ভ্যালেন্টাইন ডে’র কেনাকাটা জমবে নগদ পেমেন্টে



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ভ্যালেন্টাইন ডে’র কেনাকাটা জমবে নগদ পেমেন্টে

ভ্যালেন্টাইন ডে’র কেনাকাটা জমবে নগদ পেমেন্টে

  • Font increase
  • Font Decrease

বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষ্যে জমজমাট অফার নিয়ে এসেছে মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস নগদ। বিভিন্ন মার্চেন্ট থেকে কেনাকাটা করলে গ্রাহকেরা পাচ্ছেন সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ক্যাশব্যাক। এ ছাড়া প্রতিদিন সর্বোচ্চ টাকার কেনাকাটা করা গ্রাহক পাবেন ঢাকা-কক্সবাজার-ঢাকা বিমানের কাপল টিকিট।

৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ভালোবাসা দিবস উপলক্ষ্যে নগদ-এর ক্যাশব্যাক ক্যাম্পেইন চলবে। এই ক্যাম্পেইন চলাকালীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে কেনাকাটা করলে নগদ ব্যবহারকারীরা পাবেন সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ক্যাশব্যাক। নগদ অ্যাপ অথবা *১৬৭* ডায়াল করে এই কেনাকাটা করা যাবে। পাশাপাশি অনলাইন পেমেন্ট গেটওয়ের মাধ্যমেও উপভোগ করা যাবে দারুণ এই ছাড়।

এ ছাড়াও ৭ থেকে ১৯ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রতিদিন সর্বোচ্চ কেনাকাটা করা গ্রাহক পাবেন ঢাকা-কক্সবাজার-ঢাকা বিমানের কাপল টিকিট। নির্দিষ্ট কিছু মার্চেন্টের ক্ষেত্রে ক্যাশব্যাক অফারটি ১৯ ফেব্রুয়ারি শেষ হয়ে যাবে।

সবমিলিয়ে ৯০টিরও বেশি মার্চেন্টে নগদ ব্যবহারকারীরা এই ছাড় পাবেন। এরমধ্যে বাটা, এপেক্স (অনলাইন), লোটো (অনলাইন), এসএসবি লেদার, শেফস টেবিল, রেমন্ড, কে ক্রাফট, মোনার্ক মার্ট-এর মতো মার্চেন্ট থাকছে এই ক্যাম্পেইনে। এই ৯০টিরও বেশি প্রতিষ্ঠানে কেনাকাটায় সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ক্যাশব্যাক।

এই অফার নিয়ে নগদ-এর চিফ কমার্শিয়াল অফিসার মো. সিহাবউদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘নগদ তারুণ্যের উৎসবকে আরও রঙ্গীন করতে চায়। বিশ্ব ভালোবাসা দিবস সব বয়সের মানুষের তরুণ মনের উৎসব। আমরা এই উৎসবে মানুষের আনন্দটা ডিজিটাল লেনদেনের মাধ্যমে আরও রাঙিয়ে দিতে চাই। সে জন্যই আমরা এই ক্যাম্পেইন নিয়ে এসেছি।’

প্রতিদিনের সর্বোচ্চ লেনদেন করা গ্রাহককে ফোন করে তার বিমানের টিকিট পাওয়ার ব্যাপারটি নিশ্চিত করা হবে। নগদ কাস্টমার কেয়ার থেকে তিনবার ফোন করা হবে। এরপরও ওই গ্রাহক ফোন রিসিভ না করলে সর্বোচ্চ লেনদেনকারী পরবর্তী গ্রাহককে বেছে নেওয়া হবে। গ্রাহকের পরিচয় নিশ্চিত করার জন্য তার কাছ থেকে জাতীয় পরিচয়পত্রসহ কিছু প্রমাণ চাইবেন কাস্টমার কেয়ার প্রতিনিধি। উল্লেখ্য, কোনোভাবেই পিন বা ওটিপি কেউ গ্রাহকের কাছে চাইবেন না। অন্য কেউ এই গোপন নম্বরসমূহ চাইলে সে ফাঁদে পা না দেওয়ার জন্য সতর্ক করছে নগদ কর্তৃপক্ষ।

ফোন করে নিশ্চিত করার ৭ দিনের মধ্যে ওই গ্রাহককে টিকিট বুঝিয়ে দেওয়া হবে। বিজয়ীরা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স-এর টিকিট পাবেন। ফলে টিকিট বিষয়ক সমস্ত দায়িত্ব বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ বহন করবে।

   

