Alexa

পরিবারের জন্য খরচ সওয়াবের কাজ

পরিবারের জন্য খরচ সওয়াবের কাজ

এক মুসলিম পরিবারের সদস্যরা একসঙ্গে খাবার খাচ্ছেন, ছবি: সংগৃহীত

মানুষ নিজের এবং তার অধীনস্থদের জন্য যা খরচ করে তা সদকা হিসেবে পরিগণিত হয় বলে হাদিসে উল্লেখ করা হয়েছে। হজরত আবু উমামা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘অনিষ্টতা ও খারাপ থেকে বেঁচে থাকার জন্য যে ব্যক্তি নিজের জন্য কিছু খরচ করল তা তার জন্য সদকা এবং যে ব্যক্তি নিজ স্ত্রী, সন্তান-সন্তুতি ও পরিবারের অন্য সদস্যদের জন্য কিছু খরচ করল তা তার জন্য সদকা হিসেবে পরিগণিত হবে।’ -মুজামুল আওসাত: ৩৮৯৭

আল মিকদাদ ইবন মাদি কারিব (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে নবী করিম (সা.) বলেন, ‘তুমি নিজে যা খাবে তা তোমার জন্য সদকা। তুমি তোমার সন্তানকে যা খাওয়াবে তা তোমার জন্য সদকা। তুমি তোমার স্ত্রীকে যা খাওয়াবে তা তোমার জন্য সদকা। তুমি তোমার চাকরকে যা খাওয়াবে তা তোমার জন্য সদকা।’ –মুসনাদে আহমাদ: ১৭২১৮

হজরত ইরবাদ ইবন সারিয়া (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে নবী করিম (সা.) বলেন, ‘একজন ব্যক্তি তার স্ত্রীকে পানি পান করালে সওয়াব লাভ করবে। তিনি বলেন, এ কথা শোনে আমি আমার স্ত্রীর কাছে আসলাম, অতঃপর তাকে পানি পান করালাম এবং আমি যা হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর কাছে শুনেছি তা বর্ণনা করলাম।’ -মুসনাদে আহমাদ: ১৭১৯৫

অপর এক হাদিসে বর্ণিত হয়েছে যে, আপন স্ত্রী যা খায় তাও সদকা। হজরত সাদ (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘নবী করিম (সা.) শুশ্রুষার জন্য তার কাছে গেলেন। যেই জমিন থেকে তিনি হিজরত করেছেন সে জমিনে মৃত্যুবরণ করতে তিনি পছন্দ করছেন না। তিনি বললেন, হে আল্লাহর রাসূল! আমি আমার সব সম্পত্তি অসিয়ত করতে চাই। তিনি (সা.) বললেন, ‘না। তিনি বললেন, তবে অর্ধেক অসিয়ত করি। তিনি (সা.) বললেন, না। তিনি বললেন, তবে আমি এক-তৃতীয়াংশ অসিয়ত করি। নবী করিম (সা.) বললেন, এক-তৃতীয়াংশ করতে পারো, এক-তৃতীয়াংশই অনেক। তুমি তোমার সন্তান-সন্ততিকে মুখাপেক্ষী করে রেখে যাবে, আর তারা মানুষের দ্বারে দ্বারে চেয়ে বেড়াবে এর চেয়ে তাদের তুমি অমুখাপেক্ষী করে রেখে যাবে, এটিই উত্তম। তুমি পরিবারের জন্য যা খরচ করবে তাই সদকা। এমনকি তুমি তোমার স্ত্রীর মুখে যে লোকমা তুলে দেবে তাও সদকা।’ –সহিহ বোখারি: ২৫৯১

তবে ওপরে বর্ণিত সওয়াব তখনই পাওয়া যাবে, যখন কোনো মুমিন তার স্ত্রীকে পানাহার করাবে আল্লাহতায়ালার সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে, দায়িত্ব ও কর্তব্য মনে করে, ঈমানি চেতনা নিয়ে।

হজরত আবু মাসউদ আল বাদরি (রা.) বর্ণিত অপর এক হাদিসে নবী করিম (সা.) বলেন, ‘আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আশায় যখন কোনো মুসলমান তার পরিবারের জন্য কিছু খরচ করে, তখন তা তার জন্য সদকায় পরিণত হয়।’ -সহিহ মুসলিম: ২৩৬৯

