'তুই রে বসন্ত সমীরণ'



ড. মাহফুজ পারভেজ, অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের অনিন্দ্য প্রকৃতিতে বসন্তের আবহ, ছবি: বার্তা২৪.কম

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের অনিন্দ্য প্রকৃতিতে বসন্তের আবহ, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বসন্ত শুধুই ঋতু নয়। নয় কেবলই প্রকৃতির অপার পালাবদল। প্রকৃতির দীপ্তিতে আর মানুষের হৃদয়ের বহুবর্ণা আলো ও রঙের হিল্লোলে বসন্ত হলো এক অলৌকিক স্পর্শময়তা।

কাতর শীত শেষে চিরায়ত বাঙালির কাছে বসন্ত আসে জীবন ও যৌবনের তীব্র চাঞ্চল্যের স্পন্দন জাগানিয়া রোমান্টিক শিহরণে, জীবনের নবতর এক আলেখ্যে। মানুষ ও প্রকৃতির কাছে বসন্ত আসে নবপ্রাণে, নব নব উদ্ভাসে।

এই অপরূপ বসন্ত কেবলই আনন্দের? উৎসব ও উপভোগের? বসন্তের সাথে বিষাদের কোনও সংযোগ নেই?

আছে। প্রত্যক্ষে না হলেও পরোক্ষে আছেই। যেমন ভাবে আলোর পাশে অন্ধকার, রাতের পাশে দিন, প্রাপ্তির পাশে অপ্রাপ্তি আছে, তেমনি আনন্দের পাশে আছে বেদনা। বসন্তের আলোকোজ্জ্বল আনন্দধারার মধ্যে অন্তঃসলিলার মতো প্রবহমান রয়েছে বিপরীত চিত্র।

আনন্দ ও উচ্ছ্বাসের বসন্তকে স্বয়ং রবীন্দ্রনাথের লেখায় পাওয়া যায় অন্তর্গত বেদনায়, যদিও তিনি বসন্ত বন্দনাতে অকৃপণ। তাঁর অংশগ্রহণ ও নির্দেশনায় শান্তি নিকেতনের 'বসন্ত উৎসব' বাঙালির প্রাণের উষ্ণতায় উদ্বেলিত। চিরায়ত বাঙালির সাংস্কৃতিক জীবনে সকলের সম্মিলিত প্রয়াসে ও ধর্মনিরপেক্ষ আবহে 'বসন্ত উৎসব' রূপান্তরিত হয়েছে সর্বজনের জাতীয় উদযাপনে।

তথাপি, রবীন্দ্রনাথের 'ভগ্নহৃদয়' গ্রন্থের একটি গানে তিনিই বলেছেন, 'তুই রে বসন্ত সমীরণ/তোর নহে সুখের জীবন।'

১৮৮১ সালে রচিত রবীন্দ্রনাথের এই গানটির স্বরলিপিকার ইন্দিরা দেবী। গানটি ঝাঁপতালে কাফি রাগে গীত। বসন্ত নিজে বাতাস, বাগান সর্বত্র দিবানিশি বিচরণ করে এবং প্রকৃতি আর জগৎসংসারকে আলোকিত করেও বেদনার্ত।

বসন্ত নিজে যে সুখী নয়, এ কথাটিই বার বার উল্লেখ করেছেন রবীন্দ্রনাথ। বলেছেন, 'নদীরে জাগায়ে দিস/লতারে রাগায়ে দিস/চুপিচুপি করিয়া চুম্বন/তোর নহে সুখের জীবন।'

রবীন্দ্রনাথের কম-গীত, অপ্রচলিত গানের একটি, 'তুই রে বসন্ত সমীরণ' গানটি প্রায়ই শুনি অদিতি মহসিনের কণ্ঠে আর ভাবি, যাপনের পথে পথে অনেকগুলো ঘোলাটে রেল স্টেশন, নীল পোস্ট অফিস, গ্র্যান্ডফাদার্স ক্লকের তামাটে পেন্ডুলাম পেরিয়ে আসে চিরন্তন বসন্ত। শুধুই আনন্দ আনে? বেদনায় দায়ভার টেনে টেনে নিয়ে আসেনা পুষ্পিত বক্ষপিঞ্জরে কিংবা আমাদের চারপাশের ফুলেল বাসন্তী আয়োজনের অদেখা নিভৃতির গোপন অলিন্দে?