কর ও ভ্যাট কোনো বোঝা নয়: এনবিআর চেয়ারম্যান



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
কর কোনো বোঝা নয়: এনবিআর চেয়ারম্যান

কর কোনো বোঝা নয়: এনবিআর চেয়ারম্যান

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড-এনবিআর’র চেয়ারম্যান ও অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম বলেছেন, কর ও ভ্যাট কোনো বোঝা নয়। বরং এটি দেশের উন্নয়নে গর্বিত অংশীদার হওয়ার মাধ্যম।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে রংপুর শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের প্রাক বাজেট আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আমদানি নির্ভরতা, সিজন পরিবর্তন ও সিন্ডিকেটের কারণে জিনিসপত্রের দাম বাড়লেও করের বোঝাটাই সবার কাছে মাথা ব্যথার কারণ, এই মানসিকতা থেকে সবাইকে বের হতে হবে।

রংপুর চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি বাজেট শীর্ষক এ আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

এনবিআর’র চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম বলেন, কর ও ভ্যাট শব্দটি দীর্ঘদিন ধরে জনমনে যে নেতিবাচক মনোভাব তৈরি করেছে তা দূর করতে হবে। জনগণের কর ও ভ্যাটের টাকায় দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, বিগত চার বছরে ২১ লাখ থেকে ৩৬ লাখে করদাতা এবং ২ লাখ থেকে ৫ লাখে ভ্যাটদাতা উন্নীতকরণ করা হয়েছে। ধীরে ধীরে করনেট ও ভ্যাটের আওতায় বাড়ানো হচ্ছে। পাশাপাশি আয়কর ও ভ্যাট প্রদানে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে রংপুর চেম্বারের সভাপতি মো. আকবর আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (শুল্ক নীতি) মো. মাসুদ সাদিক ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (কর নীতি) এ কে এম বদিউল আলম।

এসময় আগামী বাজেটে সহজ ও ব্যবসাবান্ধব আয়কর ব্যবস্থা, আয়কর ও ভ্যাটের আওতা বৃদ্ধি, কর ব্যবস্থার সম্পূর্ণ অটোমেশন, স্থানীয় শিল্পায়ন উৎসাহিতকরণ এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বিনিয়োগ বান্ধব পরিবেশ নিশ্চিতকরণের ওপর জোর দাবি জানিয়েছেন রংপুর চেম্বারের নেতৃবৃন্দ।

;

গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স ও নগদের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড এবং নগদ লিমিটেড একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে, যা বাংলাদেশের সাধারণ বীমা শিল্পে একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ।

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) এ চুক্তি স্বাক্ষর হয়।

একটি মোবাইল আর্থিক পরিষেবা প্রতিষ্ঠান এবং একটি নন-লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির মধ্যে এই ধরণের অংশীদারিত্ব বাংলাদেশে প্রথম, যার প্রধান লক্ষ্য বাংলাদেশি জনসাধারণের জন্য বীমা পরিষেবাগুলোকে সহজলভ্য এবং সাশ্রয়ী করা।

গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্সের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক - সৈয়দ মঈনউদ্দীন আহমেদ এবং নগদের নির্বাহী পরিচালক - মারুফুল ইসলাম ঝলক তাদের নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। এছাড়াও গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্সের হেড অব ডিজিটাল বিজনেস মনিরুজ্জামান খান, ফিনান্স কন্ট্রোলার সৈয়দ আলিউল আহবাব, নগদ লিমিটেডের হেড অব ফিনান্সিয়াল ইনস্টিটিউশন মোহাম্মদ বায়েজিদ সহ দুই প্রতিষ্ঠানের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এই চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্সের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ মঈনউদ্দীন আহমেদ বলেন, “নগদের সাথে এই অংশীদারিত্বে আমরা রোমাঞ্চিত, কারণ সাধারণ বীমা শিল্পে এমন অংশীদারিত্বের নজির এটিই প্রথম। এই অংশীদারিত্বের ফলশ্রুতিতে গ্রাহকরা এখন থেকে গ্রীন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্সের যেকোনো শাখায় নগদের মাধ্যমে তাদের প্রিমিয়াম পরিশোধ করতে পারবেন। অদূর ভবিষ্যতে, গ্রাহকরা ও জনসাধারণ খুব সহজেই নগদ অ্যাপ থেকে সরাসরি আমাদের বীমা পলিসি কিনতে সক্ষম হবে। আমরা আশা করি এই অংশীদারিত্ব ইন্স্যুরেন্স সেবাকে মানুষের কাছে আরও সহজলভ্য করে বীমা শিল্পকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে একটি বড় ভূমিকা পালন করবে।”

