Barta24

রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬

English

২০১৯’র ঈদের বাজার

ঈদ ট্রেন্ডে থাকবে ‘ন্যুড মেকআপ লুক’

ঈদ ট্রেন্ডে থাকবে ‘ন্যুড মেকআপ লুক’
ইনগ্লটের কাস্টমাইজ মেকআপ প্যালেট, ছবি: বার্তা২৪
ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
লাইফস্টাইল


  • Font increase
  • Font Decrease

মেকআপের ধারণা ও ধরন উভয়ই পরিবর্তনশীল।

সঠিকভাবে বলতে গেলে সময়ের সাথে তাল রেখে প্রতিনিয়তই বদলে যাচ্ছে মেকআপের ব্যবহার। গতকাল যা ছিল ট্রেন্ডি, দিন গড়িয়ে আজকেই হয়তো তা হয়ে যাচ্ছে ব্যাকডেটেড। ফ্যাশনের জগতটাই এমন। প্রতি মুহূর্তে বদলে যাওয়া ও নতুন কিছুর সাথে যুক্ত হওয়ার মাধ্যমেই বদল ঘটে ট্রেন্ডের।

সেই ধারাবাহিকতায় কী চলছে ও চলবে এ বছরের ঈদের মেকআপ বাজারে সেটা জানতেই ঘুরে আসা হয়েছিল বেশ কয়েকটি সুপরিচিত মেকআপ স্টোরে।

আন্তর্জাতিক কসমেটিকস প্রতিষ্ঠান ইনগ্লটের সিনিয়র মেকআপ আর্টিস্ট সানজিদা শেখ পপি বার্তা২৪.কমকে জানান, এবারের ঈদ ন্যুড বেসড মেকআপের চাহিদা রয়েছে তুঙ্গে। মাঝে কিছুদিন ভাইব্রেন্ট মেকআপের চল আসলেও, বর্তমানে ন্যুড ও হালকা শেড বেসড মেকআপের দিকেই ঝুঁকছে সৌন্দর্যপ্রেমীরা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/24/1558684419833.jpg

ন্যুড মেকআপের জনপ্রিয়তা আগেও ছিল। তবে নতুনভাবে ন্যুড বেসড মেকআপ ফিরে আসার কারণ হিসেবে জানালেন, এবারের আবহাওয়া। গরমে গাড় ও বর্ণীল মেকআপের চাইতে হালকা ও ন্যুড মেকআপে সৌন্দর্য ফুটে ওঠে সবচেয়ে দারুণভাবে। সেই ধারণা মাথায় রেখেই ন্যুড মেকআপের প্রচলন থাকছে এ বছরের ঈদে।

পপি জানালেন, ম্যাট বেস, প্রাইমার, এইচডি প্রেসড পাউডার, জ্যুল পাউডার ও বরাবরের মতো ম্যাট লিপস্টিকের চাহিদা রয়েছে বেশি। তবে এবারে লক্ষণীয়ভাবে মেকআপ ‘ম্যাটিফাইং’ করার প্রতি বাড়তি জোর দিচ্ছেন ক্রেতারা পণ্য কেনার বিষয়ে।

ইনগ্লট ঘুরে পরবর্তিতে যাওয়া হয় মেকআপ স্টোর বিউটি হাবে। এখানকার ম্যানেজার আশরাফুল আলম একই সুরে জানালেন, ন্যুড মেকআপের বিক্রি চলছে সবচেয়ে বেশি। অন্যান্য সময়ে স্কিন কেয়ার বেসড পণ্যের বিক্রি বেশি হলেও, ঈদের সময় বলে মেকআপ বেসড পণ্য বেশি বিক্রি হচ্ছে। মেকআপের সাথে মেহেদির চাহিদাও রয়েছে সমানভাবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/24/1558684442112.jpg

