পায়ের নখের যত্নে যা জানা প্রয়োজন

লাইফস্টাইল ডেস্ক, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

হাতের নখের দিকে সময়ে সময়ে নজর দেওয়া হলেও, পায়ের নখ যেন পায়ের মতোই অবহেলায় রয়ে যায়।

বিশেষত যাদের নিত্যদিন বাইরে চলাচল করা প্রয়োজন হয়, তাদের ক্ষেত্রে পায়ের নখের যত্ন নেওয়া বেশি জরুরী। বাইরে থেকে ফিরেই পা ভালোভাবে ধুয়ে নেওয়ার সাথে নজর দিতে হবে পায়ের নখের দিকেও। বিশেষ করে বৃষ্টির দিনগুলোতে নখে কাদা লেগে যায়, এছাড়া ধুলাবালি নখের ভেতর প্রবেশ করে প্রতিনিয়ত। দীর্ঘদিন পায়ের নখ অপরিষ্কার রাখা হলে নখে জীবাণু জমে ফাঙ্গাস হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এমনকি ক্ষেত্র বিশেষে নখ নষ্টও হয়ে যেতে পারে। তাই জেনে রাখা প্রয়োজন পায়ের নখের যত্নে কী করতে হবে।

১. পায়ের নখ ছোট রাখতে হবে। নেইলকাটার মেশিন দিয়ে সপ্তাহে অন্তত একদিন নখ কাটতে হবে। যদি নখ বড় হতে থাকে, তাহলে এর ভিতরে জীবাণু জমে নখ নষ্ট হয়ে যেতে পারে। এছাড়াও হাঁটতে গিয়ে নখে আঘাত পেলে নখ নষ্ট হয়ে যায় বা মরে যায়। নখ ছোট থাকলে নখে ব্যথা পাওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।

২. প্রতিদিন জুতা বা ফ্লোর থেকে নখে ময়লা জমতে পারে। তাই প্রতিদিন গোসলের সময় ও ঘুমানোর পূর্বে নখ হালকাভাবে হলেও পরিষ্কার করতে হবে। একটি ছোট ব্রাশ ব্যবহার করতে হবে, যা নখের স্বল্প গভীরের ময়লা পরিষ্কার করতে পারবে, এতে জীবাণু জমবে না ও নখে ইনফেকশন হবেনা।

৩. নখ কাটার সময় আঙ্গুলের সাথে মিল রেখে কাটতে হবে, আঙুলের মাংসের নিচে যেন না আসে এবং নখের কোণাগুলো গোল আকৃতি হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। এতে নখ শক্ত থাকবে এবং কোনাগুলো ধারালো হবে না।

৪. নখ কাটার পরে নখের ধার কমাতে এমারি বোর্ড ব্যবহার করা হয়। এটি দিয়ে পায়ের নখ ঘষার সময় সামনের দিকে কোনার অংশ থেকে নমনীয়ভাবে ঘষতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে, এটি বেশি পুরনো ও ধারহীন যেন না হয়। এতে নখের আকার নষ্ট হয়ে যাবে।

৫. পায়ে পানি লাগলে বা পা ধোয়ার পর দ্রুত শুকাতে হবে। কারণ ভেজা থাকলে নখ নরম হয়ে যায়। এতে সহজেই ভেঙ্গে যেতে পারে।

৬. পা পরিষ্কারের পরে লোশন জাতীয় ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে। এছাড়াও পা শুষ্ক হয়ে আসলে বা নখে ব্যথাভাব হলে লোশন ম্যাসাজ করতে হবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/30/1564463098976.jpg

৭ জুতার সাথে মোজা ব্যবহার করা হলে, বাসায় এসে মোজা ধুয়ে দিতে হবে। একই মোজা পরপর পরা উচিত নয়। এতে মোজায় জমে থাকা জীবাণু বারবার নখে জমতে থাকবে। নিয়মিত মোজা ধোয়ার জন্য পর্যাপ্ত সময় না থাকলে দুই-তিনটা মোজা রাখতে হবে।

৮. মাসে ২-৩ বার সময় করে একটি বড় পাত্রে বা বালতিতে গরম পানি নিয়ে কিছুক্ষণ পা চুবিয়ে বসে থাকতে পারেন। সাথে সামান্য শ্যাম্পু বা পরিষ্কারক লিকুইড মিশিয়ে নিতে পারেন। এতে জমে থাকা ময়লাগুলো চলে যাবে।

৯. লেবু নখ পরিষ্কারের এবং নখ সাদা রাখতে ও জীবাণু থেকে রক্ষার জন্য খুব কার্যকরী। টুকরো লেবু নিয়ে নখের উপর এর রস ঘষে কিছুক্ষণ পা রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে।

নখের ক্ষেত্রে এছাড়া যা করা উচিত নয়, সে সম্পর্কেও কিছুটা জেনে রাখা প্রয়োজন।

১. নখের পাশে থাকা বাড়তি চামড়া টেনে উঠানো উচিত নয়, এতে ইনফেকশন হবে ও আপনি ব্যাথাও পাবেন।

২. কোনোকিছু দিয়ে নখের খুব বেশি ভেতরে গুঁতানো যাবে না, এতে নখ ভেঙ্গে যেতে পারে ও ক্ষতি হতে পারে।

৩. নেইলপলিশ ও নেইল রিমুভার যথাসম্ভব কম ব্যবহার করতে হবে। কারণ এতে থাকা রাসায়নিক দ্রব্যে নখ নষ্ট হয়ে যায় ও অতিরিক্ত শক্ত হয়ে যেতে পারে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/30/1564463120332.jpg

৪. জুতা পরার সময় খেয়াল রাখতে হবে, জুতা যেন বেশি আঁটসাঁট না হয়। এতে নখে চাপ পরে নখ ভেঙ্গে যেতে পারে। আবার রক্ত জমে নখ নিজে থেকে নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

পায়ের নখের সমস্যা থাকলে বা নখের মধ্যে রক্ত জমাট হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। এছাড়াও নখের নিজে নিজে কোনো ধরণের ঔষধ লাগানো উচিত না। এতে নখের ইনফেকশন হতে পারে এবং এর ফলে পায়ের বড় ক্ষতি হতে পারে।

আরও পড়ুন: প্রাকৃতিক তেলে পায়ের যত্ন

আরও পড়ুন: আর্দ্রতা ও সৌন্দর্য হারাচ্ছে পা?

আপনার মতামত লিখুন :