রাজমিস্ত্রি সুজন হত্যার রহস্য উদঘাটন, গ্রেফতার ৪



উপজেলা করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, পীরগাছা (রংপুর)
গ্রেফতারকৃত নিলুফা আক্তার নিশা ও নাসিমা আক্তার, ছবি: বার্তা২৪.কম

গ্রেফতারকৃত নিলুফা আক্তার নিশা ও নাসিমা আক্তার, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

রংপুরের পীরগাছায় রাজমিস্ত্রি সুজন হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। এ হত্যার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে সাবেক প্রেমিকা নিলুফা আক্তার নিশাসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়।

বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে নিলুফা আক্তার নিশা হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়ে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। পরে তাদেরকে জেলহাজতে পাঠানো হয়। এর আগে বৃহস্পতিবার ভোরে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- উপজেলার অন্নদানগর ইউনিয়নের রেজাউল করিমের স্ত্রী নিলুফা আক্তার নিশা (২৪), আব্দুল জলিলের স্ত্রী নাসিমা আক্তার (৪৫), ছেলে নাজমুল হক (৩৫) ও একই এলাকার নিজাম উদ্দিনের ছেলে নুরুল হক (৩৭)।

জানা গেছে, গত ২৫ জানুয়ারি রাত ১০টার দিকে উপজেলার অন্নদানগর ইউনিয়নের প্রতাব জয়সেন গ্রামের (ডারার পাড়) ইদ্রিস আলীর ছেলে সুজনের মোবাইলে অজ্ঞাত একটি নাম্বার থেকে ফোন আসে। ওই সময় ফোনে কথা বলতে বলতে বাড়ি থেকে বের হয়ে যান সুজন। এরপর আর বাড়িতে ফিরে আসেননি তিনি।

গত ২৯ জানুয়ারি দুপুরে বাড়ির পাশের একটি ফাঁকা মাঠে সুজনের মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয় পরিবারের লোকজন। পরে দুপুর ২টার দিকে ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

মূলত বেশ কিছু দিন আগে রেজাউল করিমের স্ত্রী নিলুফা আক্তার নিশার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে সুজনের। এরপর প্রেম ভেঙে যায়। কিন্তু সুজন ফের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলার জন্য নিলুফা আক্তার নিশাকে বিরক্ত করেন। এ কারণে তাকে হত্যা করা হয়।

পীরগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম বার্তা২৪.কমকে জানান, মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। পরে নিলুফা আক্তার নিশা আদালতে হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।