পেরেক তৈরিতেই যাদের জীবন

মাসুদুর রহমান, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: বার্তা২৪

ছবি: বার্তা২৪

  • Font increase
  • Font Decrease

গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার আচারপাড়া-আড়ুয়াকান্দি গ্রামের মানুষের ঘুম ভাঙে হাতুড়ির ঠুনঠান শব্দে। সূর্যের আলো দেখার আগেই শুরু হয় কর্ম ব্যস্ততা। কারণ এ গ্রামের অধিকাংশ মানুষই পেরেক তৈরির কাজে জড়িত। বাপ-দাদার আমল থেকেই চলে আসছে এ পেরেক তৈরির কাজ। এ কাজ করে এলাকার প্রায় ২০০টি পরিবারের জীবিকা নির্বাহ চলছে।

গ্রাম ঘুরে জানা যায়, আচারপাড়া-আড়ুয়াকান্দি গ্রামে প্রায় ১৫০ বছর আগে থেকেই পেরেক তৈরির কাজ শরু হয়। পূর্ব-পুরুষের পেশা হিসেবে এখনো এ পেশা ধরে রেখেছেন তাদের উত্তরসূরিরা। এ পেশায় প্রায় পাঁচ শতাধিক মানুষ নিয়মিত কাজ করেন।

পেরেক তৈরির কাঁচামাল হিসেবে পুরাতন বিল্ডিংয়ের ছাদের ও ব্রিজের লোহা/রড ব্যবহার করা হয়। লোহাগুলোকে সোঁজা করে পর্যায়ক্রমে ৪ ইঞ্চি, ৫-৬ ইঞ্চি, ৮-১০ ইঞ্চি, ১২-১৬ ইঞ্চি মাপে কেটে কয়লার আগুনে পুড়িয়ে চৌরাশ করে নির্দিষ্ট ছাঁচে ফেলে ছাদ পিটিয়ে পেরেকগুলো তৈরি করা হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Dec/27/1545886031277.jpg

তৈরিকৃত এসব পেরেক আচারপাড়ার পাশ্ববর্তী টেকেরহাট বন্দর, মুকসুদপুর, গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর, ফরিদপুর, টরকী বন্দর, ভুরঘাটাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি করা হয়। ৪ ইঞ্চি পেরেকের মণ প্রতি ৬ হাজার টাকা, ৫-৬ ইঞ্চি মণ প্রতি ৪ হাজার ৫০০টাকা, ৮-১০ ইঞ্চি মণ প্রতি ৪ হাজার ৩০০ টাকা, ১২-১৬ ইঞ্চি মণ প্রতি ৪ হাজার ৬০০ টাকা দরে বিকিকিনি হয়।

পেরেক তৈরির কাজে নিয়োজিত আনন্দ বাকচী বার্তা২৪কে বলেন, ‘দৈনিক ১৫ থেকে ২০ কেজি পেরেক তৈরি করতে পারি। আগে বেশি মজুরি পেতাম। এখন পাই ৩০০-৪০০ টাকা।

টেকেরহাট বন্দরের প্যারাক ব্যবসায়ী অমল চন্দ্র মন্ডল বলেন, ‘আমরা ঢাকা-খুলনা থেকে লোহাগুলো ২ হাজার টাকা দরে মণ কিনে আনি। শ্রমিকদের প্রতি কেজি তৈরিতে মজুরি হিসাবে ৪০ টাকা দিতে হয়। আনুসঙ্গিক খরচসহ প্রতি কেজিতে খরচ ৯০-৯৫ টাকা পরে। দুই জন শ্রমিক দৈনিক ১৫-২০ কেজি পেরেক তৈরি করতে পারে। এতে প্রতি শ্রমিক ৩০০-৪০০ টাকা আয় করে। আমরা খরচ বাদে বাজার ভেদে প্রতি কেজি ১৪০-১৫০ টাকা দরে বিক্রি করে ৪০-৫০ টাকা নিট আয় করি।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Dec/27/1545886076197.jpg

তিনি আরও বলেন, ‘বর্তমানে দেশের সব জায়গায় কাঠের ব্যবহার কমে গিয়ে ইট-সুরকির পাঁকা ঘর নির্মাণ বৃদ্ধি পাওয়ায় পেরেকের ব্যবহার দিন দিন কমে যাচ্ছে।’

আপনার মতামত লিখুন :