স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভাস কঠিন কিছু নয়!

ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, লাইফস্টাইল
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নিয়মিত ফল, সবজী ও স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া সুস্বাস্থ্যের জন্য প্রয়োজনীয়।

কারণ স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভাস শরীর ও মনকে প্রফুল্ল রাখতে সাহায্য করে। তবে স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভাস গড়ে তোলা খুব একটা সহজ কোন বিষয় নয়। সারাদিনে নানান ধরণের কাজের ব্যস্ততায় ও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যাওয়ার ফলে সঠিকভাবে খাদ্যাভাসের নিয়ম মেনে চলা সম্ভব হয় না।

উপরন্তু পছন্দসই খাবার খেতে না পারার ফলে মন খারাপ হবার বিষয়টা তো থাকেই। পছন্দসই ও প্রিয় খাবারগুলো অবধারিত ভাবেই অস্বাস্থ্যকর হয়। অন্যদিকে স্বাস্থ্যকর ও উপকারি খাবারগুলো হয় একেবারেই অস্বাস্থ্যকর।

এইসকল দ্বিধাদন্দের অবসান ঘটিয়ে খুব সহজেই স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভাস রপ্ত করা সম্ভব। সকলের সুবিধার্থে কিছু সহজ নিয়ম জানানো হলো।

১. ফল ও সবজী খাওয়া অনেকের কাছেই ভীতিকর একটি বিষয়। এই সহজ ও স্বাভাবিক বিষয়টি নিয়ে ভয় পাওয়ার কোন কারণই নেই। বরং বিষয়টিকে আনন্দের সাথে গ্রহণ করতে হবে এবং নিজের প্রাত্যহিক জীবন ব্যবস্থার সাথে মানিয়ে নিতে হবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Oct/16/1539670370188.jpeg

২. বার্গার কিংবা পাস্তা খেতে খুব ভালোবাসেন? এমন সকল খাবারের ছবি দেখলে বা এমন খাবার সামনে পড়লেই খেয়ে ফেলেন? তাহলে এই সকল খাবারের ছবি যেন দেখতে না হয় সেইরূপ ব্যবস্থা নিন। রেস্টুরেন্টে যাওয়ার মাত্রা কমিয়ে দিন। অস্বাস্থ্যকর খাবার এড়িয়ে চলে অনেকখানি সহজ হয়ে যাবে।

৩. মিষ্টি খাবার একদম বাদ দিয়ে দেওয়ার প্রয়োজন নেই। মিষ্টি কোন কিছু খেতে ইচ্ছা হলে স্বল্প মাত্রার ডার্ক চকলেট খেতে পারেন। যা একইসাথে মিষ্টি খাবার খাওয়ার ইচ্ছা মেটাবে এবং শরীরের উপকারেও আসবে।

৪. যদি কর্মজীবি হয়ে থাকেন তবে নিশ্চয় দুপুরে বাইরেই খাওয়া হয়। যত ভালো হোটেলের খাবারই খাওয়া হোক না কেন, বাইরের খাবার কখনোই স্বাস্থ্যে জন্য ভালো নয়। বরং বাসায় পরের দিনের দুপুরের খাবার তৈরির জন্য কিছুটা বাড়তি সময় ব্যয় করুন। পছন্দসই সবজী কিংবা ফলের সালাদ তৈরি করুন। রুটি কিংবা ওটসের কোন পদ রাঁধুন। দুপুরে পেট ভরে স্বাস্থ্যকর ও পছন্দনীয় খাবার খাওয়া হবে একইসাথে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Oct/16/1539670390187.jpeg

৫. সবজী খেতে একেবারেই পছন্দ করেন না এমন মানুষের সংখ্যা নেহাত কম নয়। স্বাদহীন সবজী খেতে পছন্দ করার কোন কারণ নেই এটাও সত্য। কিন্তু চাইলেই সবজীকে নিজের পছন্দ অনুযায়ী স্বাদু রান্নায় পরিণত করা যায়। বিভিন্ন ধরণের মশলার ব্যবহার ও সবজীর নানান রকম রান্নার রেসিপি, সবজীকে স্বাদহীন থাকতেই দিবে না।

৬. স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার অভ্যাস চলমান রাখার জন্য পরিবারের মানুষ ও কাছের বন্ধুদের সঙ্গে নিজের স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভাস নিয়ে কথা বলতে হবে। তাদেরকেও এই প্রক্রিয়ার বিষয়ে জানাতে হবে। এতে করে অন্যান্যরাও উপকৃত হবেন এবং নিজেকেও সঠিক পথে রাখা সহজ হয়ে যাবে।

৭. সবচেয়ে সহজ একটি টিপস হলো, জার্নাল মেইনটেইন করা। প্রতিদিনের খাদ্য তালিকা নিজে নিজেই লিখে রাখা, সেটা মেনে চলা, নিজে নিজেই মার্কস দেওয়া, নিজেকে নিজেই অপুপ্রানিত করার এই সহজ উপায়ে স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভাস খুব সহজেই ভালোভাবে রপ্ত করা সম্ভব হয়।  

আপনার মতামত লিখুন :