Alexa

সাদা চুল মুমিনের নূর

সাদা চুল মুমিনের নূর

সাদা চুলকে মুমিনের নূর বলা হয়েছে, ছবি: সংগৃহীত

সাদা চুল মুমিনের নূর। এ কথা একাধিক হাদিসে বর্ণিত হয়েছে। হজরত আমর বিন শোয়াইব রহমাতুল্লাহি আলাইহি থেকে পর্যায়ক্রমে তার পিতা ও তার দাদার সূত্রে বর্ণিত। তিনি বলেন, হজরত রাসূলাল্লাহু সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, তোমরা পাকা চুল দাড়ি উপড়িয়ে ফেলো না। কেননা কোনো মুসলিম ইসলামের মধ্যে থেকে চুল পাকালে (সুফিয়ানের বর্ণনায়) এটা তার জন্য কিয়ামতের দিন উজ্জ্বল নূর হবে। (ইয়াহইয়ার বর্ণনায় এসেছে) আল্লাহ তার প্রতিটি পাকা চুলের পরিবর্তে তাকে একটি নেকি দান করবেন এবং একটি গোনাহ মিটিয়ে দেবেন। -সুনানে আবু দাউদ: ৪২০২

তার পরও অনেকেই বার্ধক্যের কারণে চুল-দাড়ি পেকে গেলে কালো খেজাব ব্যবহার করেন। যদিও তা নাজায়েজ। একাধিক হাদিসে এ বিষয়ে কঠোর হুঁশিয়ার এসেছে। হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, মক্কা বিজয়ের দিন রাসূলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম হজরত আবু বকর সিদ্দিক রাযিয়াল্লাহু আনহুর পিতা আবু কুহাফা (রা.)-এর চুল এবং দাড়ি পাকা দেখে বললেন, এটাকে কোনো কিছু দ্বারা পরিবর্তন করো। তবে কালো থেকে বিরত থাক। -সহিহ মুসলিম: ৫৪৬৬

অন্য হাদিসে আছে, হজরত রাসূলে কামিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, শেষ জামানায় কিছু লোক কবুতরের ঝুঁটির মতো কালো খেজাব ব্যবহার করবে তারা কেয়ামতের দিন জান্নাতের ঘ্রাণও পাবে না। -সুনানে আবু দাউদ: ৪২০৯

অবশ্য কোনো যুবকের অসুস্থতা বা অন্যকোনো কারণে যদি চুল-দাড়ি পাকার বয়সের আগেই সাদা হয়ে যায়, তবে সে কালো খেজাব ব্যবহার করতে পারবে। এ প্রসঙ্গে বিশিষ্ট ইসলামি দার্শনিক আহমাদ আলী সাহারানপুরি বলেন, হাদিসে কালো খেজাব ব্যবহার করতে নিষেধ করা হয়েছে। এর মূল কারণ অন্যদের সামনে বয়স গোপন করা এবং অন্যকে ধোঁকা দেওয়া। -হাশিয়া সহিহ বোখারি: ১/৫৩০

যুবকের ক্ষেত্রে ধোঁকার এই দিকটি অনুপস্থিত। তাই কোনো কোনো ইসলামি স্কলার যুবকদের জন্য কালো খেজাব জায়েয হওয়ার মত দিয়েছেন। -ফায়জুল কাদির: ১/৩৩৬

তাবেয়ি ইবনে শিহাব জুহরি (রহ.) বলেন, আমাদের চেহারা যখন সতেজ ছিল তখন আমরা কালো খেজাব ব্যবহার করতাম। আর যখন আমাদের চেহারা মলিন হয়ে গেল এবং দাঁত নড়বড়ে হয়ে গেল তখন আমরা কালো খেজাব ছেড়ে দিয়েছি। -ফাতহুল বারি: ১০/৩৬৭

অবশ্য হাদিসে যেহেতু কালো খেজাবকে বিশেষভাবে নিষেধ করা হয়েছে তাই যুবকদের জন্যও একেবারে কালো খেজাব ব্যবহার না করে লাল কালো মিশ্রিত খেজাব ব্যবহার করা উচিত। -ফায়জুল কাদির: ১/৩৩৬

আর বার্ধক্যের কারণে চুল পেকে গেলে কালো খেজাব ছাড়া অন্য খেজাব ব্যবহার করা মুস্তাহাব। যেমন রাসূলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আবু কুহাফা (রা.) কে কালো খেজাব ছাড়া অন্য খেজাব ব্যবহার করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন।

অন্য এক হাদিসে এসেছে, হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) বলেন, আমি রাসূলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে হলুদ রং ব্যবহার করতে দেখেছি তাই আমিও হলুদ রং ব্যবহার করতে পছন্দ করি। -সহিহ বোখারি: ১৬৬

তবে কোনো নারীর জন্য চুলে কালো কলপ ব্যবহার করা জায়েয নেই। তারা মেহেদি রং করতে পারবেন।

আপনার মতামত লিখুন :