সন্তান-সন্তুতির প্রতি অনুগ্রহ করলে জান্নাত লাভ হয় এবং জাহান্নামের আগুন হারাম হয়ে যায়। হজরত আয়েশা (রা.) বলেন, আমার কাছে দু’টি কন্যা সন্তানসহ এক মিসকিন এলো। আমি তাকে তিনটি খেজুর দিলাম। সে প্রত্যেককে একটি করে খেজুর দিলো এবং সে নিজে খাওয়ার জন্য একটি খেজুর মুখের দিকে উঠাল। কিন্তু তার কন্যাদ্বয় খেজুরটি খাওয়ার জন্য তার কাছে চাইল। ফলে সে যে খেজুরটি খেতে চেয়েছিল তা দু’ভাগে ভাগ করে দু’জনকে দিয়ে দিলো। তার বিষয়টি আমাকে বিস্মিত করল। সে যা করল আমি তা হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর কাছে বললাম। অতঃপর নবী করিম (সা.) বললেন, নিশ্চয় আল্লাহতায়ালা এর বিনিময়ে তার জন্য জান্নাত ওয়াজিব করে দিয়েছেন। অথবা তিনি বললেন, নিশ্চয় আল্লাহতায়ালা এর বিনিময়ে জাহান্নামের আগুন থেকে তাকে মুক্তি দিয়েছেন।’ -সহিহ মুসলিম: ৬৮৬৩

স্ত্রীকে যাই দেওয়া হোক তাই সদকা হিসেবে গণ্য। হজরত উমর ইবনুল খাত্তাব (রা.) একদা আমর ইবন উমাইয়ার কাছে এলেন, তখন তিনি বাজারে রেশমি চাঁদরের দরদাম করছিলেন। তিনি বললেন হে আমর! রেশমি চাঁদর কী করা হবে? তিনি বললেন, আমি এটি ক্রয় করব, অতঃপর তা সদকা করব। তিনি বললেন, কাকে সদকা করবেন? তিনি বললেন, আমার সঙ্গিনীকে। তিনি বললেন, আপনার সঙ্গিনী কে? তিনি বললেন, আমার স্ত্রী। তিনি বললেন, আপনি আপনার স্ত্রীকে সদকা করবেন? তিনি বলেন, আমি হজরত রাসূলুল্লাহকে (সা.) কে বলতে শুনেছি, তিনি বলেন, তোমরা তোমাদের স্ত্রীদেরকে যা দেবে তাই তোমাদের জন্য সদকা হিসেবে পরিগণিত হবে। তিনি (হজরত উমর) বলেন, হে আমর! আপনি হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর ওপর মিথ্যা আরোপ করবেন না।

অতঃপর তিনি বললেন, আল্লাহর কসম! আপনি হজরত আয়েশা (রা.)-এর কাছে এসে জিজ্ঞেস না করা পর্যন্ত আমি আপনাকে ছাড়ব না। বর্ণনাকারী বলেন, তারা উভয়েই গিয়ে হজরত আয়েশা (রা.)-এর কাছে গিয়ে উপস্থিত হলেন। অতঃপর তাকে আমর বললেন, হে আম্মাজান! ইনি উমর। তিনি আমাকে বলছেন, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর ওপর মিথ্যা আরোপ করবেন না। আপনাকে আল্লাহর কসম দিয়ে বলি, আপনি কি হজরত রাসূলুল্লাহকে (সা.) এ কথা বলতে শুনেছেন যে, তিনি বলেন, তোমরা যা তাদেরকে (স্ত্রীদেরকে) দেবে তাই তোমাদের জন্য সদকা হিসেবে পরিগণিত হবে। তিনি বললেন, আল্লাহুম্মা! হ্যাঁ, আল্লাহুম্মা হ্যাঁ। -মারিফাতুস সুনান ওয়াল আসার: ২৫৫৮

সন্তান-সন্ততির জন্য যা খরচ করা হয় তাই সর্বশ্রেষ্ঠ দান। হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণিত এক হাদিসে নবী করিম (সা.) বলেন, ‘তুমি একটি দিনার আল্লাহর রাস্তায় খরচ করেছ, একটি দিনার দাস মুক্তির কাজে ব্যয় করেছ, একটি দিনার মিসকিনকে দান করেছ, আর একটি দিনার তোমার পরিবারের জন্য খরচ করেছ। এর মধ্যে যে দিনারটি তুমি তোমার পরিবারের জন্য খরচ করেছ; তার সওয়াব সবচেয়ে বেশি।’ -সহিহ মুসলিম: ২৩৫৮

আপনার মতামত লিখুন :