বিউটি হাবের ক্রেতা নাহার সিদ্দিকির সাথে আলাপচারিতায় জানালেন, নিজের ও উপহার দেওয়ার জন্য একসাথে আটটি মেহেদী কিনেছেন তিনি। কেনাকাটার তালিকায় আরও আছে প্রেসড পাউডার ও পিচ রঙের ম্যাট লিপস্টিক।

ঈদে কেমন ধরনের মেকআপ লুক তৈরি করতে চান জানতে চাইলে জানালেন, একেবারে ন্যুড মেকআপ না হলেও, খুব হালকা ঘরানার মেকআপ রাখতে চান তিনি। বেশি উজ্জ্বল রঙগুলো এড়িয়ে যেতে চান এবং চোখে আরাম দেবে এমন রঙের মাঝেই মেকআপ লুক তৈরি করতে চান নাহার।

এমনকি ব্যতিক্রমী তথ্য ছিল না লিরা ইমপোর্টেও। সেখান থেকেও জানানো হয় ঈদ উপলক্ষে ক্রেতারা ন্যুড বেসড মেকআপের খোঁজ করছেন সবার আগে। এমনকি মেকআপ পণ্য হিসেবে কিনছেন ন্যুড শেডের পণ্যগুলোই। পিচ, ন্যুড, অরেঞ্জিশ ন্যুড, ব্রাউনিশ ন্যুড শেডের লিপস্টিকগুলোর প্রতি আগ্রহী ক্রেতাদের সংখ্যা তুলনামূলক বেশি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/24/1558684465361.jpg

ঈদের কেনাকাটায় যদি মেকআপ কেনার পরিকল্পনা থাকে তবে এখনই কিনে নিতে পারেন পছন্দসই ন্যুড বেসড মেকআপ পণ্য। ত্বকের সাথে মিলিয়ে পছন্দনীয় ব্র্যান্ডের পণ্যটি সংগ্রহে থাকলে ঈদের সাজে তৈরি করা যাবে কাঙ্ক্ষিত পারফেক্ট ন্যুড লুক।

আরও পড়ুন: শাড়ির ক্যানভাসে উঠে আসুক গল্প!

আরও পড়ুন: চলছে কাবলি, ফরমালেও রয়েছে আকর্ষণ

আপনার মতামত লিখুন :

নাশতার নতুনত্বে ফালাফেল

নাশতার নতুনত্বে ফালাফেল
ফালাফেল

মধ্যপ্রাচ্যের সকাল ও বিকালের নাশতার অন্যতম একটি প্রচলিত খাবারের নাম হলো ফালাফেল।

নাম শুনে অনেকেই ভাববেন, এই খাবারটি সম্ভবত ফল দিয়ে তৈরি করা হয়। আদতে খাবারটি তৈরি হয় ছোলা কিংবা মটরশুঁটিতে। তেলে ভাজা বিভিন্ন মসলার সংমিশ্রণে তৈরি ফালাফেল ডুবো তেলে কড়া করে ভেজে দইয়ের রায়তার সাথে খেতে চমৎকার ভালো লাগে।

পরিচিত বড়া বা পেঁয়াজুর বাইরে নতুন ও হালকা কোন নাশতার খাবার খেতে চাইলে দেখে নিন ফালাফেল তৈরির রেসিপি।

ফালাফেল তৈরিতে যা লাগবে

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/24/1566653988942.JPG

১. এক কাপ শুকনো ছোলা।

২. একটি ছোট পেঁয়াজ কুঁচি।

৩. এক চা চামচ রসুন কুঁচি।

৪. তিন টেবিল চামচ ধনিয়া পাতা কুঁচি।

৫. আধা চা চামচ মরিচ গুঁড়া।

৬. এক চা চামচ ধনিয়া গুঁড়া।

৭. এক চা চামচ জিরা গুঁড়া।

৮. ১/৪ চা চামচ কালো গোলমরিচ গুঁড়া।

৯. এক টেবিল চামচ ময়দা।

১০. স্বাদমতো লবণ।

১১. ভাজার জন্য পরিমাণমতো তেল।

ফালাফেল যেভাবে তৈরি করতে হবে

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/24/1566654005300.JPG

১. ছোলা ধুয়ে পরিষ্কার পানিতে সারারাতের জন্য ভিজিয়ে রাখতে হবে এবং সময় হলে পানি থেকে তুলে শুকিয়ে নিতে হবে এবং ব্লেন্ড করে নিতে হবে।