নগদের নির্বাহী পরিচালক মারুফুল ইসলাম ঝলক চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে বলেন, "শুরু থেকেই নগদ সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন কার্যক্রমকে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে তুলে আনতে কাজ করে যাচ্ছে। সে লক্ষ্যে আরও বেশি মানুষকে ডিজিটাল লেনদেনে অভ্যস্থ করতে চাই। তারই অংশ হিসেবে গ্রীন ডেল্টা ইন্সুরেন্সের সাথে অংশীদারিত্বের চুক্তি করেছি আমরা। এই চুক্তির ফলে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষও নগদ থেকে সহজেই ইন্সুরেন্স প্রিমিয়াম প্রদান করতে পারবেন এবং স্মার্টাইজেশনের দিকে দেশ আরেকটু এগিয়ে যাবে।"

;

বাংলাদেশ সফরে আসছেন বিশ্বব্যাংকের এমডি অ্যানা বেজার্ড



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশ সফরে আসছেন বিশ্বব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) অ্যানা বেজার্ড। বাংলাদেশে এটি তার প্রথম সফর।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় একদিনের সফরে ঢাকায় পৌঁছাবেন বলে জানিয়েছে বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিস।

বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিস জানায়, অ্যানা বেজার্ড বাংলাদেশে আসার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, অর্থমন্ত্রী এবং অন্যান্য ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তা, সুশীল সমাজ এবং বেসরকারি খাতের নেতাদের সঙ্গে দেখা করবেন। তার সঙ্গে থাকবেন দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন রাইসার।

বিশ্বব্যাংক জানায়, স্বাধীনতার পর বাংলাদেশকে সহায়তাকারী প্রথম উন্নয়ন সহযোগীদের মধ্যে বিশ্বব্যাংক ছিল অন্যতম। দেশ স্বাধীনের পর বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশে ৪১ বিলিয়নের বেশি প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। এই ঋণের বেশিরভাগই অনুদান বা রেয়াতি ঋণ। বাংলাদেশে বর্তমানে বিশ্বব্যাংক গ্রুপের ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট অ্যাসোসিয়েশন (আইডিএ) দ্বারা সমর্থিত বৃহত্তম চলমান কর্মসূচি রয়েছে।

;

১০ হাজার কোটি টাকার সম্পদ নিয়ে দ্বন্দ্বে ট্রান্সকম গ্রুপের উত্তরাধিকারীরা



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
শাযরেহ হক, সিমিন রহমান, শাহনাজ রহমান (বাম থেকে)

শাযরেহ হক, সিমিন রহমান, শাহনাজ রহমান (বাম থেকে)

  • Font increase
  • Font Decrease

ট্রান্সকম কোম্পানির শেয়ার ও অর্থসম্পদ নিয়ে দ্বন্দ্বে মা শাহনাজ রহমান (ট্রান্সকম গ্রুপের চেয়ারম্যান) এবং বোন সিমিন রহমানসহ (ট্রান্সকম গ্রুপের সিইও) আটজনের নামে পৃথক তিনটি মামলা করেছেন প্রয়াত শিল্পপতি লতিফুর রহমানের ছোট মেয়ে শাযরেহ হক। সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা আইকনিক ব্যবসায়ী লতিফুর রহমানের মৃত্যুর পর তার রেখে যাওয়া ১০ হাজার কোটি টাকার (সমপরিমাণ) সম্পদের বণ্টন নিয়ে দ্বন্দ্বে জড়িয়েছেন তার স্ত্রী-সন্তানরা। 

দায়েরকৃত মামলার অভিযুক্তরা হলেন- সিমিন রহমান, শাহনাজ রহমান, ট্রান্সকম গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক (করপোরেট অ্যাফেয়ার্স-আইন) মো. ফখরুজ্জামান ভূঁইয়া, পরিচালক (করপোরেট ফাইন্যান্স) কামরুল হাসান, পরিচালক (করপোরেট ফাইন্যান্স) আবদুল্লাহ আল মামুন, সহকারী কোম্পানি সচিব মোহাম্মদ মোসাদ্দেক, ব্যবস্থাপক (কোম্পানি সেক্রেটারি) আবু ইউসূফ মো. সিদ্দিক ও সিমিন রহমানের ছেলে এবং ট্রান্সকম লিমিটেডের হেড অফ ট্রান্সফরমেশন যারাইফ আয়াত হোসেন।

