাচসেরাঃ রবীচন্দ্রন অশ্বিন।

  ‘মরুর বুকে বিশ্ব কাঁপে’

;