২. এতে পেঁয়াজ কুঁচি, রসুন কুঁচি, ধনিয়া পাতা কুঁচি, জিরা গুঁড়া, ধনিয়া গুঁড়া, কালো গোলমরিচ গুঁড়া ও ময়দা মেশাতে হবে। সাথে পরিমাণমতো লবণ ও লেবুর রস যোগ করতে হবে এবং ব্লেন্ড করতে হবে।

৩. ব্লেন্ড শেষে সকল উপাদান মিশে অমসৃণ ও অসূক্ষ্ম মিশ্রণ তৈরি হবে। এতে পানি যোগ করা যাবে না, তবে যদি ব্লেন্ড করতে সমস্যা হয় ১-৩ টেবিল চামচ পানি আলাদাভাবে যোগ করতে হবে।

৪. ফালাফেল মিশ্রণ তৈরি হয়ে গেলে বাটিতে ঢেলে প্রয়োজন ও স্বাদ অনুযায়ী মসলা ও লবণ যোগ করতে হবে এবং হাতের সাহায্যে মাখিয়ে ছোট ছোট গোল ফালাফেল তৈরি করে নিতে হবে।

৫. এবারে কড়াইতে তেল গরম করে ফালাফেল দিয়ে দেখতে হবে তা ভেঙে যায় কিনা। যদি ভেঙে যায় তবে মিশ্রণের সাথে ময়দা যোগ করে এরপর ভাজতে হবে।

৬. ফালাফেল বাদামী-সোনালি হয় আসলে নামিয়ে নিয়ে দইয়ের রায়তা কিংবা ঘরে তৈরি পাতার চাটনির সাথে পরিবেশন করতে হবে।

আরও পড়ুন: চুলাতেই তৈরি হবে গরম নান

আরও পড়ুন: বাড়িতেই তৈরি করুন ভেজিটেবল মমো

কেন কেএফসির ফ্রাইড চিকেন সবচেয়ে আলাদা?

কেন কেএফসির ফ্রাইড চিকেন সবচেয়ে আলাদা?
কেএফসির ফ্রাইড চিকেন

গরম মুচমুচে কেএফসির ফ্রাইড চিকেনের মতো মজাদার খাবার যেন আর হয় না।

অন্যান্য রেস্টুরেন্টের ফ্রাইড চিকেন যতই মজাদার হোক না কেন, কেএফসির ফ্রাইড চিকেনে সবসময়ই ভিন্নতা বজায় থাকে। কিন্তু কেন কেএফসির চিকেন অন্যান্য রেস্টুরেন্টের চিকেনের চাইতে আলাদা ও ভিন্ন? এর প্রধান কারণ, মুরগির মাংস প্রস্তুতে মসলার ব্যবহার। ব্যতিক্রমী ও অন্য ধাঁচের মসলার নিয়ন্ত্রিত ও সঠিক ব্যবহারের ফলে, কেএফসির ফ্রাইড চিকেনের স্বাদ সহজেই আলাদা হয়ে ওঠে।

১১টি বিশেষ মসলার ব্যবহার

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/24/1566637051338.jpg

কেএফসির ফ্রাইড চিকেনের পুরনো ও ঐতিহ্যবাহী স্বাদ ঘরে বসে পেতে চাইলে, বিষয়টি খুব একটা সহজ হবে না। তবে কাছাকাছি স্বাদ তৈরি করা যেতে পারে ১১টি বিশেষ মসলার ব্যবহারে। মসলাগুলো হলো-

