Barta24

শনিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৯, ২ ভাদ্র ১৪২৬

English

১৪২৬ বর্ষবরণের আয়োজন

রোদচশমায় রংয়ের ছোঁয়া!

রোদচশমায় রংয়ের ছোঁয়া!
ছবি কৃতজ্ঞতা: শেহরিজ কালেকশন
ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
লাইফস্টাইল


  • Font increase
  • Font Decrease

মাত্র দিন চারেক পরেই শুরু হয়ে যাবে আনকোরা বাংলার নতুন একটি বছর।

উৎসবের আনন্দ নিয়ে চলে আসবে বাঙালির কাঙ্ক্ষিত পহেলা বৈশাখ। ইতোমধ্যে নিশ্চয় বৈশাখের প্রস্তুতির তোড়জোড় শুরু হয়ে গেছে। বৈশাখ উপলক্ষে শাড়ি বা সালোয়ার কামিজ, কুর্তি এবং তার সাথে মিলিয়ে গহনা ও টিপ- সবকিছুই হওয়া চাই একদম মনমতো।

এতো কিছুর মাঝে সবচেয়ে প্রয়োজনীয় অনুষঙ্গটি সাথে রাখতে যেন ভুল না হয়। সেটা হলো রোদচশমা। আবহাওয়ার মন-মেজাজে স্থিরতা নেই মোটেও। কখনো প্রবল বর্ষণ তো কখনো কাঠফাটা রোদের তাণ্ডব। তবে হাতে থাকা দিন চারেক পরে বৈশাখ মাস চলে আসলে রোদের আধিপত্যটাই দেখা দেবে বেশি।

কেন প্রয়োজন রোদচশমা?

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/10/1554876060595.jpg

রোদের মাঝে পহেলা বৈশাখে বের হলে চোখে রোদচশমা থাকাটা আবশ্যিক। এক্ষেত্রে ভুল হলে ভুগতে হবে নিজেকেই। রোদের অতিবেগুনী রশ্মি শুধু ত্বকের জন্যে নয়, চোখের জন্যেও সমানভাবে ক্ষতিকর। এছাড়া যাদের মাইগ্রেনের সমস্যা রয়েছে, রোদের আলো তাদের মাথাব্যথার সমস্যাটি বাড়িয়ে দিতে পারে। রোদচশমার ব্যবহারে যে সমস্যাটি খুব ভালোভাবেই এড়িয়ে যাওয়া যায়।

বৈশাখে যেমন রোদচশমা চাই

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/10/1554876075248.jpg

ভ্রমণ কিংবা এদিক-সেদিক ঘোরাঘুরির অভ্যাস থাকলে সংগ্রহে রোদচশমা থাকবেই। এছাড়াও যারা ব্যাগ ও ঘড়ির মতো অনুষঙ্গের বিষয়ে সৌখিন, তাদের কাছেও রোদচশমা সমান গুরুত্ব পায়।

তবে বৈশাখের আমেজটা একেবারেই ভিন্ন। রংয়ে রঙিন বৈশাখের সাজ-পোশাকের সঙ্গে কালো রোদচশমা বেমানান লাগাটাই স্বাভাবিক।

রোদচশমাতেও যদি বৈশাখী আমেজের বর্ণীল আভা রাখতে চান, তবে খোঁজ করতে হবে অনলাইন ভিত্তিক ইসরাত স্বর্ণা’র প্রতিষ্ঠান ‘শেহরিজ কালেকশন’ পাতায়। মাইশা আতিকার নকশায় হাতে আঁকা রিকশা পেইন্টে রঙিন রোদচশমা পাওয়া যাবে বেশ কয়েকটি ভিন্ন নকশা ও ফ্রেমে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/10/1554876091745.jpg

ক্যানভাস চশমা নামের এই রোদচশমাগুলো ক্রেতারা খুব আগ্রহের সাথেই গ্রহণ করেছে বলে জানালেন ইসরাত। বার্তা২৪.কমকে বললেন, ‘ক্রেতাদের রেসপন্স খুবই ভালো। নতুন জিনিস হিসেবে সবাই খুব দারুন ভাবে গ্রহন করেছে’। সচেতনতামূলক বাক্যের পাশাপাশি ছোট ছোট বাংলা শব্দও জুড়ে দেওয়া হয়েছে এই সব ক্যানভাস চশমায়। ভিন্নমাত্রার এই রোদচশমাগুলোর মূল্য নির্ধারন করা হয়েছে সবার ক্রয়ক্ষমতার বিষয়টি মাথায় রেখেই। প্রতিটি ক্যানভাস চশমা পাওয়া যাবে মাত্র ২৬০ টাকায়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/10/1554876118110.jpg

বৈশাখের সাজকে সম্পূর্ণভাবে বর্ণীল করতে এমন রিকশা পেইন্টের চশমাগুলো চমৎকার অনুষঙ্গ হতে পারে। শুধু চোখের সুরক্ষাতেই নয়, সাজে বাড়তি সৌন্দর্য যোগ করতেও ব্যবহার করুন রোদচশমা।

আরও পড়ুন: বৈশাখী সাজে আলো ছড়াবে বাহারি টিপের সম্ভার

আরও পড়ুন: এবারের বৈশাখে কোন মোটিফে কেমন পোশাক!

