নিত্য ব্যবহার্য জিনিসে বিষাক্ত হচ্ছে ঘরের পরিবেশ

ছবি: সংগৃহীত

দুঃখজনক হলেও সত্যি, আমরা নিজেরাই আমাদের চারপাশের পরিবেশ দূষিত করার জন্য দায়ী।

বায়ুদূষণ, শব্দদূষণ কিংবা পরিবেশ দূষণের জন্য প্রতিনিয়ত হুমকির মুখে পড়ছে আমাদের স্বাস্থ্য। বিভিন্ন ধরণের কলকারখানার বর্জ্য, মনুষ্য বর্জ্য ও কৃত্তিম উপাদান ক্রমেই ধ্বংস করে দিচ্ছে প্রকৃতির স্বাভাবিকতা।

তবে আপনার ঘরের পরিবেশ ও বায়ু দূষণ করছে প্রতিদিনের ব্যবহার্য বেশ কিছু জিনিস। ঘরে থাকা এই সকল জিনিস পরোক্ষভাবে আপনার ও আপনার পরিবারের সদস্যের শরীরে তৈরি করছে দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতিকর প্রভাব।

মোমবাতি

ঘরে থাকা মোমবাতিও যে পরিবেশ দূষণের কারণ হতে পারে, সেটা হয়তো কখনোই ভাবেননি আপনি। কিন্তু যত ভালো মানের ও দামের মোমবাতিই ব্যবহার করুন না কেন, সকল ধরণের মোমবাতি তৈরিতেই ব্যবহৃত হয় প্যারাফিন, বিজঅয়াক্স অথবা অন্যান্য কেমিক্যালযুক্ত উপাদান। এই উপাদানগুলো কন্সেন্ট্রেটেড অবস্থায় থাকলেও, যেকোন স্থানের বায়ু দূষণ করতে পারে।

সবচেয়ে ক্ষতিকর প্রভাব পড়ে মোমবাতি জ্বালানো হলে। মোমবাতি জ্বালানোর ফলে অনেকে শ্বাসকষ্টের সমস্যায় ভোগেন বলে জানান।

এয়ার ফ্রেশনার

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Dec/05/1543986026847.jpg

এয়ার ফ্রেশনারের ব্যবহারে যখন ঘরের বাজে গন্ধ দূর হয়ে সুবাসিত হচ্ছে, ঠিক তখনই পরিবেশের উপর পড়ছে নেতিবাচক প্রভাব। বেশিরভাগ এয়ার ফ্রেশনারে ব্যবহৃত হয় ইথিলিন-বেসড গ্লাইসল। যা নিঃশ্বাসের সঙ্গে শরীরে প্রবেশের ফলে রক্ত ও মস্তিষ্কের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে।

ক্লিনিং প্রোডাক্টস

ঘর ও রান্নাঘরের শেলফ একদম ঝকঝকে রাখতে চায় সকলেই। যে কারণে বিভিন্ন ধরণের ক্লিনিং প্রোডাক্ট ব্যবহার করা আবশ্যক। ময়লা দূর করার জন্য এই সকল পণ্য প্রয়োজন হলেও, ফুসফুসের জন্য ভীষণ ক্ষতিকর। এই সকল পণ্যে ব্যবহৃত হয় অ্যামোনিয়া, অ্যারোসল ও এই ধরণের ক্ষতিকর উপাদান। এমন ধরণের পদার্থগুলো খুব সহজেই বাতাসকে দূষিত করে তোলে।

তাই ঘর পরিষ্কারের ক্ষেত্রে সবসময় প্রাকৃতিক উপাদানে ঘরে তৈরি ক্লিনিং প্রোডাক্ট ব্যবহার করা নিরাপদ।  

পেইন্টিং

শখ করে ও ঘরের সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য বিভিন্ন ধরণের পেইন্টিং ঝোলানো হয় দেয়াল জুড়ে। বেশিরভাগ পেইন্টিং এ ব্যবহার করা হয় লিড। যা নিঃশ্বাসের সঙ্গে শরীরে প্রবেশের ফলে ধীরে ধীরে নিউরোলজিক্যাল সমস্যা তৈরি করে। ছবিতে এই ক্ষতিকারক পদার্থ লিড কঠিন অবস্থায় থাকলেও, সময়ের সঙ্গে ক্ষয় হতে শুরুর করে এবং বায়ুকে দূষিত করে।

আরো পড়ুন: ভ্রমণে কী রাখবেন সাথে?

আরো পড়ুন: পেট্রোলিয়াম জেলির ব্যবহার কি নিরাপদ?

লাইফস্টাইল এর আরও খবর

//election count down //sticky sidebar