১. ২/৩ টেবিল চামচ লবণ।

২. ৩ টেবিল চামচ সাদা গোলমরিচের গুঁড়া।

৩. ১ টেবিল চামচ কালো গোলমরিচের গুঁড়া।

৪. ১/২ টেবিল চামচ বাসিল।

৫. ১ টেবিল চামচ সেলেরি সল্ট।

৬. ১ টেবিল চামচ শুকনো সরিষা।

৭. ২ টেবিল চামচ গার্লিক সল্ট।

৮. ১ টেবিল চামচ আদা গুঁড়া।

৯. ১/৩ টেবিল চামচ অরিগানো।

১০. ৪ টেবিল চামচ প্যাপরিকা।

১১. ১/২ টেবিল চামচ থাইম।

চিকেন ফ্রাই করার কৌশল আছে কী?

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/24/1566637102106.jpg

ব্যাটার তৈরি করে মুরগির মাংসে মিশিয়ে তেলে গড়িয়ে নিলেই যদি কেএফসির চিকেন ফ্রাই হয়ে যেতো, তাহলে তো কথাই ছিল না। ফ্রাইড চিকেন তৈরির মসলা নয়, চিকেন ফ্রাই করার কৌশলেও থাকে ভিন্নতা। ফলে অন্যান্য ফ্রাইড চিকেনের তুলনায় কেএফসির ফ্রাইড চিকেন ও চিকেন ক্রাস্ট হয় আলাদা। কয়েকটি কৌশল জেনে রাখুন।

দ্রুত ভেজে ফেলা

অনেকেই চিকেন ব্যাটার ও ময়দায় মাখিয়ে বেশ অনেকক্ষণ অপেক্ষা করার পর তেলে ভাজেন। কিন্তু কেএফসির ক্ষেত্রে নিয়ম একেবারে উল্টো। ‘ফ্রম ফ্লাওয়ার টু ফ্রায়ার’ এই নীতিতে কাজ করে কেএফসি। অর্থাৎ ময়দায় মুরগির মাংস গড়িয়ে সরাসরি ফ্রায়ারে ছেড়ে দেওয়া। এতে করে বাইরের আবরণ অতিরিক্ত শক্তও হবে না আবার মুচমুচে থাকবে এবং ফ্রাইড চিকেন খাওয়ার সময় সহজেই চিকেন থেকে খুলে আসবে।

ফ্রায়ারে ভিন্নতা

কেএফসির ফ্রাইড চিকেনের এক্সট্রা ক্রিস্পিভাব তৈরি করা হয় বিশেষ ইনডাস্ট্রিয়াল-স্ট্রেনথ প্রেশার ফ্রায়ার ব্যবহারে। কেএফসির মতো ফ্রায়ার ঘরে পাওয়া সম্ভব না হলেও, গভীর কোন পাত্রে ৩৫০-৩৬০ ডিগ্রীতে তেল গরম করে প্রতিটি মুরগির পিস ঘড়ি ধরে ১২ মিনিট ভাজলে কেএফসির কাছাকাছি ফ্রাইড চিকেন তৈরি করা সম্ভব হবে।

সাথে সাথেই না খাওয়া

কেএফসির ফ্রাইড চিকেন ভাজার পর অন্তত বিশ মিনিট ১৭৫ ডিগ্রী তাপমাত্রায় ওভেন সেটে রেখে দেওয়া হয়। এরপর এই ফ্রাইড চিকেন খাওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়। তেল থেকে ওঠানোর সাথে সাথে কেএফসির ফ্রাইড চিকেন পরিবেশন করা হয় না। ২০ মিনিট ওভেন সেটে রাখার ফলে মাংসের ভেতরের অংশ গরম থাকে এবং বাইরের অংশ থাকে মুচমুচে। এছাড়া মাংসে বাড়তি তেল থাকলে সেটাও ঝরে যায় সহজেই।

আরও পড়ুন: মাংসের ঝোলের ঘ্রানে কেএফসি’র সেন্টেড ক্যান্ডেল

আরও পড়ুন: কেএফসি যে কারণে নাম পরিবর্তন করেছিল!

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র