চিত্তের সাথে চিন্তার রাখিবন্ধনে, আনন্দ ও বেদনার মিতালিতে, আত্মা সবুজ হলেই মানুষ দেখা পায় প্রকৃত বসন্তের। তেমন বসন্ত যদি আসে কখনও, ধন্য হয় মানবজীবন, পূর্ণ হয় জীবনের বিবরে অতিক্রান্ত যাপন কাল।

বসন্ত এসেছে, বসন্ত আসুক, এমনই বসন্ত হয়ে, শাশ্বত বসন্তের চিরায়ত মাধুর্য নিয়ে, মানুষের কাছে, অন্তরে-বাহিরে, প্রকৃতিতে, দেশে দেশে, সারা বিশ্বে।

   

‘পেঁয়াজ ছাড়া রান্না-বান্না’ নিয়ে বইমেলায় মৃত্তিকা দেবনাথ

  ‘এসো মিলি প্রাণের মেলায়’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

অমর একুশে বইমেলা- ২০২৪-এ রান্নাবিষয়ক ভিন্নধর্মী এক বই নিয়ে লেখক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছেন সংগীতশিল্পী মৃত্তিকা দেবনাথ।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) বাংলা একাডেমির বইমেলায় প্রকাশিত হয় তার ‘পেঁয়াজ ছাড়া রান্না-বান্না’ বইটি। বইটি প্রকাশ করেছে- শুদ্ধপ্রকাশ।

পেঁয়াজ ছাড়া রান্না বইটিতে রয়েছে- পেঁয়াজ ছাড়াই মাছ, মাংস, ডিম, শুঁটকি ও বিভিন্ন সবজি রান্নার কৌশল, রান্নার প্রস্তুতিপর্বের নির্দেশনার পাশাপাশি রান্না সহজ করার গুরুত্বপূর্ণ কিছু টিপস।

সেই সঙ্গে রান্নায় লবণ বা ঝাল বেশি হলে স্বাভাবিক করার কিছু সহজ কৌশল। মাছ, মাংস, ডিম, শুঁটকি ও বিভিন্ন সবজি মিলে পাঁচ পর্বে প্রায় ৭০টি রেসিপি গ্রন্থিত হয়েছে বইটিতে।

লেখার শুরুতেই একটি রান্না শেখার গল্পের মাধ্যমে লেখক বুঝিয়ে দিয়েছেন, নিজের অভিজ্ঞতা ও বিচক্ষণতা দিয়েই কেবল নিজের রান্নার শিল্পবোধটিকে জাগিয়ে তোলা সম্ভব।

বইটির আশীর্বাণী লিখেছেন ও প্রচ্ছদ করেছেন প্রতিযশা চিত্রশিল্পী ও কথাশিল্পী ধ্রুব এষ। রয়েল সাইজের সম্পূর্ণ রঙিন বইটির মুদ্রিত মূল্য ৭০০ টাকা। অমর একুশে বইমেলায় বইটি পাওয়া যাচ্ছে, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ‘শুদ্ধপ্রকাশ’-এর ১২১ নম্বর স্টলে।

মৃত্তিকা দেবনাথ বাংলাদেশ টেলিভিশনের (বিটিভি) তালিকাভুক্ত একজন রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন গানের সুর, স্বরলিপি ও মিউজিক করে থাকেন। সংগীত ও রান্নাবিষয়ক তার একাধিক বই প্রকাশের অপেক্ষায় রয়েছে।

;

বইমেলায় সামিহা মাহজাবিন অর্চি’র ‘পালংকি রহস্য’

  ‘এসো মিলি প্রাণের মেলায়’



নিউজ ডেস্ক
বইমেলায় সামিহা মাহজাবিন অর্চি’র ‘পালংকি রহস্য’

বইমেলায় সামিহা মাহজাবিন অর্চি’র ‘পালংকি রহস্য’

  • Font increase
  • Font Decrease

কোনো বিখ্যাত কবির কবিতার বিখ্যাত চরণ নয়, এটি ধাঁধা! পাহাড় গর্ভের এক অজানা বৈভব খুঁজে বের করবার ধাঁধা! প্রাচীন একটি পাণ্ডুলিপিতে লেখা রয়েছে এ ধাঁধা। যা খুঁজে বের করতে উঠে পড়ে লাগে এক তরুণ ও এক কিশোরী, শুভ ও সুহানী।

বাবা-মা’র সাথে তারা বেড়াতে এসেছে কক্সবাজার। সমুদ্র-স্নান, সূর্যাস্ত দেখার ফাঁকে তাদের হাতের নাগালে আসে একটি পাণ্ডুলিপি। নিজেদের অজান্তেই সুহানী ও শুভ জড়িয়ে পড়ে পাণ্ডুলিপিটির রহস্যময় জটিল ধাঁধার জালে।

ধাঁধাটির সমাধান পেলেই তারা পেয়ে যাবে এক অজানা, অমূল্য গুপ্তধনের সন্ধান! কিন্তু এ গুপ্তধন কার? কী রয়েছে এ গুপ্তধনের মধ্যে?

