প্রস্তুত বইমেলা, পর্দা উঠছে রোববার



ঢাবি করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
প্রস্তুত একুশে গ্রন্থমেলা, ছবি: বার্তা২৪.কম

প্রস্তুত একুশে গ্রন্থমেলা, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

অমর একুশে গ্রন্থমেলার প্রস্তুতি পর্ব শেষ। অপেক্ষা শুধু পর্দা ওঠার। আগামী রোববার (২ ফেব্রুয়ারি) বেলা ৩টায় পর্দা উঠছে এবারের গ্রন্থমেলার। বাংলা একাডেমিতে মেলার উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী চলে যাওয়ার পরই সবার জন্য মেলা উন্মুক্ত থাকবে।

শনিবার (১ ফেব্রুয়ারি) সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, বই প্রেমীদের স্বাগত জানাতে নানা আলপনায় সাজানো হয়েছে মেলা প্রাঙ্গণ। শেষ সময়েও নিজেদের স্টল সাজসজ্জাকরণে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন প্রকাশক ও কর্মচারীরা। কেউ নতুন বই সাজাচ্ছেন, কেউবা পুরনো বইগুলোকে শোভা পাইয়ে দিচ্ছেন বিভিন্নভাবে।

বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে এবারের বইমেলা তার (বঙ্গবন্ধু) নামে উৎসর্গ করা হয়েছে। বইমেলায় শিখর, সংগ্রাম, মুক্তি ও অর্জন-এ চার ধাপে ফুটে উঠবে বঙ্গবন্ধুর জীবনী। বঙ্গবন্ধুর লেখা তৃতীয় গ্রন্থ ‘আমার দেখা নয়া চীন’ থাকছে মেলার বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে।

বইমেলায় প্রস্তুত হচ্ছে স্টল ও প্যাভিলিয়ন

এছাড়া ২০২২ সাল পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর জীবনীকে উপলক্ষ করে ধারাবাহিকভাবে ১০০ বই প্রকাশের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

আয়োজক কমিটির সূত্রে জানা যায়, এবারের বইমেলায় ৫৬০টি প্রতিষ্ঠানকে ৮৭৩ ইউনিটের স্টল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে ১২৬টি প্রতিষ্ঠানকে ১৭৯ ইউনিট ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ৪৩৪টি প্রতিষ্ঠানকে ৬৯৪ ইউনিটের স্টল ও ৩৪টি প্যাভিলিয়ন বরাদ্দ দেওয়া হয়।

বাংলা একাডেমিতে ৮৬টি ও উদ্যানে ২০৬টিসহ এক ইউনিটের ২৯৪টি স্টল, বাংলা একাডেমিতে ৬০টি ও উদ্যানে ২৩০টিসহ দুই ইউনিটের ২৯০টি স্টল, বাংলা একাডেমিতে ২১টি ও উদ্যানে ১৫৬টিসহ তিন ইউনিটের ১৭৭টি স্টল এবং বাংলা একাডেমিতে ১২টি ও উদ্যানে ১০০টিসহ চার ইউনিটের ১১২টি স্টল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।