আপনার মতামত লিখুন :

তিন উপাদানে ডিটক্সিফাইং পানীয়

তিন উপাদানে ডিটক্সিফাইং পানীয়
ডিটক্সিফাইং পানীয়

অন্যান্য সময়ের চাইতে ঈদের সময়টাতে তেল, চর্বি ও উচ্চমাত্রার ক্যালোরিযুক্ত খাবার বেশি খাওয়া হয়।

এতে করে সহজেই শরীরের উপর ক্ষতিকর প্রভাব পরে। এই ক্ষতিকর প্রভাব কাটানোর জন্য প্রয়োজন হয় ডিটক্সিফাইং পানীয়। যা শরীর থেকে ক্ষতিকর প্রভাবকে দূর করে সুস্থ রাখতে সাহায্য করবে।

এমন পানীয় তৈরিতে সাধারণত খুব বেশি উপাদান প্রয়োজন হয় না। আজকের বিশেষ ডিটক্সিফাইং পানীয়টি তৈরিতেও মাত্র তিনটি সহজলভ্য উপাদান প্রয়োজন হবে। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে এই পানীয়টি পান করলে সবচেয়ে বেশি উপকার পাওয়া যাবে।

ডিটক্সিফাইং পানীয় তৈরিতে যা লাগবে

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566047849609.jpg

১. একটি বড় লেবুর রস।

২. ১-২ ইঞ্চি পরিমাণ আদা কুঁচি।

৩. এক চা চামচ হলুদ গুঁড়া।

৪. দুই কাপ পরিমাণ পানি।

৫. এক চিমটি কালো গোলমরিচ গুঁড়া (ঐচ্ছিক)

ডিটক্সিফাইং পানীয় যেভাবে তৈরি করতে হবে

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566047866015.jpg

পানি ফুটিয়ে নামিয়ে এতে লেবুর রস, আদা কুঁচি, হলুদ গুঁড়া ও গোলমরিচ গুঁড়া মিশিয়ে পুনরায় চুলায় বসিয়ে ফুটিয়ে নিতে হবে। তৈরি হয়ে গেলে নামিয়ে কুসুম গরম থাককাকালী সময়ে পান করতে হবে।

আরও পড়ুন: ডেঙ্গুতে উপকারী পাঁচ পদের জুস

আরও পড়ুন: আহ, মশলা চা!

কতখানি নিকোটিন থাকে একটি সিগারেটে?

কতখানি নিকোটিন থাকে একটি সিগারেটে?
ছবি: সংগৃহীত

প্রশ্নাতীতভাবে ধূমপান সবচেয়ে বাজে ও ক্ষতিকর একটি অভ্যাস।

এ বদভ্যাসের দরুন নিজের স্বাস্থ্য তো বটেই, পাশাপাশি অন্যের স্বাস্থ্যও ঝুঁকির মাঝে পড়ে যায়। ধূমপানের ক্ষতিকর প্রভাব সম্পর্কে অবগত হওয়ার পরেও বেশিরভাগ ধূমপায়ী এই অভ্যাসটি বাদ দিতে চান না। তবে এর বিপরীত চিত্রও রয়েছে। অনেকেই চেষ্টা করেন স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ এই অভ্যাসটিকে পাশ কাটিয়ে উঠতে। তবে ধূমপায়ী, অধূমপায়ী ও ধূমপান ত্যাগ করার চেষ্টা করছেন যারা, প্রত্যেকেই একটি বিষয় সম্পর্কে জানার আগ্রহ প্রকাশ করেন- একটি সিগারেটে কতখানি নিকোটিন থাকে! চলুন এই বিষয়টি জানানো যাক।

প্রতিটি সিগারেটে থাকে ৭০০০ ভিন্ন ভিন্ন ধরনের কেমিক্যাল। যার মাঝে সবচেয়ে ক্ষতিকর হলো নিকোটিন (Nicotine). হাজারো ধরনের কেমিক্যালের ভেতর এই নিকোটিন তৈরি হয় তামাক পাতা থেকে। তামাক পাতা থেকে তৈরি হওয়া এই উদ্ভিজ কেমিক্যাল নিকোটিনেই ধূমপায়ীদের আসক্তি তৈরি হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566042274926.jpg

মেডিকেশন অ্যাডভোকেট জেসন রিড জানান, প্রতিটি সিগারেটে গড়ে এক মিলিগ্রাম পরিমাণ নিকোটিন থাকে। এছাড়া এক গবেষণা থেকে দেখা গেছে সিগারেটের ধরনের উপর নির্ভর করে এক একটি সিগারেটে ১.২-১.৪ মিলিগ্রাম পরিমাণ নিকোটিন থাকে। স্বল্প নিকোটিনযুক্ত ‘সিগারেট লাইট’ এ ০.৬-১ মিলিগ্রাম পরিমাণ নিকোটিন থাকে। তবে সাধারণ সিগারেটের মতো সিগারেট লাইটেও একই ধরনের সিগারেট বুস্ট তথা সিগারেটের প্রভাব থাকে।

এছাড়া নিকোটিন গ্রহণের মাত্রা ধূমপায়ীর উপর নির্ভর করে। সিগারেটে কত জোরে টান দিচ্ছে এবং সিগারেট পাফের কতটা নিকটবর্তী স্থান পর্যন্ত সিগারেট পান করছে- এই দুইটি বিষয়ের উপর নির্ভর করেও নিকোটিন গ্রহণের মাত্রায় তারতম্য দেখা দেয়।

আরও পড়ুন: ধূমপানে অন্ধত্ব!

আরও পড়ুন: প্যাসিভ স্মোকিংয়ে ক্যানসার ঝুঁকিতে আমরা সবাই!

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র