এসব প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে পরিস্থিতি জটিল থেকে আরও জটিলতর হতে থাকে। রহস্য যত ঘন হয়, বুকের ধুকপুকানি তত বাড়ে। অনেক প্রশ্ন জড়ো হয়।

সুহানী ও শুভ কি খুঁজে পাবে জটিল ধাঁধার সমাধান? তারা কি পারবে গুপ্তধনের রহস্য উদ্ধার করতে? যে গুপ্তধনের ইতিহাসের সাথে জড়িয়ে রয়েছে ‘কক্সবাজার’ নামকরণের ইতিহাস।

কিন্তু ধাঁধার সমাধান খুঁজে পাবার আগেই পাণ্ডুলিপিটি হারিয়ে যায়। তবে কি ধাঁধার সমাধান, পাণ্ডুলিপিটির মর্মার্থ রহস্যাবৃতই থেকে যাবে? সুহানী ও শুভ কি আবার উদ্ধার করতে পারবে প্রাচীন পাণ্ডুলিপিটি?

তাদের সামনে এসে সমাধান ছাড়াই সমুদ্রের অগুনতি ঢেউয়ের মতো মিলিয়ে যাচ্ছে। এসব প্রশ্নের তল-থই খুঁজে পাবে কী না তারা? তা জানতে চাইলে পড়তে হবে সামিহা মাহজাবিন অর্চি’র শিহরণ জাগানো, রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতায় সমৃদ্ধ পরিপূর্ণ রহস্য-উপন্যাস ‘পালংকি রহস্য’।

;

বইমেলায় প্রকাশিত হলো- ‘সুষুপ্ত পাঠক এর কথোপকথন’

  ‘এসো মিলি প্রাণের মেলায়’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

অমর একুশে বইমেলা- ২০২৪ উপলক্ষে প্রকাশিত হয়েছে ‘সুষুপ্ত পাঠক এর কথোপকথন’। এটি মূলত ইতিহাসখ্যাত মনীষীদের সঙ্গে কথোপকথনের ভিত্তিতে কল্পিত সাক্ষাৎকার।

লিখেছেন ব্লগার ও লেখক সুষুপ্ত পাঠক। তিনি মূলত ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসব্যাপী ক্ষণিক স্ফূলিঙ্গ ‘গণজাগরণ মঞ্চ’-এর একজন নেপথ্য নায়ক।

দেশে একসময় মুক্তিযুদ্ধের পক্ষশক্তি কোনো কথা বলতে পারতো না। এর বিরুদ্ধে দেশের একদল তরুণ প্রজন্ম ব্লগ লিখে মুক্তিযুদ্ধ, একাত্তরের চেতনা, ’৭২-এর সংবিধান, বিজ্ঞানমুখি শিক্ষাব্যবস্থা, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তোলার সপক্ষে জনমত গড়ে তোলা চেষ্টা করেন।

তারা শহিদজননী জাহানারা ইমামের নেতৃত্বে গণআন্দোলন গড়ে তুলতে হাতে কলম তুলে ধরেন।

তাদেরই একজন সুষুপ্ত পাঠক। ২০১৩ সালের গণজাগরণ মঞ্চের সংগঠকদের যখন একের পর এক হত্যা করতে থাকে মৌলবাদী শক্তি, তখন অনেকেই জীবন বাঁচাতে দেশ ছাড়েন। কেউ কেউ ব্লগ লেখা বন্ধ করে আত্মগোপনে চলে যান।

কিন্তু ব্যতিক্রমদের একজন সুষুপ্ত পাঠক। তার কলম যেন আরো ক্ষুরধার হয়ে ওঠে। আজ পর্যন্ত তাঁর কলম থেমে থাকেনি। তাঁকে একের পর এক হত্যার হুমকি দেওয়া হলেও তিনি কখনো থেমে যাননি।

২০২৪ সালেও তাঁর লেখা বহমান। তাঁর লেখা পাণ্ডলিপি কোনো প্রকাশক আগে প্রকাশ করতে সাহস করেননি জীবনহানি ও হয়রানির আশঙ্কায়। তবে ২০২৪ সালের অমর একুশে বইমেলা উপলক্ষে ‘সব্যসাচী প্রকাশনী’র প্রকাশক শতাব্দী ভব সুষুপ্ত পাঠকের পাণ্ডলিপি ‘সুষুপ্ত পাঠক এর কথোপকথন’ বই আকারে প্রকাশ করেছে।