বৃহস্পতিবার (২২ফেব্রুয়ারি) লতিফুর রহমানের ছোট মেয়ে শাযরেহ হক তার মা শাহনাজ রহমান এবং বড় বোন সিমিন রহমানের বিরুদ্ধে বিশ্বাসভঙ্গ, জালিয়াতি এবং প্রতারণার অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেন। নথি জাল করে পারিবারিক সম্পত্তির ন্যায্য অংশ থেকে  তাকে এবং তার ভাই আরশাদ ওয়ালিউর রহমানকে বঞ্চিত করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। লতিফুর রহমান মারা যাওয়ার আগে ১০ হাজার কোটি টাকারও বেশি সম্পত্তি রেখে গেছেন বলেও দাবি করেন শাযরেহ হক।

তিনটি মামলায় তাৎক্ষণিক ব্যবস্থায় একই দিনে সিমিন রহমান ও শাহনাজ রহমানকে গ্রেফতার করা হয়। সেই সাথে তাদের (সিমিন রহমান ও শাহনাজ রহমান) সঙ্গে যোগসাজশের অভিযোগে অভিযুক্ত পাঁচ কর্মকর্তাকেও গ্রেফতার করেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। বাকি তিনজনকে খুঁজছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- মো. ফখরুজ্জামান ভূঁইয়া, কামরুল হাসান, আবদুল্লাহ আল মামুন, মোহাম্মদ মোসাদ্দেক ও আবু ইউসূফ মো. সিদ্দিক।

গুলশান থানার ২০ নম্বর মামলার এজাহারে বাদী শাযরেহ হক উল্লেখ করেছেন, তার বড় বোন সিমিন রহমান ট্রান্সকম লিমিটেডের ২৩ হাজার ৬০০ শেয়ার থেকে তাকে এবং তার ভাই আরশাদ ওয়ালিউর রহমানকে বঞ্চিত করে জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে নিজের নামে করে নেন। এতে সহযোগিতা করেন ফখরুজ্জামান ভুঁইয়া, কামরুল হাসান, মোহাম্মদ মোসাদ্দেক এবং আবু ইউসুফ। বাবা লতিফুর রহমানের মৃত্যুর পর তিনি এসব জানতে পারেন বলে উল্লেখ করেন। এই জালিয়াতিতে যে সই ও টিপসই ব্যবহার করা হয়েছে সেগুলো তাদের না বলে মন্তব্য করেন তিনি। তবে বিষয়টি নিয়ে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনি নোটিশ দেওয়া হলেও তারা কর্ণপাত করেননি। তাই তিনি থানায় অভিযোগ দিয়েছেন।

২১ নম্বর মামলার এজাহারে শাযরেহ হক অভিযোগ করেন, তার বাবা মারা যাওয়ার আগে রেখে যাওয়া ১০ হাজার কোটি টাকার বেশি সম্পত্তি দুই বোন এক ভাইয়ের মধ্যে সমভাবে বণ্টন করেননি বড় বোন ও মা। তারা বেশি শেয়ার হস্তগত করতে অসৎ উপায়ে কয়েকজনের সহায়তায় মনগড়া ‘ডেথ অব সেটেলমেন্ট’ করেন। সেটেলমেন্টে তার বাবা লতিফুর রহমান, তার ভাই আরশাদ ওয়ালিউর রহমানের স্বাক্ষর জাল করা হয় বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

আরেক মামলার এজাহারে শাযরেহ হক আরও বলেন, লতিফুর রহমান মারা যাওয়ার সময় বিভিন্ন ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এবং এফডিআরে প্রায় ১০০ কোটি টাকা রেখে যান, যা শরিয়া অনুয়ায়ী তিনিসহ তার ওয়ারিশরা পাওয়ার কথা। কিন্তু মা শাহনাজ রহমান ওই টাকার নমিনি (ট্রাস্টি) হওয়ায় সেই টাকা নিজের অ্যাকাউন্টে সরিয়ে ফেলেন। পরবর্তীতে ৬০ কোটি টাকা দিয়ে ট্রান্সকম লিমিটেডের ১৮ শতাংশ কেনার বায়না করেন। সেই শেয়ার পরে সিমিন রহমানকে দান করা হয়। 

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ১ জুলাই শিল্পপতি লতিফুর রহমান কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে নিজ বাসভবনে মারা যান। তার এক ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছেন। ২০২০ সালের ২৭ জুলাই প্রয়াত লতিফুর রহমানের স্ত্রী শাহনাজ রহমান ট্রান্সকমের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হন। প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) হন তার বড় মেয়ে সিমিন রহমান। বর্তমানে মামলা তদন্ত করছেন পিবিআই-এর পরিদর্শক আলাউদ্দিন।

;