দিনাজপুরে সেই মুক্তিযোদ্ধার ঘটনায় এসিল্যান্ডসহ দু'জন প্রত্যাহার



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, দিনাজপুর
বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন

বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন

  • Font increase
  • Font Decrease

ছেলের চাকরিচ্যুত এর প্রতিবাদে দিনাজপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন অভিমান করে মৃত্যুর পর রাষ্ট্রীয় মর্যাদা প্রত্যাখানের ঘটনায় সেই আলোচিত এসিল্যান্ড আরিফুল ইসলাম এবং সহকারী কমিশনার মহসেন উদ্দিনকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

রংপুর বিভাগীয় কমিশনারের গঠন করা তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মো. জাকির হোসেন তাদের প্রত্যাহার করেন।

তবে ডিসিকে প্রত্যাহারের দাবিতে ডিসি অফিসের সামনে সোমবার (২৮ অক্টোবর) প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন করে মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানেরা।

এর আগে “জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে হঠাৎ যদি আমার মৃত্যু হয়, আমাকে যেন রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন না করা হয়। কারণ এসিল্যান্ড, ইউএনও, এডিসি, ডিসি যারা আমার ছেলেকে চাকরিচ্যুত, বাস্তুচ্যুত করে পেটে লাথি মেরেছে, তাদের সালাম-স্যালুট আমার শেষ যাত্রার কফিনে আমি চাই না।”

দিনাজপুর আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপিকে লিখে যাওয়া চিঠির প্রেক্ষিতে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ছাড়াই সমাধিত করা হয় বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেনকে। এ ঘটনায় তোলপাড় শুরু হয়। রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ছাড়াই মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেনের দাফনের বিষয়টি মুক্তিযোদ্ধা ও জেলাবাসীর মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভ সৃষ্টি হয়।

ফুঁসে ওঠার প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসন ছেলের হারানো চাকরি ও বাড়ি ফেরত দিতে চাইলেও তা প্রত্যাখান করেন মুক্তিযোদ্ধার পরিবার। এ পরিবারটি সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে দোষী বক্তিদের শান্তি দাবি করেন।