বইটির ভূমিকায় সুষুপ্ত পাঠক লিখেছেন- ঐতিহাসিক চরিত্র নিয়ে গল্প উপন্যাস নতুন কিছু নয়। সেসব চরিত্রদের মুখে লেখক যেসব সংলাপ যোগান তার সবই ইতিহাসে মেলে না। এটুকু স্বাধীনতা লেখক পেতেই পারেন। কিন্তু কিছুতে যেন ইতিহাস বিকৃত না হয়, সেদিকে লেখক সতর্ক দৃষ্টি রাখেন।

এই বইতে আমি ঐতিহাসিক ব্যক্তিদের সঙ্গে ইন্টারভিউয়ের মতো করে আলাপ করেছি। পারতপক্ষে তাদের মুখে এমন কিছু বলাইনি যেটা তাদের জীবন ও কর্মের সঙ্গে সাংঘর্ষিক্। আমাদের সময়কাল নিয়ে তাদের দু-একটি উক্তি নিতান্তই ফিকশন হিসেবে ধরতে হবে।

এরকম আলাপ চলতিপথে আমার মাথার মধ্যে দুটি কণ্ঠস্বর হয়ে আমাকে প্রায়ই আনমনা অন্যমনস্ক করে তোলে। এই বদ অভ্যাস থেকে কিছু লেখা বের হবার পর পাঠকদের বিপুল আগ্রহ তৈরি হয়।

ইতিহাসের রসকষহীন পৃষ্ঠার চাইতে গল্পের মতো করে ইতিহাস পাঠ যে, তাদের আগ্রহের হেতু বলাই বাহুল্য। সেই অনুপ্রেরণায় অনেকগুলো লেখা জমে যাবার পর সবগুলো লেখা এক মলাটে রাখার সিদ্ধান্ত নিই।

‘সব্যচাষী’র শতাব্দী ভব সেই ইচ্ছাকে বাস্তব করতে এগিয়ে আসেন। নিঃসন্দেহে দুঃসাহসের একটি কাজ।

এমন সব মানুষদের নিয়ে কথা বলেছি, যাদের কয়েকজন মনীষী হিসেবে ইতিহাস স্বীকৃত। তাদের সঙ্গে আমার কথোপকথন কখনো সীমা লঙ্ঘন করেছে কিনা জানি না। তবে আমি নিজের কাছে সৎ থাকার চেষ্টা করেছি। সত্যনিষ্ঠ ও বস্তুনিষ্ঠ থাকার চেষ্টা করেছি। বাকিটা পাঠক বিবেচনা করবেন।

বইটিতে সূচি হিসেবে রয়েছে- গৌতম বুদ্ধ; ঈশ্বর বিদ্যাসাগর; রোকেয়া, শ্রীচৈতন্যদেব; অ্যাটম বোমার খলনায়ক; সিরাজ সিকদার; গজনীর সুলতান মাহমুদ; সম্রাট আকবর, মীর মোশাররফ হোসেনের মন; বাবুরনামা ও ভারতের ইতিাস; ভারতের দাসজীবন; কবি জসীম উদদীনের ‘জীবনকথা’ ও গ্রামবাংলার জীবনে ওহাবিজমের থাবা; রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠাতার বিরোধিতা করেছিলেন; বঙ্কিমের দুর্গেশনন্দিনী।

বইয়ের মোট পৃষ্ঠাসংখ্যা ১১২। প্রচ্ছদ এঁকেছেন- আল নোমান। মুদ্রিত মূল্য- ৪০০ টাকা। বইমেলায় ২৫% ছাড়ে ৩০০ টাকা। প্রথম প্রকাশ- একুশে বইমেলা ২০২৪। বইটি পাওয়া যাচ্ছে, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সব্যসাচী প্রকাশনীর স্টলে।

;

কওমি মাদরাসা নিয়ে সিদ্দিকুর রহমান খানের অনবদ্য গ্রন্থ

  ‘এসো মিলি প্রাণের মেলায়’



ডেস্ক রিপোর্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কওমি ঘরানা নিয়ে সমৃদ্ধ গ্রন্থ না থাকার আক্ষেপ ঘোচালো ‘কওমি মাদরাসা: একটি অসমাপ্ত প্রকাশনা’। গ্রন্থটির লেখক সিদ্দিকুর রহমান খান। শিক্ষা সাংবাদিকতায় দীর্ঘ সময়ে গভীর অনুসন্ধানী একগুচ্ছ প্রতিবেদনের সঙ্গে হালনাগাদ সব এক্সক্লুসিভ তথ্য জুড়ে তিনি বইটি সাজিয়েছেন। অতি বিরল ও গোপনীয় নথির সংযোজন এই প্রকাশনাকে আরো অতুলনীয় করে তুলেছে। কওমি মাদরাসা নিয়ে নির্ভরযোগ্য কোনো বইয়ের জন্য যারা হা-পিত্যেশ করছেন, তাদের হাতে স্বস্তির বারতা হয়ে উঠতে পারে এই বই।

বইটির ফ্ল্যাপে লেখা আছে, একগুচ্ছ শঙ্কা ও প্রশ্ন গোয়েন্দা রিপোর্ট জুড়ে। উইকিলিকসের তারবার্তাও বাইরে নয়। প্রশ্নগুলো প্রকাশ্যে ও অপ্রকাশ্যে ডালপালা গজিয়েছে সর্বত্র। বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের উত্থানপর্বের আগে-পরে এই চিত্রটিও বিস্ময়ের জন্ম দিয়েছে। সংসদের ভেতরেও প্রশ্ন ছিলো কওমি মাদরাসার উত্থান নিয়ে। এ ধারার শিক্ষক-শিক্ষার্থী অভিভাবকদের এন্তার প্রশ্নেরও সদুত্তর ছিলো না।

এ সংক্রান্ত সব জবাবই ছিলো ধোঁয়াশামাখা। জাতীয় শিক্ষানীতির খসড়াতেও সেক্যুলার শব্দ বাতিল করিয়ে আলোচনার কেন্দ্রে আসেন কওমিধারার ধারক-বাহকরা। অর্থের সন্দেহজনক উৎস, উসকানি, মৌলিক সংরক্ষণবাদী গোষ্ঠীর সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগ --এসব প্রশ্নবোধকের জবাব খুঁজতেই একজন সিদ্দিকুর রহমান খানের অনুসন্ধান। সদরে, অন্দরে, সর্বক্ষেত্রে। কী হয়েছিল খালেদা জিয়া, ইয়াজউদ্দিন, ফখরুদ্দীন ও শেখ হাসিনা সরকারের জমানায়?

সাংবাদিক ও লেখক সিদ্দিকুর রহমান খানের সৃজনশীলতার শুরু কবি জীবনানন্দ দাশের আজন্মসুধা ধানসিঁড়ির প্রতিবেশী নলছিটির সুগন্ধার পাড়ে। ১৯৯১ খ্রিষ্টাব্দের কোনো এক স্নিগ্ধ হাওয়ায় গা ভাসিয়েছেন কাগজে লেখার স্বপ্নে। তারপর তার কলম এগিয়েছে অভিজ্ঞতার অম্ল-মধুরতায়। লিখে লিখে জীবিকায়নের মাধ্যমটা সব সময়ই ছিলো ইংরেজি। দৈনিক নিউ এইজ, ইনডিপেন্ডেন্ট এবং বাংলাদেশ টুডেসহ কয়েকটি দৈনিক ও সাপ্তাহিকে।

শিক্ষার বর্ষসেরা রিপোর্টার হিসেবে একাধিকবার মিলেছে ‘মহামান্য রাষ্ট্রপতির সৌজন্যে’ পুরস্কার। রিপোর্টার হিসেবে পেয়েছেন আরো অনেক স্বীকৃতি ও পুরস্কার। আর শিক্ষার নানা বিশ্লেষণ বাংলায় গণপাঠকের মন ও মানসে পৌঁছে দিতে নিজের সম্পাদিত দৈনিক শিক্ষাডটকম ছাড়াও বেছে নিয়েছিলেন ইত্তেফাক, প্রথম আলো, যুগান্তর, সমকাল, সকালের খবরসহ বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক।

বর্তমানে শিক্ষা বিষয়ক দেশের একমাত্র জাতীয় প্রিন্ট পত্রিকা দৈনিক আমাদের বার্তার প্রধান সম্পাদক এবং শিক্ষা বিষয়ক একমাত্র পূর্ণাঙ্গ ডিজিটাল পত্রিকা দৈনিক শিক্ষাডটকম এর তিনি সম্পাদক ও প্রকাশক।

সিদ্দিকুর রহমান খানের লেখা ‘কওমি মাদরাসা: একটি অসমাপ্ত প্রকাশনা’ বইটি এবারের বইমেলায় পাওয়া যাবে ‘স্বদেশ শৈলীর স্টলে (স্টল নং ৫০৭)। 

;